প্রচ্ছদ / ইদ্দত / ইদ্দতের বিধান কী? কোথায় পালন করবে? ইদ্দত কত প্রকার ও কি কি?

ইদ্দতের বিধান কী? কোথায় পালন করবে? ইদ্দত কত প্রকার ও কি কি?

প্রশ্নঃ

আসসালামু আলাইকুম,
জনাব,
আমি মুফতি আল আমীন সাইফ,
নারায়ণগঞ্জ, ফারিহা গার্মেন্টস সম্মুখে অবস্থিত বাইতু মুসলিম কেন্দ্রীয় জামে মসজিদের ইমাম খতিব।

বিষয়ঃ
কিছুদিন পূর্বে  আমার খালু মারা যায়, তিনি সপরিবারেভাড়া বাসায় থাকতেন প্রতি মাসে এর জন্য খালুকে ৪০,০০০ টাকা ভাড়া বাবদ এক্সটা করতে হতো, যা খালু না থাকায় অসম্ভ,  এর সাথে আমার খালা ইদ্দতপালন করবে কোথায় এ বিষয়েকথা উঠার পর চতুর্দিক বিবেচনয় আমি বলেছিলাম ইদ্দতপালন হবে স্বামীর বাড়িতে,  কিন্তু এক আলিয়ার শিক্ষক আমার কথার কাউন্টারকরে বললো এটা অসম্ভব এখানেই তাকে থাকতে হবে।

এখন আমার জানার বিষয় হলো।

প্রশ্ন (১) ইদ্দত কি? (ফরজ)  (ওয়াজিব)
নাকি বিবাহ কেন্দ্রিক জরুরী।

প্রশ্ন (২) ভাড়াটিয়ার ইদ্দত কোথায় স্বামীর বাড়ি ?  নাকি ভাড়া বাড়ির মালিকের বাড়ি?

প্রশ্ন (৩) ইদ্দতের প্রকারভেদ।
অনুগ্রহপূর্বক এ বিষয়গুলোর দালিলিক সমাধানের আকাঙ্ক্ষী।
জ্ঞাতার্থে একটা কথা খালা খালু উভয়ে’ই
বৃদ্ধ বৃদ্ধ।

প্রশ্নকর্তাঃ
From: “Mufti:Al Amin Saif” alaminsaif69@gmail.com

 

وعليكم السلام ورحمة الله وبركاته

بسم الله الرحمن الرحيم
حامدا ومصليا و مسلما

উত্তরঃ

১নং উত্তরঃ ইদ্দত প্রত্যেক ওই মহিলার (যুবতী হোক বা বৃদ্ধা) উপর ওয়াজিব যার সাথে তার স্বামীর একাকীত্ব সময় কেটেছে অথবা স্বামীর সাথে স্বামী স্ত্রী সুলভ আচরণের পর পৃথক হয়ে গেছে অথবা স্বামী ইন্তেকাল করেছেন।

প্রকাশ থাকে যে, কোরআন , হাদিসের কোন অংশে ইদ্দত শুধু যুবতীদের জন্য নির্দিষ্ট এমন কথা আসেনি। এটি একটি মনগড়া কথা যে বৃদ্ধাদের উপর ইদ্দত নেই। এটি মানুষের বানানো কথা বরং কোরআন হাদিস থেকে স্পষ্ট বুঝা যায় যে মহিলা গর্ভবতী হলে চাই‌ সে বৃদ্ধা হোক বা যুবতী তার ইদ্দত হলো গর্ভপাত। যদি সে গর্ভবতী না হয় তাহলে তার ইদ্দত চার মাস দশ দিন। যদি সে সন্নে  আয়েসা ( যার স্রাব আসেনা) তার ইদ্দত তিন মাস।

القرآن الکریم: (الطلاق، الایة: 4)
وَاللَّائِي يَئِسْنَ مِنَ الْمَحِيضِ مِنْ نِسَائِكُمْ إِنِ ارْتَبْتُمْ فَعِدَّتُهُنَّ ثَلَاثَةُ أَشْهُرٍ وَاللَّائِي لَمْ يَحِضْنَ ۚ وَأُولَاتُ الْأَحْمَالِ أَجَلُهُنَّ أَنْ يَضَعْنَ حَمْلَهُنَّ ۚ وَمَنْ يَتَّقِ اللَّهَ يَجْعَلْ لَهُ مِنْ أَمْرِهِ يُسْرًاo

দুই নং উত্তর:
স্বামীর মৃত্যুর সময় অথবা তালাকের সময় স্ত্রী যে স্থানে থাকে সেই স্থানেই তার জন্য ইদ্দত পালন করা ওয়াজিব। যদি শরঈ কোন ওজর না থাকে তাহলে উক্ত ঘর ছেড়ে অন্যত্র যাওয়া বৈধ নয়। থাকলে বৈধ আছে।
প্রশ্নোক্ত ক্ষেত্রে যেহেতু আপনার খালুর উক্ত বাড়ির ভাড়া বাবদ ৪০ হাজার টাকা বর্তমানে ব্যবস্থা করা সম্ভব নয় সুতরাং শরঈ দৃষ্টিকোণ থেকে এটিকে ওজর হিসেবে গণ্য করা হবে। তিনি চাইলে স্বামীর বাড়িতে গিয়ে সেখানে ইদ্দত পালন করতে পারবে। এতে গুনাগার হবে না।

الدر المختار: (520/3، ط: دار الفكر)
(ومبدأ العدة بعد الطلاق و) بعد (الموت) على الفور (وتنقضي العدة وإن جهلت) المرأة (بهما) أي بالطلاق والموت لأنها أجل فلا يشترط العلم بمضيه سواء اعترف بالطلاق، أو أنكر.

رد المحتار: (3 /520، ط: دار الفكر)
قال في الشرنبلالية: قوله: وابتداؤها عقيبهما أي عقيب الطلاق والموت.

الدر المختار: (3 /536، ط: دار الفکر)
(وتعتدان) أي معتدة طلاق وموت (في بيت وجبت فيه) ولا يخرجان منه (إلا أن تخرج أو يتهدم المنزل، أو تخاف) انهدامه، أو (تلف مالها، أو لا تجد كراء البيت) ونحو ذلك من الضرورات فتخرج لأقرب موضع إليه.

رد المحتار: (3 /536، ط: دار الفکر)
(قوله: في بيت وجبت فيه) هو ما يضاف إليهما بالسكنى قبل الفرقة ولو غير بيت الزوج كما مر آنفا، وشمل بيوت الأخبية كما في الشرنبلالية. (قوله: ولا يخرجان) بالبناء للفاعل، والمناسب ” تخرجان ” – بالتاء الفوقية -؛ لأنه مثنى المؤنث الغائب أفاده ط. (قوله: إلا أن تخرج) الأولى الإتيان بضمير التثنية فيه وفيما بعده ط، وشمل إخراج الزوج ظلما، أو صاحب المنزل لعدم قدرتها على الكراء، أو الوارث إذا كان نصيبها من البيت لا يكفيها بحر: أي لا يكفيها إذا قسمته لأنه لا يجبر على سكناها معه إذا طلب القسمة، أو المهايأة ولو كان نصيبها يزيد على كفايتها.
(قوله: أو لا تجد كراء البيت) أفاد أنها لو قدرت عليه لزمها من مالها، وترجع به المطلقة على الزوج إن كان بإذن الحاكم كما مر. (قوله: ونحو ذلك) منه ما في الظهيرية: لو خافت بالليل من أمر الميت والموت ولا أحد معها لها التحول – والخوف شديد – وإلا فلا. (قوله: فتخرج) أي معتدة الوفاة كما دل عليه ما بعده ط.

৩ নং প্রশ্নের উত্তর:
ইদ্দতের বিভিন্ন প্রকারভেদ রয়েছে:
১- এমন মহিলা যার কোন ইদ্দত নেই।

যদি কোন স্বামী তার স্ত্রীকে বিবাহের পর স্পর্শ করার পূর্বে তালাক দেয় তাহলে উক্ত মহিলার উপর ইদ্দত নেই। যেমনটি কোরআনে বর্ণিত হয়েছে।

{ يَٰٓأَيُّهَاا لَّذِينَ آمَنُوٓاْ إِذَا نَكَحْتُمُ الْمُؤْمِنَٰتِ ثُمَّ طَلَّقْتُمُوهُنَّ مِن قَبْلِ أَن تَمَسُّوهُنَّ فَمَا لَكُمْ عَلَيْهِنَّ مِنْ عِدَّةٍ تَعْتَدُّونَهَا فَمَتِّعُوهُنَّ وَسَرِّحُوهُنَّ سَرَاحًا جَمِيلًا }
[الاحزاب:۴۹]

২-মহিলা যদি গর্ভবতী হয় তাহলে তার ইদ্দত হলো গর্ভপাত হওয়া। অর্থাৎ বাচ্চা প্রসব করা পর্যন্ত।

{ وَأُوْلَٰتُ لْأَحْمَالِ أَجَلُهُنَّ أَن يَّضَعْنَ حَمْلَهُنَّ}
[الطلاق:۴]

 فَكَتَبَ عُمَرُ بْنُ عَبْدِ اللَّهِ بْنِ الأَرْقَمِ إِلَى عَبْدِ اللَّهِ بْنِ عُتْبَةَ يُخْبِرُهُ أَنَّ سُبَيْعَةَ بِنْتَ الْحَارِثِ أَخْبَرَتْهُ أَنَّهَا كَانَتْ تَحْتَ سَعْدِ ابْنِ خَوْلَةَ، وَهْوَ مِنْ بَنِي عَامِرِ بْنِ لُؤَىٍّ، وَكَانَ مِمَّنْ شَهِدَ بَدْرًا، فَتُوُفِّيَ عَنْهَا فِي حَجَّةِ الْوَدَاعِ وَهْىَ حَامِلٌ، فَلَمْ تَنْشَبْ أَنْ وَضَعَتْ حَمْلَهَا بَعْدَ وَفَاتِهِ، فَلَمَّا تَعَلَّتْ مِنْ نِفَاسِهَا تَجَمَّلَتْ لِلْخُطَّابِ، فَدَخَلَ عَلَيْهَا أَبُو السَّنَابِلِ بْنُ بَعْكَكٍ ـ رَجُلٌ مِنْ بَنِي عَبْدِ الدَّارِ ـ فَقَالَ لَهَا مَا لِي أَرَاكِ تَجَمَّلْتِ لِلْخُطَّابِ تُرَجِّينَ النِّكَاحَ فَإِنَّكِ وَاللَّهِ مَا أَنْتِ بِنَاكِحٍ حَتَّى تَمُرَّ عَلَيْكِ أَرْبَعَةُ أَشْهُرٍ وَعَشْرٌ. قَالَتْ سُبَيْعَةُ فَلَمَّا قَالَ لِي ذَلِكَ جَمَعْتُ عَلَىَّ ثِيَابِي حِينَ أَمْسَيْتُ، وَأَتَيْتُ رَسُولَ اللَّهِ صلى الله عليه وسلم فَسَأَلْتُهُ عَنْ ذَلِكَ، فَأَفْتَانِي بِأَنِّي قَدْ حَلَلْتُ حِينَ وَضَعْتُ حَمْلِي، وَأَمَرَنِي بِالتَّزَوُّجِ إِنْ بَدَا لِي.

সহীহ বুখারী,হাদীস নং: ৩৭০১, আন্তর্জাতিক নং: ৩৯৯০ – ৩৯৯১

৩- বিবাহের পর স্বামী মারা গেলে স্ত্রীর দুই অবস্থা; ১: উক্ত মহিলা গর্ভবতী হবে/ না। হলে তার ইদ্দত বাচ্চা প্রসব পর্যন্ত। না হলে ৪ মাস ১০দিন।

{وَالَّذِينَ يُتَوَفَّوْنَ مِنكُمْ وَيَذَرُونَ أَزْوَاجًا يَتَرَبَّصْنَ بِأَنفُسِهِنَّ أَرْبَعَةَ أَشْهُرٍ وَعَشْرًا فَإِذَا بَلَغْنَ أَجَلَهُنَّ فَلَا جُنَاحَ عَلَيْكُمْ فِيمَا فَعَلْنَ فِي أَنفُسِهِنَّ بِالْمَعْرُوفِ وَاللّٰهُ بِمَا   تَعْمَلُونَ خَبِير}
[البقرہ:۲۳۴]

৪- তালাক প্রাপ্তা নারী যদি স্বামী স্পর্শকৃতা হয়, এবং স্রাব চলমান থাকে? তাহলে তার ইদ্দত তিন স্রাব পরিমাণ।

{وَالْمُطَلَّقَاتُ يَتَرَبَّصْنَ بِأَنفُسِهِنَّ ثَلَاثَةَ قُرُوء}
[البقرہ:۲۲۸]

৫- তালাকপ্রাপ্তা নারীর যদি স্রাব না আসে, বার্ধক্যের কারণে হোক অথবা ছোট অপ্রাপ্তবয়স্ক হওয়ার কারণে হোক এমন নারীর ইদ্দত হলো তিন মাস।

{وَلَّٰٓـِئي يَئِسْنَ مِنَ الْمَحِيضِ مِن نِّسَآئِكُمْ إِنِ رْتَبْتُمْ فَعِدَّتُهُنَّ ثَلٰثَةُ أَشْهُرٍ وَلَّٰٓـِئي لَمْ يَحِضْنَ }

 [ الطلاق:۴]

৬- যে স্ত্রীর স্বামী নিরুদ্দেশ এমন স্ত্রীর ইদ্দতের বিষয়ে দুটি কথা;

১-যদি স্বামী উক্ত স্ত্রীকে নিজের উপর তালাক পতিত করার অধিকার প্রদান করে থাকে। মৌখিকভাবে হোক বা লিখিত আকারে। তাহলে উক্ত স্ত্রী অধিকার যেসব শর্তের ভিত্তিতে দেয়া হয়েছে, সেসব শর্ত পাওয়া গেলে নিজের উপর তালাক পতিত করে নিতে পারে। এক্ষেত্রে ইদ্দত হবে  তিন স্রাব।

وفي رد المحتار- وأنواعه ثلاثة : تفويض ، وتوكيل ، ورسالة وألفاظ التفويض ثلاثة : تخيير وأمر بيد ، ومشيئة .

(قال لها اختاري أو أمرك بيدك ينوي ) تفويض ( الطلاق ) لأنها كناية فلا يعملان بلا نية ( أو طلقي نفسك فلها أن تطلق في مجلس علمها به ) مشافهة أو إخبارا ( وإن طال ) يوما أو أكثر ما لم يوقته ويمضي الوقت قبل علمها ( ما لم تقم ) لتبدل مجلسها حقيقة ( أو ) حكما بأن ( تعمل ما يقطعه ) مما يدل على الإعراض لأنه تمليك فيتوقف على قبول في المجلس لا توكيل ، فلم يصح رجوعه ، حتى لو خيرها ثم حلف أن لا يطلقها فطلقت لم يحنث في الأصح ( لا ) تطلق ( بعده ) أي المجلس ( إلا إذا زاد ) في قوله طلقي نفسك وأخواته ( متى شئت أو متى ما شئت أو إذا شئت أو إذا ما شئت ) فلا يتقيد بالمجلس ( ولم يصح رجوعه ) لما مر (رد المحتار-كتاب الطلاق، باب تفويض الطلاق-4/552)

 

২-  যদি স্বামী কর্তৃক তালাকের অধিকারপ্রাপ্ত না হয়, তাহলে স্বামী নিরুদ্দেশ হবার বিষয়টি আদালতে পেশ করবে। প্রথমে উভয়ের সাথে বিবাহের প্রমাণ পেশ করবে। তারপর তার নিখোঁজ হবার বিষয়টি জানাবে।

আদালতের নির্দেশে দায়িত্বশীল কর্তৃপক্ষ স্বামীর খোঁজ নিবে।

আদালতে মামলা দায়েরের পর চার বছর পরও যদি স্বামীর খোঁজ না পাওয়া যায়, তাহলে চার বছর পর বিচ্ছেদ সাব্যস্ত হবে। (ইদ্দতের প্রয়োজন নেই)

আর যদি এতোদিন পর্যন্ত অপেক্ষা করা কঠিন হয়, তাহলে আদালত এক বছর পরও বিচ্ছেদের নির্দেশ দিতে পারে।

আদালত থেকে বিচ্ছেদের নির্দেশ আসার পর চারমাস দশদিন ইদ্দত পালন করবে। যা স্বামীর মৃত্যুর ইদ্দত হিসেবে গন্য হবে। [আলহিলাতুন নাজিযাহ লিলহালিলাতিল আযিজাহ-৯৫]

وَمُقْتَضَاهُ أَنَّهُ يَجْتَهِدُ وَيُحَكِّمُ الْقَرَائِنَ الظَّاهِرَةَ الدَّالَّةَ عَلَى مَوْتِهِ وَعَلَى هَذَا يُبْتَنَى عَلَى مَا فِي جَامِعِ الْفَتَاوَى حَيْثُ قَالَ: وَإِذَا فُقِدَ فِي الْمُهْلِكَةِ فَمَوْتُهُ غَالِبٌ فَيُحْكَمُ بِهِ، كَمَا إذَا فُقِدَ فِي وَقْتِ الْمُلَاقَاةِ مَعَ الْعَدُوِّ أَوْ مَعَ قُطَّاعِ الطَّرِيقِ، أَوْ سَافَرَ عَلَى الْمَرَضِ الْغَالِبُ هَلَاكُهُ، أَوْ كَانَ سَفَرُهُ فِي الْبَحْرِ وَمَا أَشْبَهَ ذَلِكَ حُكِمَ بِمَوْتِهِ؛ لِأَنَّهُ الْغَالِبُ فِي هَذِهِ الْحَالَاتِ …………. لَكِنْ لَا يَخْفَى أَنَّهُ لَا بُدَّ مِنْ مُضِيِّ مُدَّةٍ طَوِيلَةٍ حَتَّى يَغْلِبَ عَلَى الظَّنِّ مَوْتُهُ لَا بِمُجَرَّدِ فَقْدِهِ عِنْدَ مُلَاقَاةِ الْعَدُوِّ أَوْ سَفَرِهِ الْبَحْرَ وَنَحْوَهُ إلَّا إذَا كَانَ مَلِكًا عَظِيمًا فَإِنَّهُ إذَا بَقِيَ حَيًّا تَشْتَهِرُ حَيَاتُهُ، فَلِذَا قُلْنَا إنَّ هَذَا مَبْنِيٌّ عَلَى مَا قَالَهُ الزَّيْلَعِيُّ تَأَمَّلْ (رد المحتار، كتاب المفقود، مَطْلَبٌ فِي الْإِفْتَاءِ بِمَذْهَبِ مَالِكٍ فِي زَوْجَةِ الْمَفْقُودِ-6\462-463، زكريا)

৭- ডিভোর্স প্রাপ্ত নারীর ইদ্দত এক স্রাব।

عَنِ الرُّبَيِّعِ بِنْتِ مُعَوِّذِ بْنِ عَفْرَاءَ، أَنَّهَا اخْتَلَعَتْ عَلَى عَهْدِ النَّبِيِّ صلى الله عليه وسلم فَأَمَرَهَا النَّبِيُّ صلى الله عليه وسلم – أَوْ أُمِرَتْ – أَنْ تَعْتَدَّ بِحَيْضَةٍ .

সুনানে তিরমিজি, হাদীস নং ১১৮৫।

৮- যিনাকৃতা নারীর ইদ্দত, যদি সে গর্ভধারীনি না হয় এক স্রাব পরিমান সময় অপেক্ষা করবে। গর্বধারীনি হলে বাচ্চা প্রসব পর্যন্ত। জেনে রাখা উচিত, যিনাকারীনীর উপর ইদ্দত আবশ্যক নয়।

وفي الفتاوي الهندية: :

لَا تَجِبُ الْعِدَّةُ عَلَى الزَّانِيَةِ وَهَذَا قَوْلُ أَبِي حَنِيفَةَ وَمُحَمَّدٍ رَحِمَهُمَا اللَّهُ تَعَالَى كَذَا فِي شَرْحِ الطَّحَاوِيِّ.”

( كِتَابُ الطَّلَاقِ، الْبَابُ الثَّالِثَ عَشَرَ فِي الْعِدَّةِ، ١ / ٥٢٦، ط: دار الفكر)

مختصر اختلاف العلماء لأبي جعفر الطحاوي:

٨٢٣ – “فِي الزَّانِيَة هَل عَلَيْهَا عدَّة

قَالَ أَبُو حنيفَة فِي رجل رأى امْرَأَة تَزني فَتَزَوجهَا فَلهُ أَن يَطَأهَا قبل أَن يَسْتَبْرِئهَا وَقَالَ مُحَمَّد لَا أحب أَن يَطَأهَا حَتَّى يَسْتَبْرِئهَا فَإِن تزوج امْرَأَة وَبهَا حمل من زنا جَازَ النِّكَاح وَلَايَطَأهَا حَتَّى تضع.”

( ٢ / ٣٢٧، ط: دار البشائر الإسلامية – بيروت)

بدائع الصنائع في ترتيب الشرائع :

وَلَا عِدَّةَ عَلَى الزَّانِيَةِ حَامِلًا كَانَتْ أَوْ غَيْرَ حَامِلٍ؛ لِأَنَّ الزِّنَا لَا يَتَعَلَّقُ بِهِ ثُبُوتُ النَّسَبِ.

( كتاب الطلاق، فَصْلٌ فِي تَوَابِعِ الطَّلَاقِ، ٣ / ١٩٢، ط: دار الكتب العلمية)

والله أعلم بالصواب

উত্তর লিখনে
মুহা. শাহাদাত হুসাইন , ছাগলনাইয়া, ফেনী।

সাবেক শিক্ষার্থী: ইফতা বিভাগ
তা’লীমুল ইসলাম ইনস্টিটিউট এন্ড রিসার্চ সেন্টার ঢাকা।

সত্যায়নে
মুফতী লুৎফুর রহমান ফরায়েজী (হাফি.)

পরিচালক তা’লীমুল ইসলাম ইনস্টিটিউট এন্ড রিসার্চ সেন্টার ঢাকা

উস্তাজুল ইফতা– জামিয়া কাসিমুল উলুম আমীনবাজার ঢাকা।

প্রধান মুফতী: জামিয়াতুস সুন্নাহ লালবাগ, ঢাকা।

উস্তাজুল ইফতা– জামিয়া ইসলামিয়া দারুল হক লালবাগ ঢাকা।

পরিচালক: শুকুন্দী ঝালখালী তা’লীমুস সুন্নাহ দারুল উলুম মাদরাসা, মনোহরদী নরসিংদী

আরও জানুন

কুয়েতে প্যাকেটজাত গোস্ত খাওয়ার হুকুম কী?

প্রশ্ন আসসালামু আলাইকুম। আমি বর্তমানে কুয়েতে থাকি। আমার প্রশ্ন হলো এখানকার মার্কেটে যে সমস্ত প্যাকেটিং …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আহলে হক্ব বাংলা মিডিয়া সার্ভিস