প্রচ্ছদ / তালাক/ডিভোর্স/হুরমত / স্ত্রী স্বামীকে বলল “আমি তোমাকে ছাইড়া দিলাম” এর দ্বারা কি তালাক হয়?

স্ত্রী স্বামীকে বলল “আমি তোমাকে ছাইড়া দিলাম” এর দ্বারা কি তালাক হয়?

প্রশ্ন

হুজুর

আমার বিবি আমার একটা কথায় খুব কষ্ট পায়। আমি তার বংশ নিয়ে একটা কথা বলি। আর ওকে রাগাইলে গরগর করতে থাকে।

মাথা কিছু কাজ করে না।  তো আমার কথায় ও রাগে বলে যে, “আমি আর তোমার সাথে থাকতে চাই না তুমি এই সম্পর্কের কি করবা কর ছাড়াছাড়ির ব্যবস্থা কর”।

আমি তখন বলি যে, “আমার তোমারে নিয়া কোন শিকায়াত নাই।  আমি ছাড়বো না। তোমারে আমি তোমারে নিয়া খুশি। কিন্তু আমার কথায় তুমি কস্ট পাইছ। তাই তোমার যদি মনে হয় আমি তোমার ওপর জুলুম করছি তাইলে তুমি আমারে ছাইড়া দিতে পারো। আমারে এখন ছাইড়া দাও”।

পরে ও কিছু বলে না। আমি বার বার বলতেই আছি যে, “আমারে ছাইড়া দাও। তোমার যদি মনে হয় আমি তোমার ওপর জুলুম করছি তাইলে তুমি আমারে ছাইড়া দিতে পারো”।

এমন বলার পর ও একবার বলে শুধু যে, “ছাইড়া দিলাম”।

পরে আমি বলি যে “একবারে হয় না তিনবার ছাড়ো”।

ও পরে বলে যে, “আমি এই মাসে একবার বললাম, সামনের মাসে আর একবার দিব যদি তুমি না সুধরাও”।

পরের দিন আবার ও আমার সাথে আবার মিলে যাওয়ার চেষ্টা করে। আমারে কল দেয়।

তখন আমি ওরে বলি যে, “তুমারে আমি কাল রাতে আমারে ছাড়তে বলছি। তুমি আমারে বলছো ছাইড়া দিলাম এখন আর আমাদের মাঝ কিছু বাকি নাই। আর তুমি বলছো আমারে যে ছাইড়া দিলাম।

এখন এইটা যা হওয়ার হইয়া গেছে। এখন তো আমি তোমার কাছে হারাম। তুমি আমার কাছে হারাম তাইনা? তাহলে কল দিছ কেন এখন আর কিছু বাকি নাই”।

পরে ও বলে যে, “আমি একটা দিসি। একবার বলছি ছাইড়া দিলাম। আর এইটাও বলছি যে, একটা দিছি। সামনের মাসে দিব আরেকটা। এখন আমি তোমারে আবার ফিরাইয়া নিলাম।

পরে আমিও ওর কথায় রাগ ভেঙ্গে যায়। আমরা আবার এক হইয়া যাই। আর আল্লাহর কাছে তওবা করি।

 

১ এখন কি ওর “ছাইড়া দিলাম” এই কথায় কি আমরা একেবারে হারাম হইয়া গেছি? আমাদের কি তালাক হয়ে গেছে?

২ আর আমি যে বলছি “আমাদের মাঝে কিছু বাকি নাই আর তুমি বলছো আমারে যে ছাইড়া দিলাম এখন এইটা যা হওয়ার হইয়া গেছে এখন তো আমি তোমার কাছে হারাম তুমি আমার কাছে হারাম”

এই কথায় কি আমরা আসলেই হারাম হয়ে গেছি ?

আমরা খুব পেরেসানিতে আছি হুজুর আসা করি তাড়াতাড়ি পাব ফায়সালা আপনার।

উত্তর

بسم الله الرحمن الرحيم

তালাক দেবার মৌলিক অধিকার স্বামীর। কেবলমাত্র স্বামী কর্তৃক অধিকার বলে স্ত্রী নিজের উপর তালাক পতিত করতে পারে। কিন্তু স্বামীকে তালাক দিতে পারে না।

কিন্তু প্রশ্নোক্ত সূরতে স্ত্রী স্বামীকে তালাক প্রদান করেছে। এতে করে তালাক কার্যকর হয় না।

 

যেহেতু তালাকই পতিত হয়নি। সুতরাং তাই স্ত্রীর কথায় তালাক হয়েছে ধারণা করে যে কথাগুলো পরবর্তীতে বলা হয়েছে এসবের দ্বারা যদি নতুন কোন তালাকের নিয়ত না করে, বরং পূর্বের তালাক হিসেবে বলে থাকে, তাহলে এর দ্বারাও কোন তালাক পতিত হয়নি।

সুতরাং আপনারা এখনো স্বামী স্ত্রী হিসেবে বাকি রয়েছেন। কোন সমস্যা নেই।

ومحله المنكوحة واهله زوج عاقل بالغ مستيقظ (الدر المختار مع رد المحتار-4/431، مجمع الانهر-2/4، النهر الفائق-2/310

وفي رد المحتار- وأنواعه ثلاثة : تفويض ، وتوكيل ، ورسالة وألفاظ التفويض ثلاثة : تخيير وأمر بيد ، ومشيئة . (رد المحتار-كتاب الطلاق، باب تفويض الطلاق-4/452


يشترط بالاتفاق القصد فى الطلاق، وهو إرادة التلفظ به ولو لم ينو فلا يقع طلاق فقيه يكره ولا طلاق حاك عن نفسه أو غيره لأنه لام يقصد معناه، بل قصد التعليم والحكاية، (الفقه الاسلام وادلته، كتاب الطلاق، باب شروط الطلاق-7/368)

لو كرر مسائل الطلاق بحضرة زوجته ويقول: أنت طالق ولا ينوى طلاقا لا تطلق، (فتح القدير، كتاب الطلاق، باب ايقاع الطلاق-4/4

والله اعلم بالصواب
উত্তর লিখনে
লুৎফুর রহমান ফরায়েজী

পরিচালক ও প্রধান মুফতী-তা’লীমুল ইসলাম ইনস্টিটিউট এন্ড রিসার্চ সেন্টার ঢাকা।

ইমেইল– ahlehaqmedia2014@gmail.com

আরও জানুন

সেলুনে চুল কাটার পর গোসল ফরজ কি?

প্রশ্নঃ সেলুনে চুল কাটার পর গোসল ফরজ কি? উত্তর بسم الله الرحمن الرحيم চুল কাটার …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *