প্রচ্ছদ / অজু/গোসল/পবিত্রতা/হায়েজ/নেফাস / করোনা ভাইরাসের অযুহাতে মসজিদ বন্ধ করে দেয়া উচিত?

করোনা ভাইরাসের অযুহাতে মসজিদ বন্ধ করে দেয়া উচিত?

প্রশ্ন

করোনা ভাইরাসের কারণে ইউরোপসহ পৃথিবীর বিভিন্ন মসজিদে জুমা এবং ওয়াক্তের নামাজ বন্ধ করে দেওয়া হচ্ছে। হাদিসের আলোকে এই বিষয়ে আলোচনা করলে শত শত মানুষ উপকৃত হবে।

উত্তর

بسم الله الرحمن الرحيم

আমরা আগের একটি প্রশ্নোত্তরে সংক্রামক রোগ সম্পর্কে বিস্তারিত আলোচনা করেছি। সেটি দেখে নিতে পারেন।

করোনা ভাইরাস ও ছোঁয়াচে রোগঃ কী বলে ইসলাম?

করোনা ভাইরাস জাতীয় সংক্রামক রোগের ভয়ে সুস্থ্য মানুষদের জন্য মসজিদে যাওয়া নিষিদ্ধ করে দেয়া শরীয়ত সম্মত নয়। এমন কোন নজীর ইসলামের ইতিহাসে নেই।

তবে যিনি উক্ত ভাইরাসে আক্রান্ত, বা যার মাঝে উক্ত ভাইরাসের প্রাথমিক কোন লক্ষণ প্রকাশিত এমন ব্যক্তিগণকে মসজিদে আসতে বারণ করা যাবে।

কিন্তু যাদের মাঝে এ ভাইরাস নেই, তাদেরকে মসজিদে আসতে বাঁধা প্রদান করা যাবে না। মসজিদে নামায জুমআ বন্ধ করে দেয়া ধৃষ্ঠতা ছাড়া কিছু নয়।

وَمَنْ أَظْلَمُ مِمَّن مَّنَعَ مَسَاجِدَ اللَّهِ أَن يُذْكَرَ فِيهَا اسْمُهُ وَسَعَىٰ فِي خَرَابِهَا ۚ أُولَٰئِكَ مَا كَانَ لَهُمْ أَن يَدْخُلُوهَا إِلَّا خَائِفِينَ ۚ لَهُمْ فِي الدُّنْيَا خِزْيٌ وَلَهُمْ فِي الْآخِرَةِ عَذَابٌ عَظِيمٌ [٢:١١٤

যে ব্যাক্তি আল্লাহর মসজিদসমূহে তাঁর নাম উচ্চারণ করতে বাধা দেয় এবং সেগুলোকে উজাড় করতে চেষ্টা করে, তার চাইতে বড় যালেম আর কে? এদের পক্ষে মসজিদসমূহে প্রবেশ করা বিধেয় নয়, অবশ্য ভীত-সন্ত্রস্ত অবস্থায়। ওদের জন্য ইহকালে লাঞ্ছনা এবং পরকালে কঠিন শাস্তি রয়েছে। [সূরা বাকারা-১১৪]

যে কারণে অপর কোন মুসলমানের কষ্ট হয়, উক্ত ব্যক্তিদের মসজিদে আসতে বারণ করা সম্পর্কিত বর্ণনা পাওয়া যায়।

যেমন আসছেঃ

عَنِ الْمُغِيرَةِ بْنِ شُعْبَةَ، قَالَ: أَكَلْتُ ثُومًا فَأَتَيْتُ مُصَلَّى النَّبِيِّ صَلَّى اللهُ عَلَيْهِ وَسَلَّمَ وَقَدْ سُبِقْتُ بِرَكْعَةٍ، فَلَمَّا دَخَلْتُ الْمَسْجِدَ وَجَدَ النَّبِيُّ صَلَّى اللهُ عَلَيْهِ وَسَلَّمَ رِيحَ الثُّومِ، فَلَمَّا قَضَى رَسُولُ اللَّهِ صَلَّى اللهُ عَلَيْهِ وَسَلَّمَ صَلَاتَهُ قَالَ: «مَنْ أَكَلَ مِنْ هَذِهِ الشَّجَرَةِ فَلَا يَقْرَبَنَّا حَتَّى يَذْهَبَ رِيحُهَا» أَوْ «رِيحُهُ» فَلَمَّا قُضِيَتِ الصَّلَاةُ جِئْتُ إِلَى رَسُولِ اللَّهِ صَلَّى اللهُ عَلَيْهِ وَسَلَّمَ، فَقُلْتُ: يَا رَسُولَ اللَّهِ، وَاللَّهِ لَتُعْطِيَنِّي يَدَكَ، قَالَ: فَأَدْخَلْتُ يَدَهُ فِي كُمِّ قَمِيصِي إِلَى صَدْرِي فَإِذَا أَنَا مَعْصُوبُ الصَّدْرِ، قَالَ: «إِنَّ لَكَ عُذْرًا»

আল-মুগীরাহ ইবনু শু‘বাহ (রাঃ) সূত্রে বর্ণিত। তিনি বলেন, আমি রসূন খেয়ে নবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম-এর মুসল্লায় সালাত পড়তে আসলাম। তখন এক রাক‘আত শেষ হয়েছে। আমি মাসজিদে প্রবেশ করলে রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম রসুনের গন্ধ পান। তিনি তাঁর সালাত শেষ করে বললেনঃ ‘‘যে ব্যক্তি এই গাছ (রসুন) থেকে আহার করলো, তার মুখের দুর্গন্ধ দূর হওয়ার পূর্বে সে অবশ্যই যেন আমাদের নিকট না আসে।’’ আমি সালাত শেষ করে রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম-এর নিকট এসে বললাম, হে আল্লাহর রাসূল! আল্লাহর কসম! অবশ্যই আপনার হাতটা আমাকে দিন। মুগীরাহ (রাঃ) বলেন, আমি তাঁর হাত জামার ভিতর দিয়ে আমার বুক পর্যন্ত ঢুকালাম। আমার বুকে পট্টি বাঁধা ছিলো। তিনি বললেনঃ এটা তোমার জন্য ওজর। [সুনানে আবু দাউদ, হাদীস নং-৩৮২৬]

উক্ত হাদীসে বুঝা যাচ্ছে, যার কারণে অন্যদের কষ্ট হয়, তাদের জমায়েতে আসতে নবীজী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম নিরুৎসাহিত করছেন। সেই হিসেবে করোনা ভাইরাস যাদের মাঝে প্রমাণিত, বা লক্ষণ প্রকাশিত তাদের মসজিদে এবং গণজমায়েতে অংশ গ্রহণে নিষেধ করাটা যৌক্তিক।

মরণঘাতী এ ভাইরাস আসার কারণ কি?

عَنْ عَبْدِ اللَّهِ بْنِ عُمَرَ، قَالَ: أَقْبَلَ عَلَيْنَا رَسُولُ اللَّهِ صَلَّى اللهُ عَلَيْهِ وَسَلَّمَ، فَقَالَ: ” يَا مَعْشَرَ الْمُهَاجِرِينَ خَمْسٌ إِذَا ابْتُلِيتُمْ بِهِنَّ، وَأَعُوذُ بِاللَّهِ أَنْ تُدْرِكُوهُنَّ: لَمْ تَظْهَرِ الْفَاحِشَةُ فِي قَوْمٍ قَطُّ، حَتَّى يُعْلِنُوا بِهَا، إِلَّا فَشَا فِيهِمُ الطَّاعُونُ، وَالْأَوْجَاعُ الَّتِي لَمْ تَكُنْ مَضَتْ فِي أَسْلَافِهِمُ الَّذِينَ مَضَوْا

আবদুল্লাহ ইবনে উমার (রাঃ) থেকে বর্ণিত। তিনি বলেন,রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম আমাদের দিকে এগিয়ে এসে বলেনঃ হে মুহাজিরগণ! তোমরা পাঁচটি বিষয়ে পরীক্ষার সম্মুখীন হবে। তবে আমি আল্লাহর কাছে আশ্রয় প্রার্থনা করছি যেন তোমরা তার সম্মুখীন না হও। যখন কোন জাতির মধ্যে প্রকাশ্যে অশ্লীলতা ছড়িয়ে পড়ে তখন সেখানে মহামারী আকারে প্লেগরোগের প্রাদুর্ভাব হয়। তাছাড়া এমন সব ব্যাধির উদ্ভব হয়, যা পূর্বেকার লোকেদের মধ্যে কখনো দেখা যায়নি। [সুনানে ইবনে মাজাহ, হাদীস নং-৪০১৯]

হাদীস বলছে, যখন অশ্লীলতা ছড়িয়ে পড়বে, তখন মহামারী ছড়িয়ে পড়বে। এমন সব রোগ আসবে, ইতোপূর্বে যে রোগ সম্পর্কে মানুষ জানতো না।

দেখুন এ রোগের উদ্ভব চীন থেকে। যেখানে রয়েছে যৌনতা ও অশ্লীলতার ছড়াছড়ি। ভয়ানক আকার ধারণ করেছে যতগুলো রাষ্ট্রে। সবগুলো রাষ্ট্রই যৌনতা ও অশ্লীলতার দায়ে দুষ্টু। সেখান থেকেই তা বিভিন্ন জনপদে ছড়িয়ে পড়ছে। তাই আমাদের প্রথমে এসব ভয়াবহ মহামারী রোগের মূল উৎসকে বন্ধ করতে হবে।

যৌনতা ও অশ্লীলতার বিস্তৃতি বন্ধ করতে হবে। অর্ধনগ্ন বিলবোর্ড, অশ্লীল সিনেমা, পর্নগ্রাফী ইত্যাদি বন্ধ করতে হবে। শালীন ও ভদ্র জীবনে ফিরে আসতে হবে। পরিবার ও সমাজকে একটি সুস্থ্য ও শালীন জীবন এবং পরিবেশ উপহার দিতে হবে।

মসজিদে গমণ ও করোনা ভাইরাস বিষয়ে আমাদের পরামর্শ

বাসা থেকে ওজু করে মসজিদে গমণ করা।

আক্রান্ত বা প্রাথমিক লক্ষণ প্রকাশিত রোগীগণ মসজিদে গমণ না করা।

মসজিদকে সর্বদা পরিস্কার ও পরিচ্ছন্ন রাখতে সচেষ্ট থাকা। জীবানুমুক্ত রাখতে সচেতন থাকা।

অন্যের টাওয়াল, গামছা ব্যবহার পরিহার করা।

ফরজ নামায শেষে সুন্নতগুলো বাসায় আদায় করা।

মসজিদে গমণ করে অন্য মুসল্লিদের সাথে শারীরিক স্পর্শ এড়িয়ে চলা।

বেশি বেশি তওবা ইস্তিগফার করা। রব্বে কারীমের কাছে এসব আজাব থেকে মুক্তির দুআ করা।

মৃত্যু একদিন হবেই। তাই মৃত্যুর ভয়ে মসজিদ ত্যাগ নয়, বরং ইবাদতে মগ্ন হয়েই মৃত্যুকে আলিঙ্গন করা উচিত।

 

الدر المختار وحاشية ابن عابدين (رد المحتار) (1/ 661) 

(قوله وأكل نحو ثوم) أي كبصل ونحوه مما له رائحة كريهة للحديث الصحيح في النهي عن قربان آكل الثوم والبصل المسجد. قال الإمام العيني في شرحه على صحيح البخاري قلت: علة النهي أذى الملائكة وأذى المسلمين ولا يختص بمسجده – عليه الصلاة والسلام -، بل الكل سواء لرواية مساجدنا بالجمع، خلافا لمن شذ ويلحق بما نص عليه في الحديث كل ما له رائحة كريهة مأكولا أو غيره، وإنما خص الثوم هنا بالذكر وفي غيره أيضا بالبصل والكراث لكثرة أكلهم لها، وكذلك ألحق بعضهم بذلك من بفيه بخر أو به جرح له رائحة، وكذلك القصاب، والسماك، والمجذوم والأبرص أولى بالإلحاق. وقال سحنون لا أرى الجمعة عليهما. واحتج بالحديث وألحق بالحديث كل من آذى الناس بلسانه، وبه أفتى ابن عمر وهو أصل في نفي كل من يتأذى به. ولا يبعد أن يعذر المعذور بأكل ما له ريح كريهة، لما في صحيح ابن حبان عن «المغيرة بن شعبة قال انتهيت إلى رسول الله – صلى الله عليه وسلم – فوجد مني ريح الثوم فقال: من أكل الثوم، فأخذت يده فأدخلتها فوجد صدري معصوبا، فقال: إن لك عذرا» وفي رواية الطبراني في الأوسط «اشتكيت صدري فأكلته» وفيه: فلم يعنفه – صلى الله عليه وسلم -، وقوله – صلى الله عليه وسلم – «وليقعد في بيته» صريح في أن أكل هذه الأشياء عذر في التخلف عن الجماعة. وأيضا هنا علتان: أذى المسلمين وأذى الملائكة؛ فبالنظر إلى الأولى يعذر في ترك الجماعة وحضور المسجد، وبالنظر إلى الثانية يعذر في ترك حضور المسجد ولو كان وحده اهـ ملخصا

أقول: كونه يعذر بذلك ينبغي تقييده بما إذا أكل ذلك بعذر أو أكل ناسيا قرب دخول وقت الصلاة لئلا يكون مباشرا لما يقطعه عن الجماعة بصنعه

تنقيح الفتاوى الحامدية (7/ 414)

قَالَ الْإِمَامُ الْعَيْنِيُّ فِي شَرْحِهِ عَلَى صَحِيحِ الْبُخَارِيِّ فِي بَابِ مَا جَاءَ فِي الثُّومِ النِّيءِ وَالْبَصَلِ وَالْكُرَّاثِ قُلْتُ : الْعِلَّةُ أَذَى الْمَلَائِكَةِ وَأَذَى الْمُسْلِمِينَ فَيَخْتَصُّ النَّهْيُ بِالْمَسَاجِدِ وَمَا فِي مَعْنَاهَا وَلَا يَخْتَصُّ بِمَسْجِدِهِ عَلَيْهِ الصَّلَاةُ وَالسَّلَامُ بَلْ الْمَسَاجِدُ كُلُّهَا سَوَاءٌ عَمَلًا بِرِوَايَةِ مَسَاجِدَنَا بِالْجَمْعِ وَشَذَّ مَنْ خَصَّهُ بِمَسْجِدِهِ عَلَيْهِ الصَّلَاةُ وَالسَّلَامُ وَيُلْحَقُ بِمَا نَصَّ عَلَيْهِ فِي الْحَدِيثِ كُلُّ مَا لَهُ رَائِحَةٌ كَرِيهَةٌ مِنْ الْمَأْكُولَاتِ وَغَيْرِهَا وَإِنَّمَا خَصَّ الثُّومَ هُنَا بِالذِّكْرِ ، وَفِي غَيْرِهِ أَيْضًا بِالْبَصَلِ وَالْكُرَّاثِ لِكَثْرَةِ أَكْلِهِمْ لَهَا وَكَذَلِكَ أُلْحَقَ بِذَلِكَ بَعْضُهُمْ مَنْ بِفِيهِ بَخْرٌ أَوْ بِهِ جُرْحٌ لَهُ رَائِحَةٌ وَكَذَلِكَ الْقَصَّابُ ، وَالسَّمَّاكُ وَالْمَجْذُومُ وَالْأَبْرَصُ أَوْلَى بِالْإِلْحَاقِ

وَصَرَّحَ بِالْمَجْذُومِ ابْنُ بَطَّالٍ وَنَقَلَ عَنْ سَحْنُونٍ لَا أَرَى الْجُمُعَةَ عَلَيْهِمَا وَاحْتَجَّ بِالْحَدِيثِ وَأَلْحَقَ بِالْحَدِيثِ كُلَّ مَنْ آذَى النَّاسَ بِلِسَانِهِ فِي الْمَسْجِدِ وَبِهِ أَفْتَى ابْنُ عُمَرَ رَضِيَ اللَّهُ تَعَالَى عَنْهُمَا وَهُوَ أَصْلٌ فِي نَفْيِ كُلِّ مَا يَتَأَذَّى بِهِ وَلَا يَبْعُدُ أَنْ يُعْذَرَ مَنْ كَانَ مَعْذُورًا بِأَكْلِ مَا لَهُ رِيحٌ كَرِيهَةٌ لِمَا رَوَى ابْنُ حِبَّانَ فِي صَحِيحِهِ عَنْ { الْمُغِيرَةِ بْنِ شُعْبَةَ انْتَهَيْت إلَى رَسُولِ اللَّهِ صَلَّى اللَّهُ عَلَيْهِ وَسَلَّمَ فَوَجَدَ مِنِّي رِيحَ الثُّومِ فَقَالَ : مَنْ أَكَلَ الثُّومَ ؟ قَالَ فَأَخَذْتُ يَدَهُ فَأَدْخَلْتهَا فَوَجَدَ صَدْرِي مَعْصُوبًا فَقَالَ : إنَّ لَك عُذْرًا } ، وَفِي رِوَايَةِ الطَّبَرَانِيِّ فِي الْأَوْسَطِ { اشْتَكَيْتُ صَدْرِي فَأَكَلْته } ، وَفِيهِ { فَلَمْ يُعَنِّفْهُ صَلَّى اللَّهُ عَلَيْهِ وَسَلَّمَ } . ا هـ .

وَفِيهِ مِنْ الْبَابِ الْمَذْكُورِ قَوْلُهُ صَلَّى اللَّهُ عَلَيْهِ وَسَلَّمَ وَلْيَقْعُدْ فِي بَيْتِهِ صَرِيحٌ فِي أَنَّ أَكْلَ هَذِهِ الْأَشْيَاءِ عُذْرٌ فِي التَّخَلُّفِ عَنْ الْجَمَاعَةِ وَأَيْضًا هُنَا عِلَّتَانِ إحْدَاهُمَا أَذَى الْمُسْلِمِينَ ، وَالثَّانِيَةُ أَذَى الْمَلَائِكَةِ فَبِالنَّظَرِ إلَى الْعِلَّةِ الْأُولَى يُعْذَرُ فِي تَرْكِ الْجَمَاعَةِ وَحُضُورِ الْمَسْجِدِ وَبِالنَّظَرِ إلَى الثَّانِيَةِ يُعْذَرُ فِي تَرْكِ حُضُورِ الْمَسْجِدِ وَلَوْ كَانَ وَحْدَهُ

والله اعلم بالصواب
উত্তর লিখনে
লুৎফুর রহমান ফরায়েজী

পরিচালক ও প্রধান মুফতী –তা’লীমুল ইসলাম ইনষ্টিটিউট এন্ড রিসার্চ সেন্টার ঢাকা।

উস্তাজুল ইফতা– জামিয়া কাসিমুল উলুম আমীনবাজার ঢাকা।

আরও জানুন

বিদেশ থেকে মাদরাসায় টাকা পাঠাতে মিথ্যার আশ্রয় নেয়া যাবে?

প্রশ্ন আসসালামু আলাইকুম। মুফতী সাহেবের কাছে আমার প্রশ্ন হল, আমরা যারা প্রবাসে থাকি। প্রবাস থেকে …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *