প্রচ্ছদ / তালাক/ডিভোর্স/হুরমত / লিখিত তালাক দেবার পর মুখে স্ত্রীকে ‘তালাক দিচ্ছি নোটিশ পেয়ে যাবা’ বললে কি আলাদা তালাক পতিত হয়?

লিখিত তালাক দেবার পর মুখে স্ত্রীকে ‘তালাক দিচ্ছি নোটিশ পেয়ে যাবা’ বললে কি আলাদা তালাক পতিত হয়?

প্রশ্ন

জানুয়ারীতে বিয়ে করেন। তারপর আনুমানিক ৪/৫ মাস পর ঝগড়া হলে ছেলে কাজীর কাছে যান। তারপর কাজী বলেন: তালাক একবারে হয় না, তিনবারে দিতে হবে। তাই ছেলে কাগজে তালাকে বায়েন দিয়ে বিবাহ বিচ্ছেদ করে নোটিশ পাঠায়।

লিখিত তালাক দেবার একদিন পর নোটিশ স্ত্রীর কাছে যাবার আগে স্ত্রীকে ফোন করে বলেন যে, আমি তোমাকে এক তালাক দিচ্ছি। নোটিশ পেয়ে যাবা।

উল্লেখ্য যে, ফোনে একথা বলার সময় উদ্দেশ্য ছিল আগের দিনের তালাকের নোটিশ। নতুন তালাক দেয়া উদ্দেশ্য ছিল না।

তার কিছুদিন পর স্ত্রীর সাথে মেলামেশা শুরু করে।

প্রথম মোবাইল ফোনের তালাকের একমাস পর আবার ভয়েস মেসেজে উক্ত ব্যক্তি বলেন যে, আমি তোমাকে দ্বিতীয় তালাক দিচ্ছি এবং আগের নোটিশের মত অনুরূপ নোটিশ পাঠায়। অর্থাৎ প্রথম নোটিশের ফটোকপি পাঠায়।

এবারো কিছুদিন পর স্ত্রীর সাথে মেলামেশা করে।

এখন আমার জানার বিষয় হলো, উক্ত ব্যক্তি তার স্ত্রীর সাথে সংসার করতে চাচ্ছে। তাদের স্বামী স্ত্রীর  সম্পর্ক কী আদৌ ঠিক আছে? তাদের করণীয় সম্পর্কে শরয়ী সমাধান জানতে চাই।

উত্তর

بسم الله الرحمن الرحيم

যদি উপরোক্ত বিবরণ হুবহু সত্যি হয়, তাহলে হুকুম হলো: প্রথম ও দ্বিতীয়বার মিলিয়ে স্ত্রীর উপর দুই তালাকে বায়েন পতিত হয়েছে।

যেহেতু তালাক বায়েন ছিল, তাই স্বামী স্ত্রী নতুন বিবাহ করা ছাড়া শারিরীক সম্পর্ক করা শরয়ী দৃষ্টিকোণ থেকে জায়েজ ছিল না। তাই উভয়ের তওবা করা আবশ্যক।

এক্ষেত্রে স্বামী স্ত্রী আবার ঘর সংসার করতে হলে অবশ্যই দুইজন মুসলিম প্রাপ্ত বয়স্ক পুরুষ বা একজন পুরুষ ও দুইজন নারী সাক্ষীর সামনে নতুন মোহর ধার্য করে ইজাব কবুল করে বিবাহ করতে হবে।

ভবিষ্যতে স্বামী আর এক তালাকের মালিক থাকবে।

 

عن شعبة قال: سألت الحكم وحمادا عن رجل قال لامرأته: أنت طالق، أنت طالق، ونوى بالأولى، قال: هى واحدة (مصنف ابن أبى شيبة-9/544، رقم-18201)

وهو كانت طالق، ومطلقة، وطلقتك، تقع واحدة (الفتاوى الهندية، قديم-1/354، جديد-1/422)

إذا لحق الصريح البائن كان بائنا (رد المحتار، زكريا-4/540، كرتاشى-3/307)

وفى الفتاوى الهنديةإذا كان الطلاق بائنا دون الثلاث فله أن يتزوجها في العدة وبعد انقضائها وإن كان الطلاق ثلاثا في الحرة وثنتين في الأمة لم تحل له حتى تنكح زوجا غيره نكاحا صحيحا (الفتاوى الهندية-1/472-473

والله اعلم بالصواب
উত্তর লিখনে
লুৎফুর রহমান ফরায়েজী

পরিচালক-তালীমুল ইসলাম ইনষ্টিটিউট এন্ড রিসার্চ সেন্টার ঢাকা।

উস্তাজুল ইফতা– জামিয়া কাসিমুল উলুম সালেহপুর, আমীনবাজার ঢাকা।

ইমেইল– ahlehaqmedia2014@gmail.com

 

আরও জানুন

গাইরুল্লাহকে সেজদা করা ও ফাতিমা রাঃ এর মূর্তি বানিয়ে সেজদা দেয়ার হুকুম কী?

প্রশ্ন আস্সালামুআলাইকুম হযরত। কেমন আছেন? দ্বীনের বিভিন্ন সমস্যায় সর্বদাই আপনার পরিচালিত ওয়েবসাইট হতে সাহায্য নেই। …

Leave a Reply

Your email address will not be published.

আহলে হক্ব বাংলা মিডিয়া সার্ভিস