প্রচ্ছদ / প্রশ্নোত্তর / ‘রোযা রাখা ফরজ’ না জানা অবস্থায় কাযাকৃত রোযা কি জানার পর কাযা আদায় করতে হবে?

‘রোযা রাখা ফরজ’ না জানা অবস্থায় কাযাকৃত রোযা কি জানার পর কাযা আদায় করতে হবে?

প্রশ্ন

আসসালামু আলাইকুম ওয়া রাহমাতুল্লাহ সম্মানিত শায়খ,

আমি কয়েকবার প্রশ্ন করেও উত্তর পাইনি। আমার নিন্মলিখিত প্রশ্নের উত্তর জানাটা খুব জরুরি। দয়া করে উত্তর দিন।

কেউ যদি আগে নামায রোযা কোনোটাই না করে থাকে, তাহলে কি ঐ সময়ের রোযাগুলোরও কাজা করে দিতে হবে যখন ব্যক্তিটি নামায পড়তো না?

রোযা ফরজ ইবাদত এটা জানা না জানার সাথে কাযা করা না করার কি কোনো সম্পর্ক আছে?

আল্লাহ আপনাকে উত্তম প্রতিদান দিন।

উত্তর

وعليكم السلام رحمة الله وبركاته

بسم الله الرحمن الرحيم

প্রাপ্ত বয়স্ক হবার পর, জেনে বুঝে, বা না জানার কারণে, সর্বাবস্থায় যে রোযাগুলো কাযা হয়েছে, সব রোযার কাযা আদায় করতে হবে।

মুসলিম অধ্যুষিত এলাকার বাসিন্দাদের জন্য ‘রোযা ফরজ ইবাদত’ জানা ও না জানার সাথে এর কোন সম্পর্ক নেই।

কারণ, মুসলিম অধ্যুষিত এলাকায় বসবাস করে শরীয়তের জরুরী মাসআলা না জানাটা কোন উজর নয়, বরং দ্বীনী ইলম শিক্ষা না করার অতিরিক্ত অপরাধও বটে।

(قَوْلُهُ: أَوْ عَالَمٍ بِالْوُجُوبِ) أَيْ أَوْ كَائِنٍ فِي غَيْرِ دَارِنَا عَالَمٍ بِالْوُجُوبِ فَالْكَوْنُ بِدَارِ الْإِسْلَامِ مُوجِبٌ لِلصَّوْمِ، وَإِنْ لَمْ يَعْلَمْ بِوُجُوبِهِ إذْ لَا يُعْذَرُ بِالْجَهْلِ فِي دَارِ الْإِسْلَامِ، (رد المحتار، كتاب الصوم-3/331)

قَالَ الْعَلَامَةُ كَمَالُ الدِّينِ – رَحِمَهُ اللَّهُ – وَيَنْبَغِي أَنْ يُزَادَ فِي الشُّرُوطِ الْعِلْمُ بِالْوُجُوبِ أَوْ الْكَوْنُ فِي دَارِ الْإِسْلَامِ وَيُرَادُ بِالْعِلْمِ الْإِدْرَاكُ وَهَذَا لِأَنَّ الْحَرْبِيَّ إذَا أَسْلَمَ فِي دَارِ الْحَرْبِ وَلَمْ يَعْلَمْ أَنَّ عَلَيْهِ صَوْمَ رَمَضَانَ ثُمَّ عَلِمَ لَيْسَ عَلَيْهِ قَضَاءُ مَا مَضَى ……….. وَلَوْ أَسْلَمَ فِي دَارِ الْإِسْلَامِ وَجَبَ عَلَيْهِ قَضَاءُ مَا مَضَى بَعْدَ الْإِسْلَامِ عَلِمَ بِالْوُجُوبِ أَوْ لَا (حاشية الشلبى على هامش تبيين الحقائق، كتاب الصوم-2/147، درر الحكام شرح غرر الأحكام، كتاب الصوم، أنواع الصوم-1/196)

مِنْ فَرَائِضِ الْإِسْلَامِ تَعَلُّمُهُ مَا يَحْتَاجُ إلَيْهِ الْعَبْدُ فِي إقَامَةِ دِينِهِ وَإِخْلَاصِ عَمَلِهِ لِلَّهِ تَعَالَى وَمُعَاشَرَةِ عِبَادِهِ. وَفَرْضٌ عَلَى كُلِّ مُكَلَّفٍ وَمُكَلَّفَةٍ بَعْدَ تَعَلُّمِهِ عِلْمَ الدِّينِ وَالْهِدَايَةِ تَعَلُّمُ عِلْمِ الْوُضُوءِ وَالْغُسْلِ وَالصَّلَاةِ وَالصَّوْمِ، وَعِلْمِ الزَّكَاةِ لِمَنْ لَهُ نِصَابٌ، وَالْحَجِّ لِمَنْ وَجَبَ عَلَيْهِ وَالْبُيُوعِ عَلَى التُّجَّارِ لِيَحْتَرِزُوا عَنْ الشُّبُهَاتِ وَالْمَكْرُوهَاتِ فِي سَائِرِ الْمُعَامَلَاتِ. وَكَذَا أَهْلُ الْحِرَفِ، وَكُلُّ مَنْ اشْتَغَلَ بِشَيْءٍ يُفْرَضُ عَلَيْهِ عِلْمُهُ وَحُكْمُهُ لِيَمْتَنِعَ عَنْ الْحَرَامِ فِيهِ (رد المحتار، مقدمة-1/125-126)

وَالظَّاهِرُ أَنَّ الْجَهْلَ إنَّمَا يَنْفِي كَوْنَهُ كَبِيرَةً لَا أَصْلَ الْحُرْمَةِ إذْ لَا عُذْرَ بِالْجَهْلِ بِالْأَحْكَامِ فِي دَارِ الْإِسْلَامِ، (رد المحتار، كتاب الطهارة، باب الحيض-1/494)

والله اعلم بالصواب
উত্তর লিখনে
লুৎফুর রহমান ফরায়েজী

পরিচালক-তালীমুল ইসলাম ইনষ্টিটিউট এন্ড রিসার্চ সেন্টার ঢাকা।

উস্তাজুল ইফতা– জামিয়া কাসিমুল উলুম সালেহপুর, আমীনবাজার ঢাকা।

ইমেইল– ahlehaqmedia2014@gmail.com

আরও জানুন

গাইরুল্লাহকে সেজদা করা ও ফাতিমা রাঃ এর মূর্তি বানিয়ে সেজদা দেয়ার হুকুম কী?

প্রশ্ন আস্সালামুআলাইকুম হযরত। কেমন আছেন? দ্বীনের বিভিন্ন সমস্যায় সর্বদাই আপনার পরিচালিত ওয়েবসাইট হতে সাহায্য নেই। …

Leave a Reply

Your email address will not be published.

আহলে হক্ব বাংলা মিডিয়া সার্ভিস