প্রচ্ছদ / অজু/গোসল/পবিত্রতা/হায়েজ/নেফাস / হায়েজ নেফাসের সময় যৌন চাহিদা মিটাতে স্ত্রীর সাথে কেমন আচরণ করা যাবে?

হায়েজ নেফাসের সময় যৌন চাহিদা মিটাতে স্ত্রীর সাথে কেমন আচরণ করা যাবে?

প্রশ্ন

From: Ali
বিষয়ঃ নিফাস বা স্ত্রীর অসুস্থতা কালে স্বামীর জন্য যৌন চাহিদা পুরনে স্ত্রীর কি করণীয়?

প্রশ্নঃ
এসব ক্ষেত্রে স্ত্রী স্বামীর বীর্য পাতে সাহায্য করতে পারে কি না?

উত্তর

بسم الله الرحمن الرحيم

সঙ্গম ব্যতীত বীর্যপাত করা জায়েজ নয়। তবে যদি যিনা বা হারাম কাজে লিপ্ত হবার সম্ভাবনা থাকে, তাহলে সুযোগ রয়েছে।

এক্ষেত্রে স্বামী স্ত্রীর সাথে লজ্জাস্থান ছাড়া বাকি শরীর দ্বারা উপকার অর্জন করতে পারে। তবে সহবাস করা হারাম।


ولا يحل هذا الفعل خارج رمضان ان قصد قضاء (خلاصة الفتاوى-1/26

فى كنز العمال فى سنن الأقوال والأفعال– ألا لعنة الله والملائكة والناس أجمعين على من انتقص شيئا من حقي، ………. وعلى ناكح يده، (كنز العمال فى سنن الأقوال والأفعال– تابع كتاب المواعظ والحكم، باب الترهيب الأحادي من الإكمال، فصل– الترهيب العشاري فصاعدا من الإكمال، رقم الحديث-44057)

وأما ما رواه عبد الرزاق في “المصنف” (7/ 391/ 13590) ، وابن أبي شيبة (4/ 379) عن أبي يحيى

وفى رد المحتار– وكذا الاستمناء بالكف وإن كره تحريما لحديث { ناكح اليد ملعون } ولو خاف الزنى يرجى أن لا وبال عليه (رد المحتار-كتاب الصوم،باب ما يفسد الصوم وما لا يفسده، مطلب فى حكم الإستمناء بالكف-3/371


فَيَجُوزُ الِاسْتِمْتَاعُ بِالسُّرَّةِ وَمَا فَوْقَهَا وَالرُّكْبَةِ وَمَا تَحْتَهَا وَلَوْ بِلَا حَائِلٍ، وَكَذَا بِمَا بَيْنَهُمَا بِحَائِلٍ بِغَيْرِ الْوَطْءِ وَلَوْ تَلَطَّخَ دَمًا، (رد المحتار، كتاب الطهارة، باب الحيض-1/486، البحر الرائق، باب الحيض-1/198، الهندية، الفصل الرابع فى احكام الحيض-1/39)

اعلم ان مباشرة الحائض على ثلاثة انواع احدها المباشرة فى الفرج بالوطئ وهو حرام بالنص والاجماع، والثانى المباشرة بما فوق السرة ودون الركبة باليد او الذكر وغيره وهو مباح بالاجماع، والثالث الاستمتاع بما بينهما خلا الفرج والدبر فمختلف فيما بين الائمة، وقال ابو حنيفة ومالك والشافعى رحمهم الله واكثر العلماء لا يجوز، (اوجز المسالك، باب ما يحل للرجل من امرأته وهى حائض-1/326، رد المحتار-1/486، الهندية-1/39


وَيَسْأَلُونَكَ عَنِ الْمَحِيضِ ۖ قُلْ هُوَ أَذًى فَاعْتَزِلُوا النِّسَاءَ فِي الْمَحِيضِ ۖ وَلَا تَقْرَبُوهُنَّ حَتَّىٰ يَطْهُرْنَ ۖ فَإِذَا تَطَهَّرْنَ فَأْتُوهُنَّ مِنْ حَيْثُ أَمَرَكُمُ اللَّهُ ۚ إِنَّ اللَّهَ يُحِبُّ التَّوَّابِينَ وَيُحِبُّ الْمُتَطَهِّرِينَ [٢:٢٢٢

আর তোমার কাছে জিজ্ঞেস করে হায়েয (ঋতু) সম্পর্কে। বলে দাও,এটা অশুচি। কাজেই তোমরা হায়েয অবস্থায় স্ত্রীগমন থেকে বিরত থাক। তখন পর্যন্ত তাদের নিকটবর্তী হবে না,যতক্ষণ না তারা পবিত্র হয়ে যায়। যখন উত্তম রূপে পরিশুদ্ধ হয়ে যাবে,তখন গমন কর তাদের কাছে, যেভাবে আল্লাহ তোমাদেরকে হুকুম দিয়েছেন। নিশ্চয়ই আল্লাহ তওবাকারী এবং অপবিত্রতা থেকে যারা বেঁচে থাকে তাদেরকে পছন্দ করেন। [সূরা বাকারা-২২২]

عَنْ أَبِي هُرَيْرَةَ، عَنِ النَّبِيِّ صَلَّى اللَّهُ عَلَيْهِ وَسَلَّمَ قَالَمَنْ أَتَى حَائِضًا، أَوِ امْرَأَةً فِي دُبُرِهَا، أَوْ كَاهِنًا، فَقَدْ كَفَرَ بِمَا أُنْزِلَ عَلَى مُحَمَّدٍ.

 হযরত আবূ হুরায়রা রাঃ থেকে বর্ণিত। রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম ইরশাদ করেছেন, ‘যে ব্যক্তি কোন ঋতুবতীর সাথে মিলিত হয় কিংবা কোন মহিলার পশ্চাৎদ্বারে সঙ্গম করে অথবা কোন গণকের নিকটে যায়, নিশ্চয়ই সে মুহাম্মাদের উপর যা অবতীর্ণ হয়েছে তা অস্বীকার করে’। [তিরমিযী, হাদীস নং-১৩৫, সুনানে ইবনে মাজাহ, হাদীস নং-৬৩৯, মুসনাদে আহমাদ, হাদীস নং-৯২৯০]

والله اعلم بالصواب
উত্তর লিখনে
লুৎফুর রহমান ফরায়েজী

পরিচালক ও প্রধান মুফতী – মা’হাদুত তালীম ওয়াল  বুহুসিল ইসলামী ঢাকা।

উস্তাজুল ইফতা– জামিয়া কাসিমুল উলুম আমীনবাজার ঢাকা।

উস্তাজুল ইফতা– জামিয়া ফারূকিয়া দক্ষিণ বনশ্রী ঢাকা।

আরও জানুন

মহিলাদের জন্য পায়ে মেহেদী লাগানোর সুযোগ আছে?

প্রশ্ন: মুহতারাম, মহিলাদের জন্য পায়ে মেহেদী লাগানো জায়েজ হবে কিনা? নিবেদক তাবাসসুম উত্তর بسم الله …