প্রচ্ছদ / তাবলীগ জামাত / ঘরে বিবি কন্যাদের রেখে তাবলীগী সফরে দীর্ঘদিন থাকার কোন শরয়ী ভিত্তি আছে কি?

ঘরে বিবি কন্যাদের রেখে তাবলীগী সফরে দীর্ঘদিন থাকার কোন শরয়ী ভিত্তি আছে কি?

প্রশ্ন

আসাল্মুয়ালায়কুম!
হুজুর আমি ফ্রান্স থেকে বলছি,আমি প্রায় তাবলীগের কাজ করতে গিয়া একটা প্রবলেম এ পরি আর তা হলো সবাই প্রশ্ন করে
১- আমাদের নবিজি কি কখনো তার বিবিদের রেখে অন্য জায়গায় গিয়া ৪০ বা ১২০ রাত্রি যাপন করেছেন কি না আর যদি করেন তার রেফারন্স কি?
২-ঘরে বিবি উপযোক্ত বোন বা মেয়ে রেখে কি তাবিলিগে যাওয়া যাবে তার রেফারেন্স ?

উত্তর

بسم الله الرحمن الرحيم

আপনি প্রথমে একটি প্রশ্নের জবাব দিন। যদি কোন রেফারেন্স না পাওয়া যায় যে, রাসূল সাঃ বা রাসূল সাঃ এর আদেশে সাহাবায়ে কেরাম ৪০ দিন বা এর চেয়ে বেশি সময় বিবি-বাচ্চা রেখে বাহিরে থেকেছেন। তাহলে কি আপনি বলবেন যে, অর্থ কামানোর জন্য বিবি-বাচ্চা রেখে বিদেশে গিয়ে ৪০ দিন বা এর চেয়ে বেশি সময় থাকা হারাম?
যদি তাই বলে থাকেন, তাহলে আপনি এ প্রশ্ন করতে পারেন। আর যদি বলেন, যে না এটি হারাম নয়। তাহলে দ্বীনের প্রচারের জন্য বাহিরে থাকাতে পরিবারের প্রতি এত অযথা দয়া উপছে উঠছে কেন?

টাকা কামানোর জন্য বিদেশ গমন করে বছরের পর বছর পরে থাকলেও এ নিয়ে প্রশ্ন না করে, দ্বীনের কাজে বাহিরে থাকায় প্রশ্ন কেন? দ্বীনের কাজের সাথে এত দুশমনী কেন?

قُلْ إِن كَانَ آبَاؤُكُمْ وَأَبْنَاؤُكُمْ وَإِخْوَانُكُمْ وَأَزْوَاجُكُمْ وَعَشِيرَتُكُمْ وَأَمْوَالٌ اقْتَرَفْتُمُوهَا وَتِجَارَةٌ تَخْشَوْنَ كَسَادَهَا وَمَسَاكِنُ تَرْضَوْنَهَا أَحَبَّ إِلَيْكُم مِّنَ اللَّهِ وَرَسُولِهِ وَجِهَادٍ فِي سَبِيلِهِ فَتَرَبَّصُوا حَتَّىٰ يَأْتِيَ اللَّهُ بِأَمْرِهِ ۗ وَاللَّهُ لَا يَهْدِي الْقَوْمَ الْفَاسِقِينَ [٩:٢٤]

বল, তোমাদের নিকট যদি তোমাদের পিতা তোমাদের সন্তান, তোমাদের ভাই তোমাদের পত্নী, তোমাদের গোত্র তোমাদের অর্জিত ধন-সম্পদ, তোমাদের ব্যবসা যা বন্ধ হয়ে যাওয়ার ভয় কর এবং তোমাদের বাসস্থান-যাকে তোমরা পছন্দ কর-আল্লাহ, তাঁর রসূল ও তাঁর রাস্তায় জেহাদ তথা চেষ্টা-মেহনত [কিতাল ফী সাবীলিল্লাহ, তাবলীগী সফর] করা থেকে অধিক প্রিয় হয়, তবে অপেক্ষা কর, আল্লাহর বিধান আসা পর্যন্ত, আর আল্লাহ ফাসেক সম্প্রদায়কে হেদায়েত করেন না। {সূরা তাওবা-২৪}

এ আয়াতে স্পষ্ট ভাষায় সন্তান সন্ততি, স্ত্রী আর বাসস্থানের মোহাব্বতে আল্লাহর রাস্তায় বের না হওয়ার ব্যাপারে কঠিন হুশিয়ারী উচ্চারিত হয়েছে। যা স্পষ্ট প্রমাণ করে যে, পরিবারের প্রতি খেয়াল রাখার ঠুনকো ওজুর দেখিয়ে এ থেকে বিরত থাকা সরাসরি আল্লাহর ধমকিতে নিপতিত হওয়ার নামান্তর।
তবে সফরকালীন সময়ে পরিবারের ভরনপোষনের ব্যবস্থা অবশ্যই করে যেতে হবে। এটা ভিন্ন বিষয়। কিন্তু দ্বীনী সফরই করা যাবে না পরিবার থাকায়। এটি দ্বীন সম্পর্কে অজ্ঞতার পরিচয়।

পরিবার ছাড়া সাহাবাদের দ্বীনী সফর

রাসূল সাঃ পবিত্র স্ত্রীগণকে রেখে একত্রে ২৯ দিন অন্যত্র অবস্থান করেছেন মর্মে স্পষ্ট বর্ণনা হাদীসে এসেছে। {সহীহ বুখারী, হাদীস নং-৪৯৮৪}
রাসূল সাঃ পরিবার সঙ্গে না নিয়ে একাধিক সফর করেছেন। আর রাসূল সাঃ এর আদেশে সাহাবায়ে কেরাম রাঃ বছরের অধিক সময়ও পরিবার ছাড়া দ্বীনী সফরে রত ছিলেন। কয়েকটি উদাহরণ দেয়া হল,

১-

عن البراء « أن النبي صلى الله عليه وسلم بعث خالد بن الوليد إلى أهل اليمن يدعوهم إلى الإسلام ، قال البراء : فكنت فيمن خرج مع خالد بن الوليد فأقمنا ستة أشهر ندعوهم إلى الإسلام فلم يجيبوه ، ثم إن النبي صلى الله عليه وسلم بعث علي بن أبي طالب رضي الله عنه فأمره أن يقفل خالدا إلى رجل كان ممن يمم مع خالد ، ومن أحب أن يعقب مع علي فليعقب معه ، قال البراء فكنت فيمن عقب مع علي ، فلما دنونا من القوم خرجوا لنا فصلى بنا علي ثم صفنا صفا واحدا ، ثم تقدم بين أيدينا وقرأ عليهم كتاب رسول الله صلى الله عليه وسلم ، فأسلمت همدان جمعا ، فكتب علي إلى رسول الله صلى الله عليه وسلم بإسلامهم ، فلما قرأ رسول الله صلى الله عليه وسلم الكتاب خر ساجدا ، ثم رفع رأسه فقال : » السلام على همدان ، السلام على همدان « أخرجه البخاري في الصحيح مختصرا من وجه آخر عن إبراهيم بن يوسف

অর্থঃ হযরত বারা রাঃ বলেন যে, রাসূলুল্লাহ সাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম ইয়ামান প্রদেশে তাবলীগের উদ্দেশ্যে হযরত খালীদ ইবেন ওয়ালিদ রাদিয়াল্লাহু আনহুকে পাঠান। আমিও তাঁদের সাথে ছিলাম। আমরা দীর্ঘ ৬মাস যাবত সেখানে দাওয়াত ও তাবলীগের কাজ অনবরত করে চলেছিলাম, কিন্তু তাদের কেউ তখনো আমাদের দাওয়াত কবুল করছিলো না। অতপর হযরত আলী রাযিয়াল্লাহু আনহুকে রাসূল আমীরের দায়িত্ব দিয়ে খালীদ রাযিয়াল্লাহু কে ফিরে যেতে বলেন এবং তাঁর সাথে যারা ফিরতে চায় তারা ফিরতে পারবে আর যারা থেকে যেতে চায় তারা থাকতে পারে। আমি হযরত আলী রাযিয়াল্লাহু আনহুর সাথে আরো সময় বাড়িয়ে নিলাম।

অতপর, আলী রাযিয়াল্লাহু আনহু আমাদেরকে নিয়ে নামাজ আদায় করলেন। পরে আমরা কাতারবন্দী হয়ে দাঁড়ালাম, এরপরে তিনি আমাদের মাঝে এগিয়ে এসে রাসূলুল্লাহর দাওয়াতনামা পড়ে শুনালেন। সাথে সাথে হামদান গোত্রের সবাই একই সাথে ইসলাম কবুল করে নিলেন।

এই খুশির সংবাদ লিখে হযরত আলী রাযিয়াল্লাহু আনহু রাসূলুল্লাহর নিকট পত্র পাঠালেন। যখন রাসূল উক্ত পত্রখানি পড়লেন, তখন সেজদায় লুটিয়ে পড়লেন। অতপর, মাথা উঠিয়ে বললেন, হামদানগোত্রের উপর শান্তি বর্ষিত হোক, হামদানগোত্রের উপর শান্তি বর্ষিত হোক।

অন্য রেওয়াতে আছে, উক্ত জামাত নিয়ে হযরত আলী রাযিয়াল্লাহু আনহু ৪ মাস পর ফিরে এলেন, বিদায় হজ্বের সময়। অতএব, উভয় আমীরের নেতৃত্বে আমাদের সময় অতিবাহিত হলো, প্রায় ১ বৎসর। (দালায়েলুন নবুয়্যাহ লিলবায়হাকী, হাদীস নং-২১৩২, হায়াতুস সাহাবাহ, ১ম খ, পৃষ্ঠাঃ ১৭৯/ ১৪০, বুখারী শরীফ ২য় খন্ড, কিতাবুল মাগাজী।
২-
হযরত খালিদ বিন ওয়ালিদ রাঃ এর নেতৃত্বে জামাত। ১ম হিজরীর রবিউল আউয়াল মাস থেকে ছয় মাস পর্যন্ত নাজরান ও ইয়ামেনে অবস্থান করেন। {বুখারী-২/৬২৩, তাবারী-৩/১২৬, ইবনে খালদুন-১/৮২৮}
৩-
হযরত আলী রাঃ এর নেতৃত্বে ১ম হিজরীতে চার মাসের সফর হামাদানও ইয়ামেনে। {বুখারী-২/৬২৩, তাবারী-৩/১৩১-১৩২, ইবনু সাআদ-২/১৬৯-১৭২}
৪-
হযরত জারীর বিন আব্দুল্লাহ রাঃ এর নেতৃত্বে বাজীলাহ ও ইয়ামানে ২ মাসের সফর। {তাবারী-৩/১৫৮, ইবনে সাআদ-২/২৬৬, ইবনে খালদুন-১/৮৪৫}
৫-
হযরত জারীর বিন ইবনে আব্দুল্লাহ রাঃ এর নেতৃত্বে বাজীলাহ ও ইয়ামানে ২ মাসের সফর। {ইবনে খালদুন-২/৮৪৫, তাবারী-৩/১৭৮, বুখারী-২/৬২৫}
৬-
হযরত তামীমে দারী রাঃ এর নেতৃত্বে লাখম উপগোত্রে ৪০ দিনের সফর। {ইবনে সাআদ-১/৩৪৩-৩৪৪, মাজমূআত-৪২-৪৩}

والله اعلم بالصواب
উত্তর লিখনে
লুৎফুর রহমান ফরায়েজী

পরিচালক-তালীমুল ইসলাম ইনষ্টিটিউট এন্ড রিসার্চ সেন্টার ঢাকা।

উস্তাজুল ইফতা– জামিয়া কাসিমুল উলুম সালেহপুর, আমীনবাজার ঢাকা।

ইমেইল– ahlehaqmedia2014@gmail.com

আরও জানুন

ইকামতের বাক্য দুইবার করে বলা সঠিক নয়?

প্রশ্ন From: মোঃ সোহাগ হোসেন বিষয়ঃ ইকামত প্রশ্নঃ আসসালামু আলাইকুম, আমাদের প্রায় প্রতি মসজিদেই ইকামত …

No comments

  1. আবু সাইদ ইবন মুখতার

    টাকা কামানোর জন্য বিদেশ গমন করে বছরের পর বছর পরে থাকলেও এ নিয়ে প্রশ্ন না করে, দ্বীনের কাজে বাহিরে থাকায় প্রশ্ন কেন? দ্বীনের কাজের সাথে এত দুশমনী কেন?

    – আমাদের সমস্যা এটাই শাইখ! সব ঠিক আছে। কিন্তু ইসলামের জন্য একটা ঘন্টা সময় দিতে গেলেই সবাই তেলে-বেগুনে জ্বলে যায়! 🙁

আহলে হক্ব বাংলা মিডিয়া সার্ভিস