প্রচ্ছদ / অজু/গোসল/পবিত্রতা/হায়েজ/নেফাস / উটসহ হালাল প্রাণীর প্রস্রাব কি পবিত্র?

উটসহ হালাল প্রাণীর প্রস্রাব কি পবিত্র?

প্রশ্ন

From: শহিদুল
বিষয়ঃ হালাল জন্তুর প্রস্রাব পাক নাকি নাপাক?

প্রশ্নঃ
কথিত আহলে হাদীসদের দাবি হালাল বস্তুর পেশাব পাক। এই ব্যাপারে জানতে চাই।

আর প্রস্রাব নাপাক হলে তার দলীল কি?
আহলে হাদীসদের মতে পেশাব পাক তার একটি স্কিনসর্ট দিলাম।
এই হাদিস সত্য কিনা জানালে উপকৃত হতাম। জাযাকাল্লাহুল খাইর।

উত্তর

بسم الله الرحمن الرحيم

হালাল প্রাণীর পেশাব পবিত্র হওয়া সংক্রান্ত কোন হাদীস নেই।

যারা নিজেদের আহলে হাদীস বা হাদীসের অনুসারী দাবী করে থাকেন, তারা অতি আশ্চর্যের সাথে এ মাসআলায় হাদীস রেখে নিজেদের মনগড়া কিয়াস সামনে নিয়ে আসেন।

সেই দু’টি কিয়াস হলো, রাসূলে কারীম সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম উরাইনা গোত্রের লোকদের পেশাব খেতে বলেছিলেন।

আর নবীজী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম পশুর খামারে নামায পড়েছেন।

এ দু’টি হাদীস থেকে তারা কিয়াস করে বলতে চান যে, যে প্রাণীর গোস্ত হালাল সে প্রাণীর প্রস্রাবও পাক।

কিন্তু অবাক করা বিষয় হলো, এসব হাদীসের কোথাও হালাল প্রাণীর পেশাব পাক হবার কথা বলা হয়নি।

যদি উক্ত হাদীস অনুপাতে পেশাব পাকই হয়, তাহলেতো খাওয়াও হালাল হয়ে যায়।

কিন্তু লা মাযহাবী বন্ধুরা গরু ছাগলের পেশাব খাওয়াকেও কি জায়েজ মনে করেন?

আমরা আশা করি তারা হিন্দুদের মত এতোটা নিচে নেমে যাননি যে, তারাও হিন্দুদের মত গরু ছাগলের পেশাবকে হালাল মনে করে ভক্ষণ করার ফাতওয়া প্রদান করে থাকেন।

পেশাব নাপাক হওয়া সংক্রান্ত হাদীসগুলো পরিস্কার ও সহীহ। যাতে কোন পার্থক্য করা হয়নি যে, হালাল প্রাণীরটা পাক আর হারাম প্রাণীরটা নাপাক।

এ কারণে পেশাব নাপাক হওয়া সংক্রান্ত হাদীসগুলো দ্বারা পরিস্কার যে, যে প্রাণীই হোক না কেন তার পেশাব নাপাক।

عَنِ ابْنِ عَبَّاسٍ رَضِيَ اللَّهُ عَنْهُمَا، مَرَّ النَّبِيُّ صَلَّى اللهُ عَلَيْهِ وَسَلَّمَ عَلَى قَبْرَيْنِ فَقَالَ: «إِنَّهُمَا لَيُعَذَّبَانِ وَمَا يُعَذَّبَانِ مِنْ كَبِيرٍ» ثُمَّ قَالَ: «بَلَى أَمَّا أَحَدُهُمَا فَكَانَ يَسْعَى بِالنَّمِيمَةِ، وَأَمَّا أَحَدُهُمَا فَكَانَ لاَ يَسْتَتِرُ مِنْ بَوْلِهِ

ইবনু ‘আববাস (রাঃ) হতে বর্ণিত। তিনি বলেন, (একবার) নাবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম দু’টি ক্ববরের পাশ দিয়ে যাচ্ছিলেন। তখন তিনি বললেন ঐ দু’জনকে আযাব দেয়া হচ্ছে আর কোন কঠিন কাজের কারণে তাদের আযাব দেয়া হচ্ছে না। অতঃপর তিনি সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বললেনঃ হাঁ (আযাব দেয়া হচ্ছে) তবে তাদের একজন পরনিন্দা করে বেড়াত, অন্যজন তার পেশাবের ব্যাপারে সতর্কতা অবলম্বন করত না। [সহীহ বুখারী, হাদীস নং-১৩৭৮]

عَنْ أَبِي هُرَيْرَةَ قَالَ: قَالَ رَسُولُ اللَّهِ صَلَّى اللهُ عَلَيْهِ وَسَلَّمَ «أَكْثَرُ عَذَابِ الْقَبْرِ مِنَ الْبَوْلِ

আবূ হুরায়রা (রাঃ) থেকে বর্ণিত। তিনি বলেন, রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বলেছেনঃ বেশির ভাগ ক্ববরে আযাব পেশাব থেকে অসতর্কতার কারণেই হয়ে থাকে। [সুনানে ইবনে মাজাহ, হাদীস নং-৩৪৮]

ভ্রান্ত কিয়াসের জবাব

আসলে রাসূলে কারীম সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম উরাইনা গোত্রের লোকদের চিকিৎসা হিসেবে উটের পেশাব পানের কথা বলেছিলেন। উটের পেশাব পাক বা হালাল এ কারণে নয়।

কারণ, অসুস্থ্যতার চিকিৎসায় হালাল পদ্ধতি না থাকলে অপরাগ অবস্থায় হারাম বস্তুর দ্বারা চিকিৎসা করা জায়েজ আছে। এ কারণে তিনি একথা বলেছেন।  যেমন অপরাগ অবস্থায় মৃত প্রাণীর গোস্ত খাওয়া জায়েজ হয়ে যায়। তেমনি তাদের জন্য অপরাগ হালাতে নাপাক ও হারাম বস্তু খাওয়ার অনুমোদন দেয়া হয়েছিল।

এ হাদীসকে পূঁজি করে উটের নাপাক পেশাবকে পাক ফাতওয়াদাতারাও তার পেশাব পানকে বৈধ  মনে করে না। এর মানে বুঝা গেল তাদের এ কিয়াস ভ্রান্ত ও ভুল।

আর দ্বিতীয় যে দলীল পেশ করে সেখানে কোথাও একথা নেই যে, নবীজী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম নাপাক পেশাবের উপর নামায পড়েছেন।

সুতরাং এ হাদীসের উপর কিয়াস করাটা ভ্রান্ত কিয়াস ছাড়া কিছু নয়।

وقال أبو حنيفة والشافعي وأبو يوسف وأبو ثور وآخرون كثيرون: الأبوال كلها نجسة إلا ما عفي عنه، وأجابوا عنه بأن ما في حديث العرنيين قد كان للضرورة، فليس فيه دليل على أنه يباح في غير حال الضرورة؛ لأن ثمة أشياء أبيحت في الضرورات ولم تبح في غيرها، كما في لبس الحرير؛ فإنه حرام على الرجال وقد أبيح لبسه في الحرب أو للحكة أو لشدة البرد إذا لم يجد غيره، وله أمثال كثيرة في الشرع، والجواب المقنع في ذلك أنه عليه الصلاة والسلام، عرف بطريق الوحي شفاهم، والاستشفاء بالحرام جائز عند التيقن  بحصول الشفاء، كتناول الميتة في المخصمة، والخمر عند العطش، وإساغة اللقمة، وإنما لايباح ما لايستيقن حصول الشفاء به. وقال ابن حزم: صح يقيناً أن رسول الله صلى الله عليه وسلم إنما أمرهم بذلك على سبيل التداوي من السقم الذي كان أصابه، وأنهم صحت أجسامهم بذلك، والتداوي منزلة ضرورة. وقد قال عز وجل: {إلا ما اضطررتم إليه} (الأنعام: 119) فما اضطر المرء إليه فهو غير محرم عليه من المآكل والمشارب. وقال شمس الائمة: حديث أنس رضي الله تعالى عنه، قد رواه قتادة عنه أنه رخص لهم في شرب ألبان الإبل. ولم يذكر الأبوال، وإنما ذكره في رواية حميد الطويل عنه، والحديث حكاية حال، فإذا دار بين أن يكون حجةً أو لايكون حجةً سقط الاحتجاج به، ثم نقول: خصهم رسول الله صلى الله عليه وسلم بذلك لأنه عرف من طريق الوحي أن شفاءهم فيه ولايوجد مثله في زماننا، وهو كما خص الزبير رضي الله تعالى عنه بلبس الحرير لحكة كانت به، أو للقمل، فإنه كان كثير القمل، أو لأنهم كانوا كفاراً في علم الله تعالى ورسوله عليه السلام علم من طريق الوحي أنهم يموتون على الردة، ولايبعد أن يكون شفاء الكافر بالنجس. انتهى. فإن قلت: هل لأبوال الإبل تأثير في الاستشفاء حتى أمرهم صلى الله عليه وسلم بذلك؟ قلت: قد كانت إبله صلى الله عليه وسلم ترعى الشيح والقيصوم، وأبوال الإبل التي ترعى ذلك وألبانها تدخل في علاج نوع من أنواع الاستشفاء، فإذا كان كذلك كان الأمر في هذا أنه عليه الصلاة والسلام عرف من طريق الوحي كون هذه للشفاء، وعرف أيضاً مرضهم الذي تزيله هذه الأبوال، فأمرهم لذلك، ولايوجد هذا في زماننا، حتى إذا فرضنا أن أحداً عرف مرض شخص بقوة العلم، وعرف أنه لايزيله إلا بتناول المحرم، يباح له حينئذ أن يتناوله، كما يباح شرب الخمر عند العطش الشديد، وتناول الميتة عند المخمصة، وأيضاً التمسك بعموم قوله صلى الله عليه وسلم: (استنزهوا من البول؛ فإن عامة عذاب القبر منه) أولى؛ لأنه ظاهر في تناول جميع الأبوال، فيجب اجتنابها لهذا الوعيد، والحديث رواه أبو هريرة وصححه ابن خزيمة وغيره مرفوعاً

(عمدة القاري شرح صحيح البخاري-3 / 154)

قالوا: أبوال الإبل نجسة، وحکمها حکم دمائها لا حکم لحومها، وأراد بهم أبا حنیفة وأبا یوسف والشافعي، وقال ابن حزم في المحلي: والبول کله من کل حیوان: إنسان أو غیر إنسان، فما یوٴکل لحمه أو لا یوٴکل لحمه کذٰلک، أو من طائر یوٴکل لحمه أو لا یؤکل لحمه فکل ذٰلک حرام أکله وشربه إلا لضرورة تداوي أو إکراه أو جوع أو عطش فقط۔ وفرض اجتنابه في الطهارة والصلاة إلا ما لا یمکن التحفظ منه إلا بحرج، فهو معفو عنه … وقالوا: أما ما رویتموه من حدیث العرنیین فذٰلک إنما کان للضرورة، فلیس في ذٰلک دلیل أنه مباح في غیر حال الضرورة؛ لأنا قد رأینا أشیاء أبیحت في الضرورات ولم تبح في غیر الضرورات (نخب الأفکار في تنقیح مباني الأخبار في شرح معاني الآثار، کتاب الطهارة، باب حکم بول مایؤکل لحمه ۲: ۳۸۲، ط: وزارة الأوقاف والشؤون الإسلامیة، دولة قطر) ، وانظر الدر المختار مع رد المحتار (کتاب الطهارة، باب المیاه، ۱: ۳۶۵، ط: مکتبة زکریا دیوبند) أیضاً۔

والله اعلم بالصواب
উত্তর লিখনে
লুৎফুর রহমান ফরায়েজী

পরিচালক-তালীমুল ইসলাম ইনষ্টিটিউট এন্ড রিসার্চ সেন্টার ঢাকা।

উস্তাজুল ইফতা– জামিয়া কাসিমুল উলুম সালেহপুর, আমীনবাজার ঢাকা।

পরিচালক: শুকুন্দী ঝালখালী তা’লীমুস সুন্নাহ দারুল উলুম মাদরাসা, মনোহরদী, নরসিংদী।

ইমেইল– ahlehaqmedia2014@gmail.com

আরও জানুন

কাবিননামার আঠার নং কলাম অনুপাতে স্ত্রী নিজের উপর তালাক পতিত করার অধিকার পায়?

প্রশ্ন From: Hasan বিষয়ঃ তালাকের ব্যাপারে ফতোয়ার আবেদন প্রশ্নঃ তালাক সম্পর্কে ফতোয়ার আবেদন =================== জনাব, …

Leave a Reply

Your email address will not be published.

আহলে হক্ব বাংলা মিডিয়া সার্ভিস