প্রচ্ছদ / ওয়াকফ/মসজিদ/ঈদগাহ / কবরের উপর মসজিদ নির্মাণের হুকুম কি?

কবরের উপর মসজিদ নির্মাণের হুকুম কি?

প্রশ্ন

বরাবর,

লুৎফর রহমান  ফরায়েজী

বিষয়: কবর স্থানের উপর মসজিদ তৈরীর বিষয়ে কুরআন এবং হাদিসের আলোকে সমাধানের জন্য লিখিত ফতোয়ার আবেদন।

জনাব,

বিনীত নিবেদন এই যে, আমরা পাবনা জেলার আটঘরিয়া, উপজেলার, চাঁদভা ইউনিয়নের হাপানিয়া গ্রামের বাসিন্দা। আমরা মৌখিক ভাবে ওয়াকফ করা কবর স্থান যে কবরস্থানে মানুষ মাটি দেওয়া হচ্ছে প্রায় ৮০/৯০ বছর ধরে এই রকম জায়গা মসজিদের নামে রেজিষ্ট্রি করে নিয়ে সেই কবর গুলোর হাড়-হাড্ডি সেখান থেকে উত্তোলন না করে বরং কবর গুলো ঐ অবস্তাতেই রেখে দিয়ে তার উপর ৩ ফুট মাটি দিয়ে উচু করে কবরগুলো মাটির নিচে চাপা দিয়েছি এবং মসজিদের পিলার করতে গিয়ে মাটি খনন করার সময় যে সমস্ত হাড়-হাড্ডি পাওয়া গেছে সে সমস্ত হাড়-হাড্ডি গুলোও আবার ঐ কবরের মধ্যেই চাপা দিয়েছি এবং সেখানে প্রায় ৬০ লক্ষ টাকার প্লান করে ২০০৮ সালে একটি জুময়া মসজিদ তৈরীর কাজ শুরু করি কিন্তু মসজিদের এখনও অনেক কাজ বাদ রয়েছে। প্রায় ৩০ লক্ষ টাকা খরচ করে শুধু মাত্র ছাদ, মেঝে এবং গিরিলের দরজা, জানালা লাগিয়ে নামাজ পড়ার মত একটা পরিবেশ তৈরী করা হয়েছে এখনও রং প্লাস্টার, টাইস এ সমস্ত সকল কাজ বাদ রয়েছে। এবং এতদিন ধরে আমরা সেই মসজিদে নামাজও পড়ে আসছি। এখন এই মসজিদে আমদের নামাজ সঠিক হবে কিনা, (অথচ ঐ কবরস্থান ছাড়াও মসজিদের পাশে মসজিদ করার মত অনেক বড় জায়গা রয়েছে যে জায়গাটুকুও মসজিদের নামে রেজিষ্ট্রি করা সেখানে কোন কবরও নাই সেই জায়গায় মসজীদ না করে কবরস্থানের উপর মসজীদ করেছি) এই বিষয়টির সঠিক সমাধান পাওয়ার জন্য আপনার বরাবর মসজিদ তৈরীর জায়গা বিষয়ে লিখিত তথ্য পেশ করলাম। আমাদের লিখিত তথ্যাদি পড়ার পড়ে কুরআন এবং হাদিসের উপর ভিত্তি করে সঠিক সমাধান দিতে আপনার সদয় মরজি হয়।

লিখিত তথ্য

আমাদের গ্রামে আজ থেকে প্রায় ৮০/৯০ বছর আগে নামাজ পড়ার জন্য নির্ধারিত কোন মসজিদ এবং মানুষ মারা গেলে মাটি দেওয়ার জন্য নিরধারিত কোন কবরস্থানের জায়গা ছিলো না। ঠিক সেই সময় মেছের জোয়াদ্দার নামে একজন ব্যক্তি ইসলামী শরিওত মোতাবেক তাহার নিজস্ব একটি জমি মসজিদ ও কবরস্থান বরাবর আলাদা-আলাদা ভাবে উল্লেখ করে মৌখিক ভাবে ওয়াকফ করে দেয়  (কিন্তু সেই ওয়াকফের লিখিত কোন প্রমান নাই) । তার ওয়াকফ করা মসজিদের জায়গার উপর প্রথমে একটি ছোট মসজিদ ও তার পাশে ওয়াকফ করা কবরস্থানের উপর একটি কবরস্থান জমির মালিক নিজেই তৈরী করে দেয় এবং মানুষ মারা গেলে সেই কবরস্থানে মানুষকে মাটি দেওয়া হয় কিন্তু জমির মূল মালিক মেছের জোয়াদ্দারের মৃত্যুর পর তার দুই সন্তান মো: ওসমান গণি জোয়াদ্দার এবং ছোট সন্তান মো: আব্দুল গণি জোয়াদ্দার তার সমস্ত জমি জমার ওয়ারিশ হন।

তারা ওয়ারিশ হওয়ার পর আবার নতুন করে মসজিদ এবং কবরস্থানের সমস্ত জায়গা প্রায় ৩০ বছর পর শুধূ মসজিদ বরাবর সরকারী আইন অনুযায়ী ১৯৭০ সালের দিকে লিখিত দলিল করে দেয় কিন্তু যদিও দলিল করে দেয় দলিল করে দেওয়ার পরেও আবার নতুন করে গ্রামের জনগন ঐ কবরস্থানে কবর দেওয়ার কাজ যথানিয়মে চালাতে খাকে এবং রেজিস্ট্রি করে দেওয়ার পরে সেই কবরস্থানে যাদেরকে মাটি দেওয়া হয় তাদের মধ্যে  গ্রামের প্রধানদের কবরও রয়েছে তার প্রমাণ সরুপ তাদের কবর এখনও নতুন যে মসজিদ করা হয়েছে সেই মসজিদের ভিতরে কিছু অংশ এবং মসজিদের বাইরে কিছু অংশ বিদ্যমান রয়েছে।

এবং এছাড়াও অনেক মানুষ সেখানে মাটি  দেওয়া হয়েছে। মাটি দিতে দিতে এমন একটি অবস্থান তৈরী হয়ে গিয়েছিলো যে, সেখানে আর কবর দেওয়ার কোন জায়গা ছিলো না আবার নতুন করে ঐ কবরস্থানে মাটি দিয়ে ভরাট করে নতুন কবর দেওয়ার কাজ শুরু হয়। সবার শেষে যে কবরটি দেওয়া হয় সেটা হলো মসজিদ তৈরীর মাত্র ৫ বছর আগে অর্থাত ২০০৪ সালে। কিন্তু ১৯৭০ সালেই আমাদের গ্রামে আবার একটা নতুন কবরস্থান তৈরী করা হয় এবং সেখানে ১৯৭০ সাল থেকে শুরু করে বতর্মানেও সেখানে মানুষ মাটি দেওয়া হচ্ছে আমাদের এই পুরাতন কবরস্থানে মানুষ মাটি দেওয়ার আর প্রয়োজন নাই। তাই আমাদের পুরাতন জামে মসজিদটি সংস্কার ও বড় করার জন্য পুরাতন মসজিদের সবটুকু জায়গা বহাল না রেখে কবরস্থানের  সকল কবরগুলো খনন না করে কবর গুলো ঐ অবস্থাতেই রেখে দিয়ে তার উপর নতুন করে ৩ ফুট মাটি দিয়ে উচু করে অনেক বড় একটি মসজিদ তৈরী করেছি এবং নামাজও পড়ছি।

এখন আমার প্রশ্ন হলো:

০১।

শরীয়তের বিধান অনুযায়ী ওয়াকফ সহিহ বা বৈধ হওয়ার জন্য মৌখিক ওয়াক্ফই যথেষ্ট নাকি রেজিষ্ট্রি করা জরুরি? এ বিষয়ে জানতে চাই?

০২।

যদি কোরআন এবং হাদিসের নিয়ম অনুযায়ী নতুন করে আবার মসজিদ এবং কবরস্থানের সমস্ত জায়গা শুধূ মসজিদ বরাবর সরকারী আইন অনুযায়ী ওয়ারিশদের লিখিত দলিল করে দেওয়ার নিয়ম থাকে তাহলে মসজিদের পাশে যে অনেক ফাকা জায়গা পড়ে রয়েছে সে জায়গাটুকুও মসজিদের নামে রেজিষ্ট্রি করা, অথচ সেই জায়গায় মসজিদ না করে কবরস্থানের উপর আমরা লক্ষ লক্ষ টাকা খরচ করে মসজিদ তৈরী করেছি এবং নামাজ পড়ছি এখন সেই মসজিদে নামাজ পড়লে নামাজের সঠিক হক আদায় হবে কিনা?

০৩।

আর মসজিদ তৈরীর সময় ঐ সমস্ত সকল কবরগুলো খনন না করে, শুধু মাত্র পিলার করার জন্য যে জায়গাটুকু খনন করার দরকার সেই জায়গাটুকু খনন করেছি এবং সেখানকার যে হাড়-হাড্ডি গুলো পাওয়া গেছে সে হাড়-হাড্ডি গুল্ওো অন্য জায়গা না সড়িয়ে সেই কবরের মধ্যেই তার মানে মসজিদের নিচে চাপা দিয়েছি আর বাঁকি শত শত কবরগুলো কবরগুলো ঐ অবস্থাতেই রেখে দিয়ে  সমস্ত কবরগুলো গোটা মসজিদের মেঝের নিচে চাপা দিয়ে মসজিদ করেছি এবং এতদিন ধরে এই ভাবেই সেই মসজিদে আমরা নামাজও পড়ছি এখন আমাদের নামাজ হবে কিনা?

০৪।

আর যদি গ্রামের সকল জনগন একমত হয়ে মসজিদের মেঝ ভেঙ্গে ফেলে দিয়ে ঐ সকল কবরের হাড়-হাড্ডি তুলে ফেলে অন্য কবরস্থানে দাফন করে তারপর নতুন করে মেঝে তৈরী করে নামাজ পড়ি তাহলে সে কাজটি করা উত্তম হবে কি না এ বিষয়ে জানতে চাই?

০৫।

আর যদি আমরা হাড়-হাড্ডি না তুলে ঐ অবস্থাতেই নামাজ পড়ি এবং এ রকম অবস্থায় মসজিদ করে নামাজ পড়া শরিয়তের বিধান অনুযায়ী বিলকুল জায়েজ কিনা এ বিষয়ে জানতে চাই?

অতএব, জনাবের নিকট বিনীত অনুরোধ  আমাদের উপরোক্ত বিষয়গুলো ভাল ভাবে পড়ে ও বুঝে আমাদের প্রত্যেকটি প্রশ্নের উত্তর সঠিক ভাবে দিয়ে আমাদের এই সমস্যার সমাধান করে দিতে আপনার সহানুভূতি কামনা করছি।

নিবেদক

গ্রাম বাসীদের পক্ষে

মো: আব্দুল হাই

গ্রাম: হাপানিয়া

উপজেলা: আটঘরিয়া

জেলা: পাবনা।

(বিঃদ্রঃ আমাদের উপরোক্ত ০৪ টি প্রশ্নেরে উত্তর  হাওলা সহ আলাদা আলাদা ভাবে দিবেন, তাহলে আমাদের প্রত্যেকটি বিষয়ে জানা হবে এবং আমরা খুব উপকৃত হব এবং এই প্রশ্নের উত্তরের ১ কপি যদি কুরিয়ার ও পোষ্টের মাধ্যমে পাঠাতেন তাহলে আমরা সারা জীবন আপনার কৃতজ্ঞতা স্বীকার করতাম।

উত্তর

بسم الله الرحمن الرحيم

১ নং প্রশ্নের জবাব

ওয়াকফ শুদ্ধ হওয়ার জন্য লিখিত দেয়া বা রেজিষ্ট্রি করে দেয়া শর্ত নয়। শুধুমাত্র মৌখিক হুকুম দিয়ে জমিটি ওয়াকফকৃত প্রয়োজনে আলাদা করে দিলেই ওয়াকফ সম্পন্ন হয়ে যায়।

সেই হিসেবে মরহুম মেছের জোয়াদ্দার সাহেব মসজিদ ও কবরস্থানের জন্য আলাদা আলাদা দু’টি জমি ওয়াকফ করার কথা বলে পৃথক করে দেয়ার দ্বারাই ওয়াকফ শুদ্ধ হয়ে গেছে। উক্ত দু’টি নির্ধারিত স্থানে মসজিদ ও কবরস্থানের কাজ সমাপনের দ্বারা ওয়াকফটি আরো শক্তিশালী ও পূর্ণতা লাভ করেছে। পরবর্তীতে ওয়াকফকারীর ওয়ারিসদের কোন অধিকার নেই তার উপর কোনরূপ হস্তক্ষেপ করার।

وَأَبُو يُوسُفَ – رَحِمَهُ اللَّهُ – مَرَّ عَلَى أَصْلِهِ مِنْ زَوَالِ الْمِلْكِ بِمُجَرَّدِ الْقَوْلِ أَذِنَ فِي الصَّلَاةِ أَوْ لَمْ يَأْذَنْ، وَيَصِيرُ مَسْجِدًا بِلَا حُكْمٍ؛ لِأَنَّهُ إسْقَاطٌ كَالْإِعْتَاقِ، وَبِهِ قَالَتْ الْأَئِمَّةُ الثَّلَاثَةُ. (فتح القدير، كتال الوقف، فصل فى احكام المسجد، إذَا بَنَى مَسْجِدًا لَمْ يَزُلْ مِلْكُهُ عَنْهُ-6/234

وفى البحر الرائق- الخامس من شرائطه الملك وقت الوقف…………. اما لو وقف ضيعة غيره على جهات فبلغ الغيرفأجازه جاز بشرط الحكم والتسليم، ( البحر الرائق-5/188)

 

২ ও ৩ এবং ৫নং প্রশ্নের জবাব

ওয়াকফকারী যে স্থানকে কবরস্থান হিসেবে ওয়াকফ করে গেছে, সেটিতে মসজিদ নির্মাণ করা জায়েজ নয়। ওয়াকফকারীর ওয়াকফের বিপরীত করে কবরস্থানের স্থলে মসজিদ নির্মাণ করাটি শরীয়ত গর্হিত কাজ হয়েছে। দেশীয় আইনের ফাঁক গলে এহেন কাজ করা কিছুতেই সমীচিন হয়নি। মসজিদের জন্য ওয়াকফকৃত স্থানে মসজিদ নির্মাণ করতে হবে। আর কবরস্থানটিকে কবরস্থান হিসেবেই রাখতে হবে। এর উল্টো করা জায়েজ নয়।

শরয়ী বিধানের উল্টো কবরস্থানের জন্য ওয়াকফকৃত জমিনে মসজিদ নির্মাণের ফলে কর্তৃপক্ষ শক্ত গোনাহগার হয়েছে।

شرط الواقف كنص الشارع أي في المفهوم والدلالة، ووجوب العمل به (رد المحتار، كتاب الوقف، مطلب فى قولهم شرط الواقف كنص الشارع-6/649، البحر الرائق، كتاب الوقف-5/245، النهر الفائق، كتاب الوقف-3/326

হ্যাঁ, কবরস্থানের স্থলে মসজিদ নির্মাণ করা জায়েজ আছে ২টি শর্তে। যথা-

১-  যদি উক্ত কবরস্থানটি আর কবর দেয়ার কাজে ব্যবহৃত না হয়।

২-  কবরস্থানে দাফনকৃত লাশ মাটির সাথে মিশে গিয়ে থাকে।

যদি উল্লেখিত উভয় শর্ত পাওয়া যায়, তাহলে উক্ত স্থানে মসজিদ নির্মাণ জায়েজ হয়েছে। সুতরাং তাতে নামাযও জায়েজ হচ্ছে।

فى عمدة القارى شرح صحيح البخارى- قال ابن القاسم لو أن مقبرة من مقابر المسلمين عفت فبنى قوم عليها مسجدا لم أر بذلك بأسا وذلك لأن المقابر وقف من أوقاف المسلمين لدفن موتاهم لا يجوز لأحد أن يملكها فإذا درست واستغنى عن الدفن فيها جاز صرفها إلى المسجد لأن المسجد أيضا وقف من أوقاف المسلمين لا يجوز تملكه لأحد فمعناهما على هذا واحد وذكر أصحابنا أن المسجد إذا خرب ودثر ولم يبق حوله جماعة والمقبرة إذا عفت ودثرت تعود ملكا لأربابها فإذا عادت ملكا يجوز أن يبنى موضع المسجد دارا وموضع المقبرة مسجدا وغير ذلك فإذا لم يكن لها أرباب تكون لبيت المال (عمدة القارى شرح صحيح البخارى، كتاب الصلاة، باب هل تنبش قبور مشركي الجاهلية ويتخذ مكانها مساجد-3/435 زكاريا

وَلَوْ بَلَى الْمَيِّتُ وَصَارَ تُرَابًا جَازَ دَفْنُ غَيْرِهِ فِي قَبْرِهِ وَزَرْعُهُ وَالْبِنَاءُ عَلَيْهِ، كَذَا فِي التَّبْيِينِ. (الفتاوى الهندية، كتاب الصلاة، الباب الحادى عشر فى الجنائز، الفصل السادس فى القبر الدفن-1/167

কিন্তু যদি এই দুই শর্তের একটি শর্তও না পাওয়া যায়, তাহলে উক্ত স্থানে মসজিদ নির্মাণ জায়েজ হয়নি।  সুতরাং তাতে নামায পড়া মাকরূহে তাহরিমী হচ্ছে।

وتكره الصلاة عليه وإليه لورود النهي عن ذلك، (رد المحتار، كتاب الصلاة، باب صلاة الجنائز، مطلب فى اهداء ثواب القرائة للنبى صلى الله عليه وسلم-3/154، تاتارخانية، كتاب الجنائز، باب التعزية والماتم-2/182

৪ নং প্রশ্নের জবাব

যদি কবরস্থানটি প্রয়োজনীয়তা আর না থাকে। অন্য কবরস্থানেই মানুষ এখন লাশ দাফন করে। ওয়াকফকৃত উক্ত কবরস্থানটি বিরান হয়ে থাকে। সেক্ষেত্রে উক্ত স্থান থেকে কবরের হাড়গোড় উঠিয়ে অন্যত্র সম্মানের সাথে দাফন করে উক্ত স্থানে মসজিদ নির্মাণের সুযোগ রয়েছে।

তবে এক্ষেত্রেও হাড়গোড় একদম মাটির সাথে মিশে যাওয়ার পর কাজটি করলেই সর্বোত্তম হবে।

আর যদি এখনো উক্ত স্থানে মানুষ লাশ দাফন করে থাকে। তথা কবরস্থানটির প্রয়োজনীয়তা এখনো বাকি থাকে, তাহলে উক্ত স্থানে ওয়াকফকারীর নির্দেশনার উল্টো হওয়ায় মসজিদ নির্মাণ জায়েজ হবে না।

فى عمدة القارى شرح صحيح البخارى- قال ابن القاسم لو أن مقبرة من مقابر المسلمين عفت فبنى قوم عليها مسجدا لم أر بذلك بأسا وذلك لأن المقابر وقف من أوقاف المسلمين لدفن موتاهم لا يجوز لأحد أن يملكها فإذا درست واستغنى عن الدفن فيها جاز صرفها إلى المسجد لأن المسجد أيضا وقف من أوقاف المسلمين لا يجوز تملكه لأحد فمعناهما على هذا واحد وذكر أصحابنا أن المسجد إذا خرب ودثر ولم يبق حوله جماعة والمقبرة إذا عفت ودثرت تعود ملكا لأربابها فإذا عادت ملكا يجوز أن يبنى موضع المسجد دارا وموضع المقبرة مسجدا وغير ذلك فإذا لم يكن لها أرباب تكون لبيت المال (عمدة القارى شرح صحيح البخارى، كتاب الصلاة، باب هل تنبش قبور مشركي الجاهلية ويتخذ مكانها مساجد-3/435 زكاريا

وَلَوْ بَلَى الْمَيِّتُ وَصَارَ تُرَابًا جَازَ دَفْنُ غَيْرِهِ فِي قَبْرِهِ وَزَرْعُهُ وَالْبِنَاءُ عَلَيْهِ، كَذَا فِي التَّبْيِينِ. (الفتاوى الهندية، كتاب الصلاة، الباب الحادى عشر فى الجنائز، الفصل السادس فى القبر الدفن-1/167

شرط الواقف كنص الشارع أي في المفهوم والدلالة، ووجوب العمل به (رد المحتار، كتاب الوقف، مطلب فى قولهم شرط الواقف كنص الشارع-6/649، البحر الرائق، كتاب الوقف-5/245، النهر الفائق، كتاب الوقف-3/326

والله اعلم بالصواب

উত্তর লিখনে

লুৎফুর রহমান ফরায়েজী

পরিচালক-তালীমুল ইসলাম ইনষ্টিটিউট এন্ড রিসার্চ সেন্টার ঢাকা।

ইমেইল- ahlehaqmedia2014@gmail.com

lutforfarazi@yahoo.com

আরও জানুন

পাকিস্তানী সুন্নী নামধারী পীর তাহের শাহ ও তার দলের আকীদা বিশ্বাস কি সঠিক?

প্রশ্ন আসসালামুআলাইকুম, হুজুর আমি আপনার বয়ান, ওলীপুরি,চরমোনাই  এবং দেওবন্দি হুজুরদের বয়ান শুনি। সাধারন শিক্ষিত হলেও …

No comments

  1. লুৎফুর রহমান ভাই কে অশেষ ধন্যবাদ।যুক্তপূির্ণ সমাধান দেওয়ার জন্য।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *