প্রচ্ছদ / ঈমান ও আমল / কুফরী ও যাদুটোনা থেকে মুক্তির আমল কী?

কুফরী ও যাদুটোনা থেকে মুক্তির আমল কী?

প্রশ্ন

From: Mohammad Zeshan Ahmed Nabin
বিষয়ঃ যাদু টোনা।

প্রশ্নঃ

আসসালামু আলাইকুম।

হুজুর। আপনাদের ওয়েব সাইট থেকে আমি বিভিন্ন সমস্যার সমাধান পেয়ে খুব উপকৃত হচ্ছি। বর্তমানে আমি খুবই বিপদে আছি।

আমার প্রশ্ন হলো, কেউ যদি জিন এনে বা বিভিন্ন শয়তানী কুফরী যাদু টোনা করে তা হতে নিজেকে এবং নিজের পরিবারকে ইসলামিক উপায়ে বাঁচানোর উপায় কী?

অতি শীঘ্রই উত্তর দিলে উপকৃত হই।

খুব দরকার।

উত্তর

وعليكم السلام ورحمة الله وبركاته

بسم الله الرحمن الرحيم

ফজর ও মাগরিবের নামাযের পর এবং ঘুমের পূর্বে ও ঘুম থেকে উঠে সূরা কাফিরূন, সূরা ইখলাস, সূরা ফালাক ও সূরা নাস পড়ে হাতের তালুতে ফু দিয়ে সারা শরীরে মুছে দিবেন। এভাবে তিনবার করবেন।

পরিবারের সবাইকে এ আমল শিক্ষা দিবেন।

সূরা হাশরের শেষ তিন আয়াত প্রতিদিন ফজরের নামাযের পর পড়ার অভ্যাস গড়ে তুলুন।

আয়াতুল কুরসী প্রতি নামাযের পর এবং বেশি বেশি পড়ার অভ্যাস গড়ে তুলুন।

এছাড়া হাকীমুল উম্মত আশরাফ আলী থানবী রহঃ এর লিখিত ‘আমালে কুরআনী’ বইটি সংগ্রহ করে এতে লিখিত আমলগুলো করতে পারেন। ইনশাআল্লাহ জিনের আছর ও দুশমনী থেকে মুক্ত হবেন।


عَنْ عَرْوَةَ بْنِ نَوْفَلٍ، عَنْ أَبِيهِ: أَنَّ رَسُولَ اللَّهِ صَلَّى اللهُ عَلَيْهِ وَسَلَّمَ قَالَ لَهُ: «مَا جَاءَ بِكَ؟  قَالَ: جِئْتُ يَا رَسُولَ اللَّهِ تُعَلِّمُنِي شَيْئًا أَقُولُهُ عِنْدَ مَنَامِي، قَالَ: «إِذَا أَخَذْتَ مَضْجَعَكَ فَأَقْرَأْ قُلْ يَا أَيُّهَا الْكَافِرُونَ، ثُمَّ نَمْ عَلَى خَاتِمَتِهَا فَإِنَّهَا بَرَاءَةٌ مِنَ الشِّرْكِ (مصنف ابن أبى شيبة، رقم-26528، سنن الكبرى للنسائى، رقم-10569)

عَنْ عَائِشَةَ، ” أَنَّ النَّبِيَّ صَلَّى اللهُ عَلَيْهِ وَسَلَّمَ كَانَ إِذَا أَتَى إِلَى فِرَاشِهِ فِي كُلِّ لَيْلَةٍ جَمَعَ كَفَّيْهِ، ثُمَّ نَفَثَ فِيهِمَا، وَقَرَأَ فِيهِمَا: قُلْ هُوَ اللهُ أَحَدٌ، وَقُلْ أَعُوذُ بِرَبِّ الْفَلَقِ، وَقُلْ أَعُوذُ بِرَبِّ النَّاسِ، ثُمَّ مَسْحَ بِهِمَا مَا اسْتَطَاعَ مِنْ جَسَدِهِ، يَبْدَأُ بِهِمَا عَلَى رَأْسِهِ وَوَجْهِهِ وَمَا (3) أَقْبَلَ مِنْ جَسَدِهِ، يَفْعَلُ ذَلِكَ ثَلَاثَ مَرَّاتٍ (مسند احمد، رقم-248353، صحيح البخارى، رقم-5017)

عن معقل ابن يسار عن النبي صلى اللهعليه وسلم قال : ” من قال حين يصبح ثلاث مرات : أعوذ بالله السميعالعليم من الشيطان الرجيم . وقرأ ثلاث آيات من آخر سورة الحشر وكلالله به سبعين ألف ملك يصلون عليه حتى مسى ، وإن مات في ذلك اليوم مات شهيدا ، ومن قالها حين يمسى كانبتلك المنزلة (سنن الترمذى، رقم-3090، سنن الدارمى، رقم-3425، مسند احمد، رقم-20306، شعب الإيمان، رقم-2502)

عُقْبَةَ بْنَ عَامِرٍ، يَقُولُ إِنَّ رَسُولَ اللهِ صَلَّى اللهُ عَلَيْهِ وَسَلَّمَ قَرَأَ بِالْمُعَوِّذَتَيْنِ فِي صَلَاةٍ» وَقَالَ لِي: اقْرَأْ بِهِمَا كُلَّمَا نِمْتَ، وَكُلَّمَا قُمْتَ   (سنن الكبرى للنسائى، رقم-7795)

عَنْ مُعَاذِ بْنِ عَبْدِ اللهِ، عَنْ أَبِيهِ، قَالَ: أَصَابَنَا طَشٌّ وَظُلْمَةٌ فَانْتَظَرْنَا رَسُولَ اللهِ صَلَّى اللهُ عَلَيْهِ وَسَلَّمَ لَيُصَلِّيَ لَنَا، ثُمَّ ذَكَرَ كَلَامًا مَعْنَاهُ، فَخَرَجَ فَقَالَ: «قُلْ» قُلْتُ: مَا أَقُولُ؟ قَال قُلْ هُوَ اللهُ أَحَدٌ [الإخلاص: 1] وَالْمُعَوِّذَتَيْنِ حِينَ تُمْسِي، وَتُصْبِحُ ثَلَاثًا يَكْفِيكَ كُلَّ شَيْءٍ (سنن الكبرى للنسائى، رقم-7811)

عَنْ عُقْبَةَ بْنِ عَامِرٍ الْجُهَنِيِّ، قَالَ: قَالَ لِي رَسُولُ اللهِ صَلَّى اللهُ عَلَيْهِ وَسَلَّمَ: «يا عُقْبَةُ قُلْ» قُلْتُ: مَا أَقُولُ؟ قَالَ قُلْ هُوَ اللهُ أَحَدٌ، ثُمَّ قَالَ: قُلْ أَعُوذُ بِرَبِّ الْفَلَقِ، قُلْ أَعُوذُ بِرَبِّ النَّاسِ فَقَرَأَهُنَّ رَسُولُ اللهِ صَلَّى اللهُ عَلَيْهِ وَسَلَّمَ ثُمَّ قَالَ: «لَمْ يَتَعَوَّذِ النَّاسُ بِمِثْلِهِنَّ أَوْ لَا يَتَعَوَّذُ النَّاسُ بِمِثْلِهِنَّ (سنن الكبرى للنسائى، رقم-7803)

عَنْ عَائِشَةَ رَضِيَ اللَّهُ عَنْهَا، أَنَّ النَّبِيَّ صَلَّى اللهُ عَلَيْهِ وَسَلَّمَ كَانَ إِذَا أَوَى إِلَى فِرَاشِهِ كُلَّ لَيْلَةٍ جَمَعَ كَفَّيْهِ، وَنَفَثَ فِيهِمَا قُلْ هُوَ اللَّهُ أَحَدٌ، وَقُلْ أَعُوذُ بِرَبِّ الْفَلَقِ، وَقُلْ أَعُوذُ بِرَبِّ النَّاسِ، ثُمَّ يَمْسَحُ بِهِمَا مَا اسْتَطَاعَ مِنْ جَسَدِهِ يَبْدَأُ بِهِمَا عَلَى رَأْسِهِ وَوَجْهِهِ، وَمَا أَقْبَلَ مِنْ جَسَدِهِ، يَفْعَلُ ذَلِكَ ثَلَاثَ مَرَّاتٍ (شرح السنة للبغوى، رقم-408)

والله اعلم بالصواب
উত্তর লিখনে
লুৎফুর রহমান ফরায়েজী

পরিচালক-তালীমুল ইসলাম ইনষ্টিটিউট এন্ড রিসার্চ সেন্টার ঢাকা।

উস্তাজুল ইফতা– জামিয়া কাসিমুল উলুম সালেহপুর, আমীনবাজার ঢাকা।

পরিচালক: শুকুন্দী ঝালখালী তা’লীমুস সুন্নাহ দারুল উলুম মাদরাসা, মনোহরদী, নরসিংদী।

ইমেইল– ahlehaqmedia2014@gmail.com

আরও জানুন

ইকামতের বাক্য দুইবার করে বলা সঠিক নয়?

প্রশ্ন From: মোঃ সোহাগ হোসেন বিষয়ঃ ইকামত প্রশ্নঃ আসসালামু আলাইকুম, আমাদের প্রায় প্রতি মসজিদেই ইকামত …

Leave a Reply

Your email address will not be published.

আহলে হক্ব বাংলা মিডিয়া সার্ভিস