প্রচ্ছদ / কুরবানী/জবেহ/আকীকা / লেজ কাটা পশু কুরবানীর মান্নত করা ও তার গোশত খাওয়ার হুকুম কী?

লেজ কাটা পশু কুরবানীর মান্নত করা ও তার গোশত খাওয়ার হুকুম কী?

প্রশ্ন

পুরা লেজ কাটা গরু আল্লাহর ওয়াস্তে কোরবানী করার মান্নত করেছে। এখন আমার প্রশ্ন হলো লেজ কাটা গরু দিয়ে কোরবানী হবে কিনা?

না হলে উক্ত গরু কি করবে?  মালিক গোস্ত কি নিজে খেতে পারবে?

বিস্তারিত জানালে ভাল হয়।

 

উত্তর

بسم الله الرحمن الرحيم

পূর্ণাঙ্গ লেজকাটা পশু দিয়ে নিজের উপর ওয়াজিব কুরবানী আদায় হবে না।

তবে যদি লেজকাটা পশু কুরবানী করার মান্নত করে, তাহলে মান্নতের কুরবানী আদায় হবে।

আর উক্ত মান্নতের পশুর গোশত মান্নতকারী ব্যক্তি  এবং ধনী ব্যক্তিরা খেতে পারবে না, বরং পুরোটাই গরীবদের দান করে দিতে হবে।

উল্লেখ্য যে, মান্নতের কুরবানীর পশু কুরবানী করার দ্বারা নিজের ওয়াজিব কুরবানী আদায় হবে না, বরং আলাদা অন্য পশু দিয়ে নিজের ওয়াজিব কুরবানী আদায় করতে হবে।

وَمَقْطُوعَةُ الْأُذُنَيْنِ وَالْأَلْيَةِ وَالذَّنَبِ بِالْكُلِّيَّةِ، ……… وَلَوْ ذَهَبَ بَعْضُ هَذِهِ الْأَعْضَاءِ دُونَ بَعْضٍ مِنْ الْأُذُنِ وَالْأَلْيَةِ وَالذَّنَبِ وَالْعَيْنِ ذَكَرَ فِي الْجَامِعِ الصَّغِيرِ إنْ كَانَ الذَّاهِبُ كَثِيرًا يَمْنَعُ جَوَازَ التَّضْحِيَةِ، وَإِنْ كَانَ يَسِيرًا لَا يَمْنَعُ، وَاخْتَلَفَ أَصْحَابُنَا بَيْنَ الْقَلِيلِ وَالْكَثِيرِ فَعَنْ أَبِي حَنِيفَةَ – رَحِمَهُ اللَّهُ تَعَالَى – أَرْبَعُ رِوَايَاتٍ، وَرَوَى مُحَمَّدٌ – رَحِمَهُ اللَّهُ تَعَالَى – عَنْهُ فِي الْأَصْلِ وَفِي الْجَامِعِ أَنَّهُ إذَا كَانَ ذَهَبَ الثُّلُثُ أَوْ أَقَلُّ جَازَ، وَإِنْ كَانَ أَكْثَرَ لَا يَجُوزُ، وَالصَّحِيحُ أَنَّ الثُّلُثَ وَمَا دُونَهُ قَلِيلٌ وَمَا زَادَ عَلَيْهِ كَثِيرٌ، وَعَلَيْهِ الْفَتْوَى، كَذَا فِي فَتَاوَى قَاضِي خَانْ. (الفتاوى الهندية، كتاب الأضحية، الباب الخامس فى بيان محل إقامة الواجب-5\297-298)

ولا يضحي بالعمياء والعوراء والعرجاء التي لا تمشي إلى المنسك ولا العجفاء ولا تجزئ مقطوعة الأذن والذنب ولا التي ذهب أكثر أذنها فإن بقي الأكثر من الأذن والذنب جاز (مختصر القدورى-229)

 وَلَوْ اشْتَرَاهَا سَلِيمَةً ثُمَّ تَعَيَّبَتْ بِعَيْبٍ مَانِعٍ كَمَا مَرَّ فَعَلَيْهِ إقَامَةُ غَيْرِهَا مَقَامَهَا إنْ  كَانَ غَنِيًّا، وَإِنْ  كَانَ  فَقِيرًا أَجْزَأَهُ ذَلِكَ  وَكَذَا لَوْ كَانَتْ مَعِيبَةً وَقْتَ الشِّرَاءِ لِعَدَمِ وُجُوبِهَا عَلَيْهِ بِخِلَافِ الْغَنِيِّ، (رد المحتار، كتاب الأضحية-6\325، دار الفكر، تبيين الحقائق-6\7، المطبعة الكبرى الأميرية – بولاق، القاهرة

وإن وجبت بالنذر فليس لصاحبها أن يأكل منها شيئا ولا يطعم غيره من الأغنياء سواء كان الناذر غنيا أو فقيرا (الفتاوى الهندية-5\300، جديد-5\346)

 وإن وجبت به (النذر) فلايأكل منها شيئًا ولايطعم غنيًّا سواء كان الناذر غنيًّا أو فقيرًا؛ لأنّ سبيلها التصدق وليس للمتصدق ذلك.” (رد المحتار، كتاب الأضحية-6\327)

 ولو قال ذلك قبل أيام النحر، يلزمه التضحية بشاتين بلا خلاف الخ (بدائع الصنائع، كتاب التضحية، قبيل فصل فى شرائط الوجوب-5\63)

قَالَ فِي الْبَدَائِعِ: وَلَوْ نَذَرَ أَنْ يُضَحِّيَ شَاةً وَذَلِكَ فِي أَيَّامِ النَّحْرِ وَهُوَ مُوسِرٌ فَعَلَيْهِ أَنْ يُضَحِّيَ بِشَاتَيْنِ عِنْدَنَا شَاةٌ بِالنَّذْرِ وَشَاةٌ بِإِيجَابِ الشَّرْعِ ابْتِدَاءً إلَّا إذَا عَنِيَ بِهِ الْإِخْبَارَ عَنْ الْوَاجِبِ عَلَيْهِ فَلَا يَلْزَمُهُ إلَّا وَاحِدَةٌ، وَلَوْ قَبْلَ أَيَّامِ النَّحْرِ لَزِمَهُ شَاتَانِ بِلَا خِلَافٍ لِأَنَّ الصِّيغَةَ لَا تَحْتَمِلُ الْإِخْبَارَ عَنْ الْوَاجِبِ إذْ لَا وُجُوبَ قَبْلَ الْوَقْتِ (رد المحتار، كتاب الأضحية-6\320، سعيد)

والله اعلم بالصواب
উত্তর লিখনে
লুৎফুর রহমান ফরায়েজী

পরিচালক-তা’লীমুল ইসলাম ইনস্টিটিউট এন্ড রিসার্চ সেন্টার ঢাকা।

ইমেইল– ahlehaqmedia2014@gmail.com

আরও জানুন

ফজরের নামাযে কুনুতে নাজেলা কি হযরত উমর রাঃ সারা বছর পড়তেন?

প্রশ্ন From: মাহমুদ বিষয়ঃ কুনূতে নাযেলা প্রশ্নঃ উমার রাঃ এর আমল হিসেবে আমাদের মসজিদে ফজর …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আহলে হক্ব বাংলা মিডিয়া সার্ভিস