প্রচ্ছদ / আদব ও আখলাক / ছোট শিক্ষার্থীদের শিক্ষক প্রয়োজনবোধে কতটুকু প্রহার করতে পারবে?

ছোট শিক্ষার্থীদের শিক্ষক প্রয়োজনবোধে কতটুকু প্রহার করতে পারবে?

প্রশ্ন

From: সলীম
বিষয়ঃ শিশু নির্যাতন

জনাব, ……..  মাদরাসায় নাজেরা বিভাগে নাবালক বাচ্চাদেরকে উস্তাদরা কারণে অকারণে গালে এবং চেহারায় জোরে থাপ্পর মারে।

এছাড়াও বাচ্চাদেরকে কুকুর শূয়র ইদ্যাদি গালিগালাজ করে। শরীয়তের আলোকে চেহারায় থাপ্পর মারার বিধান জানতে চাই। (সন্দেহ থাকলে তদন্ত করে দেখতে পারেন)

দ্রুত উত্তরের আশা করছি।

উত্তর

بسم الله الرحمن الرحيم

বেআদবীসহ বড় কোন অপরাধের কারণে উস্তাজ ছাত্রদের প্রহার করতে পারে।

তবে এক্ষেত্রে কয়েকটি শর্ত আছে। যথা-

পিতা মাতার অনুমতি ছাড়া প্রহার করা যাবে না।

প্রহারের মাকসাদ নিজের রাগ বা ক্ষোভ প্রশমন নয়, বরং ছাত্রদের তারবিয়্যাতের নিয়তে হতে হবে।

রাগ থাকা অবস্থায় প্রহার না করা।

শিশুদের বয়স দশ বছর হওয়ার আগে প্রহার করা যাবে না।

চেহারা, মাথা এবং সতরের অংশে প্রহার করা যাবে না।

দাগ হয়ে যায়, হাড্ডি ভেঙ্গে যায়, শরীর কালো হয়ে যায়, বা রক্ত জমে যায় এমন জোরে প্রহার করা যাবে না।

লাঠি ইত্যাদি দিয়ে প্রহার করা যাবে না।

তিনবারের চেয়ে বেশি প্রহার করা যাবে না। এক স্থানে তিনবারও প্রহার করা যাবে না।

উপরোক্ত শর্তগুলো মেনে ছাত্রদের শাসন হিসেবে প্রহার করা যাবে।

তবে এক্ষেত্রে অবশ্যই স্মরণে রাখতে হবে যে, কেবল মাত্র অপরাধ করলেই শাস্তি প্রদান করতে পারে। বিনা অপরাধে ছাত্রদের গায়ে হাত তোলা সম্পূর্ণভাবে নাজায়েজ।

আর কুকুর, শুকর বলে গালাগাল করা সম্পূর্ণরূপে হারাম কাজ। এহেন গালাগাল যে করে তিনি উস্তাজ হবার যোগ্যতাই রাখেন না।

এমন বাজে শিক্ষককে অচিরেই সতর্ক করা উচিত যে, হয়তো আখলাক ঠিক করবে, নতুন দ্রুত তাকে বরখাস্ত করা উচিত।

সুতরাং বুঝা গেল যে, গালে থাপ্পড় দিয়ে শাস্তি দেয়া জায়েজ নয়।

 

عَنْ أَبِي هَارُونَ العَبْدِيِّ، قَالَ: كُنَّا نَأْتِي أَبَا سَعِيدٍ، فَيَقُولُ: مَرْحَبًا بِوَصِيَّةِ رَسُولِ اللهِ صَلَّى اللَّهُ عَلَيْهِ وَسَلَّمَ، إِنَّ رَسُولَ اللهِ صَلَّى اللَّهُ عَلَيْهِ وَسَلَّمَ قَالَ: إِنَّ النَّاسَ لَكُمْ تَبَعٌ، وَإِنَّ رِجَالاً يَأْتُونَكُمْ مِنْ أَقْطَارِ الأَرَضِينَ يَتَفَقَّهُونَ فِي الدِّينِ، فَإِذَا أَتَوْكُمْ فَاسْتَوْصُوا بِهِمْ خَيْرًا

আবূ হারূন আল-আবদী (রাহঃ) হতে বর্ণিত আছে, তিনি বলেন, আমরা আবূ সাঈদ আল-খুদরী (রাঃ)-এর নিকটে (জ্ঞান অর্জনের উদ্দেশ্যে) আসলে তিনি বলতেন, রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামের উপদেশকে “মারহাবা, স্বাগতম!” কেননা রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বলেছেনঃ (আমার পরে) মানুষ তো তোমাদের অনুসারী হবে। দিগদিগন্ত হতে মানুষ ধর্মের জ্ঞান অর্জনের উদ্দেশ্যে তোমাদের নিকটে আসবে। তারা তোমাদের নিকটে এলে তোমরা তাদের কল্যাণ সাধনের ব্যাপারে (আমার) উপদেশ গ্রহণ কর। [সুনানে ইবনে মাজাহ, হাদীস নং-২৪৯, সুনানে তিরমিজী, হাদীস নং-২৬৫০]

عَنْ عَبْدِ اللهِ قَالَ: قَالَ رَسُولُ اللهِ صَلَّى اللَّهُ عَلَيْهِ وَسَلَّمَ: لَيْسَ الْمُؤْمِنُ بِالطَّعَّانِ وَلاَ اللَّعَّانِ وَلاَ الفَاحِشِ وَلاَ البَذِيءِ.

আবদুল্লাহ (রাঃ) হতে বর্ণিত আছে, তিনি বলেন, রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বলেছেনঃ  মু’মিন কখনো দোষারোপকারী ও নিন্দাকারী হতে পারে না, অভিসম্পাতকারী হতে পারে না, অশ্লীল কাজ করে না এবং কটুভাষীও হয় না। [সুনানে তিরমিজী, হাদীস নং-১৯৭৭]

قَالَ عَبْدُ اللَّهِ: قَالَ النَّبِيُّ صَلَّى اللهُ عَلَيْهِ وَسَلَّمَ: «سِبَابُ المُسْلِمِ فُسُوقٌ، وَقِتَالُهُ كُفْرٌ»

‘আবদুল্লাহ্ (রাঃ) হতে বর্ণিত। তিনি বলেন, নাবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম ইরশাদ করেছেনঃ কোন মুসলিমকে গাল দেয়া ফাসিকী কাজ (জঘন্য পাপ) আর কোন মুসলিমকে হত্যা করা কুফরী। [সহীহ বুখারী, হাদীস নং-৭০৭৬]

فى الدر المختار: (وَإِنْ وَجَبَ ضَرْبُ ابْنِ عَشْرٍ عَلَيْهَا بِيَدٍ لَا بِخَشَبَةٍ) لِحَدِيثِ «مُرُوا أَوْلَادَكُمْ بِالصَّلَاةِ وَهُمْ أَبْنَاءُ سَبْعٍ،

وفى رد المحتار: (قَوْلُهُ: بِيَدٍ) أَيْ وَلَا يُجَاوِزُ الثَّلَاثَ، وَكَذَلِكَ الْمُعَلِّمُ لَيْسَ لَهُ أَنْ يُجَاوِزَهَا «قَالَ – عَلَيْهِ الصَّلَاةُ وَالسَّلَامُ – لِمِرْدَاسٍ الْمُعَلِّمِ إيَّاكَ أَنْ تَضْرِبَ فَوْقَ الثَّلَاثِ، فَإِنَّك إذَا ضَرَبْت فَوْقَ الثَّلَاثِ اقْتَصَّ اللَّهُ مِنْك» اهـ إسْمَاعِيلُ عَنْ أَحْكَامِ الصِّغَارِ للأستروشني، وَظَاهِرُهُ أَنَّهُ لَا يُضْرَبُ بِالْعَصَا فِي غَيْرِ الصَّلَاةِ أَيْضًا.

(قَوْلُهُ: لَا بِخَشَبَةٍ) أَيْ عَصًا، وَمُقْتَضَى قَوْلِهِ بِيَدٍ أَنْ يُرَادَ بِالْخَشَبَةِ مَا هُوَ الْأَعَمُّ مِنْهَا وَمِنْ السَّوْطِ أَفَادَهُ ط.

(قَوْلُهُ: لِحَدِيثِ إلَخْ) اسْتِدْلَالٌ عَلَى الضَّرْبِ الْمُطْلَقِ، وَأَمَّا كَوْنُهُ لَا بِخَشَبَةٍ فَلِأَنَّ الضَّرْبَ بِهَا وَرَدَ فِي جِنَايَةِ الْمُكَلَّفِ (رد المحتار، كتاب الصلاة-2/4-5)

أما المعلم فله ضربه، لأن المأمور يضربه نيابة عن الأب لمصلحته، والمعلم يضربه بحكم الملك بتمليك أبيه لمصلحة التعليم…. ألنقل فى كتاب الصلاة يضرب الصغير باليد لا بالخشبة، ولا يزيد على ثلاث ضربات (رد المحتار، كتاب الحظر والإباحة، باب الاستبراء وغيره، فصل فى البيع-9/616)

يجوز للمعلم أن يضربه بإذن أبيه نحو ثلاث ضربات ضربا وسطا سليما… لا بخشبة، فلأن الضرب بها ورد فى جناية صادرة عن المكلف ولا جناية عن الصغير (حاشية الطحطاوى على الدر المختار، كتاب الصلاة-1/170)

لو ضرب المعلم الصبى ضربا فاحشا قيد به، لأنه ليس له أن يضربها فى التاديب ضربا فاحشا وهو الذى يكسر العظم أو يخرق الجلد أو يسوده، قال فى البحر: وصرحوا بأنه إذا ضربها بغير حق وجب عليه التعزير، أى وإن لم يكن فاحشا ويضمنه لو مات، وكذا المعلم إذا أدب الصبى فمات منه يضمن عندنا (رد المحتار-6/131)

للمعلم ضرب الصبي الذي يتعلم عنده للتأديب. وبتتبع عبارات الفقهاء يتبين أنهم يقيدون حق المعلم في ضرب الصبي المتعلم بقيود منها:

أ – أن يكون الضرب معتاداً للتعليم كمًّا وكيفاً ومحلاً، يعلم المعلم الأمن منه، ويكون ضربه باليد لا بالعصا، وليس له أن يجاوز الثلاث،  روي أن النبي عليه الصلاة والسلام قال لمرداس المعلم رضي الله عنه: إياك أن تضرب فوق الثلاث، فإنك إذا ضربت فوق الثلاث اقتص الله منك.

ب – أن يكون الضرب بإذن الولي، لأن الضرب عند التعليم غير متعارف، وإنما الضرب عند سوء الأدب، فلا يكون ذلك من التعليم في شيء، وتسليم الولي صبيه إلى المعلم لتعليمه لايثبت الإذن في الضرب، فلهذا ليس له الضرب، إلا أن يأذن له فيه نصاً. ونقل عن بعض الشافعية قولهم: الإجماع الفعلي مطرد بجواز ذلك بدون إذن الولي.

ج – أن يكون الصبي يعقل التأديب، فليس للمعلم ضرب من لايعقل التأديب من الصبيان، قال الأثرم: سئل أحمد عن ضرب المعلم الصبيان، قال: على قدر ذنوبهم، ويتوقى بجهده الضرب وإذا كان صغيراً لايعقل فلايضربه (الموسوعة الفقهية الكويتية-13/13)

والله اعلم بالصواب
উত্তর লিখনে
লুৎফুর রহমান ফরায়েজী

পরিচালক -তা’লীমুল ইসলাম ইনস্টিটিউট এন্ড রিসার্চ সেন্টার ঢাকা।

উস্তাজুল ইফতা– জামিয়া কাসিমুল উলুম আমীনবাজার, সালেহপুর ঢাকা।

ইমেইল– ahlehaqmedia2014@gmail.com

আরও জানুন

ফজরের নামাযে কুনুতে নাজেলা কি হযরত উমর রাঃ সারা বছর পড়তেন?

প্রশ্ন From: মাহমুদ বিষয়ঃ কুনূতে নাযেলা প্রশ্নঃ উমার রাঃ এর আমল হিসেবে আমাদের মসজিদে ফজর …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আহলে হক্ব বাংলা মিডিয়া সার্ভিস