প্রচ্ছদ / ওয়াকফ/মসজিদ/ঈদগাহ / ভেঙ্গে ফেলা মসজিদের ইট কি নতুন মসজিদের টয়লেট বা অজুখানায় লাগাতে পারবে?

ভেঙ্গে ফেলা মসজিদের ইট কি নতুন মসজিদের টয়লেট বা অজুখানায় লাগাতে পারবে?

প্রশ্ন

আশা করি ভাল আছেন। হুজুর নিন্মোক্ত বিষয়ে দলিল সহ শরয়ী সমাধান দেওয়ার জন্য আপনার নেক মর্জি কামনা করছি।

হুজুর আমরা আমাদের মসজিদ ভেঙ্গে পুনরায় নির্মাণ করতেছি । আমরা চাইতেছি , পুরাতন মসজিদের ইট রাবিশ ইত্যাদির কিছু অংশ বিক্রয় করতে এবং কিছু দিয়ে মসজিদের টয়লেট , উজুখানা ও ইমামের রুম নির্মাণ  করতে। এ বিষয়ে কিছু প্রশ্ন_

১) পুরাতন মসজিদের ইট টয়লেটে লাগানো যাবে?

২) উজুখানায়?

৩) হুজুরের কামরায়?

৪) বিক্রয় করা যায়?

৫) এ ইট মসজিদের ঈদগাহে ব্যবহার করে তবে?

যেহেতু মসজিদ নির্মাণের কাজ প্রায় শেষ এবং ইতঃমধ্যে কিছু ইট টয়লেটের নিচের অংশে লাগানো হয়েছে তাই যথা শিগ্র উত্তর দিলে খুবই উপকৃত হব।

আপনার নেক নজর প্রার্থি,

এলাকা বাসির পক্ষে,

মুহাম্মাদ ছাকিবুর রহমান,

এ কে পুর , বাবুগন্জ, বরিশাল।

উত্তর

بسم الله الرحمن الرحيم

উক্ত ইট মসজিদ সংশ্লিষ্ট সকল কাজেই ব্যবহার করতে পারবে।

সেই হিসেবে মসজিদের টয়লেট, হুজরাখানা, অযুখানায়ও ব্যবহার করতে পারবে।

যদি মসজিদের কোন কাজে না লাগে, তাহলে বিক্রি করে মসজিদের ফান্ডে টাকা জমা রাখতে পারবে।

তবে মসজিদের জন্য ওয়াকফকৃত ইট দিয়ে ঈদগাহে ব্যবহার করতে পারবে না।

তবে যদি ঈদগাহ ও মসজিদ একই ওয়াকফের আওতাধীন হয়, তাহলে ঈদগাহের প্রয়োজনেও ব্যবহার করতে পারবে।

وما انهدم من بناء الوقف والته صرفه الحاكم فى عمارة الوقف إن احتاج إليه، وإن استغنى عنه أمسكه حتى يحتاج إلى عمارته فيصرف فيها…. وإن تعذر إعادة عينه إلى موضعه بيع وصرف ثمنه إلى المرمة صرفا للبدل إلى مصرف المبدل (هداية، كتاب الوقف-2/642، رد المحتار-6/573)

وَمَا انْهَدَمَ مِنْ بِنَاءِ الْوَقْفِ وَآلَتِهِ صَرَفَهُ الْحَاكِمُ فِي عِمَارَةِ الْوَقْفِ إنْ احْتَاجَ إلَيْهِ وَإِنْ اسْتَغْنَى عَنْهُ وَأَمْسَكَهُ حَتَّى يَحْتَاجَ إلَى عِمَارَتِهِ فَيَصْرِفُهُ فِيهَا وَإِنْ تَعَذَّرَ إعَادَةُ عَيْنِهِ إلَى مَوْضِعٍ يَبِيعُ وَيَصْرِفُ ثَمَنَهُ إلَى الْمَرَمَّةِ وَلَا يَجُوزُ أَنْ يُصْرَفَ بَيْنَ مُسْتَحَقِّي الْوَقْفِ كَذَا فِي الْهِدَايَةِ (الفتاوى الهندية-2/369)

قَوْلُهُ (وَمَا انْهَدَمَ مِنْ بِنَاءِ الْوَقْفِ وَآلَتِهِ صَرَفَهُ الْحَاكِمُ فِي عِمَارَةِ الْوَقْفِ إنْ احْتَاجَ إلَيْهِ، وَإِنْ اسْتَغْنَى عَنْهُ أَمْسَكَهُ حَتَّى يَحْتَاجَ إلَى عِمَارَتِهِ فَيَصْرِفَهُ فِيهَا) ، وَإِنْ تَعَذَّرَ إعَادَةُ عَيْنِهِ إلَى مَوْضِعِهِ بِيعَ وَصُرِفَ ثَمَنُهُ إلَى الْإِصْلَاحِ قَوْلُهُ (وَلَا يَجُوزُ أَنْ يَقْسِمَهُ بَيْنَ مُسْتَحِقِّي الْوَقْفِ) يَعْنِي النَّقْضَ؛ لِأَنَّهُ جُزْءٌ مِنْ الْعَيْنِ وَلَا حَقَّ لِلْمَوْقُوفِ عَلَيْهِمْ فِيهِ، وَإِنَّمَا حَقُّهُمْ فِي الْمَنَافِعِ. (الجوهرة النيرة، كتاب الوقف، وقف العقار-1/337)

والله اعلم بالصواب
উত্তর লিখনে
লুৎফুর রহমান ফরায়েজী

পরিচালক-তা’লীমুল ইসলাম ইনস্টিটিউট এন্ড রিসার্চ সেন্টার ঢাকা।

ইমেইল– ahlehaqmedia2014@gmail.com

আরও জানুন

হাশরের ময়দানে সূর্য কতটুকু কাছে থাকবে?

প্রশ্ন হাশরের ময়দানে সূর্য কতটুকু কাছে থাকবে? বক্তাদের ওয়াজের মাঝে বিপরীতমুখী বক্তব্য শুনতে চাই। সঠিক …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আহলে হক্ব বাংলা মিডিয়া সার্ভিস