প্রচ্ছদ / আহলে হাদীস / ঈদের রাতে ইবাদতের কোন প্রমাণ নেই?

ঈদের রাতে ইবাদতের কোন প্রমাণ নেই?

প্রশ্ন

ঈদের রাতে কি কোন ইবাদত নেই?

উত্তর

بسم الله الرحمن الرحيم

ঈদের রজনীতে ইবাদত করার ফযিলত সম্বলিত বর্ণিত হয়েছে, বেশ কয়েকটি হাদীস। নিম্মে তাহকীকসহ উল্লেখ করা হলো–

✏ ০১. হযরত আবূ উমামা আল বাহেলী (রা.) এর হাদীস-

سنن ابن ماجه ت الأرنؤوط (2/ 658)
1782 – حَدَّثَنَا أَبُو أَحْمَدَ الْمَرَّارُ بْنُ حَمُّويَهَ، حَدّثَنَا مُحَمَّدُ بْنُ الْمُصَفَّى، حَدّثَنَا بَقِيَّةُ بْنُ الْوَلِيدِ، عَنْ ثَوْرِ بْنِ يَزِيدَ، عَنْ خَالِدِ بْنِ مَعْدَانَ عَنْ أَبِي أُمَامَةَ، عَنْ النَّبِيِّ – صَلَّى اللَّهُ عَلَيْهِ وَسَلَّمَ -، قَالَ:”مَنْ قَامَ لَيْلَتَيْ الْعِيدَيْنِ مُحْتَسِبًا لِلَّهِ، لَمْ يَمُتْ قَلْبُهُ يَوْمَ تَمُوتُ الْقُلُوبُ”

হযরত আবূ উমামা (রা.) রাসূল (সা.) থেকে বর্ণনা করেন। যে ব্যক্তি ঈদুল ফিত্বর এবং ঈদুল আযহার রাতে (সাওয়াবের নিয়তে, ইবাদতের উদ্দেশ্যে) জাগ্রত থাকবে, সে ব্যক্তির হৃদয় ঐ দিন মৃত্যুবরণ করবে না যেদিন অন্য হৃদয়গুলো মৃত্যুবরণ করবে। (অর্থাৎ কিয়ামতের দিবশে তার কোন ভয় থাকবে না)। ইবনে মাজা-২/৬৫৮, হাদীস-১৭৮২।

❖ হাদীসটির মান :
উক্ত হাদীসটি যয়ীফ (আমলযোগ্য)। উলুমে হাদীসের নিয়ম অনুসারে দুটি ক্ষেত্র ব্যতীত অন্যত্র যয়ীফ হাদীস এর উপর আমল করা যাবে-

تيسير مصطلح الحديث (ص: 80)
يجوز عند أهل الحديث وغيرهم رواية الأحاديث الضعيفة، والتساهل في أسانيدها من غير بيان ضعفها -بخلاف الأحاديث الموضوعة فإنه لا يجوز روايتها إلا مع بيان وضعها- بشرطين، هما:
أ- ألا تتعلق بالعقائد، كصفات الله تعالى.
ب- ألا يكون في بيان الأحكام الشرعية مما يتعلق بالحلال والحرام.

আক্বিদা সম্বলিত যেমন আল্লাহর গুনাগুন ও হালাল হারাম ব্যতীত অন্য স্থানে যয়ীফ হাদীস এর উপর আমল করা যাবে। তাইসীরু মুসতালাহীল হাদীস-৮০। তাই এ ক্ষেত্রেও উক্ত হাদীস অনুসারে আমল করতে কোন বাধা নেই।

উল্লেখ্য যে, উক্ত হাদীস এর একজন বর্ণনাকারী হলেন بَقِيَّةُ بْنُ الْوَلِيدِ যার সম্পর্কে জারাহ ও তাদিলের প্রায় ৩০এর অধিক ইমামগণ দু’মুখি মন্তব্য করেছেন। কেউ বলেছেন, তিনি নির্ভরযোগ্য আর কেউ বলেছেন তিনি يدلس عن الضعفاء এর জন্য যয়ীফ। সর্বপরি তার জন্য উক্ত হাদীসটিকে যয়ীফ বলে মন্তব্য করেছেন শাস্ত্রের বিখ্যাত ইমাম আল্লামা নববী (রহ.)-

المجموع شرح المهذب (5/ 42)
رَوَاهُ عَنْ أَبِي الدَّرْدَاءِ مَوْقُوفًا وَرُوِيَ مِنْ رِوَايَةِ أَبِي أُمَامَةَ مَوْقُوفًا عَلَيْهِ وَمَرْفُوعًا كَمَا سَبَقَ وَأَسَانِيدُ الْجَمِيعِ ضَعِيفَةٌ

আল মাজমু-৫/৪২।
ও আল্লামা ইরাকী (রহ.)-

تخريج أحاديث الإحياء = المغني عن حمل الأسفار (ص: 430)
أخرجه بِإِسْنَاد ضَعِيف من حَدِيث أبي أُمَامَة.

তাখরীযুল ইহইয়া লিল ইরাকী-৪৩০।
আল্লামা ইবনে হাজার (রহ.) সহ আরো একাধিক ইমাম উক্ত হাদীসটি শুধু যয়ীফ বলে মন্তব্য করেছেন। তালখিসুল হাবীর-২/১৯০।

✏ ০২. হযরত মুয়াজ ইবনে জাবাল (রা.) এর হাদীস-

الترغيب والترهيب (1/ 248)
374- أخبرنا أبو الفتح الصحاف، أنا أبو سعيد النقاش الحافظ، أنا أبو ذر: الحسين بن الحسن بن علي الكندي بالكوفة، ثنا الحسين بن أحمد المالكي، ثنا سويد بن سعيد،ثنا عبد الرحيم بن زيد العَمِّي، عن أبيه، عن وهب بن منبه، عن معاذ بن جبل -رضي الله عنه- قال: قال رسول الله صلى الله عليه وسلم: ((من أحيا الليالي الخمس وجبت له الجنة، ليلة التروية، وليلة عرفة، وليلة النحر،وَلَيْلَة الْفطر وليلة النصف من شعبان)) .

হযরত মুয়াজ ইবনে জাবাল (রা.) থেকে বর্ণিত। রাসূল (সা.) বলেন, যে ব্যক্তি পাঁচটি রাত (ইবাদতের উদ্দেশ্যে) জাগ্রত থাকবে তার জন্য জান্নাত ওয়াজিব হয়ে যাবে। তারবিয়ার রাত (জিলহাজ্জ মাসের ৮ তারিখের রাত), আরাফার রাত, কুরবানী দিবসের রাত এবং ঈদুল ফিত্বরের রাত ও শবে বরাতের রাত। আত তারগীব ওয়াত তারহীব লিল আসবাহানী-১/২৪৮, লিল মুনজেরী-২/৯৮, হাদীস-১৬৫৬।

❖ হাদীসটির মান :
উক্ত হাদীসটি যয়ীফ (আমলযোগ্য)। কেননা উক্ত হাদীস এর একজন দূর্বল বর্ণনাকারী হলেন عبد الرحيم بن زيد العَمِّي তার সম্পর্কে মুহাদ্দীসগণ নিন্মরুপে জারাহ করেছেন-

عبد الرحيم بن زيد العمي أحد رواته (متروك)، و سبقه ابن الجوزي فقال : حديث لا يصح ، و عبد الرحيم قال يحيى : كذاب ، و النسائي : متروك … وقال ابن حجر :حديث مضطرب الإسناد» .و الحديث أورده المنذري في الترغيب بلفظ «…الليالي الخمس …». و أضاف في آخره : «…وليلة النصف من شعبان » و أشار المنذري لضعفه

✏ ০৩. হযরত উবাদা ইবনুস সামেত (রা.) এর হাদীস-

المعجم الأوسط (1/ 57)
159 – حَدَّثَنَا أَحْمَدُ بْنُ يَحْيَى بْنِ خَالِدِ بْنِ حَيَّانَ قَالَ: نا حَامِدُ بْنُ يَحْيَى الْبَلْخِيُّ قَالَ: نا جَرِيرُ بْنُ عَبْدِ الْحَمِيدِ، عَنْ رَجُلٍ وَهُوَ: عُمَرُ بْنُ هَارُونَ الْبَلْخِيُّ، عَنْ ثَوْرِ بْنِ يَزِيدَ، عَنْ خَالِدِ بْنِ مَعْدَانَ، عَنْ عُبَادَةَ بْنِ الصَّامِتِ، أَنَّ رَسُولَ اللَّهِ صَلَّى اللهُ عَلَيْهِ وَسَلَّمَ قَالَ: «مَنْ صَلَّى لَيْلَةَ الْفِطْرِ وَالْأَضْحَى، لَمْ يَمُتْ قَلْبُهُ يَوْمَ تَمُوتُ الْقُلُوبُ»
لَمْ يَرْوِ هَذَا الْحَدِيثَ عَنْ ثَوْرٍ إِلَّا عُمَرُ بْنُ هَارُونَ، تَفَرَّدَ بِهِ: جَرِيرٌ

হযরত উবাদা (রা.) থেকে বর্ণিত। রাসূল (সা.) বলেন, যে ব্যক্তি ঈদুল ফিত্বর এবং ঈদুল আযহার রাত্রি নামায রত থাকবে, সে ব্যক্তির হৃদয় ঐদিন মৃত্যুবরণ করবে না যেদিন অন্য হৃদয়গুলো মৃত্যুবরণ করবে। আল মুজামুল আওসাত-১/৫৭, হাদীস-১৫৯।

❖ হাদীসটির মান :
হাদীসটি যয়ীফ (আমলযোগ্য)। বিখ্যাত মুহাদ্দেস আল্লামা হায়সামী (রহ.) বলেন-

مجمع الزوائد ومنبع الفوائد (2/ 198)
رَوَاهُ الطَّبَرَانِيُّ فِي الْكَبِيرِ وَالْأَوْسَطِ وَفِيهِ عُمَرُ بْنُ هَارُونَ الْبَلْخِيُّ وَالْغَالِبُ عَلَيْهِ الضَّعْفُ، وَأَثْنَى عَلَيْهِ ابْنُ مَهْدِيٍّ وَغَيْرُهُ، وَلَكِنْ ضَعَّفَهُ جَمَاعَةٌ كَثِيرَةٌ وَاللَّهُ أَعْلَمُ

উক্ত হাদীসের একজন বর্ণনাকারী হলেন عُمَرُ بْنُ هَارُونَ الْبَلْخِيُّ আর তিনি সম্ভবত একজন যয়ীফ বর্ণনাকারী কিন্তু আল্লামা ইবনু মাহদীর ন্যায় অনেক মুহাদ্দীস তার প্রশংসাও করেছেন আর অনেকেই তাকে দুর্বল বলেছেন। আল্লাহ ভালো জানেন। মাজমাউয যাওয়ায়েদ-২/১৯৮, হাদীস-৩২০৩।

❖ একটি আশা :
মহান আল্লাহ নিকট একটি আশা হলো, তিনি যেন এই সব হাদীসগুলোর তাহকীক দেখার পর আমাদের আহলে হাদীস ভাইগুলোকে মিথ্যাচার, জাল হাদীস বলে শ্লোগান ও শায়খ আলবানীর অন্ধ তাকলীদ থেকে হেফাযত করেন। আমীন

চার মাযহাবের ফাতওয়া :
ঈদের রজনীতে ইবাদত করা বিষয়ে চারও মাযহাবেই মুস্তাহাব বলে বর্ণিত হয়েছে। নিম্মে রেফারেন্স উল্লেখ করা হলো-

يستحبّ احياء ليلة العيد باتفاق المذاهب الأربعة ، قال في المجموع : وأسانيده ضعيفة , ومع ذلك استحبوا الإحياء لأن الحديث الضعيف يعمل به في فضائل الأعمال .

الأم للشافعي (1/ 264)
(قَالَ الشَّافِعِيُّ) : وَبَلَغَنَا أَنَّهُ كَانَ يُقَالُ: إنَّ الدُّعَاءَ يُسْتَجَابُ فِي خَمْسِ لَيَالٍ فِي لَيْلَةِ الْجُمُعَةِ، وَلَيْلَةِ الْأَضْحَى، وَلَيْلَةِ الْفِطْرِ، وَأَوَّلِ لَيْلَةٍ مِنْ رَجَبٍ، وَلَيْلَةِ النِّصْفِ مِنْ شَعْبَانَ أَخْبَرَنَا الرَّبِيعُ قَالَ أَخْبَرَنَا الشَّافِعِيُّ قَالَ أَخْبَرَنَا إبْرَاهِيمُ بْنُ مُحَمَّدٍ قَالَ رَأَيْت مَشْيَخَةً مِنْ خِيَارِ أَهْلِ الْمَدِينَةِ يَظْهَرُونَ عَلَى مَسْجِدِ النَّبِيِّ – صَلَّى اللَّهُ عَلَيْهِ وَسَلَّمَ – لَيْلَةَ الْعِيدِ فَيَدْعُونَ وَيَذْكُرُونَ اللَّهَ حَتَّى تَمْضِيَ سَاعَةٌ مِنْ اللَّيْلِ، وَبَلَغْنَا أَنَّ ابْنَ عُمَرَ كَانَ يُحْيِي لَيْلَةَ جُمَعٍ، وَلَيْلَةُ جُمَعٍ هِيَ لَيْلَةُ الْعِيدِ لِأَنَّ صَبِيحَتَهَا النَّحْرُ (قَالَ الشَّافِعِيُّ) : وَأَنَا أَسْتَحِبُّ كُلَّ مَا حُكِيَتْ فِي هَذِهِ اللَّيَالِيِ مِنْ غَيْرِ أَنْ يَكُونَ فَرْضًا.

جاء في حاشية ابن عابدين الحنفي( 2/25 ) : ( مطلب في إحياء ليالي العيدين والنصف وعشر الحجة ورمضان ) .
جاء في حاشية الدسوقي المالكي (1/399 ): ( قوله وندب إحياء ليلته ) أي لقوله عليه الصلاة والسلام { من أحيا ليلة العيد وليلة النصف من شعبان لم يمت قلبه يوم تموت القلوب } ومعنى عدم موت قلبه عدم تحيره عند النزع والقيامة بل يكون قلبه عند النزع مطمئنا , وكذا في القيامة والمراد باليوم الزمن الشامل لوقت النزع ووقت القيامة الحاصل فيهما التحير ” .

وفي نهاية المحتاج للرملي 2/397: ( ويستحب إحياء ليلتي العيد بالعبادة ولو كانت ليلة جمعة من صلاة وغيرها من العبادات لخبر ( من أحيا ليلة العيد لم يمت قلبه يوم تموت القلوب )والمراد بموت القلوب شغفها بحب الدنيا أخذا من خبر { لا تدخلوا على هؤلاء الموتى ؟ قيل من هم يا رسول الله ؟ قال : الأغنياء } وقيل الكفرة أخذا من قوله تعالى { أومن كان ميتا فأحييناه } أي كافرا فهديناه . وقيل الفزع يوم القيامة أخذا من خبر ( يحشر الناس يوم القيامة حفاة عراة غرلا , فقالت أم سلمة : , أو غيرها واسوأتاه , أتنظر الرجال إلى عورات النساء والنساء إلى عورات الرجال ؟ فقال لها النبي صلى الله عليه وسلم : إن لهم في ذلك اليوم شغلا لا يعرف الرجل أنه رجل ولا المرأة أنها امرأة )
ويحصل الإحياء بمعظم الليل وإن كان الأرجح في حصول المبيت بمزدلفة الاكتفاء فيه بلحظة في النصف الثاني من الليل . وعن ابن عباس يحصل إحياؤهما بصلاة العشاء جماعة والعزم على صلاة الصبح جماعة , والدعاء فيهما وفي ليلة الجمعة وليلتي أول رجب ونصف شعبان مستجاب فيستحب ) اهـ

وجاء في كشاف القناع للبهوتي الحنبلي ( 1/467 ) : ( ولا يقومه كله ) لقول عائشة رضي الله عنها {ما علمت أن النبي صلى الله عليه وسلم قام ليلة حتى الصباح } قال في الفروع : وظاهر كلامهم : ولا ليالي العشر , فيكون قول عائشة أنه أحيا الليل أي كثيرا منه أو أكثره ويتوجه بظاهره احتمال ويخرج من ليلة العيد ويحمل قولها الأول : على غير العشر , أو لم يكثر ذلك منه واستحبه شيخنا وقال قيام بعض الليالي كلها مما جاءت به السنة ( إلا ليلة عيد ) لحديث { من أحيا ليلة العيد أحيا الله قلبه يوم تموت القلوب } رواه الدارقطني في علله وفي معناها : ليلة النصف من شعبان كما ذكره ابن رجب في اللطائف ) اهـ

و جاء في التلخيص الحبير للحافظ ابن حجر : 2/160 : ( روى الخطيب في غنية الملتمس بإسناد إلى عمر بن عبد العزيز أنه كتب إلى عدي بن أرطاة : ” عليك بأربع ليال في السنة , فإن الله يفرغ فيهن الرحمة : أول ليلة من رجب , وليلة النصف من شعبان , وليلة الفطر , وليلة النحر) اهـ

وجاء في مصنف ابن ابي شيبة 2/291 : ( من كان يقوم ليلة الفطر : حدثنا حفص عن الحسن بن عبيد الله قال كان عبد الرحمن بن الأسود يقوم بنا ليلة الفطر ) اهـ
وفي البر والصلة للمروزي ص 33 : ( حدثنا الحسين بن الحسن قال سمعت ابن المبارك يقول : بلغني أنه من أحيا ليلة العيد أو العيدين لم يمت قلبه حين تموت القلوب ) اهـ

✏ উল্লেখ্য যে, অনেক স্থানে উক্ত রজনীতে আতশবাজি করতে দেখা যায় :

এ আতশবাজী শুধু গুনাহের কাজই নয়, বরং এর দুনিয়াবী কুফল আর আসারতাও আমাদের চোখের সামনে বিদ্যমান। যেমন (১) এতে নিজের সম্পদ অযথা ধ্বংস ও অপচয় হয়। তাছাড়াও একাজ দুনিয়াতেও ঘৃণিত হওয়ার পাশাপাশি সর্ব প্রকার ধ্বংসের কারণ হয়ে দাঁড়ায়। কুরআনে কারীমে এ ধরনের লোককে শয়তানের ভাই বলে আখ্যায়িত করা হয়েছে। (২) এর ফলে অনেক সময় নিজের সন্তান সন্ততি ও পাড়া প্রতিবেশীর জীবন হুমকির সম্মুখিন হয়ে পড়ে। (৩) শিশুদের হাতে এই আতশবাজীর জন্য টাকা পয়সা দেয়া হয়। এটা বাল্যকাল থেকেই তাদেরকে আল্লাহর অবাধ্যতা ও নাফরমানীর শিক্ষা দেয় এবং অনর্থক রসমের প্রতি অভ্যস্ত করে তোলে (৪) যে রজনীেতে মহান আল্লাহ দোয়া কবুল করেন, ঠিক সে মুহূর্তে এসব গর্হিত কাজে লিপ্ত থাকা কি তার নি’আমতের প্রতি অবজ্ঞা প্রদর্শন নয়? (৫) এছাড়াও আলোকসজ্জা ও আতশবাজী হল হিন্দু জাতির দিওয়ালী প্রথার একট প্রতিচ্ছবি মাত্র। একজন মু’মিনের ঈমানী চেতনা ও জযবা কখনই তা সমর্থন করতে পারে না। আস সারাহা-১০৪, ইকতিযাউস সিরাতিল মুস্তাকিম- ২/৬৩২; আলমাদখাল লি ইবনিল হাজ্ব ১/২৯৯ ও ১/৩০৬, ৩০৭; তানকীহুল হামীদিয়াহ ২/৩৫৯; ইমদাদুল ফাতাওয়া ৫/২৮৯।

✔ মহান আল্লাহ তায়ালা আমাদেরকে সঠিক দ্বীন অনুসারে আমল করার তাওফীক দান করুন। আমীন

 

والله اعلم بالصواب

উত্তর লিখনে

মুফতী ছানাউল্লাহ

সহকারী মুফতী-বাংলাদেশ ফিক্বহ একাডেমী

আরও জানুন

বিয়ের সর্বনিম্ন মোহর কত?

প্রশ্ন বিয়ের সর্বনিম্ন মোহর কত? দয়া করে জানালে উপকৃত হতাম মুফতী সাহেব। উত্তর بسم الله …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *