প্রচ্ছদ / তালাক/ডিভোর্স/হুরমত / তালাকের পর ওষুধ খেয়ে পেটের বাচ্চা নষ্ট করে ফেললে কী ইদ্দত পূর্ণ হয়ে যায়?

তালাকের পর ওষুধ খেয়ে পেটের বাচ্চা নষ্ট করে ফেললে কী ইদ্দত পূর্ণ হয়ে যায়?

প্রশ্ন

মুফতী সাহেব, আমি আমার স্বামীর থেকে অনুমতি সাপেক্ষে তালাক গ্রহণ করি। কিন্তু বেবি কনসেপ্ট হওয়ার আশংকায় বেবি নষ্টের ঔষধ খেয়ে মেন্স হওয়াই। ঔষধ খাওয়ার একদিনের মধ্যে মেন্স হয়, কিন্তু মেন্সের ব্লাডটা সাধারণ মেন্সের মতো স্বাভাবিক ব্লাড ছিল না, বরং খুব কম ছিলো এবং বাদামী কালার ছিলো। এত কম ব্লাড ছিলো যে, অন্য সময়ের মত প্যাড নেয়া লাগেনি। এরকম ব্লাড ৩ দিন ছিলো। পরে সুস্থ হওয়ার পর আবার ১০ দিনের আগেই স্বাভাবিকের মত মেন্স হয়। আবার এক মাস পর মেন্স হয়। এরপর আমি আবার ২য় বিবাহ বন্ধনে আবদ্ধ হই। এখন আমার প্রশ্ন হলো, এ বিয়েটা কি বৈধ হয়েছে কি না?

উত্তর

بسم الله الرحمن الرحيم

যেহেতু আপনার পেটে বাচ্চা হওয়া নিশ্চিত ছিল না। হলেও অঙ্গপ্রত্যঙ্গ কিছুই হয়নি।

তাই তালাকের ইদ্দত সন্তান প্রসব ধরা হবে না।

বরং তালাকের পর তিনটি স্বতন্ত্র হায়েজ অতিক্রান্ত হওয়াই আপনার ইদ্দত হিসেবে ধর্তব্য হবে।

এর আগে বিবাহ শুদ্ধ নয়।

সুতরাং বুঝা গেল যে, তালাক পরবর্তী তিন হায়েজের ইদ্দত শেষ হবার আগেই আপনি বিবাহ করায় আপনার বিবাহটি শুদ্ধ হয়নি।

আপনার উচিত দ্রুত স্বামী থেকে পৃথক হওয়া।

তিন হায়েজ অতিক্রম হবার পর বিয়ে করলে তা শুদ্ধ হবে।

 

وشرط انقضاء هذه العدة أن يكون ما وضعت قد استبان خلقة أو بعض خلقه فإن لم يستبن رأسا بأن سقطت علقة أو مضغة لم تنقض العدة، لأنه إذا استبان خلقه أو بعض خلقه فهو ولد فقد وجد وضع الحمل فتنقضى به العدة، وإذا لم يستبن لم يعلم كونه ولدا بل يحتمل أن يكون ويحتمل أن لا يكون فيقع الشك فى وضع الحمل فلا تنقضى العدة بالشك (بدائع الصنائع-3/311)

لا يستبين خلقه إلا فى مأة وعشرين يوما أربعين يوما نطفة وأربعين علقة، وأربعين مضغة ثم ينفخ فيه الروح، الحاصل: أن السقط الذى استبان بعض خلقه يختبر فيه أربعة أشهر وتام الخلق ستة أشهر (البحر الرائق-4/230)

والمراد به الحمل الذى استبان بعض خلقه أو كله فإن لم يستبن بعضه لم تنقض العدة (رد المحتار-5/190)

  لَا يَجُوزُ لِلرَّجُلِ أَنْ يَتَزَوَّجَ زَوْجَةَ غَيْرِهِ وَكَذَلِكَ الْمُعْتَدَّةُ، كَذَا فِي السِّرَاجِ الْوَهَّاجِ. (الفتاوى الهندية، كِتَابُ النِّكَاحِ وَفِيهِ أَحَدَ عَشَرَ بَابًا، الْبَابُ الثَّالِثُ فِي بَيَانِ الْمُحَرَّمَاتِ وَهِيَ تِسْعَةُ أَقْسَامٍ، الْقِسْمُ السَّادِسُ الْمُحَرَّمَاتُ الَّتِي يَتَعَلَّقُ بِهَا حَقُّ الْغَيْرِ-1/280)

أما نكاح منكوحة الغير ومعتدته فالدخول فيه لا يوجب العدة إن علم أنها للغير، لأنه لم يقل أحد بجوازه فلم ينعقد أصلا (رد المحتار، زكريا-4/274، 5/197، كرتاشى-3/516، 3/132، البحر الرائق، زكريا-4/242، كويته-4/144، الفتاوى الهندية-1/280، جديد-1/346)

والله اعلم بالصواب
উত্তর লিখনে
লুৎফুর রহমান ফরায়েজী

পরিচালক-তালীমুল ইসলাম ইনষ্টিটিউট এন্ড রিসার্চ সেন্টার ঢাকা।

উস্তাজুল ইফতা– জামিয়া কাসিমুল উলুম সালেহপুর, আমীনবাজার ঢাকা।

পরিচালক: শুকুন্দী ঝালখালী তা’লীমুস সুন্নাহ দারুল উলুম মাদরাসা, মনোহরদী, নরসিংদী।

ইমেইল– ahlehaqmedia2014@gmail.com

আরও জানুন

গাইরুল্লাহকে সেজদা করা ও ফাতিমা রাঃ এর মূর্তি বানিয়ে সেজদা দেয়ার হুকুম কী?

প্রশ্ন আস্সালামুআলাইকুম হযরত। কেমন আছেন? দ্বীনের বিভিন্ন সমস্যায় সর্বদাই আপনার পরিচালিত ওয়েবসাইট হতে সাহায্য নেই। …

Leave a Reply

Your email address will not be published.

আহলে হক্ব বাংলা মিডিয়া সার্ভিস