প্রচ্ছদ / আকিদা-বিশ্বাস / নবীজি (সা.) কবে থেকে নবী? কুরআন ও হাদীসের আলোকে জানতে চাই

নবীজি (সা.) কবে থেকে নবী? কুরআন ও হাদীসের আলোকে জানতে চাই

প্রশ্নঃ

আসসালামু আলাইকুম ওয়ারাহমাতুল্লাহ!

হুজুর! নবীজি (সা) কবে থেকে নবী? যদি স্পষ্ট কুরআন ও হাদিসের দলিল দিয়ে বুঝাতেন? উপকৃত হতাম।

নাজমুল হাসান, মধ্যবাড্ডা , ঢাকা

وعليكم السلام ورحمة الله وبركاته
بسم الله الرحمن الرحيم
حامدا ومصليا و مسلما

উত্তরঃ

১- আমাদের নবী (সাঃ) নবী হওয়াটা নির্ধারিত হয়েছে তাঁর সৃষ্টির অনেক পূর্বে। যা সূরা আলে ইমরানের ৮১ নং আয়াত থেকে বুঝা যায়। আল্লাহ তা’আলা বলেন,

وَإِذْ أَخَذَ اللَّهُ مِيثَاقَ النَّبِيِّينَ لَمَا آتَيْتُكُم مِّن كِتَابٍ وَحِكْمَةٍ ثُمَّ جَاءَكُمْ رَسُولٌ مُّصَدِّقٌ لِّمَا مَعَكُمْ لَتُؤْمِنُنَّ بِهِ وَلَتَنصُرُنَّهُ ۚ قَالَ أَأَقْرَرْتُمْ وَأَخَذْتُمْ عَلَىٰ ذَٰلِكُمْ إِصْرِي ۖ قَالُوا أَقْرَرْنَا ۚ قَالَ فَاشْهَدُوا وَأَنَا مَعَكُم مِّنَ الشَّاهِدِينَ.

এবং (তাদেরকে সেই সময়ের কথা স্মরণ করাও) যখন আল্লাহ নবীগণ থেকে প্রতিশ্রুতি নিয়েছিলেন, আমি যদি তোমাদেরকে কিতাব ও হিকমত দান করি, তারপর তোমাদের নিকট কোন রাসূল আগমন করে, যে তোমাদের কাছে যে কিতাব আছে তার সমর্থন করে, তবে তোমরা অবশ্যই তার প্রতি ঈমান আনবে এবং অবশ্যই তার সাহায্য করবে। আল্লাহ (সেই নবীদেরকে) বলেছিলেন, তোমরা কি একথা স্বীকার করছ এবং আমার পক্ষ হতে প্রদত্ত এ দায়িত্ব গ্রহণ করছ? তারা বলেছিল, আমরা স্বীকার করছি। আল্লাহ বললেন, তবে তোমরা (একে অন্যের স্বীকারোক্তি সম্পর্কে) সাক্ষী থাক এবং আমিও তোমাদের সঙ্গে সাক্ষী থাকলাম। [সূরা আলে ইমরান-৮১]

২- এবং তিনি কখন থেকে নবী বিষয়টি ফুটে উঠেছে সুনানে তিরমিজির ৩৬০৯ নং হাদীসে,

عَنْ أَبِي هُرَيْرَةَ، قَالَ: قَالُوا يَا رَسُولَ اللَّهِ مَتَى وَجَبَتْ لَكَ النُّبُوَّةُ؟ قَالَ: «وَآدَمُ بَيْنَ الرُّوحِ وَالجَسَدِ» :

আবু হুরায়রা (রাযিঃ) থেকে বর্ণিত যে, তিনি বলেনঃ সাহাবীগণ বললেন : ইয়া রাসূলাল্লাহ্ ! কবে থেকে আপনার জন্য নবুওয়াত নির্ধারিত হয়েছে? তিনি বললেন : আদম (আঃ) যখন ছিলেন রূহ ও শরীরের মাঝে। (জামে’ তিরমিযী, হাদীস নং ৩৬০৯ (আন্তর্জাতিক নং ৩৬০৯)

৩- দুনিয়াতে আসার পর তাঁর নবুয়্যাত কখন থেকে প্রকাশ পায়? বিষয়টি ফুটে উঠেছে সহীহুল বুখারীর ৩৬২২নং হাদীসে,

عَنِ ابْنِ عَبَّاسٍ رَضِيَ اللَّهُ عَنْهُمَا، قَالَ: «بُعِثَ رَسُولُ اللَّهِ صَلَّى اللهُ عَلَيْهِ وَسَلَّمَ لِأَرْبَعِينَ سَنَةً، فَمَكُثَ بِمَكَّةَ ثَلاَثَ عَشْرَةَ سَنَةً يُوحَى إِلَيْهِ، ثُمَّ أُمِرَ بِالهِجْرَةِ فَهَاجَرَ عَشْرَ سِنِينَ، وَمَاتَ وَهُوَ ابْنُ ثَلاَثٍ وَسِتِّينَ»

ইবনে আব্বাস (রাযিঃ) থেকে বর্ণিত, তিনি বলেন, রাসূলুল্লাহ (ﷺ)- কে নবুওয়াত দেওয়া হয় চল্লিশ বছর বয়সে, এরপর তিনি তের বছর মক্কায় অবস্থান করেন। এ সময় তাঁর প্রতি ওহী নাযিল হচ্ছিল। তারপর হিজরতের নির্দেশ পান। এবং হিজরতের পর দশ বছর (মদীনায়) অবস্থান করেন। আর তিনি তেষট্টি বছর বয়সে ইন্‌তিকাল করেন।

—সহীহ বুখারী, হাদীস নং ৩৬২২ (আন্তর্জাতিক নং ৩৯০২)

 

অন্য বর্ণনায় আসছে,

عَنْ أَنَسِ بْنِ مَالِكٍ، أَنَّهُ سَمِعَهُ يَقُولُ كَانَ رَسُولُ اللَّهِ صلى الله عليه وسلم لَيْسَ بِالطَّوِيلِ الْبَائِنِ وَلاَ بِالْقَصِيرِ وَلَيْسَ بِالأَبْيَضِ الأَمْهَقِ وَلاَ بِالآدَمِ وَلاَ بِالْجَعْدِ الْقَطَطِ وَلاَ بِالسَّبِطِ بَعَثَهُ اللَّهُ عَلَى رَأْسِ أَرْبَعِينَ سَنَةً فَأَقَامَ بِمَكَّةَ عَشْرَ سِنِينَ وَبِالْمَدِينَةِ عَشْرَ سِنِينَ وَتَوَفَّاهُ اللَّهُ عَلَى رَأْسِ سِتِّينَ سَنَةً وَلَيْسَ فِي رَأْسِهِ وَلِحْيَتِهِ عِشْرُونَ شَعْرَةً بَيْضَاءَ .

আনাস ইবনে মালিক (রাযিঃ) থেকে বর্ণিত। তিনি বলেন, রাসূলুল্লাহ (ﷺ) বেশী লম্বাও ছিলেন না বা বেশী খাটোও ছিলেন না। একেবারে সাদাও ছিলেন না এবং শ্যামলাও ছিলেন না। তার চুল অতিরিক্ত কোঁকড়ানোও ছিলো না এবং একেবারে সোজাও ছিল না। চল্লিশ বছর বয়সে আল্লাহ তাআলা তাঁকে নুবুওয়াত দান করেন। এরপর তিনি মক্কায় দশ বছর অবস্থান করেন এবং মদীনায় দশ বছর। ষাট বছরের মাথায় আল্লাহ তাআলা তাঁকে ওফাত দান করেন। এ সময় তার মাথায় ও দাড়িতে বিশটি চুলও সাদা ছিল না।

—সহীহ মুসলিম, হাদীস নং ৫৮৭৯

ইতিহাস ও সীরাতগ্রন্থ গুলো তালাশ করলেও স্পষ্ট আকারে বুঝে আসে যে, উম্মতদের জন্য তাঁর নবুয়্যাতী প্রকাশ পায় চল্লিশ বৎসরে।

الرحيق المختوم (ص: 51):

“وبعد النظر والتأمل في القرائن والدلائل يمكن لنا أن نحدد ذلك اليوم بأنه كان يوم الاثنين لإحدى وعشرين مضت من شهر رمضان ليلًا، وقد وافق 10 أغسطس سنة 610 م، وكان عمره صلى الله عليه وسلم إذ ذاك بالضبط أربعين سنةً قمريةً، وستة أشهر، و12 يومًا، وذلك نحو 39 سنةً شمسيةً وثلاثة أشهر وعشرين يومًا”

যখন তিনি (সা.) নবুয়্যাত লাভ করেন, তখন তিনার বয়স ছিলো, চন্দ্র বৎসর হিসেবে চল্লিশ বৎসর, ছয় মাস, বার দিন। সূর্যবর্ষ হিসেবে উনচল্লিশ বৎসর,তিনমাস, বিশ দিন ছিল।

الأنوار في شمائل النبي المختار (ص: 89)

إمتاع الأسماع بما للنبى من الأحوال والأموال والحفدة والمتاع (1/ 64)

আশাকরি বিষয়টি স্পষ্ট হয়েছে।

والله أعلم بالصواب

উত্তর লিখনে

মুহা. শাহাদাত হুসাইন , ছাগলনাইয়া, ফেনী।

সাবেক শিক্ষার্থী ইফতা বিভাগ
তা’লীমুল ইসলাম ইনস্টিটিউট এন্ড রিসার্চ সেন্টার ঢাকা।

সত্যায়নে

.মুফতী লুৎফুর রহমান ফরায়েজী দা.বা

পরিচালকতা’লীমুল ইসলাম ইনস্টিটিউট এন্ড রিসার্চ সেন্টার ঢাকা

উস্তাজুল ইফতা– জামিয়া কাসিমুল উলুম আমীনবাজার ঢাকা।

প্রধান মুফতীজামিয়াতুস সুন্নাহ লালবাগ, ঢাকা।

উস্তাজুল ইফতা জামিয়া ইসলামিয়া দারুল হক লালবাগ ঢাকা।

পরিচালক: শুকুন্দী ঝালখালী তা’লীমুস সুন্নাহ দারুল উলুম মাদরাসা, মনোহরদী নরসিংদী।

আরও জানুন

বিয়ের অনুমতি প্রদানকারীর উপস্থিতিতে উকীল একজন সাক্ষীর সামনে বিয়ে করালে বিবাহ হবে?

প্রশ্ন আসসালামুআলাইকুম। আমার স্বামী আমাকে অজ্ঞাতাবসত তিন তালাক দেন। আমি দ্বীনের পথে আসার পর জানতে …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আহলে হক্ব বাংলা মিডিয়া সার্ভিস