প্রচ্ছদ / ক্রয়-বিক্রয় / মুসলিমের কাছে হারাম বস্তু অমুসলিমদের কাছে বিক্রি করার হুকুম কী?

মুসলিমের কাছে হারাম বস্তু অমুসলিমদের কাছে বিক্রি করার হুকুম কী?

প্রশ্ন

মুফতী সাহেবের কাছে আমার জানার বিষয় হল, যে বস্তু খাওয়া মুসলমানদের কাছে হারাম। তা অমুসলিমদের কাছে বিক্রি করা জায়েজ কি না?

যেমন মদ মুসলমানদের কাছে খাওয়া হারাম। তা কি অমুসলিমদের কাছে বিক্রি করা জায়েজ হবে?

উত্তর

بسم الله الرحمن الرحيم

না। জায়েজ হবে না।


عَنْ أَنَسِ بْنِ مَالِكٍ، قَالَ لَعَنَ رَسُولُ اللَّهِ صلى الله عليه وسلم فِي الْخَمْرِ عَشَرَةً عَاصِرَهَا وَمُعْتَصِرَهَا وَشَارِبَهَا وَحَامِلَهَا وَالْمَحْمُولَةَ إِلَيْهِ وَسَاقِيَهَا وَبَائِعَهَا وَآكِلَ ثَمَنِهَا وَالْمُشْتَرِيَ لَهَا وَالْمُشْتَرَاةَ لَهُ

আনাস ইবনু মালিক (রাঃ) হতে বর্ণিত আছে, তিনি বলেন, শারাবের সাথে সম্পৃক্ত দশ শ্রেণীর লোককে রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম অভিসম্পাত করেছেন। এরা হলঃ মদ তৈরিকারী, মদের ফরমায়েশকারী, মদ পানকারী, মদ বহনকারী, যার জন্য মদ বহন করা হয়, মদ পরিবেশনকারী, মদ বিক্রয়কারী, এর মূল্য ভোগকারী, মদ ক্রেতা এবং যার জন্য মদ ক্রয় করা হয়। [সুনানে তিরমিজী,  হাদীস নং-১২৯৫]


عَنْ ‌عَبْدِ الرَّحْمَنِ بْنِ وَعْلَةَ السَّبَئِيِّ (مِنْ أَهْلِ مِصْرَ) « أَنَّهُ سَأَلَ ‌عَبْدَ اللهِ بْنَ عَبَّاسٍ عَمَّا يُعْصَرُ مِنَ الْعِنَبِ، فَقَالَ ابْنُ عَبَّاسٍ: إِنَّ رَجُلًا أَهْدَى لِرَسُولِ اللهِ صَلَّى اللهُ عَلَيْهِ وَسَلَّمَ رَاوِيَةَ خَمْرٍ، فَقَالَ لَهُ رَسُولُ اللهِ صَلَّى اللهُ عَلَيْهِ وَسَلَّمَ: هَلْ عَلِمْتَ أَنَّ اللهَ قَدْ حَرَّمَهَا؟ قَالَ: لَا. فَسَارَّ إِنْسَانًا، فَقَالَ لَهُ رَسُولُ اللهِ صَلَّى اللهُ عَلَيْهِ وَسَلَّمَ: بِمَ سَارَرْتَهُ؟ فَقَالَ: أَمَرْتُهُ بِبَيْعِهَا، فَقَالَ: إِنَّ الَّذِي ‌حَرَّمَ ‌شُرْبَهَا ‌حَرَّمَ ‌بَيْعَهَا. قَالَ: فَفَتَحَ الْمَزَادَةَ حَتَّى ذَهَبَ مَا فِيهَا (صحيح مسلم، رقم-1579)

ولا يجوز بيعها لحديث مسلم “الذى حرم شربها حرم بيعها” (رد المحتار، زكريا-10/29، كرتاشى-6/449)

وعندهما يكره له ذلك لوجود الإعانة على المعصية، وقد صح أن النبى صلى الله عليه وسلم لعن فى الخمر عشرا وعد منها حاملها والمحمول إليه (مجمع الأنهر، كتال الكراهية، فصل الكسب-4/188، قديم-2/530)

وكذا فى رد المحتار، كتاب الحظر والإباحة، باب الاستبراء وغيره-9/562، البحر الرائق-8/372

والله اعلم بالصواب
উত্তর লিখনে
লুৎফুর রহমান ফরায়েজী

পরিচালক-তালীমুল ইসলাম ইনষ্টিটিউট এন্ড রিসার্চ সেন্টার ঢাকা।

উস্তাজুল ইফতা– জামিয়া কাসিমুল উলুম সালেহপুর, আমীনবাজার ঢাকা।

পরিচালক: শুকুন্দী ঝালখালী তা’লীমুস সুন্নাহ দারুল উলুম মাদরাসা, মনোহরদী নরসিংদী।

ইমেইল– ahlehaqmedia2014@gmail.com

আরও জানুন

বেতন বৈধ হবার জন্য ক্লাস না থাকলেও কি কলেজ শিক্ষকদের প্রতিষ্ঠানে প্রতিদিন আসতে হবে?

প্রশ্ন আমি বিসিএস পরীক্ষার মাধ্যমে সরকারি কলেজের ইংরেজি প্রভাষক হিসেবে নিয়োগপ্রাপ্ত। আমি অন্যান্য বিসিএস ক্যাডারে …

One comment

  1. Shahadat Hossain sayed

    আলহামদুলিল্লাহ অনলাইনে দ্বীনি খেদমত যত জনে যত ধরনের করে যাচ্ছে তার মধ্যে সবচেয়ে বেশি ভালো লাগলো আমার কাছে এই আহলে হক মিডিয়া। এটাই সত্য, দোয়া করি আপনাদের খেদমত কে কবুল করুক ও আপনাদের এই খেদমত কে আরো সুদুর প্রসারিত করুক।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আহলে হক্ব বাংলা মিডিয়া সার্ভিস