প্রচ্ছদ / আকিদা-বিশ্বাস / ১০ই মহররমের মাতম-মর্সিয়া বন্দেগী না নাফরমানী?

১০ই মহররমের মাতম-মর্সিয়া বন্দেগী না নাফরমানী?

লুৎফুর রহমান ফরায়েজী

চলে এল পবিত্র মাহে মুহররম। আল্লাহ রাব্বুল আলামীনের কাছে ১২ মাসের মাঝে চারটি মাস খুবই সম্মানিত। সে চার মাস হল, রজব, জিলক্বদ, জিলহজ্ব ও মুহররম। রমজান মাস আলাদা বৈশিষ্টমন্ডিত। চারমাস থেকে তা ভিন্ন।

রজব, জিলক্বদ ও জিলহজ্ব এবং মুহররম মাস আল্লাহ রাব্বুল আলামীনের কাছে সম্মানিত মাস শুধু এ উম্মতের জন্য নয়। বরং এ চারমাস সম্মানিত সেই সৃষ্টিলগ্ন থেকেই। শুধু কারবালার মর্মান্তিক ঘটনার কারণে মুহাররম মাস সম্মানিত হয়নি। বরং পৃথিবীর সৃষ্টি লগ্ন থেকেই এ মাস সম্মানিত। আল্লাহ রাব্বুল আলামীন পবিত্র কুরআনে তা ঘোষণা দেন। ইরশাদ হচ্ছে-

إِنَّ عِدَّةَ الشُّهُورِ عِندَ اللَّهِ اثْنَا عَشَرَ شَهْرًا فِي كِتَابِ اللَّهِ يَوْمَ خَلَقَ السَّمَاوَاتِ وَالْأَرْضَ مِنْهَا أَرْبَعَةٌ حُرُمٌ ۚ ذَٰلِكَ الدِّينُ الْقَيِّمُ ۚ فَلَا تَظْلِمُوا فِيهِنَّ أَنفُسَكُمْ ۚ وَقَاتِلُوا الْمُشْرِكِينَ كَافَّةً كَمَا يُقَاتِلُونَكُمْ كَافَّةً ۚ وَاعْلَمُوا أَنَّ اللَّهَ مَعَ الْمُتَّقِينَ [٩:٣٦]

নিশ্চয় আল্লাহর বিধান ও গননায় মাস বারটি, আসমানসমূহ ও পৃথিবী সৃষ্টির দিন থেকে। তন্মধ্যে চারটি সম্মানিত। এটিই সুপ্রতিষ্ঠিত বিধান; সুতরাং এর মধ্যে তোমরা নিজেদের প্রতি অত্যাচার করো না। আর মুশরিকদের সাথে তোমরা যুদ্ধ কর সমবেতভাবে, যেমন তারাও তোমাদের সাথে যুদ্ধ করে যাচ্ছে সমবেতভাবে। আর মনে রেখো, আল্লাহ মুত্তাকীনদের সাথে রয়েছেন। {সূরা তওবা-৩৬}

সেই পবিত্র চার মাস কি? যা পবিত্র কুরআনে ঘোষণা হয়েছে? যে মাসে আল্লাহ রাব্বুল আলামীন নিজেদের উপর অত্যাচার করতে নিষেধ করেছেন। হাদীসে তা স্পষ্ট ভাষায় উল্লেখ হয়েছে-

عَنْ أَبِي بَكْرَةَ، عَنِ النَّبِيِّ صَلَّى اللهُ عَلَيْهِ وَسَلَّمَ قَالَ: ” إِنَّ الزَّمَانَ قَدِ اسْتَدَارَ كَهَيْئَتِهِ يَوْمَ خَلَقَ اللَّهُ السَّمَوَاتِ وَالأَرْضَ، السَّنَةُ اثْنَا عَشَرَ شَهْرًا، مِنْهَا أَرْبَعَةٌ حُرُمٌ، ثَلاَثٌ مُتَوَالِيَاتٌ: ذُو القَعْدَةِ، وَذُو الحِجَّةِ، وَالمُحَرَّمُ، وَرَجَبُ، مُضَرَ الَّذِي بَيْنَ جُمَادَى، وَشَعْبَانَ “

হযরত আবু বাকরা রাঃ থেকে বর্ণিত। রাসূল সাঃ ইরশাদ করেছেনঃ আল্লাহ যেদিন আসমান যমীন সৃষ্টি করেন, সেদিন যেভাবে কাল [যমানা] ছিল তা আজও অনুরূপভাবে বিদ্যমান। বারমাসে এক বছর, তন্মধ্যে চার মাস পবিত্র। যার তিন মাস ধারাবাহিক যথা জিলকদ, জিলহজ্ব ও মুহাররম ও মুযার গোত্রের রজব, যা জামাদিউস সানী এবং শাবান মাসের মধ্যবর্তী। {সহীহ বুখারী, হাদীস নং-৪৬৬২, ৪৩৮৫, সহীহ মুসলিম, হাদীস নং-১৬৭৯, সুনানে আবু দাউদ, হাদীস নং-১৯৪৭}

পবিত্র কুরআন ও হাদীসের পরিস্কার ভাষ্য অনুযায়ী মুহাররম মাস সম্মানিত সেই সৃষ্টি লগ্ন থেকেই। সেই পবিত্র মাসে আল্লাহ তাআলা নিজেদের উপর অত্যাচার করতে নিষেধ করেছেন। তাহলে মাতম মর্সিয়া করে নিজেদের শরীরের রক্ত ঝরানো কতটুকু শরীয়ত সম্মত? একটু ভেবে দেখা দরকার।

১০ই মুহাররম মাতম করে শরীর থেকে রক্ত ঝড়ানো পবিত্র কুরআনের নির্দেশনা অনুযায়ী নিষেধ। আল্লাহ রাব্বুল আলামীনের নিষেধাজ্ঞা অমান্য কারার নাম বন্দেগী না নাফরমানী?

মুহররম মাসে নিজের উপর জুলুম করা জায়েজ নয়

উপরোক্ত আয়াতে কারীমায় আল্লাহ রাব্বুল আলামীন নিজের উপর নিপিড়ন করতে, নিজের উপর জুলুম করতে নিষেধ করেছেন। ঘোষণা দিয়েছেন-

فَلَا تَظْلِمُوا فِيهِنَّ أَنفُسَكُمْ ۚ [٩:٣٦

সুতরাং এর মধ্যে তোমরা নিজেদের প্রতি অত্যাচার করো না। {সূরা তওবা-৩৬}

নিজের উপর জুলুম করাকে নিষিদ্ধ করেছেন আল্লাহ তাআলা। এটি আমাদের নির্দেষ নয়। আল্লাহ পাকের নির্দেশ। কারণ আমাদের প্রাণের মূল মালিকানা আমাদের নয়। এর মূল মালিকানা আল্লাহ পাকের। আমাদের প্রাণ আমাদের কাছে আল্লাহর আমানত। আল্লাহ তাআলা পবিত্র কুরআনে ঘোষণা করেছেন-

إِنَّ اللَّهَ اشْتَرَىٰ مِنَ الْمُؤْمِنِينَ أَنفُسَهُمْ وَأَمْوَالَهُم بِأَنَّ لَهُمُ الْجَنَّةَ ۚ [٩:١١١

আল্লাহ ক্রয় করে নিয়েছেন মুসলমানদের থেকে তাদের জান ও মাল এই মূল্যে যে, তাদের জন্য রয়েছে জান্নাত। {সূরা তাওবা-১১১}

যেহেতু আল্লাহ পাক আমাদের প্রাণকে কিনে নিয়েছেন। তাই আমাদের প্রাণের প্রকৃত মালিক আমরা নই। কেবল ভোগ দখলের মালিক। তাই এ প্রাণকে যথেচ্ছাভাবে ব্যবহারের কোন অধিকার কোন মানুষের নেই। এ প্রাণকে কষ্ট দেয়া। আঘাত করার কোন অধিকার কোন মানুষের নেই। কেউ যদি সেই প্রাণকে ইচ্ছেকৃত কষ্ট দেয়, ক্ষত-বিক্ষত করে নিজে নিজে, তাহলে উক্ত ব্যক্তি আল্লাহ রাব্বুল আলামীনের পবিত্র আমানতকে নষ্ট করল।

কোন ব্যক্তির আমানত যে নষ্ট করে, সে যেমন বে-ঈমান। সেখানে আল্লাহ রাব্বুল আলামীনের আমানত বিনষ্টকারী কি করে মুমিন থাকতে পারে? উক্ত ব্যক্তিতো আরো বড় বে-ঈমান।

সুতরাং মাতম করে, নিজের শরীরে আঘাত করে ক্ষত-বিক্ষতকারী কিছুতেই মুমিন থাকতে পারে না। যেখানে আল্লাহ রাব্বুল আলামীনে স্পষ্ট নির্দেশ যে, মুহররমের পবিত্র মাসে নিজের উপর আঘাত করা যাবে না, জুলুম করা যাবে না সেখানে নিজেকে আঘাতে আঘাতে ক্ষত-বিক্ষত করে আল্লাহ রাব্বুল আলামীনের পবিত্র আমানত যে ব্যক্তি নষ্ট করবে উক্ত ব্যক্তি ঈমানহারা হয়ে যায়। প্রকাশ্য আল্লাহ রাব্বুল আলামীনের আদেশ লঙ্ঘন করে আল্লাহর আমানত বিনষ্টকারী কিছুতেই ঈমানদার হতে পারে না।

নিজে নিজেকে আঘাত করে আত্মহত্যা করা ইহুদীদের ধর্ম

অপরাধ করলে, ভুল করলে, কুফরী করলে, নিজেকে আঘাত করে ধ্বংস করে দেয়া মুসলমানদের দ্বীন নয়। এটি ইহুদীদের শরীয়ত। মুসলমানদের নয়।

হযরত মুসা আঃ যখন নিজের ভাই হারুন আঃ কে রেখে তূর পাহাড়ে আল্লাহ রাব্বুল আলামীনের সাথে সাক্ষাৎ করতে গেলেন। তখন লোকেরা বাছুরের পূজা করতে শুরু করে দিয়েছিল। মূসা আঃ ফিরে এসে তাদের ভর্ৎসনা করলেন। নিজেদের গোনাহের কারণে, কুফরীর কারণে তওবা করতে বললেন, সেই তওবার পদ্ধতি ছিল নিজে নিজেকে হত্যা করা। নিজে নিজেকে আঘাতে আঘাতে বিক্ষত করা। পবিত্র কুরআনে ইরশাদ হচ্ছে-

وَإِذْ قَالَ مُوسَىٰ لِقَوْمِهِ يَا قَوْمِ إِنَّكُمْ ظَلَمْتُمْ أَنفُسَكُم بِاتِّخَاذِكُمُ الْعِجْلَ فَتُوبُوا إِلَىٰ بَارِئِكُمْ فَاقْتُلُوا أَنفُسَكُمْ ذَٰلِكُمْ خَيْرٌ لَّكُمْ عِندَ بَارِئِكُمْ فَتَابَ عَلَيْكُمْ ۚ إِنَّهُ هُوَ التَّوَّابُ الرَّحِيمُ [٢:٥٤]

আর যখন মূসা তার সম্প্রদায়কে বলল, হে আমার সম্প্রদায়, তোমরা তোমাদেরই ক্ষতিসাধন করেছ এই গোবৎস নির্মাণ করে। কাজেই এখন তওবা কর স্বীয় স্রষ্টার প্রতি এবং নিজ নিজ প্রাণ বিসর্জন দাও। {সূরা বাকারা-৫৪}

তাহলে নিজেকে আঘাত করা, বিক্ষত করা, তওবার জন্য, অনুশোচনা করে নিজে নিজেকে আঘাত করে বিক্ষত করা মুসলমানদের ধর্ম না ইহুদীদের ধর্ম?

মুসলমানদেরতো আল্লাহ পাক নির্দেশ দিয়েছেন- “সুতরাং এর মধ্যে [পবিত্র চার মাসে, যার মাঝে মুহাররম শামিল] তোমরা নিজেদের প্রতি অত্যাচার করো না। {সূরা তওবা-৩৬}

তাহলে মুহররমের দশ তারিখ নিজেকে আঘাতে আঘাতে বিক্ষত করা মুসলমানদের দ্বীন মানা হয়? না ইহুদীদের?

যে ব্যক্তি ইসলামের বিধান রেখে ইহুদীদের দ্বীন মানে উক্ত ব্যক্তির নাম মুসলমান হয় কি করে?

মর্সিয়া-মাতম বন্দেগী না ভন্ডামী?

যারা মাতম করে শরীরকে রক্তাক্ত করে, তাদের যদি বলা হয়, আপনারা এমন করেন কেন? নিজেকে বিক্ষত করেন কেন? জবাবে তারা বলে যে, এটি তাদের ইবাদত। এটি তাদের বন্দেগী।

যদি বলা হয়, ইবাদততো পালন করা হয় ইবাদতখানায়। কিংবা স্বীয় গৃহে। আপনারা ইবাদত পালন করতে রাস্তা ব্লক করে মানুষকে কষ্ট দিয়ে জ্যাম সৃষ্টি করে এসব করেন কেন?

বলবে, এটাই তাদের পদ্ধতি।

কিন্তু পৃথিবীর কোন ধর্মাবলম্বীর এমন কোন ইবাদত আছে কি? যা মানুষের চলাচলের রাস্তা বন্ধ করে, মানুষকে জ্যামে আটকে ইবাদত পালন করা হয়? মুসলমানরা তাদের ইবাদত পালন করে সুনির্দিষ্ট স্থান ইবাদতগাহ মসজিদে ও ঈদগাহে। ইহুদীরা তাদের ইবাদতখানায়। খৃষ্টানরা তাদের নির্ধারিত গির্জায়। বৌদ্ধরা তাদের প্যাগোডায়। হিন্দুরা তাদের গীর্জায়। কিন্তু এ আবার কোন ধর্ম যারা তাদের ইবাদত পালন করতে রাস্তা ব্লক করতে হয়? রাস্তা আটকে দিতে হয়। এর নাম ধর্মপালন না ভন্ডামী?

যদি মাতমকারীদের বলেন যে, আপনারা কেন নিজেকে রক্তাক্ত করেন, তখন তারা বলে যে, তারা হুসাইনী। সিমার হুসাইন রাঃ কে রক্তাক্ত করেছে, তাই সেই শোকে তারা নিজেদের রক্তাক্ত করে।

কিন্তু মজার ব্যাপার হল, হুসাইন রাঃ কে রক্তাক্ত করেছে সিমার। তাহলে রক্তাক্ত হলেন হযরত হুসাইন রাঃ। আর রক্তাক্ত করেছে সিমার। আর শিয়ারা নিজেরাই সিমার সেজে নিজেকে আঘাত করে। নিজেকে রক্তাক্ত করে। তাহলে তাদের এ মাতম, তাদের এ রক্তবন্যা প্রবাহিতকরণ কি সিমারী কাজ হয়, না হুসাইনী কাজ হয়? সুনিশ্চিতভাবেই সিমারী কাজ হয়। নিজের হাতে রক্ত প্রবাহ করার নাম হুসাইনী কাজ কিছুতেই হতে পারে না। বরং রক্ত প্রবাহিত করাতো সিমারী কাজ। সিমারী কাজ করে নিজেদের হুসাইনী হওয়ার মিথ্যা দাবি করার নাম ভন্ডামী নাতো কি?

রাসূল সাঃ এর নির্দেশ অমান্যের নাম বন্দেগী নয়

আল্লাহ রাব্বুল আলামীন পবিত্র কালামুল্লাহ স্পষ্ট ঘোষণা দিয়েছেন-

وَمَا آتَاكُمُ الرَّسُولُ فَخُذُوهُ وَمَا نَهَاكُمْ عَنْهُ فَانتَهُوا ۚ وَاتَّقُوا اللَّهَ ۖ إِنَّ اللَّهَ شَدِيدُ الْعِقَابِ [٥٩:٧

রসূল তোমাদেরকে যা দেন, তা গ্রহণ কর এবং যা নিষেধ করেন, তা থেকে বিরত থাক এবং আল্লাহকে ভয় কর। নিশ্চয় আল্লাহ কঠোর শাস্তিদাতা। {সূরা হাশর-৭}

মাতম করা, শোকতাপে নিজেকে আঘাত করতে রাসূল সাঃ নিষেধ করেছেন। রাসূল সাঃ এর সেসব নিষেধ অমান্য করার নাম নাফরমানী, বন্দেগীও ইবাদত নয়। রাসূল সাঃ একাধিক হাদীসে মাতম করতে, মর্সিয়া করতে, শোকে নিজেকে আঘাত করতে নিষেধ করেছেন। যেমন-

عَنْ عَبْدِ اللَّهِ، عَنِ النَّبِيِّ صَلَّى اللهُ عَلَيْهِ وَسَلَّمَ قَالَ: «لَيْسَ مِنَّا مَنْ ضَرَبَ الْخُدُودَ وَشَقَّ الْجُيُوبَ وَدَعَا بِدَعْوَى الْجَاهِلِيَّةِ

হযরত আব্দুল্লাহ বিন মাসউদ রাঃ থেকে বর্ণিত। রাসূল সাঃ ইরশাদ করেছেন, সে ব্যক্তি আমাদের দলের লোক নয়, যে [মৃতের শোকে] নিজ মুখমন্ডলে হাত দ্বারা আঘাত করে, জামা কাপড় ছিঁড়ে ফেলে এবং অন্ধকার যুগের লোকদের মত হা-হুতাশ করে। {মুসন্নাফ ইবনে আবী শাইবা, হাদীস নং-১১৩৩৯, মুসনাদে আহমাদ, হাদীস নং-৩৬৫৮, সহীহ বুখারী, হাদীস নং-১২৯৭, ১২৩৫, সহীহ মুসলিম, হাদীস নং-১৬৫, ১০৩, সুনানে ইবনে মাজাহ, হাদীস নং-১৫৮৪}

أَنَّ رَسُولَ اللهِ صَلَّى اللهُ عَلَيْهِ وَسَلَّمَ قَالَ: «أَنَا بَرِيءٌ مِمَّنْ حَلَقَ وَسَلَقَ وَخَرَقَ»

হযরত আবু বুরদা ইবনে মুসা রাঃ হতে বর্ণিত। রাসূল সাঃ ইরশাদ করেছেন, আমার সাথে ঐ ব্যক্তির সম্পর্ক নেই, যে মাথা কেশ ছিন্ন করে, উচ্চস্বরে বিলাপ করে এবং জামা ছিঁড়ে ফেলে। {সহীহ মুসলিম, হাদীস নং-১০৪, সুনানে ইবনে মাজাহ, হাদীস নং-১৫৮৬, সুনানে নাসায়ী, হাদীস নং-১৮৬৩, মুসনাদে আহমাদ, হাদীস নং-১৯৬১৭}

عَنْ أَبِي سَعِيدٍ الْخُدْرِيِّ، قَالَ: «لَعَنَ رَسُولُ اللَّهِ صَلَّى اللهُ عَلَيْهِ وَسَلَّمَ النَّائِحَةَ وَالْمُسْتَمِعَةَ»

হযরত আবু সাঈদ খুদরী রাঃ থেকে বর্ণিত। তিনি বলেছেন, রাসূল সাঃ বিলাপকারিণীকে এবং তা শ্রবণকারীকে অভিসম্পাত করেছেন। {মুসনাদে আহমাদ, হাদীস নং-১১৬২২, সুনানে আবু দাউদ, হাদীস নং-৩১২৮, সুনানে সগীর লিলবায়হাকী, হাদীস নং-১১৪২}

عَنْ أُمِّ عَطِيَّةَ رَضِيَ اللَّهُ عَنْهَا، قَالَتْ: «أَخَذَ عَلَيْنَا النَّبِيُّ صَلَّى اللهُ عَلَيْهِ وَسَلَّمَ عِنْدَ البَيْعَةِ أَنْ لاَ نَنُوحَ»،

হযরত উম্মে আতীয়া রাঃ থেকে বর্ণিত। তিনি বলেন, রাসূল সাঃ আমাদের বাইয়াত গ্রহণকালে এ অঙ্গিকার নিয়েছেন যে, আমরা যেন মৃত ব্যক্তির জন্য উচ্চসরে আনুষ্ঠানিকভাবে ক্রন্দন না করি। {সহীহ বুখারী, হাদীস নং-১৩০৬, ১২৪৪}

عَنْ أَبِي هُرَيْرَةَ، قَالَ: قَالَ رَسُولُ اللهِ صَلَّى اللهُ عَلَيْهِ وَسَلَّمَ: ” اثْنَتَانِ فِي النَّاسِ هُمَا بِهِمْ كُفْرٌ: الطَّعْنُ فِي النَّسَبِ، وَالنِّيَاحَةُ عَلَى الْمَيِّتِ “

হযরত আবু হুরাইরা রাঃ থেকে বর্ণিত। তিনি বলেন যে, রাসূল সাঃ বলেছেনঃ “দুটি বিষয় এমন যা মানুষের মধ্যে কুফরী বলে গণ্য হয় ঃ বংশধারা কে কলংকিত করা ও মৃত ব্যক্তির জন্য শোক  প্রকাশার্থে উচ্চ শব্দে কান্নাকাটি করা। {মুসনাদে আহমদ, হাদীস নং-১০৪৩৪, সহীহ মুসলিম, হাদীস নং-১২১, ৬৭}

এরকম আরো অসংখ্য হাদীস রয়েছে যা স্পষ্ট ভাষায় প্রমাণ করছে যে, উচ্চস্বরে বিলাপ করা, শোকে কাতর হয়ে নিজের জামা কাপড় ছিঁড়ে ফেলা ইত্যাদি নিষেধ। এসব করতে রাসূল সাঃ স্পষ্ট ভাষায় নিষেধ করেছেন।

আর ধৈর্য ধারণের উপদেশ দিয়েছেন। আল্লাহ তাআলাও বিপদে ধৈর্যধারণের আদেশ দিয়েছেন। সেখানে ধৈর্য না ধরে রাসূল সাঃ এর এতগুলো বিশুদ্ধ বর্ণনাকে পায়ে দলে মাতম করা, চিল্লাফাল্লা করা, নিজেকে বিক্ষত করা কিছুতেই ইবাদত হতে পারে না নাফরমানী ছাড়া।

শেষ কথা

মৃত ব্যক্তির উপর শোকতাপ করে বুক চাপড়ানো, মর্সিয়া মাতম হারাম। সেই সাথে এসব দেখতে যাওয়াও জায়েজ নয়। যা উপরের কুরআন ও হাদীসের দ্বারা স্পষ্ট হয়েছে। সুতরাং মহররমের দশ তারিখ হিন্দুদের প্রতিমা বিসর্জনের মত যারা তাজিয়া মিছিল বের করে তারা মুসলমানদের কোন ধর্মীয় কাজ সম্পাদন করে না। হিন্দুদের প্রতিমা বিসর্জনের নকল একটি প্রতিকী শোক প্রকাশ করে থাকে মাত্র। যা কিছুতেই ধর্মীয় কাজ নয়। ইবাদত হওয়াতো দূরে থাক। এটা কোন নৈতিক কাজও নয়। রাস্তা বন্ধ করে, জ্যাম লাগিয়ে ধর্মের নামে করা অধার্মীক কাজ বন্ধ রাখার জন্য আমরা কর্তৃপক্ষের কাছে আবেদন জানাই।

আল্লাহ রাব্বুল আলামীন আমাদের কুরআন ও হাদীস বিরোধী এ জঘন্য প্রথা থেকে হিফাযত করুন। হযরত হুসাইন রাঃ এর মত সত্য দ্বীনকে প্রতিষ্ঠা করার জন্য হাসিমুখে বাতিলের হাতে শহীদ হওয়ার তৌফিক দান করুন। আমীন। ছুম্মা আমীন।

আরও জানুন

হাশরের ময়দানে সকলকে মায়ের নাম ধরে ডাকা হবে?

প্রশ্ন আমাদের এলাকায় এক বাউল ভক্ত ব্যক্তি বলছে যে, হাশরের ময়দানে নাকি প্রত্যেক মানুষকে তার …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আহলে হক্ব বাংলা মিডিয়া সার্ভিস