প্রচ্ছদ / তালাক/ডিভোর্স/হুরমত / কোর্টের মাধ্যমে তালাক দিয়ে আবার স্ত্রীকে ফিরিয়ে আনা যায়?

কোর্টের মাধ্যমে তালাক দিয়ে আবার স্ত্রীকে ফিরিয়ে আনা যায়?

প্রশ্ন

আসসালামু আলাইকুম ওয়া রহমাতুল্লাহ্।

আমি যে বিষয়টি জানতে চাচ্ছি তা হলো, আমার স্বামীর সাথে আমার সামান্য কথা কাটাকাটি হয়, সে আমাকে বাড়ি থেকে চলে যেতে বলে, আমি বাবার বাড়ি যাই, ভাবলাম আমার স্বামীর রাগ কমে গেলে ফিরে আসবো।

কিন্তু আমার স্বামী আমাকে কোর্টের মাধ্যমে তালাক দেয়।

তিনমাস পরে সে নিতে চাইলে আমি আসিনি, রাগ আর কষ্ট থেকে। কারন সামান্য কারনে সে কেন তালাক দিবে?

তারপর ৬মাস বা সাত মাস গেলে ছোট বাচ্চার জন্য পারিবারিক চাপে আমি ফিরে আসি।

সে আমাকে নতুন ভাবে রেজিষ্ট্রি করে বিয়ে করে পুনরায়।

আমার প্রশ্ন হলো আমাদের স্বামী স্ত্রির সম্পর্ক কি বৈধ বা যায়েজ?

আমার সব সময় মনে হয় এই সম্পর্কটা হারাম যার কারনে সংসারে ঠিক মতো মন বসাতে পারিনা।

এক্ষেত্রে আমার কি করণীয়?

ডিভোর্সের পর ২ বছের আমি তার সাথে আছি। আমার বাচ্চার জন্য তাকে ছাড়াও সম্ভব না, এমতাবস্থায় কি করণীয়?  যদি ইসলামের আলোকে বলতেন আমি উপকৃত হতে পারতাম।

আসসালামু আলাইকুম ওয়া রহমাতুল্লহ্।

উত্তর

وعليكم السلام ورحمة الله وبركاته

بسم الله الرحمن الرحيم

যদি আপনার স্বামী আপনাকে তিন তালাক প্রদান করে থাকে, তাহলে  আপনি আপনার স্বামীর জন্য হারাম হয়ে গেছেন। পুনরায় বিয়ে করার দ্বারাও আপনাদের বৈবাহিক জীবন শরয়ী বৈধতায় ফিরেনি।

সুতরাং তার সাথে ঘর সংসার করা সম্পূর্ণরূপে হারাম। জিনার গোনাহ হচ্ছে তার সাথে থাকায়।

আর যদি এক বা দুই তালাক দিয়ে থাকে, তাহলে আবার বিয়ে করার দ্বারা আপনারা স্বামী স্ত্রী হিসেবে বাকি আছেন।

বাকি যদি এক তালাক দিয়ে থাকে, তাহলে এখন আপনার স্বামী আর দুই তালাকের মালিক আছেন। আর যদি দুই তালাক দিয়ে থাকেন, তাহলে আপনার স্বামী আর এক তালাকের মালিক আছেন।

এখন আপনার স্বামী কয় তালাক দিয়েছেন এটার উপর নির্ভরশীল আপনার বৈবাহিক সম্পর্ক জায়েজ আছে নাকি নাজায়েজ হয়ে গেছে?

যদি আপনার স্বামী আপনাকে তিন তালাক দিয়ে থাকে। সাধারণত কোর্টের মাধ্যমে তালাকে তিন তালাকই দেয়া হয়ে থাকে, এক্ষেত্রে আপনার জন্য উক্ত স্বামীর সাথে ঘরসংসার করা কিছুতেই জায়েজ হচ্ছে না। তাই তার থেকে পৃথক হওয়া আবশ্যক।

এক্ষেত্রে আপনার যদি অন্য কোথাও বিয়ে হয়, তারপর আপনার দ্বিতীয় স্বামীর সাথে সহবাসসহ ঘরসংসার করতে থাকেন। তারপর কোন কারণে আপনার দ্বিতীয় স্বামী মারা যায়, বা তালাক দেয়, তাহলে ইদ্দত শেষে আপনি আবার প্রথম স্বামীকে বিয়ে করতে পারবেন।

এছাড়া আর কোন গত্যান্তর নেই।

فَإِن طَلَّقَهَا فَلَا تَحِلُّ لَهُ مِن بَعْدُ حَتَّىٰ تَنكِحَ زَوْجًا غَيْرَهُ ۗ فَإِن طَلَّقَهَا فَلَا جُنَاحَ عَلَيْهِمَا أَن يَتَرَاجَعَا إِن ظَنَّا أَن يُقِيمَا حُدُودَ اللَّهِ ۗ وَتِلْكَ حُدُودُ اللَّهِ يُبَيِّنُهَا لِقَوْمٍ يَعْلَمُونَ [٢:٢٣٠]

তারপর যদি সে স্ত্রীকে (তৃতীয়বার) তালাক দেয়,তবে সে স্ত্রী যে পর্যন্ত তাকে ছাড়া অপর কোন স্বামীর সাথে বিয়ে করে না নেবে,তার জন্য হালাল নয়। অতঃপর যদি দ্বিতীয় স্বামী তালাক দিয়ে দেয়,তাহলে তাদের উভয়ের জন্যই পরস্পরকে পুনরায় বিয়ে করাতে কোন পাপ নেই। যদি আল্লাহর হুকুম বজায় রাখার ইচ্ছা থাকে। আর এই হলো আল্লাহ কর্তৃক নির্ধারিত সীমা; যারা উপলব্ধি করে তাদের জন্য এসব বর্ণনা করা হয়। {সূরা বাকারা-২৩০}


وقال الليث عن نافع كان ابن عمر إذا سئل عمن طلق ثلاثا قال لو طلقت مرة أو مرتين فأن النبي صلى الله عليه و سلم أمرني بهذا فإن طلقتها ثلاثا حرمت حتى تنكح زوجا غيرك

হযরত নাফে রহ. বলেন,যখন হযরত ইবনে উমর রাঃ এর কাছে ‘এক সাথে তিন তালাক দিলে ‎তিন তালাক পতিত হওয়া না হওয়া’ (রুজু‘করা যাবে কিনা) বিষয়ে জিজ্ঞাসা করা হলো,‎তখন তিনি বলেন-“যদি তুমি এক বা দুই তালাক দিয়ে থাকো তাহলে ‘রুজু’ [তথা স্ত্রীকে বিবাহ করা ছাড়াই ফিরিয়ে আনা] করতে পার। ‎কারণ,রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম আমাকে এরকম অবস্থায় ‘রুজু’ করার আদেশ দিয়েছিলেন। ‎যদি তিন তালাক দিয়ে দাও তাহলে স্ত্রী হারাম হয়ে যাবে, সে তোমাকে ছাড়া অন্য স্বামী গ্রহণ করা পর্যন্ত। {সহীহ বুখারী-২/৭৯২, ২/৮০৩}

عن مجاهد قال كنت عند ابن عباس فجاء رجل فقال إنه طلق امرأته ثلاثا. قال فسكت حتى ظننت أنه رادها إليه ثم قال ينطلق أحدكم فيركب الحموقة ثم يقول يا ابن عباس يا ابن عباس وإن الله قال (وَمَنْ يَتَّقِ اللَّهَ يَجْعَلْ لَهُ مَخْرَجًا) وإنك لم تتق الله فلم أجد لك مخرجا عصيت ربك وبانت منك امرأتك

অর্থ: হযরত মুজাহিদ রহঃ. বলেন,আমি ইবনে আব্বাস রাঃ-এর পাশে ছিলাম। সে সময় এক ব্যক্তি ‎এসে বলেন-‘সে তার স্ত্রীকে তিন তালাক দিয়েছে। হযরত ইবনে আব্বাস রাঃ চুপ করে রইলেন। আমি ‎মনে মনে ভাবছিলাম-হয়ত তিনি তার স্ত্রীকে ফিরিয়ে আনার কথা বলবেন (রুজু করার হুকুম দিবেন)। কিছুক্ষণ ‎পর ইবনে আব্বাস রা. বলেন,তোমাদের অনেকে নির্বোধের মত কাজ কর;[তিন তালাক দিয়ে দাও!] তারপর ‘ইবনে ‎আব্বাস! ইবনে আব্বাস! বলে চিৎকার করতে থাক। শুনে রাখ আল্লাহ তা‘য়ালা বাণী-“যে ‎ব্যক্তি আল্লাহ তা‘য়ালাকে ভয় করে আল্লাহ তা‘য়ালা তার জন্য পথকে খুলে দেন। তুমিতো স্বীয় রবের নাফরমানী করেছো [তিন তালাক দিয়ে]। এ কারণে তোমার স্ত্রী তোমার থেকে পৃথক হয়ে গেছে। {সুনানে আবু দাউদ-১/২৯৯, হাদীস নং-২১৯৯,সুনানুল কুবরা লিলবায়হাকী,হাদীস নং-১৪৭২০,সুনানে দারা কুতনী,হাদীস নং-১৪৩}

والله اعلم بالصواب
উত্তর লিখনে
লুৎফুর রহমান ফরায়েজী

পরিচালক-তালীমুল ইসলাম ইনষ্টিটিউট এন্ড রিসার্চ সেন্টার ঢাকা।

উস্তাজুল ইফতা– জামিয়া কাসিমুল উলুম সালেহপুর, আমীনবাজার ঢাকা।

পরিচালক: শুকুন্দী ঝালখালী তা’লীমুস সুন্নাহ দারুল উলুম মাদরাসা, মনোহরদী, নরসিংদী।

ইমেইল– ahlehaqmedia2014@gmail.com

আরও জানুন

শর্তযুক্ত তালাক দিয়ে শর্ত তুলে নেয়া যাবে কি না?

প্রশ্ন Md Hasan আস্সালামু আলাইকুম মুফতি সাহেব একটা মাসআলা: শর্তের সাথে তালাক দিলে শর্ত ফিরিয়ে …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আহলে হক্ব বাংলা মিডিয়া সার্ভিস