প্রচ্ছদ / আকিদা-বিশ্বাস / ‘আল্লাহ মিথ্যা রাসূল মিথ্যা’ (নাউজুল্লিাহ) এমন কথা বললে কি ঈমান থাকে?

‘আল্লাহ মিথ্যা রাসূল মিথ্যা’ (নাউজুল্লিাহ) এমন কথা বললে কি ঈমান থাকে?

প্রশ্ন

আসসালামু আলাইকুম,
জনাব,
নাম ও ঠিকানা প্রকাশে অনিচ্ছুক,
খুবই গুরুত্ব পূর্ণ বিষয়, জানালে উপকৃত হব।

জনাব আমি একটা মেয়েকে বিয়ে করেছি সম্পর্ক করে। সম্পর্ক শুরু হওয়ার আগে বা পরে যাইহোক আমি শুনেছি আমার ফুফুর ননদের মেয়ের সাথে আমার বিয়ে ঠিক।
তখন ওকে আমি এই ব্যাপারে বলি যে আমার বিয়ে ঠিক করে রেখেছে ফুফু । মেয়ে আমেরিকায় থাকে তখনি সে এই কথা বলে যে, আল্লাহ মিথ্যা রাসূল মিথ্যা।

এর পর আমাদের এই বিষয় মনে থাকে না।  আমার যত টুকু ধারণা, ও ঈমান আনেনি এবং তওবা করেনি । আমরা বিয়ে করি ২০১৫ সালে।

বিয়ের কয়েক মাস পর ওর এই কথাগুলো আমার মনে হয়। পরে ওকে বলি তুমি ৪টি কালেমা বাংলা অর্থ সহ পড় পড়ে তাওবা কর। এই কথার উত্তরে ও বলে যে, এত অনেক আগের কথা আল্লাহ হয়ত আমাকে মাফ করে দিয়েছেন।

তারপর আমি ওকে যেকোনো ভাবে বুঝিয়ে বলি, তুমি ৪ টি কালেমা বাংলা অর্থ সহ পড় পড়ে তাওবা কর। ও তাই করল।

তার মানে আমার ওয়াইফ যদি বিয়ের আগে কালেমায়ে শাহাদাত পাঠ না করে থাকে তাহলেতো আমাদের বিয়ে হয়নি।
এইখানে আমার প্রশ্ন হল আমাদের বিয়ে কি শুদ্ধ ভাবে হয়েছে নাকি আবার বিয়ে করা লাগবে? জনাব আমাকে দলিল সহ উত্তরটা দিবেন খুব পেরেশানির মধ্যে আছি আমি একজন মুফতিকে প্রশ্ন করেছিলাম উনি বলেছেন বিয়েটা হয়নি।

উত্তর

وعليكم السلام ورحمة الله وبركاته

بسم الله الرحمن الرحيم

এটি সুষ্পষ্ট কুফরী কথা। তওবা করে নতুন করে ঈমান আনা আবশ্যক ছিল। সুতরাং ঈমান নবায়ন না করে বিয়ে শুদ্ধ হয়নি।

যেহেতু এখন সে তওবা করেছে। তাই আপনার উচিত অতি দ্রুত তার সাথে নতুন করে বিবাহ বন্ধনে আবদ্ধ হওয়া। কারণ, আগের বিয়েটা হয়নি।

أذا وصف الله بما لا يليق يكفر (البزازية على الهندية-6/323)

ما يكون كفرا اتفاقا يبطل العمل والنكاح وأولاده الزنا، وما فيه خلاف يؤمر بالإستغفار والتوبة وتجديد النكاح (الدر المختار مع رد المحتار-4/246، الفتاوى الهندية-2/283)

قال أبو حنيفة وأصحابه من برئ من محمد أو كذب به، فهو مرتد حلال الدم، إلا أن يرجع من الشفاء (تنبيه الولاة الحكام على احكام شاتم خير الأنام-76)

وذكر فى الحاوى: من سب النبى صلى الله عليه وسلم يكفر ولا توبة له سوى تجديد الإيمان (تنبيه الولاة الحكام على احكام شاتم خير الأنام-97)

والله اعلم بالصواب
উত্তর লিখনে
লুৎফুর রহমান ফরায়েজী

পরিচালক ও প্রধান মুফতী –তা’লীমুল ইসলাম ইনষ্টিটিউট এন্ড রিসার্চ সেন্টার ঢাকা।

উস্তাজুল ইফতা– জামিয়া কাসিমুল উলুম আমীনবাজার ঢাকা।

উস্তাজুল ইফতা– জামিয়া ফারূকিয়া দক্ষিণ বনশ্রী ঢাকা।

আরও জানুন

মহিলাদের জন্য পায়ে মেহেদী লাগানোর সুযোগ আছে?

প্রশ্ন: মুহতারাম, মহিলাদের জন্য পায়ে মেহেদী লাগানো জায়েজ হবে কিনা? নিবেদক তাবাসসুম উত্তর بسم الله …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *