প্রচ্ছদ / প্রশ্নোত্তর / ওজরবিহীন বসে তারাবীহ পড়া যাবে কী?

ওজরবিহীন বসে তারাবীহ পড়া যাবে কী?

প্রশ্নঃ

আসসালামু আলাইকুম ওয়ারাহমাতুল্লাহ।
মুহতারাম, আমাদের এলাকায় কিছু মুরুব্বি এমন রয়েছে যারা মাঠে খুব পরিশ্রম করে। সেখানে দাঁড়িয়ে, কাপড় উঠিয়ে, কাত হয়ে অনেক কাজ করেন। উপুড় হয়েও কাজ করতে দেখা যায়। কিন্তু মসজিদে আসলে চেয়ারে বসে নামাজ পড়ে। বসে নামাজ পড়ে। জানার বিষয় হলো, রমজান মাসে তারাবিহের নামাজ ওজরবিহীন বসে বসে আদায় করা যাবে কী না?

নিবেদক

মাহমুদুর রহমান

পশ্চিম ছাগলনাইয়া, ফেনী।

وعليكم السلام ورحمة الله

بسم الله الرحمن الرحيم
حامدا ومصليا ومسلما
উত্তর:
তারাবীহের নামাজ সুন্নতে মুয়াক্কাদা। সুন্নতে মুয়াক্কাদা শরয়ী ওজর এবং ওজরবিহীন বসে পড়া জায়েজ আছে। চাই তা যমিনে অথবা চেয়ারে বসে আদায় করা হোক। তবে শর্ত হলো, চেয়ারে বসা অবস্থায় রুকু সিজদা করার সক্ষমতা থাকলে চেয়ারে বসে শুধু ইশারা করা যথেষ্ট হবে না।

স্মরণ রাখা উচিত যে, ওজরবিহীন এভাবে বসে নামাজ আদায় করাতে দাঁড়িয়ে নামাজ আদায় কারীর অর্ধেক সাওয়াব প্রাপ্ত হবে।

المستندات الشرعية:
أخرج الإمام مسلم رح في سننه ٥٠٧/١ : (رقم الحدیث: ٧٣٥ ، ط: دار إحیاء التراث العربی) عن عبد الله بن عمرو، قال: حدثت أن رسول الله صلى الله عليه وسلم، قال: «صلاة الرجل قاعدا نصف الصلاة»، قال: فأتيته، فوجدته يصلي جالسا، فوضعت يدي على رأسه، فقال: «ما لك؟ يا عبد الله بن عمرو» ‍قلت: حدثت يا رسول الله أنك قلت: «صلاة الرجل قاعدا على نصف الصلاة»، وأنت تصلي قاعدا، قال: «أجل، ولكني لست كأحد منكم».

جاء في الدر المختار مع رد المحتار: (٣٦/٢، ط: دار الفکر)
ویتنفل مع قدرتہ علی القیام قاعداً)… وفیہ أجر غیر النبی ﷺ علی النصف الا بعذر۔ (قولہ أجر غیر النبی ﷺ) أما النبی ﷺ فمن خصائصہ أن نافلتہ قاعداً مع القدرۃ علی القیام کنافلتہ قائماً… (قولہ علی النصف الابعذر) أمامع العذر فلا ینقص ثوابہ عن ثوابہ قائماً۔

وفي رد المحتار: (٤٤٥/١ ، ط: سعید): أقول: لكن في الحلية عند الكلام على صلاة التراويح لو صلى التراويح قاعدا بلا عذر، قيل لا تجوز قياسا على سنة الفجر فإن كلا منهما سنة مؤكدة وسنة الفجر لا تجوز قاعدا من غير عذر بإجماعهم كما هو رواية الحسن عن أبي حنيفة كما صرح به في الخلاصة فكذا التراويح، وقيل يجوز والقياس على سنة الفجر غير تام فإن التراويح دونها في التأكيد فلا تجوز التسوية بينهما في ذلك. قال قاضي خان وهو الصحيح. انتهى

وفي الھندیة : (١٣٦/١ ، ط: رشیدیة): إذا عجز المریض عن القیام صلی قاعداً و یرکع و یسجد. انتهى

والله أعلم بالصواب،

উত্তর লিখনে 
মুহা. শাহাদাত হুসাইন, ছাগলনাইয়া, ফেনী।
সাবেক শিক্ষার্থীঃ ইফতা বিভাগ
তা’লিমুল ইসলাম ইনস্টিটিউট এন্ড রিসার্চ সেন্টার ঢাকা।
সত্যায়নে
মুফতী লুৎফুর রহমান ফরায়েজী দা.বা.
পরিচালক- তা’লীমুল ইসলাম ইনস্টিটিউট এন্ড রিসার্চ সেন্টার ঢাকা।
উস্তাজুল ইফতা- জামিয়া কাসিমুল উলুম আমীন বাজার ঢাকা।

আরও জানুন

ইতিকাফের কাযা করার সময় কি রোযা রাখা শর্ত?

প্রশ্ন প্রশ্নকারীর নাম: লুৎফর রহমান ঠিকানা: খৈশাইর জেলা/শহর: নারায়ণগঞ্জ দেশ: বাংলাদেশ প্রশ্নের বিষয়: ইতিকাফ বিষয়ে …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আহলে হক্ব বাংলা মিডিয়া সার্ভিস