প্রচ্ছদ / নামায/সালাত/ইমামত / ইনফেকশনের কারণে নাক থেকে বিশ্রি গন্ধ আসলে মসজিদের জামাত মাফ হয়ে যায়?

ইনফেকশনের কারণে নাক থেকে বিশ্রি গন্ধ আসলে মসজিদের জামাত মাফ হয়ে যায়?

প্রশ্ন

আসসালামু আলাইকুম,
একজন মুসলিম , যার নাকে একধরনের ইনফেকশন আছে, যা থেকে বিশ্রী দুর্গন্ধ ছাড়ায়—- তার জন্যও কি জামাতে সালাত আদায় করা ওয়াজিব?

জানালে উপকৃত হব।

উত্তর

وعليكم السلام ورحمة الله وبركاته

بسم الله الرحمن الرحيم

যদি উক্ত গন্ধের কারণে অন্য মুসল্লিদের কষ্ট হবার সম্ভাবনা থাকে, তাহলে তার জন্য মসজিদে জামাতে অংশগ্রহণ জরুরী থাকে না। বরং বাড়িতে একাকী নামায পড়বে। অন্যকে কষ্ট না দেবার নিয়তে বাড়িতে নামায পড়লেও আশা করি জামাতের সওয়াব পাবে ইনশাআল্লাহ।

তবে কাতারের পেছনে দাঁড়াতে পারে। বাকি তার জন্য জরুরী নয় মসজিদে আসা।

عَنِ الْمُغِيرَةِ بْنِ شُعْبَةَ أَنَّهُ قَالَ: صَلَّيْتُ مَعَ رَسُولِ اللهِ صَلَّى اللَّهُ عَلَيْهِ وَسَلَّمَ فَوَجَدَ رِيحَ ثُومٍ. فَلَمَّا فَرَغَ مِنَ الصَّلَاةِ قَالَ: مَنْ أَكَلَ مِنْ هَذِهِ الشَّجَرَةِ فَلَا يَقْرَبْنَا فِي مَسْجِدِنَا حَتَّى يَذْهَبَ رِيحُهَا.

হযরত মুগীরা বিন শু’বা রাঃ থেকে বর্ণিত। তিনি বলেন, একদা আমি নবীজী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামের সাথে নামায পড়লাম। তখন রসুনের গন্ধ পাওয়া গেল। নামায যখন শেষ হল, তখন নবীজী ইরশাদ করলেন, যে ব্যক্তি এ গাছ থেকে ভক্ষণ করে, সে যেন গন্ধ দূর হবার আগে মসজিদে না আসে। [তাহাবী শরীফ, হাদীস নং-৬৮২৬, মসুনাদে আহমাদ, হাদীস নং-৯৫৪৫]

عَنِ ابْنِ عَبَّاسٍ، قَالَ: قَالَ رَسُولُ اللَّهِ صَلَّى اللهُ عَلَيْهِ وَسَلَّمَ: «مَنْ سَمِعَ الْمُنَادِيَ فَلَمْ يَمْنَعْهُ مِنَ اتِّبَاعِهِ، عُذْرٌ»، قَالُوا: وَمَا الْعُذْرُ؟، قَالَ: «خَوْفٌ أَوْ مَرَضٌ، لَمْ تُقْبَلْ مِنْهُ الصَّلَاةُ الَّتِي صَلَّى»

হযরত ইবনে আব্বাস রাঃ থেকে বর্ণিত। রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম ইরশাদ করেছেন, যে ব্যক্তি মুয়াযযিনের আযান শুনা সত্ত্বেও কোনরূপ ওজর ছাড়া (বিনা কারণে) জামা‘আতে সলাত আদায়ে বিরত থাকে তার অন্যত্র (একাকী) সলাত কবুল হবে না। সাহাবীগণ জিজ্ঞেস করলেন, ওজর কি? নাবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বললেনঃ ভয়-ভীতি অথবা অসুস্থতা। [সুনানে আবু দাউদ-১/৮১, হাদীস নং-৫৫১]

وفى الدر المختار: وأكل نحو ثوم ويمنع منه

وفى رد المحتار: وَكَذَلِكَ أَلْحَقَ بَعْضُهُمْ بِذَلِكَ مَنْ بِفِيهِ بَخَرٌ أَوْ بِهِ جُرْحٌ لَهُ رَائِحَةٌ، وَكَذَلِكَ الْقَصَّابُ، وَالسَّمَّاكُ، وَالْمَجْذُومُ وَالْأَبْرَصُ أَوْلَى بِالْإِلْحَاقِ. (رد المحتار، كتاب الصلاة، باب ما يفسد الصلاة، مطلب فى الغرس فى المسجد-2/435

والله اعلم بالصواب
উত্তর লিখনে
লুৎফুর রহমান ফরায়েজী

পরিচালক-তালীমুল ইসলাম ইনষ্টিটিউট এন্ড রিসার্চ সেন্টার ঢাকা।

উস্তাজুল ইফতা– জামিয়া কাসিমুল উলুম সালেহপুর, আমীনবাজার ঢাকা।

ইমেইল– ahlehaqmedia2014@gmail.com

আরও জানুন

স্ত্রী রাগের মাথায় স্বামীকে তিন তালাক দিলে কয় তালাক হয়?

প্রশ্ন মুহতারাম আসসালামু আলাইকুম জরুরী ভিত্তিতে জানতে চাই৷ প্রশ্ন হল- স্বামী-স্ত্রীর কথা কাটাকাটিতে স্ত্রী রাগের …