প্রচ্ছদ / প্রশ্নোত্তর / স্বামীর অগোচরে তার পকেট থেকে স্ত্রীর জন্য খরচের টাকা নেয়া জায়েজ?

স্বামীর অগোচরে তার পকেট থেকে স্ত্রীর জন্য খরচের টাকা নেয়া জায়েজ?

প্রশ্ন

From: abdul aziz
বিষয়ঃ স্বামীর অগোচরে অথবা স্বামীর অনুপস্থিতিতে স্বামীর পকেট থেকে টাকা নেয়া, স্ত্রীর জন্য হারাম না হালাল?

প্রশ্নঃ
আসসালামু আলাইকুম,আমার কাছে জনৈক মহিলা আপনার কাছে নিন্মোক্ত মাসয়ালাটি জানার জন্য অনুরোধ করেছেন।

হযরত,স্বামীর অনুমতি ছাড়া বা স্বামীর অনুপস্থিতিতে স্বামীর পকেট বা অন্য জায়গা  থেকে স্বামীর টাকা /মাল/সম্পদ সংসারেরই প্রয়োজনে খরচ করা স্ত্রীর জন্য হালাল কিনা?
আল্লাহ তায়ালা আপনাকে দ্বীনের এই মুবারক খেদমত এর উত্তম বদলা দান করুক,আমীন।

উত্তর

وعليكم السلام ورحمة الله وبركاته

بسم الله الرحمن الرحيم

স্বামী যদি স্ত্রী ও সন্তানদের আবশ্যকীয় ভরণপোষণের টাকা প্রদান না করে বা খরচ না করে কৃপণতা করে থাকে। তাহলে স্বামীকে না জানিয়ে তার কাছ থেকে প্রয়োজনীয় টাকা গ্রহণ জায়েজ আছে।

তবে যদি স্বামী স্ত্রী ও সন্তানদের আবশ্যকীয় ভরণপোষণ করে থাকে, তাহলে স্বামীকে না জানিয়ে তার থেকে টাকা পয়সা বা অর্থ সম্পদ নেয়া কোনভাবেই জায়েজ নয়। বরং চুরি হিসেবে ধর্তব্য হবে।


عَنْ عَائِشَةَ، قَالَتْ: دَخَلَتْ هِنْدٌ بِنْتُ عُتْبَةَ امْرَأَةُ أَبِي سُفْيَانَ عَلَى رَسُولِ اللهِ صَلَّى اللهُ عَلَيْهِ وَسَلَّمَ، فَقَالَتْ: يَا رَسُولَ اللهِ، إِنَّ أَبَا سُفْيَانَ رَجُلٌ شَحِيحٌ، لَا يُعْطِينِي مِنَ النَّفَقَةِ مَا يَكْفِينِي وَيَكْفِي بَنِيَّ إِلَّا مَا أَخَذْتُ مِنْ مَالِهِ بِغَيْرِ عِلْمِهِ، فَهَلْ عَلَيَّ فِي ذَلِكَ مِنْ جُنَاحٍ؟ فَقَالَ رَسُولُ اللهِ صَلَّى اللهُ عَلَيْهِ وَسَلَّمَ: «خُذِي مِنْ مَالِهِ بِالْمَعْرُوفِ مَا يَكْفِيكِ وَيَكْفِي بَنِيكِ

আয়িশা (রাঃ) থেকে বর্ণিত যে, হিন্দা বিনত উতবা রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম এর নিকটে উপস্থিত হয়ে বললেন, ইয়া রাসুলাল্লাহ! আবূ সুফিয়ান একজন কৃপণ ব্যক্তি। তিনি আমার এবং আমার সন্তানদের জন্য প্রয়োজনীয় খরচাদি প্রদান করেন না। তবে আমি তার অজ্ঞাতেই তার সম্পদ থেকে প্রয়োজনীয় খরচাদি গ্রহণ করে থাকি। এতে কি আমার কোন দোষ (পাপ) হবে? তখন রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বললেনঃ তুমি তার সম্পদ থেকে তোমার ও তোমার সন্তানদের জন্য যথেষ্ট হয় এমন সঙ্গত পরিমাণ নিতে পার। [সহীহ মুসলিম, হাদীস নং-১৭১৪, ইফাবা-৪৩২৮]

عَنْ عَائِشَةَ رَضِيَ اللَّهُ عَنْهَا: قَالَتْ هِنْدٌ أُمُّ مُعَاوِيَةَ لِرَسُولِ اللَّهِ صَلَّى اللهُ عَلَيْهِ وَسَلَّمَ: إِنَّ أَبَا سُفْيَانَ رَجُلٌ شَحِيحٌ، فَهَلْ عَلَيَّ جُنَاحٌ أَنْ آخُذَ مِنْ مَالِهِ سِرًّا؟ قَالَ: «خُذِي أَنْتِ وَبَنُوكِ مَا يَكْفِيكِ بِالْمَعْرُوفِ

আয়িশা (রাঃ) থেকে বর্ণিত যে, মুআবিয়া (রাঃ) এর মা হিন্দা রাঃ রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম কে বললেন, আবূ সুফিয়ান (রাঃ) একজন কৃপন ব্যাক্তি। এমতাবস্থায় আমি যদি তার মাল থেকে গোপনে কিছু গ্রহণ করি, তাতে কি আমার গুনাহ হবে? তিনি বললেন, তুমি তোমার ও সন্তানদের প্রয়োজনানুসারে যথাযথভাবে গ্রহন করতে পার। [সহীহ বুখারী, হাদীস নং-২২১১,ইফাবা-২০৬৯]

أَنَّ عَائِشَةَ رَضِيَ اللَّهُ عَنْهَا، قَالَتْ: جَاءَتْ هِنْدٌ بِنْتُ عُتْبَةَ، فَقَالَتْ: يَا رَسُولَ اللَّهِ، إِنَّ أَبَا سُفْيَانَ رَجُلٌ مِسِّيكٌ، فَهَلْ عَلَيَّ حَرَجٌ أَنْ أُطْعِمَ مِنَ الَّذِي لَهُ عِيَالَنَا؟ قَالَ: «لاَ، إِلَّا بِالْمَعْرُوفِ

আয়শা রাঃ থেকে বর্ণিত। তিনি বলেন, হিন্দা বিনতে উতবা আসলেন। হিন্দা বললেন, ইয়া রাসুলাল্লাহ! আবূ সুফিয়ান একজন কৃপণ স্বভাবের লোক। এমতাবস্থায় আমি যদি আমাদের পরিবার পরিজনকে (যাদের খোর-পোষ তাতে দায়িত্বে তাদেরকে) তার সম্পদ থেকে খাবার প্রদান করি তবে কি এতে আমার কোন দোষ হবে? তিনি বললেন, (তা করবে) না, তবে যদি যথাবিধি হয়। [সহীহ বুখারী-২/৮০৭, বর্ণনা নং- ৫৩৫৯, সহীহ মুসলিম-২/৭৫, বর্ণনা নং-১৭১৪, ইফাবা-৪৩৩১]

لا يجوز لأحد أخذ مال بغير سبب شرعى (رد المحتار، زكريا-6/106، كرتاشى-4/61، الفتاوى الهندية، قديم-2/167، جديد-2/181، شرح المجلة رستم باز-1/62، رقم-97)

والله اعلم بالصواب
উত্তর লিখনে
লুৎফুর রহমান ফরায়েজী

পরিচালক-তালীমুল ইসলাম ইনষ্টিটিউট এন্ড রিসার্চ সেন্টার ঢাকা।

উস্তাজুল ইফতা– জামিয়া কাসিমুল উলুম সালেহপুর, আমীনবাজার ঢাকা।

পরিচালক: শুকুন্দী ঝালখালী তা’লীমুস সুন্নাহ দারুল উলুম মাদরাসা, মনোহরদী, নরসিংদী।

ইমেইল– ahlehaqmedia2014@gmail.com

আরও জানুন

ইকামতের বাক্য দুইবার করে বলা সঠিক নয়?

প্রশ্ন From: মোঃ সোহাগ হোসেন বিষয়ঃ ইকামত প্রশ্নঃ আসসালামু আলাইকুম, আমাদের প্রায় প্রতি মসজিদেই ইকামত …

Leave a Reply

Your email address will not be published.

আহলে হক্ব বাংলা মিডিয়া সার্ভিস