প্রচ্ছদ / আকিদা-বিশ্বাস / শেষ রাতে আল্লাহর প্রথম আসমানে নেমে আসার ব্যাখ্যা কী?

শেষ রাতে আল্লাহর প্রথম আসমানে নেমে আসার ব্যাখ্যা কী?

প্রশ্ন

আসসালামু আলাইকুম,

আমার নাম তুফান ভাঙ্গী, আমার একটি প্রশ্ন আছে।

নাস্তিকরা প্রশ্ন করে আল্লাহ্ বলেছেন তিনি রাত্রে নেমে আসেন প্রথম আসমানে, কিন্তু আমার জানি পৃথিবীতে এক এক যায়গায় বিভিন্ন সময়ে রাত্রি হয় আবার কোনো যায়গায় ছয় মাস রাত ও ছয় মাস দিন থাকে। এই ব‍্যাপারে কী বলবেন ?

উত্তর

وعليكم السلام ورحمة الله وبركاته

بسم الله الرحمن الرحيم

আল্লাহ তাআলা নামা ও উঠা থেকে পবিত্র। তিনি কোন নির্দিষ্ট স্থানের মুখাপেক্ষী নন। তার কুরসী আসমান জমিনের সর্বত্র বিস্তৃত।

নেমে আসা সংক্রান্ত বর্ণনাগুলো মুতাশাবিহাতের অন্তর্ভূক্ত। এর সঠিক অর্থ একমাত্র আল্লাহ তাআলাই ভালো জানেন।

সুতরাং এখানে আরবী শব্দ ‘নুজুল’ দ্বারা আমরা যে ধরণের ‘উপর থেকে নিচে নেমে আসা’ বুঝে থাকি, তেমন উদ্দেশ্য নয়। এর হাকীকী অর্থ একমাত্র আল্লাহ তাআলাই ভালো জানেন।

তাই এ শব্দকে আমাদের নেমে আসার মত মনে করে প্রশ্ন করার সুযোগ নেই।

এখানে নেমে আসাকে এমন অর্থ করা যেতে পারে:

১ আল্লাহর হুকুম নেমে আসে।

২ রহমাতের ফেরেশতাগণ নেমে আসে।

৩ আল্লাহর রহমাত নেমে আসে।

৪ আল্লাহ তাআলার তাজাল্লী নেমে আসে।

সুতরাং তাদের প্রশ্নের প্রাসঙ্গিকতা আর বাকি থাকে না।

فَإِن أَكثر مَا عِنْد المتأول أَن هَذِه اللَّفْظَة تحْتَمل هَذَا الْمَعْنى فِي اللُّغَة وَلَيْسَ يلْزم من مُجَرّد إحتمال اللَّفْظ للمعنى أَن يكون مرَادا بِهِ فَإِنَّهُ كَمَا يحْتَمل هَذَا الْمَعْنى يحْتَمل غَيره وَقد يحْتَمل مَعَاني أخر لَا يعلمهَا (تحريم النظر فى كتب الكلام لابى محمد موفق الدين بن احمد محمد بن قدامة المقدسى-51)

وانما مذهب السلف عدم الخوض فى الصفات مع التنزيه العام وهم أبعد الناس عن حمل ما فى كتاب الله وما صح فى السنة على ما يوهم التشبيه، فاذا تكلموا انما يتكلمون بما يوافق التنزيه، وهم الذين يقولن فيما صح لفظه: أمروها كما جاء بدون تفسيره بل تفسير قراءته بلا كيف ولا معنى” كما تواتر ذلك عن السلف ولا سيما عن أحمد (حاشية السيف الصقيل فى الرد على ابن زفيل-136-137، علم الكلام-542، علامة زاهد الكوثرى)

وليس نزوله كنزول أجسام بنى آدم من السطح إلى الأرض بحيث يبقى السقف فوقهم، بل الله منزه عن ذلك (شرح حديث النزول لابن تيمية)

أما بأن المعنى ينزل أمره، أو الملك بأمره (فتح الملهم-6\78)

وقال القاضى:  المراد بنزوله دنو رحمته، ومزيد لطفه على العباد، وإجابة دعوتهم، وقبول معذرتهم، كما هو ديدن الملوك الكرماء والسادة الرحماء إذا نزلوا بقرب قوم ملهوفين محتاجين مستضعفين، وقد روى “يهبط من السماء العليا إلى السماء الدنيا” أى ينتقل من مقتضى صفات الجلال التى تقتضى: الأنفة من الأرذال، وعدم المبالاة، وقهر ا لعداة، والانتقام من العصاة، إلى مقتضى صفات الجمال  المقتضية للرأفة والرحمة، وقبول المعذرة، والتلطف بالمحتاج، واستقراض الحوائج، والمساهلة والتخفيف فى الأواممر والنواهى، والإغضاء عما يبدو من المعاصى، ولهذا قيل: هذا تجل صورى لا نزول حقيقى فارتفع الاشكال والله أعلم بالحال (فتح الملهم-6\80)

والله اعلم بالصواب
উত্তর লিখনে
লুৎফুর রহমান ফরায়েজী

পরিচালক-তালীমুল ইসলাম ইনষ্টিটিউট এন্ড রিসার্চ সেন্টার ঢাকা।

উস্তাজুল ইফতা– জামিয়া কাসিমুল উলুম সালেহপুর, আমীনবাজার ঢাকা।

পরিচালক: শুকুন্দী ঝালখালী তা’লীমুস সুন্নাহ দারুল উলুম মাদরাসা, মনোহরদী, নরসিংদী।

ইমেইল– ahlehaqmedia2014@gmail.com

আরও জানুন

পুরাতন কবরের উপর মসজিদে নির্মাণ করা যাবে?

প্রশ্ন আমার গ্রামের মসজিদ পুনরায় নির্মাণ করার জন্য চেস্টা করতেছি কিন্ত পাসে একটা কবর থাকায় …

Leave a Reply

Your email address will not be published.

আহলে হক্ব বাংলা মিডিয়া সার্ভিস