প্রচ্ছদ / নামায/সালাত/ইমামত / তিন আয়াত পরিমাণ পড়ার পর ভুল হলে লুকমা দিতে হয় না?

তিন আয়াত পরিমাণ পড়ার পর ভুল হলে লুকমা দিতে হয় না?

প্রশ্ন

From: তানভীর
বিষয়ঃ ফরজ নামাযে ইমামকে লোকমা দেয়া এবং নামায সহীহ হয়ার প্রসংগে

প্রশ্নঃ
আসসালামু আলাইকুম

আমাদের মসজিদের ইমাম সাহেব প্রায় সময়ই নামাযের কেরাতে ভুল পড়ে এবং আয়াত ছেড়েও দেয় অথচ তাকে নামাযে লোকমা দিলে সে তা এড়িয়ে যায় এবং রাগান্বিতও হন। তিনি বলেছেন যে ৩ আয়াতের বেশি পড়া হলে আর লোকমা নেয়া লাগে না, যদিও আয়াত ভুল পড়া হয় অথবা আয়াত ছেড়েও দেয়া হয়।

ইমাম সাহেবের এই কথাটা কি সঠিক এবং আমরা যে তার পিছনে নামায আদায় করছি আমাদের নামায কি তার আয়াত ছেড়ে দেয়া অথবা ভুল পড়ার কারনে সহীহ হচ্ছে?

উত্তর

وعليكم السلام ورحمة الله وبركاته

بسم الله الرحمن الرحيم

ইমাম সাহেবের উক্ত দাবিটি সঠিক নয়। তিলাওয়াতের যেখানেই ভুল হবে লুকমা দিতে হবে। চাই তিন আয়াত হোক কিংবা তিন পারা হোক।

আয়াত ভুল পড়া বা ছেড়ে দেবার কারণে যদি অর্থ বিকৃত হয়ে যায়, তাহলে লুকমা দেবার পরও না নিলে উক্ত নামায হবে না। পুনরায় তা পড়তে হবে।

আর যদি অর্থের বিকৃতি না ঘটে, তাহলে ভুলে এমনটি করার কারণে নামায সমস্যা হবে না।

وَلَوْ زَادَ كَلِمَةً أَوْ نَقَصَ كَلِمَةً أَوْ نَقَصَ حَرْفًا، أَوْ قَدَّمَهُ أَوْ بَدَّلَهُ بِآخَرَ…….لَمْ تَفْسُدْ مَا لَمْ يَتَغَيَّرْ الْمَعْنَى (الدر المختار مع رد المحتار، كتاب الصلاة، باب ما يفسد الصلاة ومالا يفسد، مطلب زلة القارى-2\395-396)

(وَمِنْهَا ذِكْرُ آيَةٍ مَكَانَ آيَةٍ) لَوْ ذَكَرَ آيَةً مَكَانَ آيَةٍ ……….. إنْ لَمْ يُغَيِّرْ الْمَعْنَى ……. لَا تَفْسُدُ. أَمَّا إذَا غَيَّرَ الْمَعْنَى ……… تَفْسُدُ عِنْدَ عَامَّةِ عُلَمَائِنَا وَهُوَ الصَّحِيحُ. هَكَذَا فِي الْخُلَاصَةِ. (الفتاوى الهندية-1\80-81)

فإن كان يغير المعنى تفسد صلاته بلا خلاف نحو إ، قرأ “والذين آمنوا وكفروا بالله ورسوله أولئك هم الصديقون (الفتاوى التاتارخانية-2\102، رقم-1862)

أما إذا غير المعنى أن قرأ “إن الذين آمنوا وعملوا الصالحات أولئك هم شر البرية الى قوله خالدين فيها اولئك هم خير البرية” تفسد عند عامة علمائنا وهو الصحيح (الفتاوى الهندية-1\81)

وإن تغير المعنى بأن قرأ “ان الابرار لفى جحيم وإن الفجار لفى نعيم” او قرأ “ان الذين آمنوا وعملوا  الصالحات أولئك هم شر البرية” أو قرأ “وجوه يومئذ عليها غبرة، أولئك هم المؤمنون حقا” تفسد صلاته، لأنه أخبر بخلاف ما أخبر الله تعالى به، وقال بعضهم: لا تفسد صلاته لعموم البلوى (فتاوى قاضى خان على هامش الهندية-1\152)

আরও জানুন

হজ্জ কখন ফরজ হয়? হজ্জের মাসে নাকি হজ্জ নিবন্ধনের সময়?

প্রশ্ন االسابع الوقت اي وجود القدرة فيه وهي اشهر الحج او هو وقت خروج اهل …

Leave a Reply

Your email address will not be published.

আহলে হক্ব বাংলা মিডিয়া সার্ভিস