প্রচ্ছদ / আদব ও আখলাক / বিধর্মীদের সাথে বন্ধুত্ব করার হুকুম কী?

বিধর্মীদের সাথে বন্ধুত্ব করার হুকুম কী?

প্রশ্ন

From: ador
বিষয়ঃ bondhutto

প্রশ্নঃ
বিধর্মীদের সাথে কি বন্ধুত্ব করা যাবে?

উত্তর

بسم الله الرحمن الرحيم

দু’টি বিষয়। এক হল “মুআলা-ত”। তথা হৃদয়ের গহীন মোহাব্বত ও টানের সাথে সম্পর্ক রাখা ও সহানূভূতি রাখা।

এমন বন্ধুত্ব কেবল মুসলমানদের সাথেই রাখা যাবে। বিধর্মীদের সাথে রাখা যাবে না।

আরেক হল, “মুআছা-ত”। তথা উপকার করা এবং সহমর্মিতা প্রকাশ। যাতে মনের মোহাব্বত ও টান থাকা জরুরী নয়। মনের টান ও আন্তরিক মোহাব্বত ছাড়াও বাহ্যিকভাবে উপকার ও সহানুভূতি প্রকাশ করা যায়।

এমন সহানুভূতি ও টান বিধর্মীদের প্রতি রাখা যাবে। এটা জায়েজ।

এমন ধরণের বন্ধুত্ব বা সম্পর্ক বিধর্মীদের সাথে রাখাতে কোন সমস্যা নাই।

সহজ কথায় “মুআলা-ত” পর্যায়ের বন্ধুত্ব বিধর্মীর সাথে রাখা জায়েজ নয়, কিন্তু “মুয়াছা-ত” পর্যায়ের বন্ধুত্ব বিধর্মীর সাথে রাখা জায়েজ আছে।

لَّا يَتَّخِذِ الْمُؤْمِنُونَ الْكَافِرِينَ أَوْلِيَاءَ مِن دُونِ الْمُؤْمِنِينَ ۖ وَمَن يَفْعَلْ ذَٰلِكَ فَلَيْسَ مِنَ اللَّهِ فِي شَيْءٍ إِلَّا أَن تَتَّقُوا مِنْهُمْ تُقَاةً ۗ [٣:٢٨]

মুমিনগণ যেন মুমিনদেরকে ছেড়ে কাফিরদের (নিজেদের) মিত্র না বানায়। যে এরূপ করবে আল্লাহর সঙ্গে তার কোনও সম্পর্ক নেই। তবে তাদের (জুলুম) থেকে বাঁচার জন্য যদি আত্মরক্ষামূলক কোন পন্থা অবলম্বন কর সেটা ভিন্ন কথা।  [সূরা আলে ইমরান-২৮]

عَنْ مُجَاهِدٍ، أَنَّ عَبْدَ اللهِ بْنَ عَمْرٍو ذُبِحَتْ لَهُ شَاةٌ فِي أَهْلِهِ، فَلَمَّا جَاءَ قَالَ: أَهْدَيْتُمْ لِجَارِنَا اليَهُودِيِّ؟ أَهْدَيْتُمْ لِجَارِنَا اليَهُودِيِّ؟ سَمِعْتُ رَسُولَ اللهِ صَلَّى اللَّهُ عَلَيْهِ وَسَلَّمَ يَقُولُ: مَا زَالَ جِبْرِيلُ يُوصِينِي بِالجَارِ حَتَّى ظَنَنْتُ أَنَّهُ سَيُوَرِّثُهُ

মুজাহিদ (রহঃ) হতে বর্ণিত আছে, আবদুল্লাহ ইবনু আমর (রাঃ)-এর জন্য তার পরিবারে একটি ছাগল যবেহ করা হল। তিনি এসে বললেন, তোমরা কি আমাদের ইয়াহুদী প্রতিবেশীকে (গোশত) উপহার পাঠিয়েছ? আমি রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামকে বলতে শুনেছিঃ  প্রতিবেশীর অধিকার প্রসঙ্গে জিবরীল (আঃ) আমাকে অবিরত উপদেশ দিতে থাকেন। এমনকি আমার ধারণা হল যে, হয়ত শীঘ্রই প্রতিবেশীকে উত্তরাধিকারী বানিয়ে দিবে। [সুনানে তিরমিজী-২/১৬, হাদীস নং-১৯৪৩, সুনানে আবূ দাউদ-২/৭০১, হাদীস নং-৫১৫২]

الا ان تتقوا منهم تقاة فحينئذ تجوز الموالات ظاهرا (روح المعانى، سورة آل عمران تحت رقم الآية-37-3\228، احكام القرآن للجصاص-2\12)

والله اعلم بالصواب
উত্তর লিখনে
লুৎফুর রহমান ফরায়েজী

পরিচালক -তা’লীমুল ইসলাম ইনস্টিটিউট এন্ড রিসার্চ সেন্টার ঢাকা।

উস্তাজুল ইফতা– জামিয়া কাসিমুল উলুম আমীন বাজার, সালেহপুর ঢাকা।

ইমেইল– ahlehaqmedia2014@gmail.com

আরও জানুন

কবরবাসী জিয়ারতকারীর সালাম শুনতে পায় এবং পরিচিতজনকে চিনতে পারে?

প্রশ্ন প্রশ্নকারীর নাম: —————- ফয়সাল আহমাদ ঠিকানা: —————- গুনবতী,কুমিল্লা জেলা/শহর: —————- কুমিল্লা দেশ: —————- বাংলাদেশ …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আহলে হক্ব বাংলা মিডিয়া সার্ভিস