প্রচ্ছদ / কুরবানী/জবেহ/আকীকা / কুরবানী পশু হারিয়ে যাবার পর আরেকটি ক্রয় করলে যদি প্রথমটিও পাওয়া যায় তাহলে কী করবে?

কুরবানী পশু হারিয়ে যাবার পর আরেকটি ক্রয় করলে যদি প্রথমটিও পাওয়া যায় তাহলে কী করবে?

প্রশ্ন

কোন ব্যক্তি কুরবানীর প্রাণী ক্রয় করার পর কুরবানীর দিনের আগে সেটি হারিয়ে গেল অথবা চুরি হয়ে গেল , তারপর ওই ব্যক্তি পুনরায় আর একটি প্রাণী কিনার পর হারানো প্রাণীটা ও পাওয়া গেল , এবার সে কোনটি কুরবানি দিবে, সে নেসাবের মালিক হলে কি বিধান আর না হলে কি বিধান ?

উত্তর

بسم الله الرحمن الرحيم

নেসাবের মালিক দু’টির যে কোন একটি কুরবানী করলেই হবে।

আর যার উপর উপর কুরবান ওয়াজিব ছিল না, তার জন্য উভয় পশু কুরবানী করা আবশ্যক।

কারণ, যার উপর কুরবানী আবশ্যক নয়, তার কুরবানী পশু ক্রয় করার দ্বারা এটি মান্নতের মত হয়ে যায়। তাই সেটিকে কুরবানী করা আবশ্যক হয়ে যায়।

তাই তার জন্য দু’টিই কুরবানী করা আবশ্যক।

পক্ষান্তরে যার উপর কুরবানী আবশ্যক। তার জন্য নির্ধারিত প্রাণী ক্রয়ের দ্বারা আবশ্যক হয় না। যে কোন প্রাণী কুরবানী দিলেই হয়। তাই একটি কুরবানী দিলেই হবে।

اشترى الفقير لها ثم سرقت، واشترى أخرى لها فوجد الأولى ضحى بهما، ولو غنيا بالواحدة، لأنها على الغنى بإيجاب الشرع وهو واحد لا غير، وعلى الفقير بالشراء وهو متعدد (بزازية على هامش الهندية، كتاب الأضحية، الفصل الرابع فيما يجوز من الأضحية-6/292)

واذا اشترى الغنى أضحية فضلت فاشترى أخرى ثم وجد الأولى فى أيام النحر كان له أن يضحى بأيتهما شاء، ولو كان معسرا فاشترى شاة وأجبها، ثم وجد الأولى، قالوا: عليه أن يضحى بهما، كذا فى قاضى خان (الفتاوى الهندية، كتاب الأضحية، الباب الثانى فى وجوب الأضحية بالنذر-5/294)

وَلَوْ اشْتَرَى الْمُوسِرُ شَاةً لِلْأُضْحِيَّةِ فَضَلَّتْ فَاشْتَرَى شَاةً أُخْرَى لِيُضَحِّيَ بِهَا ثُمَّ وَجَدَ الْأُولَى فِي الْوَقْتِ فَالْأَفْضَلُ أَنْ يُضَحِّيَ بِهِمَا؛ فَإِنْ ضَحَّى بِالْأُولَى أَجْزَأهُ وَلَا تَلْزَمُهُ التَّضْحِيَةُ بِالْأُخْرَى وَلَا شَيْءَ عَلَيْهِ غَيْرُ ذَلِكَ؛ سَوَاءٌ كَانَتْ قِيمَةُ الْأُولَى أَكْثَرَ مِنْ الثَّانِيَةِ أَوْ أَقَلَّ، وَالْأَصْلُ فِيهِ مَا رُوِيَ عَنْ سَيِّدَتِنَا عَائِشَةَ – رَضِيَ اللَّهُ عَنْهَا – أَنَّهَا سَاقَتْ هَدْيًا فَضَاعَ فَاشْتَرَتْ مَكَانَهُ آخَرَ ثُمَّ وَجَدَتْ الْأَوَّلَ فَنَحَرَتْهُمَا ثُمَّ قَالَتْ: ” الْأَوَّلُ كَانَ يُجْزِئُ عَنِّي ” فَثَبَتَ الْجَوَاز بِقَوْلِهَا وَالْفَضِيلَةُ بِفِعْلِهَا – رَضِيَ اللَّهُ عَنْهَا -.

وَلِأَنَّ الْوَاجِبَ فِي ذِمَّتِهِ لَيْسَ إلَّا التَّضْحِيَةُ بِشَاةٍ وَاحِدَةٍ وَقَدْ ضَحَّى، وَإِنْ ضَحَّى بِالثَّانِيَةِ أَجْزَأَهُ وَسَقَطَتْ عَنْهُ الْأُضْحِيَّةُ وَلَيْسَ عَلَيْهِ أَنْ يُضَحِّيَ بِالْأُولَى؛ لِأَنَّ التَّضْحِيَةَ بِهَا لَمْ تَجِبْ بِالشِّرَاءِ بَلْ كَانَتْ الْأُضْحِيَّةُ وَاجِبَةً فِي ذِمَّتِهِ بِمُطْلَقِ الشَّاةِ فَإِذَا ضَحَّى بِالثَّانِيَةِ فَقَدْ أَدَّى الْوَاجِبَ بِهَا، بِخِلَافِ الْمُتَنَفِّلِ بِالْأُضْحِيَّةِ إذَا ضَحَّى بِالثَّانِيَةِ أَنَّهُ يَلْزَمُهُ التَّضْحِيَةُ بِالْأُولَى أَيْضًا؛ لِأَنَّهُ لَمَّا اشْتَرَاهَا لِلْأُضْحِيَّةِ فَقَدْ وَجَبَ عَلَيْهِ التَّضْحِيَةُ بِالْأُولَى أَيْضًا بِعَيْنِهَا فَلَا يَسْقُطُ بِالثَّانِيَةِ بِخِلَافِ الْمُوسِرِ فَإِنَّهُ لَا يَجِبُ عَلَيْهِ التَّضْحِيَةُ بِالشَّاةِ الْمُشْتَرَاةِ بِعَيْنِهَا وَإِنَّمَا الْوَاجِبُ فِي ذِمَّتِهِ – وَقَدْ أَدَّاهُ بِالثَّانِيَةِ – فَلَا تَجِبُ عَلَيْهِ التَّضْحِيَةُ بِالْأُولَى (بدائع الصنائع، كتاب الأضحية، فصل فى كيفية الوجوب-4/199-200)

والله اعلم بالصواب
উত্তর লিখনে
লুৎফুর রহমান ফরায়েজী

পরিচালক-তা’লীমুল ইসলাম ইনস্টিটিউট এন্ড রিসার্চ সেন্টার ঢাকা।

ইমেইল– ahlehaqmedia2014@gmail.com

আরও জানুন

পেশাবের দশ পনের মিনিট পর পেশাবের ফোটা আসার সন্দেহ হলে করণীয় কী?

প্রশ্ন From: আব্দুলাহ আনাস বিষয়ঃ পবিত্রতা প্রশ্নঃ আসসালামু আলাইকুম। কেমন আছেন হুজুর? এক ব্যক্তি বড় দীর্ঘ দিন …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আহলে হক্ব বাংলা মিডিয়া সার্ভিস