প্রচ্ছদ / আকিদা-বিশ্বাস / “নবী আল্লাহ নন আবার আল্লাহ থেকে আলাদাও নন” এমন আকীদা পোষণকারীর পিছনে নামায হবে কি?

“নবী আল্লাহ নন আবার আল্লাহ থেকে আলাদাও নন” এমন আকীদা পোষণকারীর পিছনে নামায হবে কি?

প্রশ্ন

From: জাফর হোসেন
বিষয়ঃ (বেদাআতী) ইমামের পেছনে নামাজ আদায়

প্রশ্নঃ
আসসালামু আলাইকূম।
জনাব মুফতি সাহেব বর্তমানে আমি গোয়ালন্দে বসবাস করি। এখানে এলেমী ও আমলী যোগ্যতাসম্পন্ন ইমামের অভাব। আমি যে মসজিদে নামাজ আদায় করি সে মসজিদের ইমাম সাহেব মীলাদ কিয়াম করে থাকেন। তিনি পটিয়া, চট্টগ্রামের কোন এক তরিরকার (সম্ভবত দাওয়াতে খালক ইলাল্লাহ) মুরিদ, ইকামতের সময় জায়নামাজে বসে থাকেন, হাইয়া আলাছ সালাহ বললে দাঁড়ান, বেপর্দা মহিলাদের কাছে তাবিজ কবচ বিক্রি করেন, সর্বশেষ গত জুম্মার সময় কোন এক প্রসঙ্গে বলেন- “খোদা রাসূল এক না আবার জুদাও  (আলাদা) না। এরকম একজন ব্যক্তির পেছনে নামাজ আদায় করা যাবে কি না? দয়া করে উত্তর জানাবেন।

উত্তর

وعليكم السلام ورحمة الله وبركاته

بسم الله الرحمن الرحيم

রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম আল্লাহ থেকে আলাদা নন বিশ্বাসীরা মুশরিক। এমন আকীদা সম্পন্ন ব্যক্তির পিছনে নামায পড়া জায়েজ নেই।

তাই আপনাকে অন্য কোন মসজিদে নামায আদায় করতে হবে।

উক্ত ইমামের পিছনে নামায পড়লে নামায আদায় হবে না।

 

وليس حال ولا محلا (شرح الفقه الأكبر-36)

ومن زعم أن الإله سبحانه يحل فى شيء من أحاد الناس فهو كافر (إعلاء بقواطع الاسلام، بحوالة مجموعة الفتاوى-2/348)

قال ابن البطال: والله منزه عن الحلول فى المواضع: لأن الحلول عرض يفنى، وهو حادث، والحادث لا يليق الله (فتح البارى-13/475)

أن المعقول من حلول  الشيء فى  غيره كون هذا الحال تبعا لذلك المحل فى أمر من الأمور، وواجب الوجود لذاته يمتنع أن يكون تبعا لغيره، فوجب أن يمتنع عليه الحلول (اصول الدين للرازى-44)

ان الحلول فى الغير إن لم يكن صفة كمال، وجب نفيه عن الواجب، وإلا لزم كون الواجب مستكملا بالغير وهو باطل (الفتاوى الحاديثة-438، شرح المقاصد-3/39، بيروت)

وما نقل عن بعض السلف من المنع عن الصلاة خلف المبتدع فمحمول على الكراهة إذ لا كلام فى كراهة الصلاة خلف الفاسق والمبتدع هذا إذا لم يؤد الفسق أو البدعة إلى حد الكفر، أما إذا أدى إليه فلا كلام فى عدم جواز الصلاة خلفه (شرح العقائد النسفية، مكتبة نعيمية-161، النبراس، مكتبة امدادية-326)

وأطلق المصنف فى المبتدع فشمل كل مبتدع وهو من أهل قبلتنا وقيده فى المحيط والخلاصة والمجتبى وغيرها بأن لا تكون بدعة تكفره فإن كانت تكفره فالصلاة خلفه لا تجوز (البحر الرائق، كتاب الصلاة، باب الإمامة-1/610)

وإنما يجوز الاقتداء به مع الكراهة إذا لم يكن ما يعتقده يؤدى إلى الكفر عند أهل السنة، أما لو كان مؤديا إلى الكفر، فلا يجوز أصلا (عنية المستملى، كتاب الصلاة، الأولى بالإمامة-514)

 

والله اعلم بالصواب
উত্তর লিখনে
লুৎফুর রহমান ফরায়েজী

পরিচালক-তালীমুল ইসলাম ইনষ্টিটিউট এন্ড রিসার্চ সেন্টার ঢাকা।

উস্তাজুল ইফতা– জামিয়া কাসিমুল উলুম সালেহপুর, আমীনবাজার ঢাকা।

ইমেইল– ahlehaqmedia2014@gmail.com

আরও জানুন

মানুষ কি জান্নাতে চিরস্থায়ী হবে নাকি দীর্ঘস্থায়ী? রূহের কী মৃত্যু হয়?

প্রশ্ন From: Sharmin Hasan বিষয়ঃ মানুষ কি কখনো জান্নাত অথবা জাহান্নাম থেকে বিলীন হয়ে যাবে? …

Leave a Reply

Your email address will not be published.

আহলে হক্ব বাংলা মিডিয়া সার্ভিস