প্রচ্ছদ / নামায/সালাত/ইমামত / নামাযে সূরার তারতীব ঠিক রাখা জরুরী? নাকি তারতীবের উল্টা পড়া যাবে?

নামাযে সূরার তারতীব ঠিক রাখা জরুরী? নাকি তারতীবের উল্টা পড়া যাবে?

প্রশ্ন

আসসালামু আলাইকুম

নামাজে সুরা গুলু কি কোনো ক্রম অনুসারে পড়তে হয় ?

যেমন , জোহরের ৪ রাকাত সুন্নত নামাজে ।

কোনটি সঠিক ?
১)
১ম রাকাত –> সুরা নাস ।
২য়  রাকাত –> সুরা ফালাক ।
৩য়  রাকাত –> সুরা ইখলাস ।
শেষ রাকাত – > সুরা ফিল ।

২)
১ম রাকাত – > সুরা ফিল ।
২য়  রাকাত –> সুরা ইখলাস ।
৩য়  রাকাত –> সুরা ফালাক ।
শেষ রাকাত –> সুরা নাস ।

৩)
১ম রাকাত –> সুরা ফালাক ।
২য়  রাকাত- > সুরা ফিল ।
৩য়  রাকাত –> সুরা নাস ।
শেষ রাকাত –> সুরা ইখলাস ।

বিস্তারিত জানালে খুশি হব ।

আহালে হক মিডিয়ার প্রচার ও  প্রসার এর জন্য অনেক দুয়া ও শুভ কামনা রইল ।

মোহাম্মদ ফারুক
সফটওয়্যার ইঞ্জিনিয়ার ।
বাসা : খিলক্ষেত , তালের টেক,
ঢাকা – ১২২৯ ।
ফোন : ০১৭১২২৯৫৩৭৮

উত্তর

وعليكم السلام ورحمة الله وبركاته

بسم الله الرحمن الرحيم

নামাযের রাকাতসমূহে সূরা পড়ার ক্ষেত্রে মৌলিক কয়েকটি কথা স্বরণ রাখলে আপনার কাছে পুরো বিষয়টি পরিস্কার হয়ে যাবে। যেমন-

সূরা মিলানোর সময় খেয়াল রাখতে হবে যেন কমপক্ষে তিন আয়াত পরিমাণ তিলাওয়াত করা হয়। তিন আয়াতের সীমা হল, কমপক্ষে ত্রিশ হরফ হতে হবে।

(تنبيه) لم ار من قدر ادنى ما يكفى بحد مقدر من الآية الطويلة…….. وَقَدْرُهَا مِنْ حَيْثُ الْكَلِمَاتُ عَشْرٌ، وَمِنْ حَيْثُ الْحُرُوفُ ثَلَاثُونَ، فَلَوْ قَرَأَ – {اللَّهُ لا إِلَهَ إِلا هُوَ الْحَيُّ الْقَيُّومُ لا تَأْخُذُهُ سِنَةٌ وَلا نَوْمٌ} [البقرة: 255]- يَبْلُغُ مِقْدَارَ هَذِهِ الْآيَاتِ الثَّلَاثِ، فَعَلَى مَا قُلْنَاهُ لَوْ اقْتَصَرَ عَلَى هَذَا الْقَدْرِ فِي كُلِّ رَكْعَةٍ كَفَى عَنْ الْوَاجِبِ، وَلَمْ أَرَ مَنْ تَعَرَّضَ لِشَيْءٍ مِنْ ذَلِكَ فَلْيُتَأَمَّلْ. (رد المحتار، كتاب الصلاة، باب صفة الصلاة، فصل فى القراءة قبيل مطلب فى الفرق بين فرض العين وفرض الكفاية-)

এক সূরা পড়ার পর মাঝখানে এক সূরা বাদ দিয়ে পরের সূরা পড়া মাকরূহ্ তবে দুই সূরা বাদ দিয়ে পড়াতে কোন সমস্যা নেই।

যেমন, প্রথম রাকাতে সূরা ফীল পড়ার পর, দ্বিতীয় রাকাতে সূরা কুরাইশ বাদ দিয়ে সূরা মা’ঊন পড়া মাকরূহ। কিন্তু সূরা কাউসার বা কাফিরূন বা এর পরের সূরাগুলো পড়াতে কোন সমস্যা নেই।

তবে ভুলে এমন হলে সমস্যা নেই।

ويكره فصله بسورة بين سورتين قرأهما فى ركعتين لما فيه من شبهة التفضيل والهجر، (مراقى الفلاح على هامش الطحطاوى، فصل فى المكروهات-287، الدر المختار مع الشامى- 2/269)

প্রথম রাকাতে যে সূরা পড়বে, পরের রাকাতে তার পরবর্তী সূরা পড়বে। কিন্তু প্রথম রাকাতে এক সূরা পড়ে, পরের রাকাতে উক্ত সূরা আগের কোন সূরা পড়া মাকরূহ। তাই প্রথম সূরা শুরু করবে, যেন উক্ত সূরার পর পরের রাকাতে পড়ার মত কোন সূরা থাকে।

যেমন প্রথম রাকাতে সূরা সূরা ফীল পড়া আর দ্বিতীয় রাকাতে সূরা হুমাজাহ পড়া মাকরূহ। কারণ এতে কুরআনের তারতীব পাল্টে দেয়া হচ্ছে।

তবে যদি ভুলে এমনটি করে তাহলে সমস্যা নেই।

কখনো ভুলে যদি সূরা নাস পড়ে ফেলে। তাহলে পরবর্তী সকল রাকাতে সূরা নাসই পড়বে। পূর্বের অন্য কোন সূরা পড়বে না। ভুলে অন্য সূরা পড়লে কোন সমস্যা নেই।

وَيُكْرَهُ الْفَصْلُ بِسُورَةٍ قَصِيرَةٍ وَأَنْ يَقْرَأَ مَنْكُوسًا إلَّا إذَا خَتَمَ فَيَقْرَأُ مِنْ الْبَقَرَةِ. وَفِي الْقُنْيَةِ قَرَأَ فِي الْأُولَى الْكَافِرُونَ وَفِي الثَّانِيَةِ – أَلَمْ تَرَ – أَوْ – تَبَّتْ – ثُمَّ ذَكَرَ يُتِمُّ وَقِيلَ يَقْطَعُ وَيَبْدَأُ،

وقال ابن عابدين الشامى رح: (قَوْلُهُ ثُمَّ ذَكَرَ يُتِمُّ) أَفَادَ أَنَّ التَّنْكِيسَ أَوْ الْفَصْلَ بِالْقَصِيرَةِ إنَّمَا يُكْرَهُ إذَا كَانَ عَنْ قَصْدٍ، فَلَوْ سَهْوًا فَلَا كَمَا فِي شَرْحِ الْمُنْيَةِ. (رد المحتار، كتاب الصلاة، باب صفة الصلاة، فروع يجب الاستماع القراءت مطلقا-2/269)

قَرَأَ فِي الْأُولَى – {قُلْ أَعُوذُ بِرَبِّ النَّاسِ} [الناس: 1]- أَعَادَهَا فِي الثَّانِيَةِ إنْ لَمْ يَخْتِمْ نَهْرٌ لِأَنَّ التَّكْرَارَ أَهْوَنُ مِنْ الْقِرَاءَةِ مَنْكُوسًا بَزَّازِيَّةٌ، (رد المحتار، كتاب الصلاة، باب  صفة الصلاة-2/268)

বড় সূরা মাঝখান থেকে কিছু অংশ পড়া, আর পরের রাকাতে আরেক সূরার মাঝখান থেকে পড়া অনুত্তম। বরং তারতীব ঠিক রেখে পড়তে হবে।

এক্ষেত্রে ভুলক্রমে তারতীব উল্টাপাল্টা হয়ে গেলে সমস্যা নেই। তবে ইচ্ছেকৃত এমন করা যাবে না।

لَوْ قَرَأَ فِي الْأُولَى مِنْ وَسَطِ سُورَةٍ أَوْ مِنْ سُورَةٍ أَوَّلَهَا ثُمَّ قَرَأَ فِي الثَّانِيَةِ مِنْ وَسَطِ سُورَةِ أُخْرَى أَوْ مِنْ أَوَّلِهَا أَوْ سُورَةً قَصِيرَةً الْأَصَحُّ أَنَّهُ لَا يُكْرَهُ، لَكِنْ الْأَوْلَى أَنْ لَا يَفْعَلَ مِنْ غَيْرِ ضَرُورَةٍ (رد المحتار، كتاب الصلاة، باب صفة الصلاة، فروع يجب الاستماع للقراءت مطلقا-2/268-269)

উপরোক্ত চারটি মাসআলা আপনার বুঝে এসে থাকলে আপনার প্রশ্নকৃত ৩টি সূরতের হুকুম আপনি নিজেই বের করে নিতে পারবেন।

আপনার প্রশ্নকৃত যোহরের নামাযের সূরা পড়া পদ্ধতির তিন সূরতের মাঝে কেবল ২য় সূরতের পদ্ধতিটি বিশুদ্ধ। বাকি ১ম ও ৩য় পদ্ধতিটি ভুল।

والله اعلم بالصواب
উত্তর লিখনে
লুৎফুর রহমান ফরায়েজী

পরিচালক-তালীমুল ইসলাম ইনষ্টিটিউট এন্ড রিসার্চ সেন্টার ঢাকা।

উস্তাজুল ইফতা– জামিয়া কাসিমুল উলুম সালেহপুর, আমীনবাজার ঢাকা।

ইমেইল– ahlehaqmedia2014@gmail.com

আরও জানুন

ফরজ নামায পাঁচ ওয়াক্ত নাকি তিন ওয়াক্ত?

প্রশ্ন From: Towhid Hasan বিষয়ঃ Foroz namaz প্রশ্নঃ One person of our moholla spending that …

Leave a Reply

Your email address will not be published.

আহলে হক্ব বাংলা মিডিয়া সার্ভিস