প্রচ্ছদ / ক্রয়-বিক্রয় / পপি তথা আফিম চাষ করা এবং তা বিক্রি করে উপার্জন করার হুকুম কী?

পপি তথা আফিম চাষ করা এবং তা বিক্রি করে উপার্জন করার হুকুম কী?

প্রশ্ন

পপি তথা আফিম চাষ করা এবং তা বিক্রি করে উপার্জন করার হুকুম কী? দয়া করে জানালে কৃতজ্ঞ হবো।

উত্তর

بسم الله الرحمن الرحيم

যে বস্তু দিয়ে হালাল ও হারাম উভয় কাজে ব্যবহার করার সুযোগ রয়েছে। সেই বস্তু চাষ ও ক্রয়বিক্রয় জায়েজ আছে। তবে হারাম বস্তু বানানো ও বিক্রি করা জায়েজ নয়।

যেহেতু পপি ফুল তথা আফিম দিয়ে মরফিনের মতো শক্তিশালী বেদনানাশক ওষুধ তৈরি করা হয়। যা বিভিন্ন দেশের হাসপাতালে রোগীকে অজ্ঞান করতে ব্যবহার করা হয়ে থাকে। এ কারণে পপি চাষ ও বিক্রি করাতে কোন সমস্যা নেই।

তবে যারা তা ক্রয় করে মাদক বানায় ও বিক্রি করে তারা গোনাহগার হবে।

যেমন ছুড়ি চাকু। এসব দ্বারা ভালো কাজেও ব্যবহার করা যায়। আবার কাউকে খুন করার কাজেও ব্যবহার করা যায়।

আঙ্গুর, খেজুর, কিশমিশ দিয়ে ভালো কাজে ব্যবহার করা যায়। আবার এসব দিয়ে মাদকও তৈরী করা যায়।

সুতরাং যারা আঙ্গুর, খেজুর, কিশমিশ ক্রয় করে মাদক বানায়, ছুড়ি চাকু ক্রয় করে হত্যা, খুন ও সন্ত্রাসী কাজ করে তারা গোনাহগার হবে। কিন্তু যারা এসব চাষ ও নির্মাণ করে  বিক্রি করে তাদের কাজকে নাজায়েজ বা হারাম বলার সুযোগ নেই।

সুতরাং পপি চাষ ও বিক্রয় করে উপার্জন করা সম্পূর্ণরূপেই জায়েজ।

তবে যদি জানা যায় যে, যারা এটি ক্রয় করছে, তারা এটি দিয়ে মাদক তৈরী করবে, তাহলে মাদক কারবারীদের কাছে জেনেশুনে পপি তথা আফিম বিক্রি করা মাকরূহে তাহরীমী হবে। ওষুধ কোম্পানীর কাছে বিক্রি করাতে কোন সমস্যা নেই।

جاز بيع العصير من خمار، لأن المعصية لا تقوم بعينه، بل بعد تغيره ولأن العصير يصلح للأشياء كلها جائزة شرعا فيكون الفساد على اختياره (البحر الرائق-8/371)

والظاهر أن هذه الكراهة إنما تثبت إذا تعاطاه الرجل لغرض غير مشروع، وأما إذا تعاطاه لغرض مشروع، كالدواء والضماد وغيره فما يجوز استعماله فيه، فالظاهر انتفاء الكراهة حينئذ (تكملة فتح الملهم-3/608)

ما قامت المعصية بعينه يكره بيعه تحريما (الدر المختار مع رد المحتار-9/561)

إن ما قامت المعصية بعينه يكره بيعه (البحر الرائق-5/143)

ويجوز بيع العصير ممن يتخذ خمرا، لأن المعصية لا تقوم بنفس العصير، بل بعد تغيره فصار عند العقد كسائر الأشربة من عسل ونحوه (مجمع الأنهر-4/214)

وصح بيع غير الخمر أى عنده خلافا لهما فى البيع والضمان لكن الفتوى على قوله فى البيع، ثم إن البيع وإن صح لكنه يكره كما فى الغاية (رد المحتار-10/35) 

أن كل ما فيه منفعة تحل شرعاً، فإن بيعه يجوز، لأن الأعيان خلقت لمنفعة الإنسان بدليل قوله تعالى: {خلق لكم ما في الأرض جميعاً} [البقرة:29/ 2] (الفقه الاسلامى وادلته، معالم النظام الاقتصادى فى الاسلام، القسم الثالث العقود، المبحث الرابع-البيع الباطل والبيع الفاسد، المطلب الاول-انواع البيع الباطل، بيع النجس والمتنجس-4/217(

وَمَا كَانَ الْغَالِبُ عَلَيْهِ الْحَرَامُ وَلَمْ يَجُزْ بَيْعُهُ وَلَا هِبَتُهُ (الفتاوى الهندية، كتاب البيوع، الْبَابُ التَّاسِعُ فِيمَا يَجُوزُ بَيْعُهُ وَمَا لَا يَجُوزُ وَفِيهِ عَشَرَةُ فُصُولٍ، الْفَصْلُ الْخَامِسُ فِي بَيْعِ الْمُحْرِمِ الصَّيْدَ وَفِي بَيْعِ الْمُحَرَّمَاتِ،-3/116(


وَتَعَاوَنُوا عَلَى الْبِرِّ وَالتَّقْوَىٰ ۖ وَلَا تَعَاوَنُوا عَلَى الْإِثْمِ وَالْعُدْوَانِ ۚ وَاتَّقُوا اللَّهَ ۖ إِنَّ اللَّهَ شَدِيدُ الْعِقَابِ [٥:٢

সৎকর্ম ও খোদাভীতিতে একে অন্যের সাহায্য কর। পাপ ও সীমালঙ্ঘনের ব্যাপারে একে অন্যের সহায়তা করো না। আল্লাহকে ভয় কর। নিশ্চয় আল্লাহ তা’আলা কঠোর শাস্তিদাতা। {সূরা মায়িদা-২}

والله اعلم بالصواب
উত্তর লিখনে
লুৎফুর রহমান ফরায়েজী

পরিচালক -তা’লীমুল ইসলাম ইনস্টিটিউট এন্ড রিসার্চ সেন্টার ঢাকা।

ইমেইল– ahlehaqmedia2014@gmail.com

আরও জানুন

কবরবাসী জিয়ারতকারীর সালাম শুনতে পায় এবং পরিচিতজনকে চিনতে পারে?

প্রশ্ন প্রশ্নকারীর নাম: —————- ফয়সাল আহমাদ ঠিকানা: —————- গুনবতী,কুমিল্লা জেলা/শহর: —————- কুমিল্লা দেশ: —————- বাংলাদেশ …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আহলে হক্ব বাংলা মিডিয়া সার্ভিস