প্রচ্ছদ / আকিদা-বিশ্বাস / আসমানী কিতাবের সংখ্যা কত? এবিষয়ে বর্ণিত হাদীস কী জাল?

আসমানী কিতাবের সংখ্যা কত? এবিষয়ে বর্ণিত হাদীস কী জাল?

প্রশ্নঃ

আসসালামু আলাইকুম।
সম্প্রতি আমি শুনেছি যে আসমানী কিতাব ১০৪ টি তার মধ্যে ১০টি ছোট এবং ৪ টি বড় এই হাদিসটি জাল,  আসলেই কি হাদিসটি জাল? এবং যদি এটি জাল হয় তাহলে আসমানী কিতাবের সংখ্যা কত?
প্রশ্নকর্তা: জাহিদ হাসসান। jahidhassan911@gmail.com

وعليكم السلام ورحمة الله وبركاته
بسم الله الرحمن الرحيم
حامدا ومصليا و مسلما

উত্তরঃ

হাদীসে বর্ণিত হয়েছে, আল্লাহ তা’আলা মানুষের হিদায়াতের উদ্দেশ্যে এক লক্ষ চব্বিশ হাজার কম/বেশি নবী রাসূল দুনিয়ায় প্রেরণ করেছেন।

হযরত আবূ উমামা রাঃ থেকে বর্ণিত। তিনি বলেন, আমি বললাম, হে আল্লাহর রাসূল! নবীদের সংখ্যা কত ছিল? রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বললেন, এক লক্ষ চব্বিশ হাজার। [মুসনাদে আহমাদ, হাদীস নং-২২২৮৮,আলমু’জামুল কাবীর লিততাবারানী, হাদীস নং-৭৮৭১।

এসকল নবীর কারো প্রতি কিতাব, কারো প্রতি সহীফাহ নাযিল করেছেন।
সহীফার সংখ্যা ১০০শত এর কাছাকাছি।
তন্মধ্য হতে ১০টি হযরত আদম আ. এর প্রতি, ৫০টি হযরত শিছ আ. এর প্রতি, ৩০টি হযরত ইদ্রিস আ. এর প্রতি,  ১০টি হযরত ইব্রাহিম আ. প্রতি নাযিল হয়েছে।
প্রসিদ্ধ বড় চারটি নাযিল হয়েছে চারজন নবীর প্রতি।
১- মূসা আ. এর প্রতি তাওরাত
২- দাউদ আ. প্রতি যাবূর
৩- ঈসা আ. এর প্রতি ইঞ্জিল
৪- মুহাম্মদ সা. প্রতি কুরআন

প্রত্যেক মুসলমানের জন্য আবশ্যক হলো, আল্লাহ তাআলার পক্ষ হতে নাযিলকৃত সমস্ত কিতাবের উপর ঈমান আনা। যা মুসলমান হওয়ার অন্যতম শর্ত। সুতরাং কয়টি কিতাব নাযিল হয়েছে তা জানা জরুরী বিষয় নয়।

মোট কতটি কিতাব নাযিল হয়েছে এপ্রসঙ্গে হাদীসে এসেছে ১০৪টি। হাদিসটির মান যয়ীফ। তবে জাল পর্যায়ের নয়। হাদীসটি বিভিন্ন তাফসিরের কিতাবেও এসেছে।

المستندات الشرعية

   قال تعالي  في سورة الشوري 42-15 وَقُلۡ اٰمَنۡتُ بِمَاۤ اَنۡزَلَ اللّٰہُ مِنۡ کِتٰبٍ ۚ

وقال تعالي في سورة البقرة . رقم الاية : 136:

قُوۡلُوۡۤا اٰمَنَّا بِاللّٰہِ وَمَاۤ اُنۡزِلَ اِلَیۡنَا وَمَاۤ اُنۡزِلَ اِلٰۤی اِبۡرٰہٖمَ وَاِسۡمٰعِیۡلَ وَاِسۡحٰقَ وَیَعۡقُوۡبَ وَالۡاَسۡبَاطِ وَمَاۤ اُوۡتِیَ مُوۡسٰی وَعِیۡسٰی وَمَاۤ اُوۡتِیَ النَّبِیُّوۡنَ مِنۡ رَّبِّہِمۡ ۚ لَا نُفَرِّقُ بَیۡنَ اَحَدٍ مِّنۡہُمۡ ۫ۖ وَنَحۡنُ لَہٗ مُسۡلِمُوۡنَ

قال ابن كثير رحمه الله تعالى:
” أرشد الله تعالى عباده المؤمنين إلى الإيمان بما أنزل إليهم بواسطة رسوله محمد صلى الله عليه وسلم مفصلا، وبما أنزل على الأنبياء المتقدمين مجملا، ونص على أعيان من الرسل، وأجمل ذكر بقية الأنبياء، وأن لا يفرقوا بين أحد منهم، بل يؤمنوا بهم كلهم ” انتهى من “تفسير ابن كثير” (1 / 448).

وفي التفسير للبغوي:

“وروي عن أبي ذر عن النبي صلى الله عليه وسلم قال: “أنزلت صحف إبراهيم عليه السلام في ثلاث ليال مضين من رمضان، ويروى في أول ليلة من رمضان، وأنزلت ‌توراة ‌موسى عليه السلام في ست ليال مضين من رمضان، وأنزل الإنجيل على عيسى عليه السلام في ثلاث عشرة ليلة مضت من رمضان، وأنزل ‌زبور ‌داود في ثمان عشرة مضت من رمضان وأنزل الفرقان على محمد صلى الله عليه وسلم في الرابعة والعشرين من شهر رمضان لست بقين بعدها.” (سورة البقرة الآية 185،ج : 1 ص : 198 ط : دارطيبة)

وفي التفسير للرازي: “روي عن أبي ذر أنه سأل رسول الله صلى الله عليه وسلم ‌كم ‌أنزل ‌الله من كتاب؟ فقال: مائة وأربعة كتب، على آدم عشر صحف وعلى شيث خمسين صحيفة وعلى إدريس ثلاثين صحيفة وعلى إبراهيم عشر صحائف والتوراة والإنجيل والزبور والفرقان .”
(سورة الأعلي ،الآية ،19 ج : 31 ص : 137 ط : دارإحياء التراث العربي)

 

روى ابن حبان من حديث إبراهيم بن هشام بن يحيى بن يحيى الغساني، قال: حدَّثنا أبي، عن جدّي، عن أبي إدريس الخولاني، عَنْ أبِي ذَرٍّ قَالَ:
” دخَلْتُ الْمَسْجِدَ فَإذَا رَسُولُ الله- صلى الله عليه وسلم- جَالِسٌ وَحْدَهُ… قلْتُ: يَا رَسُولَ الله!  كَمْ كِتَاباً أنْزَلَهُ الله؟ قَالَ: مِئَةُ كِتَابٍ، وَأَرْبَعَةُ كُتُبٍ: أُنْزِلَ عَلَى شِيثَ خَمْسُونَ صَحِيفَةً، وَأُنْزِلَ عَلَى أخْنُوخَ ثَلاثُونَ صَحِيفَةً، وَأُنْزِلَ عَلَى إِبْرَاهِيمَ عَشْرُ صَحَائِفَ، وَأُنْزِلَ عَلَى مُوسَى قَبْلَ التَّوْرَاةِ عَشْرُ صَحَائِفَ، وَأُنْزِلَ التَّوْرَاةُ وَالإنْجِيلُ وَالزَّبُورُ وَالْفُرْقَانُ…  رواه ابن حبان في صحيحه “الإحسان في تقريب صحيح ابن حبان” (2 / 76 – 77).

 

ولا شك أن أباحاتم من خاصة أهل العلم المتمكنين في معرفة الرجال وأسباب التجريح والتعديل، وقد اختبر الرجل ، وعلم أنه ليس بثقة في الحديث.
ولهذا السبب نص عدد من المحققين على ضعف هذا الحديث؛ بل رأوا أن هذا الحديث نفسه من قرائن ضعف هذا الراوي.
قال ابن كثير رحمه الله تعالى:” ولا شك أنه قد تكلم فيه غير واحد من أئمة الجرح والتعديل من أجل هذا الحديث ” .
انتهى من”تفسير ابن كثير” (2 / 470).

ورواه الطبري في “التاريخ” (1 / 152 – 153): من حديث الماضي بن محمد، عن أبي سليمان – رجّح عدد من المحققين أن الراوي هو علي بن سليمان -، عن القاسم بن محمد، عن أبي إدريس الخولاني، عن أبي ذر الغفاري، قال:
” قُلْتُ: يَا رَسُولَ اللَّهِ، كَمْ كِتَابا أَنْزَلَهُ اللَّهُ عَزَّ وَجَلَّ؟قَالَ: مِائَةُ كتاب وأربعه كتب، أنزل الله على شيث خَمْسِينَ صَحِيفَةً .والماضي بن محمد، ضعفه أهل العلم

والله أعلم بالصواب

উত্তর লিখনে

মুহা. শাহাদাত হুসাইন , ছাগলনাইয়া, ফেনী।

সাবেক শিক্ষার্থী ইফতা বিভাগ
তা’লীমুল ইসলাম ইনস্টিটিউট এন্ড রিসার্চ সেন্টার ঢাকা।

সত্যায়নে

.মুফতী লুৎফুর রহমান ফরায়েজী দা.বা

পরিচালকতা’লীমুল ইসলাম ইনস্টিটিউট এন্ড রিসার্চ সেন্টার ঢাকা

উস্তাজুল ইফতা– জামিয়া কাসিমুল উলুম আমীনবাজার ঢাকা।

প্রধান মুফতীজামিয়াতুস সুন্নাহ লালবাগ, ঢাকা।

উস্তাজুল ইফতা জামিয়া ইসলামিয়া দারুল হক লালবাগ ঢাকা।

পরিচালক: শুকুন্দী ঝালখালী তা’লীমুস সুন্নাহ দারুল উলুম মাদরাসা, মনোহরদী নরসিংদী।

আরও জানুন

বিয়ের অনুমতি প্রদানকারীর উপস্থিতিতে উকীল একজন সাক্ষীর সামনে বিয়ে করালে বিবাহ হবে?

প্রশ্ন আসসালামুআলাইকুম। আমার স্বামী আমাকে অজ্ঞাতাবসত তিন তালাক দেন। আমি দ্বীনের পথে আসার পর জানতে …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আহলে হক্ব বাংলা মিডিয়া সার্ভিস