প্রচ্ছদ / নামায/সালাত/ইমামত / ভুলক্রমে নাপাক অবস্থায় ইমামতী করলে মুসল্লিদের নামায শুদ্ধ হবে কি?

ভুলক্রমে নাপাক অবস্থায় ইমামতী করলে মুসল্লিদের নামায শুদ্ধ হবে কি?

প্রশ্ন

আমার নাম মুহাঃআব্দুল্লাহ মাহফুজ
ঠিকানাঃ সিলেট,শাহপরান,আ/এ

কেউ যদি জুনুবী হয়,কিন্তু সে এ সম্পর্কে অবগত নয়,অর্থাৎ তার এহতেলাম হয়েছে যে,সে এর ধারনা ও করতে পারেনি এবং অনুভব ও করতে পারেনি,এমতাবস্তায় সে দু থেকে তিন ওয়াক্ত নামাজ সে পড়ে ফেলেছে। এমনকি সে তারাবির নামাজের ও ইমামতি ও করেছে। না জানা অবস্থায়। ঘটনাক্রমে সে রাত্রে বুঝতে পারে যে সে জুনুবী।
এখন তার এবং মুসল্লিদের নামাজ হবে কি?

উত্তর

بسم الله الرحمن الرحيم

পবিত্রতা ছাড়া নামায শুদ্ধ হয় না। তাই, ইমাম মুসল্লি কারো নামায হয়নি। নাপাক অবস্থায় পড়া নামাযগুলো পুনরায় পবিত্রতার সাথে আদায় করতে হবে। মুসল্লিদেরও কাযা করে নিতে হবে। ইমামের নামায না হলে, মুসল্লিদের নামাযও শুদ্ধ হয় না।

তবে এক্ষেত্রে শুধুমাত্র ফরজ নামাযগুলোর কাযা করতে হবে। সুন্নত নামাযের কাযা নেই। সেই হিসেবে তারাবী নামাযের কাযা আদায় করতে হবে না।

يَا أَيُّهَا الَّذِينَ آمَنُوا إِذَا قُمْتُمْ إِلَى الصَّلَاةِ فَاغْسِلُوا وُجُوهَكُمْ وَأَيْدِيَكُمْ إِلَى الْمَرَافِقِ وَامْسَحُوا بِرُءُوسِكُمْ وَأَرْجُلَكُمْ إِلَى الْكَعْبَيْنِ وَإِنْ كُنْتُمْ جُنُبًا فَاطَّهَّرُوا وَإِنْ كُنْتُمْ مَرْضَى أَوْ عَلَى سَفَرٍ أَوْ جَاءَ أَحَدٌ مِنْكُمْ مِنَ الْغَائِطِ أَوْ لَامَسْتُمُ النِّسَاءَ فَلَمْ تَجِدُوا مَاءً فَتَيَمَّمُوا صَعِيدًا طَيِّبًا فَامْسَحُوا بِوُجُوهِكُمْ وَأَيْدِيكُمْ مِنْهُ مَا يُرِيدُ اللَّهُ لِيَجْعَلَ عَلَيْكُمْ مِنْ حَرَجٍ وَلَكِنْ يُرِيدُ لِيُطَهِّرَكُمْ وَلِيُتِمَّ نِعْمَتَهُ عَلَيْكُمْ لَعَلَّكُمْ تَشْكُرُونَ (6

হে মুমিনগণ, যখন তোমরা নামাযের জন্যে উঠ, তখন স্বীয় মুখমন্ডল ও হস্তসমূহ কনুই পর্যন্ত ধৌত কর এবং পদযুগল গিটসহ। যদি তোমরা অপবিত্র হও তবে সারা দেহ পবিত্র করে নাও এবং যদি তোমরা রুগ্ন হও, অথবা প্রবাসে থাক অথবা তোমাদের কেউ প্রসাব-পায়খানা সেরে আসে অথবা তোমরা স্ত্রীদের সাথে সহবাস কর, অতঃপর পানি না পাও, তবে তোমরা পবিত্র মাটি দ্বারা তায়াম্মুম করে নাও-অর্থাৎ, স্বীয় মুখ-মন্ডল ও হস্তদ্বয় মাটি দ্বারা মুছে ফেল। আল্লাহ তোমাদেরকে অসুবিধায় ফেলতে চান না; কিন্তু তোমাদেরকে পবিত্র রাখতে চান এবং তোমাদের প্রতি স্বীয় নেয়ামত পূর্ণ করতে চান-যাতে তোমরা কৃতজ্ঞাতা প্রকাশ কর।{৫: ৬, সূরা মায়িদা-৬}

عَنِ ابْنِ عُمَرَ، قَالَ: قَالَ رَسُولُ اللَّهِ صَلَّى اللهُ عَلَيْهِ وَسَلَّمَ: «لَا يَقْبَلُ اللَّهُ صَلَاةً إِلَّا بِطُهُورٍ،

হযরত আব্দুল্লাহ বিন ওমর রাঃ থেকে বর্ণিত। রাসূল সাঃ ইরশাদ করেছেনঃ পবিত্রতা ছাড়া নামায গ্রহণযোগ্য হয় না। {সুনানে ইবনে মাজাহ, হাদীস নং-২৭২, সুনানে ইবনে মাজাহ, হাদীস নং- ১, সহীহ ইবনে খুজাইমা, হাদীস নং-৯, সহীহ ইবনে হিব্বান, হাদীস নং-৩৩৬৬}

عَنْ أَنَسِ بْنِ مَالِكٍ قَالَ قَالَ رَسُولُ اللَّهِ -صلى الله عليه وسلم- « إِذَا رَقَدَ أَحَدُكُمْ عَنِ الصَّلاَةِ أَوْ غَفَلَ عَنْهَا فَلْيُصَلِّهَا إِذَا ذَكَرَهَا فَإِنَّ اللَّهَ يَقُولُ أَقِمِ الصَّلاَةَ لِذِكْرِى

অনুবাদ-যখন তোমাদের কেউ নামায ছেড়ে ঘুমিয়ে পড়ে, বা নামায থেকে গাফেল হয়ে যায়, তাহলে তার যখন বোধোদয় হবে তখন সে যেন তা আদায় করে নেয়। কেননা আল্লাহ তাআলা ইরশাদ করেছেন-আমাকে স্মরণ হলে নামায আদায় কর।

সহীহ মুসলিম, হাদীস নং-১৬০১

মুসনাদে আহমাদ, হাদীস নং-১২৯৩২

সুনানে বায়হাকী কুবরা, হাদীস নং-৪১৮২

عن جابر بن عبد الله  : أن عمر بن الخطاب جاء يوم الخندق بعدما غربت الشمس فجعل يسب كفار قريش قال يا رسول الله ما كدت أصلي العصر حتى كادت الشمس تغرب قال النبي صلى الله عليه و سلم ( والله ما صليتها ) . فقمنا إلى بطحان فتوضأ للصلاة وتوضأنا لها فصلى العصر بعدما غربت الشمس ثم صلى بعدها المغرب

 [ 573 ، 615 ، 903 ، 3886 ]

হযরত জাবের বিন আব্দুল্লাহ রা. থেকে বর্ণিত-ওমর বিন খাত্তাব রা. খন্দকের দিন সূর্য ডুবার পর কুরাইশ কাফেরদের তিরস্কার করতে করতে এলেন। নবীজী সাঃ কে বললেন-“হে আল্লাহর নবী! আমি আসরের নামায পড়তে পারিনি এরই মাঝে সূর্য ডুবে গেছে”। নবীজী সাঃ বললেন-“হায় আল্লাহ! আমরাওতো পড়তে পারিনি! তারপর আমরা সমতল ভূমিতে দাঁড়ালাম। আর তিনি নামাযের জন্য অযু করলেন। আর আমরাও নামাযের জন্য অযু করলাম। তারপর সূর্য ডুবে গেলেও প্রথমে আমরা আসর পড়লাম। তারপর মাগরিব পড়লাম।(বুখারী শরীফ-হাদিস নং-৫৭১,৫৭৩,৬১৫,৯০৩,৩৮৮৬,)

عن أنس بن مالك قال : سئل رسول الله صلى الله عليه و سلم عن الرجل يرقد عن الصلاة أو يغفل عنها قال : كفارتها يصليها إذا ذكرها

হযরত আনাস বিন মালিক রাঃ থেকে বর্ণিত। রাসূল সাঃ কে নামায রেখে ঘুমিয়ে যাওয়া ব্যক্তি ও নামায সম্পর্কে গাফেল ব্যক্তি সম্পর্কে জিজ্ঞাসা করা হলে তিনি বলেন-এর কাফফারা হল যখনই নামাযের কথা স্মরণ হবে তখনই তা আদায় করে নিবে।

সহীহ ইবনে খুজাইমা, হাদীস নং-৯৯১

মুসনাদে আবী আওয়ানা, হাদীস নং-১০৪১

মুসনাদে আবী ইয়ালা, হাদীস নং-৩০৬৫

মুসনাদে আহমাদ, হাদীস নং-১৩২৬২

সুনানে নাসায়ী কুবরা, হাদীস নং-১৫৮৫

أَنَّ عَبْدَ اللَّهِ بْنَ عُمَرَ كَانَ يَقُولُمَنْ نَسِيَ صَلَاةً فَلَمْ يَذْكُرْهَا إِلَّا وَهُوَ مَعَ الْإِمَامِ فَإِذَا سَلَّمَ الْإِمَامُ فَلْيُصَلِّ الصَّلَاةَ الَّتِي نَسِيَ ثُمَّ لِيُصَلِّ بَعْدَهَا الْأُخْرَى

অনুবাদ-হযরত আব্দুল্লাহ বিন ওমর রাঃ বলতেন-যে ব্যক্তি নামাযের কথা ভুলে যায় তারপর তা স্মরণ হয় ইমামের সাথে জামাতে নামাযরত অব্স্থায়, তাহলে ইমাম সালাম ফিরানোর পর যে নামায ভুলে পড়েনি, তা আদায় করবে, তারপর অন্য নামায পড়বে।

মু্য়াত্তা মালিক, হাদীস নং-৫৮৪

সুনানে বায়হাকী কুবরা, হাদীস নং-৩০১২

والله اعلم بالصواب
উত্তর লিখনে
লুৎফুর রহমান ফরায়েজী

পরিচালক ও প্রধান মুফতী – মা’হাদুত তালীম ওয়াল  বুহুসিল ইসলামী ঢাকা।

উস্তাজুল ইফতা– জামিয়া কাসিমুল উলুম আমীনবাজার ঢাকা।

উস্তাজুল ইফতা– জামিয়া ফারূকিয়া দক্ষিণ বনশ্রী ঢাকা।

আরও জানুন

ব্যান্ডেজের উপর মাসাহকারীর পিছনে অযুকারীর নামায হবে কি?

প্রশ্ন: মুহতারাম মুফতি সাহেব, একবার আমাদের ইমাম সাহেব বাইক চালাতে গিয়ে হাতে ব্যাথা পান। যার …