প্রচ্ছদ / আহলে হাদীস / ইমাম আবূ হানীফা রহঃ ফার্সি ভাষায় নামায পড়ার অনুমতি দিয়েছেন?

ইমাম আবূ হানীফা রহঃ ফার্সি ভাষায় নামায পড়ার অনুমতি দিয়েছেন?

প্রশ্ন

আসসালামু আলাইকুম হজরত। আশা করি পবিত্র ঈদ-উল ফিতর আপনার অনেক সুন্দরভাবে কেটেছে । হজরত অনেকে ইমাম আবু হানিফা রাহিঃ এর নামে এই অপবাদ দেয় যে উনি ফার্সী ভাষায় নামাজের কিরায়াত পাঠের অনুমুতি দিয়েছেন। হজরত এই বিষয়ে বিস্তারিত লিখে অধম কে বাধিত করবেন।

উত্তর

وعليكم السلام ورحمة الله وبركاته

بسم الله الرحمن الرحيم

ইমাম আবূ হানীফা রহঃ থেকে এমন একটি কওল বর্ণিত আছে। কিন্তু এটি তার সর্বশেষ কথা নয়। এ কওল থেকে তিনি রুজু করেছেন।

সুতরাং যে কওল থেকে রুজু করেছেন সে কওল পেশ করা মারাত্মক অন্যায়।

যেমন রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম প্রথম প্রথম কবর যিয়ারত করতে নিষেধ করেছেন। তারপর আবার যিয়ারতের অনুমতি প্রদান করেছেন। এখন কবর যিয়ারত করতে নবীজী নিষেধ করেছেন বলাটা যেমন অন্যায় ও মিথ্যা হবে। তেমনি ইমাম আবূ হানীফা রহঃ যে কওল থেকে রুজু করেছেন সেই কওল উদ্ধৃত করে সমাজে ফিতনা সৃষ্টি করাটাও গর্হিত অন্যায়।

এছাড়া ফার্সি ভাষা বা অন্য ভাষায় কিরাত পাঠের অনুমতি ঐ ব্যক্তির জন্য, যিনি আরবীতে কুরআন পড়তে পারেন না। অনেক চেষ্টা করেও আরবী শিখতে পারছেন না, তিনি আরবীতে সক্ষম হবার আগে অন্য ভাষায় যদি কিরাত পাঠ করে, তাহলে তার নামায হয়ে যাবে। এটাই ইমাম আবূ হানীফা রহঃ এর ফার্সি ভাষায় কিরাত পাঠের হাকীকী অর্থ।

সুতরাং আমভাবে ফার্সি ভাষায় কিরাত পাঠের অনুমতি প্রদানের কথা বলে সমাজে ফিতনা সৃষ্টি করা ইমাম আবূ হানীফা রহঃ এর উপর অপবাদ ছাড়া কিছু নয়।

 

جوز أبو حنيفة رحمه الله القراءة بالفارسية في الصلاة ولكنهما قالا في حق من لا يقدر على القراءة بالعربية الجواب هكذا وهو دليل على أن المعنى عندهما معجز فإن فرض القراءة ساقط عمن لا يقدر على قراءة المعجز أصلا ولم يسقط عنه الفرض أصلا بل يتأدى بالقراءة بالفارسية فأما إذا كان قادرا على القراءة بالعربية لم يتأد الفرض في حقه بالقراءة بالفارسية عندهما لا لأنه غير معجز ولكن لأن متابعة رسول الله صلى الله عليه وسلم والسلف في أداء هذا الركن فرض في حق من يقدر عليه وهذه المتابعة في القراءة بالعربية إلا أن أبا حنيفة اعتبر هذا في كراهة القراءة بالفارسية فأما في تأدي أصل الركن بقراءة القرآن فإنه اعتبر ما قررناه (اصول السرخسى، فصل فى بيان الكتاب وكونه حجة، دار الكتب العلمية بيروت-1/282)

قال العيني – رحمه الله -: وأما الشروع بالفارسية أو القراءة بها فهو جائز عند أبي حنيفة مطلقا وقالا لا يجوز إلا عند العجز وبه قالت الثلاثة وعليه الفتوى وصح رجوع أبي حنيفة إلى قولهما. اهـ (تبيين الحقائق، كتاب الصلاة، فصل الشروع فى الصلاة وبيان إحرامها وأحوالها، المطبعة الكبرى الأميرية، بولاق، القاهرة-1/110-111)

ولا تجوز القراءة بالفارسية إلا بعذر عند أبي يوسف ومحمد رحمهما الله وبه يفتى. هكذا في شرح النقاية للشيخ أبي المكارم ويجوز عند أبي حنيفة – رحمه الله – بالفارسية وبأي لسان كان وهو الصحيح ويروى رجوعه إلى قولهما وعليه الاعتماد. هكذا في الهداية وفي الأسرار هو اختياري وفي التحقيق هو مختار عامة المحققين وعليه الفتوى كذا في شرح النقاية للشيخ أبي المكارم وهو الأصح. هكذا في مجمع البحرين (الفتاوى الهندية، كتاب الصلاة، الباب الرابع فى صفة الصلاة، الفصل الأول فى فرائض الصلاة، دار الفكر-1/69)

والله اعلم بالصواب
উত্তর লিখনে
লুৎফুর রহমান ফরায়েজী

পরিচালক-তালীমুল ইসলাম ইনষ্টিটিউট এন্ড রিসার্চ সেন্টার ঢাকা।

উস্তাজুল ইফতা– জামিয়া কাসিমুল উলুম সালেহপুর, আমীনবাজার ঢাকা।

পরিচালক: শুকুন্দী ঝালখালী তা’লীমুস সুন্নাহ দারুল উলুম মাদরাসা, মনোহরদী নরসিংদী।

ইমেইল– ahlehaqmedia2014@gmail.com 

আরও জানুন

জমির মালিকের উপর যাকাত আবশ্যক হবে?

প্রশ্ন আমার বাবা এবং বড় ভাইয়ের সমন্বয়ে ২০ থেকে ২২ বিঘা জমি আছে এবং বাজারে …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আহলে হক্ব বাংলা মিডিয়া সার্ভিস