প্রচ্ছদ / কুরবানী/জবেহ/আকীকা / কুরবানীর পশু জবাই করার আগে পশুতে শরীক সবার নাম বলার হুকুম কী?

কুরবানীর পশু জবাই করার আগে পশুতে শরীক সবার নাম বলার হুকুম কী?

প্রশ্ন

From: মেহেদী হাবিব
বিষয়ঃ মাসয়ালা

আসসালামু আলাইকুম
আমার দুটো প্রস্ন আছে
কুরবানির পশু জবেহ দেওয়ার আগে যারা যারা পশুটা কিনছে (যেমনঃ গরুর সাত টা ভাগ) তাদের ৭ জনের সবার নাম নেয়া হয়…এটা কি যায়েজ আছে? তারপর আল্লাহ তায়ালার নাম নেয়া হয়।

উত্তর

وعليكم السلام ورحمة الله وبركاته

بسم الله الرحمن الرحيم

এখানে যেহেতু যিনি জবাই করছেন তিনি সাতজন ব্যক্তির প্রতিনিধি হয়ে কুরবানী করছেন। তাই কুরবানী করার সময় তাদের পক্ষ থেকে তিনি কুরবানী করছেন একথাটি পরিস্কার করার জন্য নামগুলো বলা হয়। এতে দোষের কিছু নেই।

কুরবানীটি কাদের পক্ষ থেকে করা হচ্ছে তাদের নাম পরিস্কার করাই এর মাকসাদ থাকে।

কিছু হাদীসের মাঝে দুআ পড়ে কুরবানী করলে আগে কার পক্ষ থেকে কুরবানী করা হচ্ছে তার নাম বলে তারপর আল্লাহুম্মা আকবার বলে জবাই করার সমর্থন পাওয়া যায়।

যেমন হাদীসে এসেছে

عَنْ جَابِرِ بْنِ عَبْدِ اللَّهِ، قَالَ: ذَبَحَ النَّبِيُّ صَلَّى اللهُ عَلَيْهِ وَسَلَّمَ يَوْمَ الذَّبْحِ كَبْشَيْنِ أَقْرَنَيْنِ أَمْلَحَيْنِ مُوجَأَيْنِ، فَلَمَّا وَجَّهَهُمَا قَالَ: «إِنِّي وَجَّهْتُ وَجْهِيَ لِلَّذِي فَطَرَ السَّمَوَاتِ وَالْأَرْضَ عَلَى مِلَّةِ إِبْرَاهِيمَ حَنِيفًا، وَمَا أَنَا مِنَ الْمُشْرِكِينَ، إِنَّ صَلَاتِي وَنُسُكِي وَمَحْيَايَ وَمَمَاتِي لِلَّهِ رَبِّ الْعَالَمِينَ لَا شَرِيكَ لَهُ، وَبِذَلِكَ أُمِرْتُ وَأَنَا مِنَ الْمُسْلِمِينَ، اللَّهُمَّ مِنْكَ وَلَكَ، وَعَنْ مُحَمَّدٍ وَأُمَّتِهِ بِاسْمِ اللَّهِ، وَاللَّهُ أَكْبَرُ» ثُمَّ ذَبَحَ

হযরত জাবির বিন আব্দুল্লাহ রাঃ থেকে বর্ণিত। তিনি বলেন, রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম যখন কুরবানীর দিন দু’টি শিংওয়ালা মোটাতাজা বকরী জবাই করতেন। যখন তিনি কুরবানী করার জন্য শুয়ানো হতো, তখন তিনি পড়তেন “ইন্নি ওয়াজ্জাহতু ওয়াজহিয়া লিল্লালিল্লাজি……..ওয়াআনা মিনাল মুছলিমীন। আল্লাহুম্মা মিনকা ওয়ালাকা ওয়া আন মুহাম্মাদিন [মুহাম্মদ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামের পক্ষ থেকে] ওয়া উম্মাতিহী [তার উম্মতের পক্ষ থেকে] বিসমিল্লাহি আল্লাহু আকবার। তারপর কুরবানী করতেন। [আবু দাউদ, হাদীস নং-২৭৯৫]

এ হাদীসটিতে খিয়াল করুন। কুরবানী কার পক্ষ থেকে করা হচ্ছে তার নাম আগে বলা হল, তারপর বিসমিল্লাহি আল্লাহু আকবার বলে পশুটি জবাই করা হল।

যা প্রমাণ করে দুআ পড়ে জবাই করলে আগে নাম উল্লেখ করাতে কোন সমস্যা নেই।

তবে এক্ষেত্রে মুখে সব শরীকদের নাম বলা কোন জরুরী বিষয় নয়। বরং জবাইকারী শুধু পশুটির মালিকদের নামে কুরবানী করছেন এতটুকু মনের মাঝে রেখে জবাই করলেই কুরবানী বিশুদ্ধ হয়ে যাবে। [ফাতাওয়া দারুল উলুম দেওবন্দ-১৫/৫১৭]

তাই নাম বলা নিয়ে জবাইকারীকে পেরেশানী করার কোন প্রয়োজন নেই।

وَيَكْفِيهِ أَنْ يَنْوِيَ بِقَلْبِهِ وَلَا يُشْتَرَطُ أَنْ يَقُولَ بِلِسَانِهِ مَا نَوَى بِقَلْبِهِ كَمَا فِي الصَّلَاةِ؛ لِأَنَّ النِّيَّةَ عَمَلُ الْقَلْبِ، وَالذِّكْرُ بِاللِّسَانِ دَلِيلٌ عَلَيْهَا (بدائع الصنائع، كتاب الاضحية، فَصْلٌ فِي شَرَائِطُ جَوَازِ إقَامَةِ الْوَاجِبِ فِي الْأُضْحِيَّةِ-5/71

والله اعلم بالصواب
উত্তর লিখনে
লুৎফুর রহমান ফরায়েজী

পরিচালক-তালীমুল ইসলাম ইনষ্টিটিউট এন্ড রিসার্চ সেন্টার ঢাকা।

উস্তাজুল ইফতা– জামিয়া কাসিমুল উলুম সালেহপুর, আমীনবাজার ঢাকা।

মুহাদ্দিস-জামিয়া উবাদা ইবনুল জাররাহ, ভাটারা ঢাকা।

ইমেইল– ahlehaqmedia2014@gmail.com

আরও জানুন

চার রাকাত বিশিষ্ট্য নামাযে প্রথম বৈঠকে তাশাহুদের পর দরূদ পড়ে ফেললে সাহু সেজদা লাগবে?

প্রশ্ন মোঃ রমজান আলী প্রশ্ন: চার রাকাত নামাজের প্রথম বৈঠকে আত্তাহিয়্যাতু এর সাথে দরুদ শরীফ …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আহলে হক্ব বাংলা মিডিয়া সার্ভিস