প্রচ্ছদ / নামায/সালাত/ইমামত / মুসাফির ইমাম চার রাকাত পড়ালে মুকীম মুক্তাদীর নামায শুদ্ধ হবে কি?

মুসাফির ইমাম চার রাকাত পড়ালে মুকীম মুক্তাদীর নামায শুদ্ধ হবে কি?

প্রশ্ন

হুজুর আমাদের এলাকায় এক মাওলানা সাহেব আসলেন চট্টগ্রাম থেকে। তিনি মুসাফির। তাকে আমরা যোহরের নামায পড়ানোর জন্য ইমামতী করতে দেই। যেহেতু তিনি বড় আলেম।

কিন্তু তিনি ভুলক্রমে চার রাকাত পড়িয়েছেন। দুই রাকাত পড়ে বৈঠকও করেছেন। কিন্তু সাহু সেজদা দেননি।

এখন আমাদের প্রশ্ন হল, আমাদের এবং উক্ত মুসাফির ইমাম সাহেবের নামায কি শুদ্ধ হয়েছে?

দয়া করে দ্রুত জানালে অনেক উপকার হতো।

উত্তর

بسم الله الرحمن الرحيم

মুসাফিরের জন্য চার রাকাত বিশিষ্ট্য ফরজ নামায মূলত ফরজ থাকে দুই রাকাত।

সুতরাং দুই রাকাত পড়ে বৈঠক করে তাশাহুদ পরিমাণ বসলেই তার নামায পূর্ণ হয়ে যায়।

আর যদি মাঝখানের বৈঠক না করে, তাহলে তার নামাযটি বাতিল হয়ে যায়।

তারপর যদি বাকি দুই রাকাতও পড়ে, তাহলে সেটি নফল হিসেবে পরিগণিত হয়। ফরজ হয় না।

তখন সালাম ফিরানোর ওয়াজিব দেরী করানোর কারণে তার উপর সাহু সেজদা আবশ্যক হয়।

যদি ইচ্ছেকৃত এমন করে থাকে, কিংবা ভুলে চার রাকাত পড়ে সাহু সেজদা না দেয়, তাহলে তার উপর আবশ্যক হল, উক্ত নামাযের সময় থাকা অবস্থায় সেই নামাযটি পুনরায় পড়া।

আর যদি উক্ত নামাযের সময় চলে যায়, তাহলে আর আদায় করতে হয় না।

যেহেতু মুসাফির ব্যক্তির জন্য চার রাকাত বিশিষ্ট্য ফরজ নামাযের দুই রাকাতের পর শেষ দুই রাকাত ফরজ থাকে না। নফল হয়ে যায়। আর নফলের পিছনে ফরজের ইক্তিদা সহীহ নয়।

এ কারণে মুসাফির ইমাম যদি চার রাকাত ফরজ পড়ায়, তাহলে পিছনে যত মুকীম মুসল্লী চার রাকাতে ইক্তিদা করেছে, তাদের সবার নামায বাতিল হয়ে যাবে।

সহজ ভাষায়: প্রশ্নোক্ত সূরতে ইমাম সাহেব দুই রাকাত পড়ে বৈঠক করার পর ইচ্ছেকৃত আরো দুই রাকাত মিলিয়ে চার রাকাত পড়ালে বা ভুলে পড়ে সাহু সাজদা না দেবার কারণে তার নামাযটি সময় থাকা অবস্থায় পুনরায় পড়া দায়িত্ব ছিল। আর সময় চলে গেলে আর পড়ার দরকার নেই।

তবে তার যিম্মা থেকে ফরজের দায়িত্ব আদায় হয়ে যায়।

কিন্তু তার ইক্তিদা করা কোন মুকীম মুসল্লীদের নামাযই শুদ্ধ হয়নি। তাই সকল মুকীম মুসল্লীদের উক্ত নামায আবার পড়া আবশ্যক।

 

فإن صلى أربع وقعد فى الثانية قدر التشهد أجزأته، والأخريان نافلة، ويصير مسيئا لتأخير السلام، وإن لم يقعد فى الثانية قدرها بطلت (الفتاوى الهندية، كتاب الصلاة، الباب الخامس عشر فى صلاة المسافر-1\139، جديد-1\199)

فلو أتم المسافر بأن صلى أربعا إن قعد فى آخر الركعة الثانية قدر التشهد صحت فريضة، والزائد نفل، كالفجر وأساء، لأن فرضه ثنتان، والقعدة الأولى فرض عليه، لأنها آخر صلاته، فإذا وجدت يتم فرضه، ولكنه أساء لتأخير السلام (مجمع الأنهر، كتاب الصلاة، باب صلاة المسافر-1\239-240)

اذا صلى المسافر أربع ركعات ولم يقعد فى الأوليين فسدت صلاته، لأنه ترك الفرض، فإن قعد قدر التشهد تمت صلاته، وقد أساء بتأخير السلام عن محله (الولوالجية، كتاب الطهارة، الفصل الثانى عشر فى السفر وسجدة التلاوة-1\133)

وإن أتم فإن قعد فى الثانية قدر التشهد أجزأته، والأخريان نافلة له، ويصير مسيئا لتأخير السلام (عنية المستملى، فصل فى صلاة المسافر-539)

فلو أتم المقيمون صلاته معه فسدت، لأنه اقتداء المفترض بالمتنفل، أى إذا قصدوا متابعته (رد المحتار، كتاب الصلاة، باب صلاة المسافر-2\612، منحة الخالق على البحر الرائق-2\238)

والوجوب مقيد بما إذا كان الوقت صالحا حتى أن من عليه السهو فى صلاة الصبح إذا لم يسجد حتى طلعت الشمس بعد السلام الأول يسقط عنه السجود (الفتوى الهندية، كتاب الصلاة، الباب الثالث عشر فى سجود السهو-1\125، جديد-1\185، الفتاوى التاتارخانية-2\423، رقم-2855)

إذا صلى المسافر أربع ركعات ولم يقعد فى الأوليين فسدت صلاته، لأنه ترك الفرض، فإن قعد قدر التشهد تمت صلاته وقد أساء بتأخير السلام عن محله (الولوالجية-1\133)

وكذا فى الفقه الأسلامى وأدلته، كتاب الصلاة، باب صلاة المسافر، حكم القصر أو هل القصر رخصة أو عزيمة-2\284

وكذا فى حاشية الطحطاوى على مراقى الفلاح، كتاب الصلاة، باب صلاة المسافر-425)

والله اعلم بالصواب
উত্তর লিখনে
লুৎফুর রহমান ফরায়েজী

পরিচালক-তালীমুল ইসলাম ইনষ্টিটিউট এন্ড রিসার্চ সেন্টার ঢাকা।

উস্তাজুল ইফতা– জামিয়া কাসিমুল উলুম সালেহপুর, আমীনবাজার ঢাকা।

ইমেইল– ahlehaqmedia2014@gmail.com

আরও জানুন

পেশাবের দশ পনের মিনিট পর পেশাবের ফোটা আসার সন্দেহ হলে করণীয় কী?

প্রশ্ন From: আব্দুলাহ আনাস বিষয়ঃ পবিত্রতা প্রশ্নঃ আসসালামু আলাইকুম। কেমন আছেন হুজুর? এক ব্যক্তি বড় দীর্ঘ দিন …

আহলে হক্ব বাংলা মিডিয়া সার্ভিস