প্রচ্ছদ / আধুনিক মাসায়েল / SPC (এসপিসি) এর পরিচয় ও শরয়ী বিধান

SPC (এসপিসি) এর পরিচয় ও শরয়ী বিধান

প্রশ্ন

السلام عليكم ورحمة الله وبركاته

জনাব মুফতি সাহেব আশাকরি আল্লাহর রহমতে ভালো আছেন।

আমি S P C এর সম্পর্কে বিস্তারিত জানতে চাই।

উত্তর

وعليكم السلام ورحمة الله وبركاته

بسم الله الرحمن الرحيم

S P C এর পূর্ণ রূপ হল, “সুপার পাওয়ার  কমিউনিটি”।  এটি মূলত একটি নতুন মোড়কে এমএলএম তথা মাল্টি লেভেল মার্কেটিং কোম্পানী।

প্রথমে প্লে স্টোর থেকে তাদের এ্যাপটি ডাউনলোড করতে হয়।

ডাউনলোড শেষে প্রথমে ১২০০/= (বারশত টাকা) দিয়ে সদস্যপদ গ্রহণ করতে হয়।  বা আইডি খুলতে হয়।

তারপর থেকে আপনি তাদের সাইটে দেয়া চার সেকেন্ডের পাঁচটি বিজ্ঞাপন দেখলেই অর্থাৎ মাত্র ২০ সেকেন্ড সময় ব্যয় করলেই আয় হবে ১০ টাকা।

অর্থাৎ মেম্বার হবার সময় দেয়া সেই টাকা উঠে আসবে ৬০ দিনে। এমনি চটকদার কোম্পানী হল, এসপিসি।

এখানে অন্য কাউকে এসপিসির সদস্যপদ লাভের জন্য আবেদন করলে যদি উক্ত ব্যক্তি তা গ্রহণ করে থাকে, তাহলে এর উপরও ৪০০/= (চারশত টাকা) বেনিফিট দেয়া হয়ে থাকে।

তাছাড়াও আপনার যদি একটি রয়েল অ্যাকাউন্ট থাকে অর্থাৎ একটি একাউন্ট এর নিচে ১৩টি একাউন্ট থাকে সেক্ষেত্রে কোম্পানির লাভের ২০% কমিশন প্রতিদিন আপনার ওয়ালেট এ জমা হবে। মূলত এভাবে এখান থেকে ইনকাম করা যায়।

শরয়ী বিধান

এসপিসিসহ এ জাতীয় যত কোম্পানী আছে সব কোম্পানীর লেনদেন ও কারবার সবই হারাম ও নাজায়েজ।

তাই এসব থকে বিরত থাকা প্রতিটি মুসলমানের জন্য আবশ্যক।

শরয়ী অনেকগুলো কারণেই এসব কোম্পানীর কার্যক্রম জায়েজ নয়। যেমন-

এতে এমন সব লোকেরা বিজ্ঞাপনগুলো দেখে থাকেন, যাদের উক্ত পণ্যটি কেনার কোন ইচ্ছে নেই। বরং ক্রেতার কাছে উক্ত পণ্যটির  চাহিদা দেখানোর জন্য ভিউ বেশি বুঝাতে ক্লিক করে ভিউ বাড়ানো হয়ে থাকে।

যা মূল ক্রেতার সাথে এক প্রকার প্রতারণা। যা জায়েজ নেই।

ওসব বিজ্ঞাপনে নারীদের ছবি হয়ে থাকে। যা দেখার দ্বারা চোখের যিনা হয়ে থাকে।

এতে এমএলএম এর মত নাজায়েজ বিষয় শামিল। যা অনেকগুলো কারণেই নাজায়েজ।

যেমন

ক) এতে কর্ম ছাড়াই পারিশ্রমিক পাওয়া যায়।

খ) কর্ম থাকার পরও পারিশ্রমিক পাওয়া যায় না।

গ) ধোঁকা ও প্রতারণা শামিল।

ঘ) এক চুক্তিতে একাধিক চুক্তি শামিল।

‍ঙ) বাই এবং শর্ত একসাথে পাওয়া যায়।

ইত্যাদি অনেক কারণেই এমএলএম ব্যবসা নাজায়েজ। বিস্তারিত জানতে হলে আমাদের সাইটে প্রকাশিত “মাল্টি লেভেল মার্কেটিং: পরিচয় ও শরয়ী বিধান” শিরোনামে মুফতী আবুল হাসান মুহাম্মদ আব্দুল্লাহ সাহেবের ৩ পর্বে প্রকাশিত প্রবন্ধটি পড়ে নিতে পারেন।

عن يعيد بن عمير الأنصارى، قال: سئل رسول الله صلى الله عليه وسلم أى الكسب أطيب؟ قال: عمل الرجل بيده، وكل بيع مبرور (شعب الإيمان للبيهقى-2/434، رقم-1171)

قال في التتارخانية: وفي الدلال والسمسار يجب أجر المثل، وما تواضعوا عليه أن في كل عشرة دنانير كذا فذاك حرام عليهم. وفي الحاوي: سئل محمد بن سلمة عن أجرة السمسار، فقال: أرجو أنه لا بأس به وإن كان في الأصل فاسدا لكثرة التعامل وكثير من هذا غير جائز، فجوزوه لحاجة الناس إليه كدخول الحمام (رد المحتار، كتاب الإجارة، باب ضمان الأجير، مطلب فى أجرة الدلال-9/87، زكريا)

الإجارة على المنافع المحرة كالزنى والنوح والغناء والملاهى محرمة، وعقدها باطل لا يستحق به أجرة، ولا يجوز استئجار كاتب ليكتب له غناء ونوحا، لأنه انتفاع بمحرم….. ولا يجوز الاستئجار على حمل الخمر لمن يشربها، ولا على حمل الخنزير (الموسوعة الفقهية الكويتية-1/290)

ولا تاكلوا اموالكم بينكم بالباطل (سورة البقرة-188)

نهى رسول الله صلى الله عليه وسلم عن بيع الغرر (صحيح مسلم، رقم-3781، مسند احمد، رقم-2752)

لا يحل سلف وبيع ولا شرطان فى بيع (جامع ترمذى، رقم-1234، سنن ابى داود، رقم-3504)

من غشنا فليس منا (صحيح مسلم، رقم-164، جامع ترمذى، رقم-1315)        

 

আরও জানুন

ফজরের নামাযে কুনুতে নাজেলা কি হযরত উমর রাঃ সারা বছর পড়তেন?

প্রশ্ন From: মাহমুদ বিষয়ঃ কুনূতে নাযেলা প্রশ্নঃ উমার রাঃ এর আমল হিসেবে আমাদের মসজিদে ফজর …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আহলে হক্ব বাংলা মিডিয়া সার্ভিস