প্রচ্ছদ / কাফন-দাফন-জানাযা / কবরে মাটি দেবার সময় “মিনহা খালাকনাকুম” পড়া কি বিদআত?

কবরে মাটি দেবার সময় “মিনহা খালাকনাকুম” পড়া কি বিদআত?

প্রশ্ন

আসসালামু আলাইকুম।

লাশ কবরে রাখার সময় আমরা যে, সূরাযে ত্বহা এর ৫৫ নং আয়াত তিলাওয়াত করে থাকি। এর কোন ভিত্তি আছে কি? কিছু আহলে হাদীস ভাই এটাকে বিদআত বলছেন। এ ব্যাপারে আপনাদের মতামত জানতে চাচ্ছি।

উত্তর

بسم الله الرحمن الرحيم

وعليكم السلام ورحمة الله وبركاته

হ্যাঁ, এ আমলের ভিত্তি রয়েছে। রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম তাঁর মেয়ে উম্মে কুলসুম রাঃ কে কবরে রাখার সময় এ দুআ পড়েছেন।

হাদীসে এসেছে-

عَنْ أَبِي أُمَامَةَ قَالَ: لَمَّا وُضِعَتْ أُمُّ كُلْثُومٍ ابْنَةُ رَسُولِ اللهِ صَلَّى اللهُ عَلَيْهِ وَسَلَّمَ فِي الْقَبْرِ. قَالَ رَسُولُ اللهِ صَلَّى اللهُ عَلَيْهِ وَسَلَّمَ: ” {مِنْهَا خَلَقْنَاكُمْ وَفِيهَا نُعِيدُكُمْ، وَمِنْهَا نُخْرِجُكُمْ تَارَةً أُخْرَى} [طه: 55

হযরত আবু উমামা রাঃ থেকে বর্ণিত। তিনি বলেন, যখন রাসূল সাঃ এর মেয়ে উম্মে কুলসুম রাঃ কে কবরে রাখা হয়,  তখন রাসূল সাঃ পড়েন মিনহা খালকনাকুম ওয়াফীহা নুয়ীদুকুম ওয়ামিনহা নুখরিজুকুম তারাতান উখরা।

মুসনাদে আহমাদ, হাদীস নং-২২১৮৭।

মুস্তাদরাকে হাকেম, হাদীস নং-৩৪৩৩।

সুনানুল কুবরা লিলবায়হাকী, হাদীস নং-৬৭২৬।

খুলাসাতুল আহকাম, হাদীস নং-৩৬৫১।

জামেউল মাসানীদ ওয়াস সুনান, হাদীস নং-১১০২৪।

মাযমাউজ যাওয়ায়েদ, হাদীস নং-৪২৩৯।

কানযুল উম্মাল, হাদীস নং-১৮৮১।

আলমুসনাদুল জামে, হাদীস নং-৫২৫৩।

মুহাদ্দিসীনে কেরাম উক্ত হাদীসকে জঈফ তথা দুর্বল বলে মন্তব্য করেছেন।

দ্রষ্টব্য-

ইমাম বায়হাকী রহঃ, {সুনানে কুবরা লিলবায়হাকী-৩/৪০৯}

ইমাম নববী রহঃ{খুলাসা-২/১০২২}

ইবনুল মুলাক্কিন রহঃ, {আলবাদরুল মুনীর-৫/৩১৩}

আল্লামা হায়সামী রহঃ- {মাযমাউজ যাওয়ায়েদ- বর্ণনা নং-৪৬}

ইবনে হাজার আসকালানী রহঃ {আততালখীসুল হাবীর-২/৬৯১}

আল্লামা সানআনী রহঃ {সুবুলুস সালাম-২/১৭৫}

শাওকানী রহঃ {নাইলুল আওতার-৪/১২৭}

সকল মুহাদ্দিসীনে কেরাম উক্ত হাদীসকে জঈফ বলে মন্তব্য করলেও কেউ একে জাল বা বানোয়াট বলে মন্তব্য করেননি। তাই এ হাদীসের উপর ভিত্তি করে রাসূল সাঃ থেকে সুনিশ্চিত প্রমাণিত সুন্নত না মনে করে এমনিতে আমল করাতে কোন সমস্যা নেই। এ আমলকে বিদআত বলা দ্বীনী বিষয়ে বাড়াবাড়ি ছাড়া আর কিছু নয়।

যে ব্যক্তি রাসূল সাঃ থেকে প্রমাণিত শক্তিশালীভাবে প্রমাণিত বিষয়ের সাথে সাথে দুর্বল বর্ণনাও আমলে আনতে চায়, সে ব্যক্তিই প্রকৃত নবীপ্রেমিক এবং হাদীসের অনুসারী।

আর খুঁজে খুঁজে রাসূল সাঃ থেকে প্রমাণিত আমলকে বর্জনকারীর নাম সুন্নত বিদ্বেষী হতে পারে, আহলে হাদীস কখনোই হতে পারে না।

والله اعلم بالصواب

উত্তর লিখনে

লুৎফুর রহমান ফরায়েজী

পরিচালকতালীমুল ইসলাম ইনষ্টিটিউট এন্ড রিসার্চ সেন্টার ঢাকা।

ইমেইল- ahlehaqmedia2014@gmail.com

lutforfarazi@yahoo.com

আরও জানুন

টাইগার/স্পিড/রেডবুল ইত্যাদি এনার্জি ড্রিংকস খাওয়া কি হালাল?

প্রশ্ন محمد حنجالا টাইগার, স্পিড, রেডবুল এসব এনার্জি ড্রিংকস পান করা কি হালাল? এসব পণ্যের …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আহলে হক্ব বাংলা মিডিয়া সার্ভিস