প্রচ্ছদ / ঈমান ও আমল / জিলহজ্জের প্রথম দশকের চুল নখ না কাটার বিধানটির সময়সীমা কতটুকু?

জিলহজ্জের প্রথম দশকের চুল নখ না কাটার বিধানটির সময়সীমা কতটুকু?

প্রশ্ন

আসসালামু আলাইকুম।

আমরা ইতোপূর্বে আপনাদের ফাতওয়া বিভাগ থেকে প্রকাশিত একটি ফাতওয়ার মাধ্যমে জানতে পেরেছি যে, জিলহজ্জ মাসের প্রথম দশক শুরু হলে চুল নখ ইত্যাদি ঈদের দিন পর্যন্ত না কাটতে বলা হয়েছে।

মুফতী সাহেবের কাছে আমার জানার বিষয় হল, চুল নখ কি ঈদে যাবার আগে কাটা যাবে? নাকি কুরবানী শেষ হবার পর কাটতে হবে?

উত্তর

وعليكم السلام ورحمة الله وبركاته

بسم الله الرحمن الرحيم

মূলত এ বিধানটি হাজীদের কর্মের সাথে সাদৃশ্যায়নের হিকমত হিসেবে মুস্তাহাব আমল। হাজীরা যেমন হজ্বরত অবস্থায় চুল নখ ইত্যাদি কর্তন করে না। বরং দশে জিলহজ্জ কুরবানী শেষ করে তারপর চুল নখ ইত্যাদি কর্তন করে থাকে।

তেমনি যারা হজ্জে যাননি। তারাও হাজীদের সাদৃশ্যায়নে জিলহজ্জ মাসের প্রথম দশকের সূচনালগ্ন থেকে এমন আমল করে থাকেন।

হাদীসে এ বিষয়ে কবুল কুরবানীর সওয়াব পাবার সুসংবাদ দেয়া হয়েছে।

সেই হিসেবে ঈদের দিন কুরবানী শেষ করার পরই চুল নখ কাটবে। আগে কাটলে সওয়াব থেকে বঞ্চিত হবে।


عَنْ عَبْدِ اللَّهِ بْنِ عَمْرِو بْنِ الْعَاصِ، أَنَّ رَسُولَ اللَّهِ صَلَّى اللهُ عَلَيْهِ وَسَلَّمَ قَالَ لِرَجُلٍ: أُمِرْتُ بِيَوْمِ الْأَضْحَى عِيدًا جَعَلَهُ اللَّهُ عَزَّ وَجَلَّ لِهَذِهِ الْأُمَّةِ، فَقَالَ الرَّجُلُ: أَرَأَيْتَ إِنْ لَمْ أَجِدْ إِلَّا مَنِيحَةً أُنْثَى أَفَأُضَحِّي بِهَا؟ قَالَ: لَا، وَلَكِنْ تَأْخُذُ مِنْ شَعْرِكَ، وَتُقَلِّمُ أَظْفَارَكَ، وَتَقُصُّ شَارِبَكَ، وَتَحْلِقُ عَانَتَكَ، فَذَلِكَ تَمَامُ أُضْحِيَّتِكَ عِنْدَ اللَّهِ عَزَّ وَجَلَّ.

অর্থ : আব্দুল্লাহ বিন আমর রা. থেকে বর্ণিত নবী কারীম সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বলেছেন, আমাকে কুরবানীর দিবসে ঈদ (পালনের) আদেশ করা হয়েছে। যা আল্লাহ এ উম্মতের জন্য নির্ধারণ করেছেন। এক সাহাবী আরজ করলেন, ইয়া রাসূলাল্লাহ! যদি আমার কাছে শুধু একটি মানিহা থাকে (অর্থাৎ অন্যের থেকে নেওয়া দুগ্ধ দানকারী উটনী) আমি কি তা কুরবানী করতে পারি? নবী কারীম সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বললেন, না, তবে তুমি চুল, নখ ও মোঁচ কাটবে এবং নাভীর নিচের পশম পরিষ্কার করবে। এটাই আল্লাহর দরবারে তোমার পূর্ণ কুরবানী বলে গণ্য হবে। [সুনানে আবু দাউদ, হাদীস ২৭৮৯; সুনানে নাসায়ী, হাদীস ৪৩৬৫]

ওলীদ বিন মুসলিম বলেন, আমি মুহাম্মাদ বিন আজলানকে যিলহজ্বের দশকে চুল কাটা সম্পর্কে জিজ্ঞাসা করলাম। তখন তিনি বললেন, আমাকে নাফে রাহ বলেছেন যে,

إن ابن عمر مر بامرأة تأخذ من شعر ابنها في الايام العشر فقال : لو أخرتيه إلى يوم النحر كان أحسن.

অর্থ : আব্দুল্লাহ ইবনে উমর এক নারীর নিকট দিয়ে অতিক্রম করছিলেন। মহিলাটি যিলহজ্বের দশকের ভেতর তার সন্তানের চুল কেটে দিচ্ছিল। তখন তিনি বললেন, যদি ঈদের দিন পর্যন্ত অপেক্ষা করতে তবে বড় ভাল হত। [মুস্তাদরাকে হাকেম, হাদীস ৭৫৯৫]

والله اعلم بالصواب
উত্তর লিখনে
লুৎফুর রহমান ফরায়েজী

পরিচালক ও প্রধান মুফতী-তা’লীমুল ইসলাম ইনস্টিটিউট এন্ড রিসার্চ সেন্টার ঢাকা।

ইমেইল– ahlehaqmedia2014@gmail.com

আরও জানুন

আড়াই ভ‌রি স্বর্ণ ও দুই হাজার টাকার মা‌লি‌কের উপর কুরবানী ওয়া‌জিব?

প্রশ্ন আসসালামু আলাইকুম। মুহতারাম নিম্নোক্ত অবস্থার পরিপ্রেক্ষিতে আমার আম্মার উপর কুরবানি ওয়াজিব হয় কিনা তা …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *