প্রচ্ছদ / প্রশ্নোত্তর / ইচ্ছেকৃত রোযা ভঙ্গের হুকুম এবং অনিচ্ছাকৃত রোযা ভঙ্গ করে পরে ইচ্ছেকৃত খানা খেলে কাফফারা দিতে হবে?

ইচ্ছেকৃত রোযা ভঙ্গের হুকুম এবং অনিচ্ছাকৃত রোযা ভঙ্গ করে পরে ইচ্ছেকৃত খানা খেলে কাফফারা দিতে হবে?

প্রশ্ন

প্রশ্নকারীর নাম: মোঃ দেলোয়ার হোসেন

ঠিকানা: Subarnachar.noakhali

জেলা/শহর: Noakhali

দেশ: Bangladesh

প্রশ্নের বিষয়: রোজা

বিস্তারিত:
—————-
আসসালামু আলাইকুম ওরাহমাতুল্লাহি ওয়াবারাকাতুহ।
প্রশ্ন হল
যদি কেউ ইচ্ছাকৃতভাবে রোজা ভঙ্গ করে, তাহলে তার বিধান কী?

আর যদি কেউ অনিচ্ছাকৃতভাবে রোজা ভঙ্গ করে কিন্তু সে ভেঙ্গে গেছে মনে করে পরে আবার খাবার খেয়ে নেয় ।
তাহলে তার বিধান কি হবে তার জন্য রোজার কাজা কাফফারা আদায় করা লাগবে কিনা?

উত্তর

وعليكم السلام ورحمة الله وبركاته

بسم الله الرحمن الرحيم

রোযা রেখে ইচ্ছেকৃত রোযা ভেঙ্গে ফেললে উক্ত রোযার কাযা এবং কাফফারা উভয়টিই আদায় করতে হবে।

আর অনিচ্ছকৃত রোযা ভঙ্গ হবার পর, রোযা ভেঙ্গে গেছে মনে করে খানা খেয়ে ফেললে শুধু কাযা আদায় করলেই হবে। কাফফারা লাগবে না।

রোযার কাফফারা হলো, লাগাতার ষাট দিন রোযা রাখা। মাঝখানে একদিনের জন্যও রোযা ভঙ্গ করা যাবে না। ভঙ্গ করলে আবার প্রথম থেকে ষাট দিন গণনা করতে হবে।

عن  ابى هريرة رضى الله عنه قال فى رجل وقع على أهله فى رمضان، فقال: اعتق رقبة، قال: ما أجدها، قال: فصم شهرين، قال: ما استطيع،قال: فاطعم ستين مسكينا (السنن  الكبرى للبيهقى-4/381، رقم-8054)

عن ابى هريرة رضى الله عنه أن رجلا أكل فى رمضان فأمره النبى صلى الله عليه وسلم أن  يعتق رقبة أو يصوم شهرين أو يطعم ستين مسكينا (سنن الدار قطنى-2/170، رقم-2284)

وما جامع فى أحد السبلين عامدا فعليه القضاء والكفارة، ولو أكل أو شرب ما ما  يتغذى به أو ايداوى به  فعليه القضاء والكفارة (الهداية-1/219، الفتاوى الهندية-1/205-206، الفتاوى التاتارخانية-3/389)

والكفارة تحرير رقبة…. فإن  عجز عنه صام شهرين متتابعين ليس فيها يوم عيد ولا أيام ا لتشريق فإن لم يستطع الصوم أطعم ستين مسكينا، والشرط أن  يغديهم ويعشيهم غداء وعشاء مشبعين (نور الإيضاح مع مراقى  الفلاح-366، الولوالجية-1/225، مجمع الأنهر-1/239، البحر الرائق-2/277، رد المحتار، زكريا-3/390)

أكل أو  شرب غذاء……… عمدا قضى فى الصور كلها وكفر (الدر المختار مع رد المحتار، زكريا-3/385-388، كرتاشى-2/409،كويته-2/117)

ولو نظر إلى محاسن المرأة فانزل فظن أن ذلك فطره فاكل بعد ذلك فهو كالقئ وقد ذكرنا حكمه وقال البعض ان  كان عالما عليه القضاء والكفارة عند الكل، وإن كان جاهلا عليه القضاء دون الكفارة (خلاصة الفتاوى، كتاب الصوم، الفصل الثالث فيما يفسد الصوم الخ-1/259)

ومن أكل في رمضان ناسيا وظن أن ذلك يفطره فأكل بعد ذلك متعمدا عليه القضاء دون الكفارة (الهداية، كتاب الصوم، فصل فى من  كان مريضا فى رمضان الخ-1/127، طبع دار احياء التراث العربي – بيروت – لبنان)

لَوْ أَكَلَ أَوْ شَرِبَ أَوْ جَامَعَ نَاسِيًا وَظَنَّ أَنَّ ذَلِكَ فَطَّرَهُ فَأَكَلَ مُتَعَمِّدًا لَا كَفَّارَةَ عَلَيْهِ، (الفتاوى الهندية-1/206)

اعلم أن الصيامات اللازمة فرضا ثلاثة عشر، سبعة منها يجب فيها التتابع، وهى رمضان وكفارة القتل… وكفارة الإفطار، (الفتاوى الهندية-1/215، فتح القدير-2/340)

والله اعلم بالصواب
উত্তর লিখনে
লুৎফুর রহমান ফরায়েজী

পরিচালক-তালীমুল ইসলাম ইনষ্টিটিউট এন্ড রিসার্চ সেন্টার ঢাকা।

উস্তাজুল ইফতা– জামিয়া কাসিমুল উলুম সালেহপুর, আমীনবাজার ঢাকা।

পরিচালক: শুকুন্দী ঝালখালী তা’লীমুস সুন্নাহ দারুল উলুম মাদরাসা, মনোহরদী নরসিংদী।

ইমেইল– ahlehaqmedia2014@gmail.com

আরও জানুন

ইতিকাফের কাযা করার সময় কি রোযা রাখা শর্ত?

প্রশ্ন প্রশ্নকারীর নাম: লুৎফর রহমান ঠিকানা: খৈশাইর জেলা/শহর: নারায়ণগঞ্জ দেশ: বাংলাদেশ প্রশ্নের বিষয়: ইতিকাফ বিষয়ে …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আহলে হক্ব বাংলা মিডিয়া সার্ভিস