প্রচ্ছদ / তালাক/ডিভোর্স/হুরমত / তালাকের নিয়ত ছাড়া ‘তোরে আমি ছেড়ে দিয়েছি’ বলার দ্বারা কি তালাক হয়?

তালাকের নিয়ত ছাড়া ‘তোরে আমি ছেড়ে দিয়েছি’ বলার দ্বারা কি তালাক হয়?

প্রশ্ন

আসসালামু আলাইকুম।

হযরত! কোন স্বামী যদি স্ত্রীকে বলে কথা কাটাকাটির সময় ‘তোরে আমি ছেড়ে দিয়েছি’। স্ত্রী বলেছে: কী বললেন? তারপর স্বামী বলেছে “ তোমাকে আমি আল্লাহর ওয়াস্তে ছেড়ে দিয়েছি, তুমি যা খুশি তা কর, তোমাকে স্বাধীনতা দিয়েছি”।

এখানে কোন তালাকের তালাকের নিয়ত ছিল না। একজন বলছে ‘তালাক হয়ে গেছে’ নিয়ত করতে হবে না। আরেকজন বলেছে ‘নিয়ত ছাড়া তালাক হবে না’।

হযরত এটা নিয়ে খুব টেনশনে আছি যদি মশলাটা একটু বলতেন।

উত্তর

وعليكم السلام ورحمة الله وبركاته

بسم الله الرحمن الرحيم

‘ছেড়ে দিয়েছি’ শব্দটি বাংলাদেশে স্ত্রীর ক্ষেত্রে তালাকের জন্য ‘ছরীহ’ তথা স্পষ্ট শব্দ। এ শব্দে তালাক দেয়া আর তালাক শব্দে তালাক দেয়া একই কথা।

আর ছরীহ তালাকের ক্ষেত্রে নিয়ত থাকা বা না থাকার কোন ধর্তব্যতা নেই। সর্বাবস্থায়ই তা স্ত্রীকে উদ্দেশ্য করে বললে তালাক হিসেবে পরিগণিত হয়।

আর কথা কাটাকাটির সময় বলার দ্বারা একথা প্রমাণ করে যে, তালাক উদ্দেশ্যেই কথাটি বলা হয়েছে এটা অস্বিকার করার কোন সুযোগ নেই।

সুতরাং ‘তোরে আমি ছেড়ে দিয়েছি’ বলার দ্বারা এবং দ্বিতীয়বার স্ত্রীর জিজ্ঞাসার জবাবে আবার ‘আল্লাহর ওয়াস্তে ছেড়ে দিয়েছি’ বলার দ্বারা স্ত্রীর উপর দুই তালাকে রেজয়ী পতিত হয়ে গেছে।

তালাকের নিয়ত ছাড়া ‘তুমি যা খুশি তা কর, তোমাকে স্বাধীনতা দিয়েছি’ বলার দ্বারা কোন তালাক পতিত হয়নি।

সুতরাং স্ত্রীকে এখন মৌখিক বা শারীরিকভাবে স্ত্রীসূলভ আচরণ দ্বারা ফিরিয়ে আনতে পারবে।

তবে মনে রাখতে হবে, স্বামী আর এক তালাকের মালিক থাকবে। যদি ভবিষ্যতে আর এক তালাকও প্রদান করে থাকে, তাহলে উক্ত স্ত্রী তার উপর হারাম হয়ে যাবে।

আমাদের পরামর্শ

কিছু হলেই তালাক দেয়া, ছেড়ে দেবার কথা বলা এটা শোভনীয় নয়। কোন ভদ্র স্বামীর জন্য এমন আচরণ কোনভাবেই কাম্য নয়। তাই ভবিষ্যতে এহেন আচরণ করা থেকে নিজেকে বিরত রাখা জরুরী।

وقله سرحتك وهو “رها كردم” لأنه صار صريحا فى العرف…….. أن الصريح مالم يستعمل إلا فى الطلاق من أى لغة كانت الخ (رد المحتار، زكريا-4/530، كرتاشى-3/299)

“فإن سرحتك” كناية” لكنه فى عرف الناس غلب استعماله فى الصريح، فإذا قال “رها كردم” أ ى سرحتك يقع به الرجعى مع أن أصله كناية أيضا (رد المحتار، زكريا-4/530، كرتاشى-3/299)

إذا قال الرجل لامرأته: بهشتم ترا أززنى فاعلم بأن هذه اللفظة استعمالها أهل خراسان، وأهل العراق فى الطلاق، وأنها صريحة عند أبى يوسف حتى لو كان الواقع بها رجعيا ويقع بدون النية (الفتاوى الهندية-1/379، كرتاىشى1/447)

إذا قال الرجل لامرأته: بهشتم ترا أززنى فاعلم أن هذه اللفظة استعمالها أهل خراسان وأهل العراق فى الطلاق، وأنه صريحة عند أبى يوسف، كان الواقع بها رجعيا، ويقع بدون النية، وفى الخلاصة: وبه أخذ الفقيه أبو الليث وفى التفريد: وعليه والفتوى (الفتاوى التاتارخانية-4/463، رقم-6678)

عن أى هريرة أن رسول الله صلى الله عليه وسلم قال: ثلث جدهن جد، هزلهن جد، النكاح، والطلاق والرجعة (سنن الترمذى، النسخة الهندية-1/225، دار السلام، رقم-1184، سنن ابن ماجه، النسخة الهندية-147، دار السلام، رقم-2039)

عن سماك قال: سمعت عكرمة يقول: الطلاق مرتان: فإمساك يمعروف، أو تسريح باحسان، قال: إذا طلق الرجل امرأته واحدة، فإن شاء نكحها، وإذا طلقها ثنتين فإن شاء نكحها، فإذا طلقها ثلاثا فلا تحل له حتى تنكح زوجا غيره (المصنف لإبن ابىى شيبة-10/197، رقم-19564)

لو كرر لفظ الطلاق وقع الكل وإن نوى التأكيد دين (رد المحتار، زكريا-4/521، كرتاشى-3/293)

وقعتا رجعيتين لو مدخولا بها، كقوله أنت طالق أنت طالق (رد المحتار، زكريا-4/463، كرتاشى-3/252)

والرجعة أن يقول راجعتك، وأو راجعت أمرأتى….أو يطأها أو يقبلها، أو يلمسها بشهوة (الهداية-2/395)

والله اعلم بالصواب
উত্তর লিখনে
লুৎফুর রহমান ফরায়েজী

পরিচালক-তালীমুল ইসলাম ইনষ্টিটিউট এন্ড রিসার্চ সেন্টার ঢাকা।

উস্তাজুল ইফতা– জামিয়া কাসিমুল উলুম সালেহপুর, আমীনবাজার ঢাকা।

পরিচালক: শুকুন্দী ঝালখালী তা’লীমুস সুন্নাহ দারুল উলুম মাদরাসা, মনোহরদী নরসিংদী।

ইমেইল– ahlehaqmedia2014@gmail.com 

আরও জানুন

বিয়ের অনুমতি প্রদানকারীর উপস্থিতিতে উকীল একজন সাক্ষীর সামনে বিয়ে করালে বিবাহ হবে?

প্রশ্ন আসসালামুআলাইকুম। আমার স্বামী আমাকে অজ্ঞাতাবসত তিন তালাক দেন। আমি দ্বীনের পথে আসার পর জানতে …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আহলে হক্ব বাংলা মিডিয়া সার্ভিস