হোম / আহলে হাদীস (page 47)

আহলে হাদীস

হাদীস ও আছারে সাহাবার আলোকে বিতর নামায পড়ার পদ্ধতি

 মাওলানা মুহাম্মাদ ইউসুফ লুধিয়ানভী রাহ. বিতরের নামাযে দুই রাকাতের পর আত্তাহিয়্যাতুর জন্য বসা এবং তৃতীয় রাকাতে ফাতিহা-কিরাতের পর আল্লাহু আকবার বলে দুই হাত কান পর্যন্ত ওঠানো অতঃপর হাত বেঁধে কুনূত পাঠ করা সহীহ হাদীস ও আসারে সাহাবা দ্বারা প্রমাণিত। বিস্তারিত দলিল নিম্নে আলোচিত হল বিতরের দ্বিতীয় রাকাতে বৈঠক–প্রসঙ্গ   বিতরের দ্বিতীয় রাকাতে আত্তাহিয়্যাতুর জন্য বসা জরুরি। শরীয়তের যেসব উসূল ও আদিল্লা তথামূলনীতি ও দলীল-প্রমাণ দ্বারা বিষয়টি প্রমাণিত তা সংক্ষেপে আলোচনা করছি। এক. সকল নামাযে দুই রাকাতের পর বৈঠক অপরিহার্য। এই মূলনীতি বহু হাদীসে পাওয়া যায়। কিছুহাদীস হাওয়ালাসহ উল্লেখ করা হল। ১. উম্মুল মুমিনীন হযরত আয়েশা সিদ্দীকা রা. বলেন, নবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বলতেন, “প্রতি দু’ রাকাতে রয়েছে“আত্তাহিয়্যাতু।’” …

আরো পড়ুন

বিতর নামায এক রাকাত না তিন রাকাত?

লেখক-মাওলানা মুহাম্মাদ ইউসুফ লুধিয়ানভী রাহ.   নবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বিতরের নামায তিন রাকাত পড়তেন, এক রাকাত পড়া প্রমাণিত নয়। তদ্রূপ যেসব রেওয়ায়েতে তিন রাকাতের অধিক, যথা পাঁচ, সাত বা নয় রাকাত পড়ার কথা বলা হয়েছে সেখানেও মূল বিতর তিন রাকাত। বর্ণনাকারী পূর্বের বা পরের রাকাতসমূহ মিলিয়ে সমষ্টিকে ‘বিতর’ বলে …

আরো পড়ুন

সহীহ হাদীসের আলোকে বিতর নামায তিন রাকাত

মাওলানা আব্দুল মালেক দা.বা. রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম সাধারণত তাহাজ্জুদের পর বিতর নামায পড়তেন। এটি ছিল নবীজীর সাধারণ অভ্যাস। বয়স ও পারিপার্শ্বিক বিভিন্ন অবস্থার কারণে তাহাজ্জুদের রাকাতসংখ্যা কম-বেশি হত। কিন্তু বিতর সর্বদা তিন রাকাতই পড়তেন। এক রাকাত বিতর পড়া নবীজী থেকে প্রমাণিত নয়। যে সব রেওয়ায়াতে পাঁচ, সাত বা নয় …

আরো পড়ুন