হোম / ওয়াকফ/মসজিদ/ঈদগাহ / পরিত্যক্ত মসজিদের স্থানে পাঠাগার নির্মাণ করা যাবে কি?
বিস্তারিত জানতে ছবির উপর টাচ করুন

পরিত্যক্ত মসজিদের স্থানে পাঠাগার নির্মাণ করা যাবে কি?

প্রশ্ন

হুজুর আমার প্রশ্ন হল,  পরিত্যক্ত পুরাতন মসজিদ এর জায়গায় পাঠাগার করা জায়েজ  আছে কিনা

উত্তর

السلام ورحمة الله وبركاته

بسم الله الرحمن الرحيم

মসজিদ একবার মসজিদ হবার পর থেকে কিয়ামত পর্যন্ত তা মসজিদে হিসেবেই বাকি থাকে। সেটিকে অন্য কোন কাজে ব্যবহার করা জায়েজ নয়। মসজিদ পরিত্যক্ত হলেও তার পূর্ণ সম্মান রক্ষা করতে চেষ্টা করা আবশ্যক। আর উক্ত মসজিদকে একদম বিরান করা ঠিক নয়। কমপক্ষে পাঞ্জেগানা জামাত চালু রাখা উচিত। যদি তা সম্ভব না হয়, তাহলে সেটিকে চারিদিকে দেয়াল দিয়ে ঘিরে রাখবে। যেন উক্ত স্থানের সম্মান নষ্ট না হয়। উক্ত স্থানে পাঠাগার নির্মাণ বৈধ হবে না।

لو خرب ما حوله وقد استغنى الناس عنه لبناء مسجد آخر يبقى مسجدا عند الامام والثانى فلا يعود ميراثا ولا يجوز نقله ونقل ماله إلى مسجد آخر سواء كانوا يصلون فيه او لا، (الدر المختار مع الشامى، كتاب الوقف، مطلب فيما لو خرب او غيره-4/358، كرتاشى، البحر الرائق-5/251، النهر الفائق-3/330)
لا يجوز نقض المسجد ولا بيعه ولا تعطيله وان خربت المحلة (تفسير قرطبى، سورة بقرة، الآية-114-1/7، تفسير المراغى-1/198، تفسير بيضاوى-1/386)

وعن عطاء: لما فتح الله تعالى الأمصار على يد عمر رضى الله عنه أمر المسلمين أن يبنوا المساجد وأن لا يتخذوا في مدينة مسجدين يضارّ أحدهما صاحبه. (الكشاف عن حقائق غوامض التنزيل، سورة توبة، الأية-107-2/214، تفسير روح المعانى-11/21، تفسير قرطبى-175/1)

والله اعلم بالصواب

উত্তর লিখনে

লুৎফুর রহমান ফরায়েজী

পরিচালক-তালীমুল ইসলাম ইনষ্টিটিউট এন্ড রিসার্চ সেন্টার ঢাকা।

ইমেইল- ahlehaqmedia2014@gmail.com

Print Friendly, PDF & Email
বিস্তারিত জানতে ছবির উপর টাচ করুন

এটাও পড়ে দেখতে পারেন!

অযু ছাড়া আজান দেবার হুকুম কী?

প্রশ্ন : মুহতারাম , আমাদের মুয়াজ্জিন সাহেব ফজরের সময় ভুলে ওজু ছাড়া আজান দিয়ে ফেলেছেন …

Leave a Reply