প্রচ্ছদ / প্রশ্নোত্তর / ইতিকাফ অবস্থায় হাত পায়ের নখ কাটা এবং গোসল ও পাত্র ধৌত করার জন্য বাইরে যাবার হুকুম কী?

ইতিকাফ অবস্থায় হাত পায়ের নখ কাটা এবং গোসল ও পাত্র ধৌত করার জন্য বাইরে যাবার হুকুম কী?

প্রশ্ন

আসসালামু আলাইকুম, হুজুর!

ইতিকাফ অবস্থায় কি কি করনীয় ও কি কি বর্জণীয় সে সম্পর্কে জানালে উপকৃত হতাম।

ইতিকাফ অবস্থায় হাতের ও পায়ের নোখ কাটা যাবে কি না?

ইতিকাফ অবস্থায় দিনের বেলা গোসল করা যাবে কি না? (আমাদের মসজিদের ইমামসাব বলেছিলেন রাতে গোসল করতে হবে, দিনের বেলায় করা যাবে না).

ইতিকাফ অবস্থায় ইফতার ও সাহরির ব্যবহৃত জিনিস পত্র নিজেরাই মসজিদের ঘাটে কি পরিষ্কার করতে পারব?

উত্তর

وعليكم السلام ورحمة الله وبركاته

بسم الله الرحمن الرحيم

কাটা যাবে। তবে খেয়াল রাখতে হবে যে, মসজিদ যেন নোংরা না হয়।

وان غسله فى المسجد فى إناء لابأس به لأنه ليس فيه تلويث المسجد (خانة على هامش الهندية-1\223، جديد-1\239)

وإن غسل رأسه فى المسجد فى إناء لا بأس به إذا لم يلوث المسجد بالماء المستعمل (بدائع الصنائع-2\284)

ইতিকাফ অবস্থায় ফরজ গোসল ছাড়া প্রশা‌ন্তির জন‌্য গোসল কর‌তে মস‌জিদ থে‌কে বের হওয়া নিষেধ। চাই দিনের বেলা হোক আর রাতের বেলা।

রাতের বেলা গোসল করা যাবে মর্মের কথাটি সঠিক নয়।

তবে এতটুকু করা যাবে যে, মসজিদ থেকে বের হবে ইস্তিঞ্জার নিয়তে। তারপর ইস্তিঞ্জা শেষে অজু করতে যতটুকু সময় লাগে, ততটুকু সময় নিয়ে কয়েক বদনা দ্রুত শরীরে পানি গোসল সেরে নেয়া যাবে। অতিরিক্ত সময় ব্যয় করলে ইতিকাফ ভেঙ্গে যাবে।

وحرم عليه الخروج إلا لحاجة الإنسان طبعية كبول أو غائط وغسل لو احتلم ولا يمكنه الاغتسال فى المسجد فلو أمكنه من غير أن يتلوث المسجد فلا بأس به أى يأن كان فيه بركة ماء أو موضع معد للطهارة أو اغتسل فى إناء بحيث لا يصيب المسجد الماء المستعمل (الدر المختار مع رد المحتار-3\434)

ثم إن أمنكنه الاغتسال فى المسجد من غير أن يتلوث المسجد فلا بأس به وإلا فيخرج ويغتسل ويعود إلى المسجد (هندية-1\213، جديد-1\276)

অন্য লোক থাকা অবস্থায় এগুলো পরিস্কারের জন্য মসজিদের বাইরে গেলে ইতিকাফ ভেঙ্গে যাবে।

(قَوْلُهُ: وَأَكْلُهُ وَشُرْبُهُ وَنَوْمُهُ وَمُبَايَعَتُهُ فِيهِ) يَعْنِي يَفْعَلُ الْمُعْتَكِفُ هَذِهِ الْأَشْيَاءَ فِي الْمَسْجِدِ فَإِنْ خَرَجَ لِأَجْلِهَا بَطَلَ اعْتِكَافُهُ؛ لِأَنَّهُ لَا ضَرُورَةَ إلَى الْخُرُوجِ حَيْثُ جَازَتْ فِيهِ وَالْفَتَاوَى الظَّهِيرِيَّةِ وَقِيلَ يَخْرُجُ بَعْدَ الْغُرُوبِ وَلِلْأَكْلِ وَالشُّرْبِ. اهـ.

وَيَنْبَغِي حَمْلُهُ عَلَى مَا إذَا لَمْ يَجِدْ مَنْ يَأْتِي لَهُ بِهِ فَحِينَئِذٍ يَكُونُ مِنْ الْحَوَائِجِ الضَّرُورِيَّةِ كَالْبَوْلِ وَالْغَائِطِ (البحر الرائق، كتاب الصوم، باب الاعتكاف-2\530، مجمع الانهر، قديم-1\257، جديد-1\379)

والله اعلم بالصواب
উত্তর লিখনে
লুৎফুর রহমান ফরায়েজী

পরিচালক-তা’লীমুল ইসলাম ইনস্টিটিউট এন্ড রিসার্চ সেন্টার ঢাকা।

ইমেইল– ahlehaqmedia2014@gmail.com

আরও জানুন

ফজরের নামাযে কুনুতে নাজেলা কি হযরত উমর রাঃ সারা বছর পড়তেন?

প্রশ্ন From: মাহমুদ বিষয়ঃ কুনূতে নাযেলা প্রশ্নঃ উমার রাঃ এর আমল হিসেবে আমাদের মসজিদে ফজর …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আহলে হক্ব বাংলা মিডিয়া সার্ভিস