প্রচ্ছদ / প্রশ্নোত্তর / দীর্ঘমেয়াদী ঋণ এবং হিসেব চলতি থাকলে কী যাকাত আবশ্যক হয় না?

দীর্ঘমেয়াদী ঋণ এবং হিসেব চলতি থাকলে কী যাকাত আবশ্যক হয় না?

প্রশ্ন

আস্-সালামু আলাইকুম ওয়ারাহমাতুল্লাহি ওবারাকাতহু

বিষয়: যাকাত বিষয়ক মাসআলা

মুহতারাম,

আব্দুর রহিম সাহেব একজন ব্যবসায়ী। তার প্রধানত ব্যবসা হল,নিজ জায়গাতে বাড়ী/দোকান নির্মান করা আর ভাড়া দেওয়া। এখানে আব্দুর রহিম সাহেবের এক বৎসরের আয়-ব্যয়ের হিসাব দেওয়া হল। অনুগ্রহ করে তার যাকাতের পরিমানটা বের করে দিন। আল্লাহ্ আপনাদের উত্তম জাযা দান করুন।

গত যাকাত বর্ষে আব্দুর রহিম সাহেব বাড়ী ভাড়া পান প্রতিমাসে ৭৭০,০০০/- টাকা করে। তার স্ত্রী ও কন্যাদের ব্যবহৃত স্বর্নের গহনার পরিমান ০৮ ভরি। ব্যাংকে ডিপিএস আছে ১৫০,০০০/-টাকার

আব্দুর রহিম সাহেবের গত বৎসরের ব্যয় সমূহ: (বাৎসরিক ব্যয়)

১। পারিবারিক খরচ                                          : ৭০০,০০০/- টাকা

২। বিবিধ ব্যবসায়িক খরচ                                :১০,০০,০০০/-

৩। ব্যাংকের দীর্ঘ মেয়াদী ঋনের কিস্তি পরিশোধ     :৬৬৪,০০০/-

#  বাড়ী ও দোকানের এ্যাডভান্স হিসাবে গ্রহন করেন৫২,৫০,০০০/- টাকা। যার কিছু অল্প ও দীর্ঘ মেয়াদী।

# বাড়ী নির্মানের জন্য দীর্ঘ মেয়াদী ব্যাংক ঋণ গ্রহন করেছেন৫০,০০,০০০/- টাকা

# বর্তমানে মালামাল কিনতে দোকানে ঋন আছে ১৩,০০,০০০/-টাকা

# বর্তমানে বিভিন্নজনের কাছে  ঋনী আছেন ১২,০০,০০০/- টাকা

মাসিক বাড়ী ভাড়ার ৭৭০,০০০/- টাকা থেকে পারিবারিক খরচবাদ দিয়ে সম্পূর্ন টাকাই তিনি নতুন বাড়ী নির্মানে ব্যয় করেন। এটাকা তিনি কখনও জমাতে পারেন না।

উত্তর

وعليكم السلام ورحمة الله وبركاته

بسم الله الرحمن الرحيم

বছর শেষে যেদিন বছর পূর্ণ হবে, সেদিন এখনি পরিশোধযোগ্য ঋণ ছাড়া যত টাকা ব্যাংকে জমা আছে, এবং যে স্বর্ণ রয়েছে এর থেকে চল্লিশ ভাগের এক ভাগ যাকাত হিসেবে আদায় করতে হবে।

উপরোক্ত বিবরণে আব্দুর রহীম সাহেব বেশ কিছু টাকা ভাড়া পান, আবার তার স্ত্রীর স্বর্ণ আছে, আবার তিনি অনেক টাকার ঋণীও। কিন্তু সেই ঋণ এখনি আদায়ে তিনি বাধ্য নন। বরং তা দীর্ঘমেয়াদী কিস্তির মাধ্যমে পরিশোধযোগ্য ঋণ। দীর্ঘমেয়াদী ঋণ যাকাত ওয়াজিব হবার জন্য প্রতিবন্ধক নয়।

সেই হিসেবে যাবতীয় খরচ বাদে বছরান্তে হাতে যত টাকা থাকবে, তত টাকার উপরই যাকাত আদায় করতে হবে। যদি এক লাখ টাকা থাকে, তাহলে আড়াই হাজার টাকা আদায় করে দিতে হবে।

وفي رد المحتار- ( قوله أو مؤجلا إلخ ) عزاه في المعراج إلى شرح الطحاوي ، وقال : وعن أبي حنيفة لا يمنع وقال الصدر الشهيد : لا رواية فيه ، ولكل من المنع وعدمه وجه، زاد القهستاني عن الجواهر : والصحيح أنه غير مانع (رد المحتار-كتاب الزكاة، مطلب الفرق بين السبب والشرط والعلة-3/177، بدائع الصنائع-2/86

والله اعلم بالصواب
উত্তর লিখনে
লুৎফুর রহমান ফরায়েজী

পরিচালক ও প্রধান মুফতী – মা’হাদুত তালীম ওয়াল  বুহুসিল ইসলামিয়া ঢাকা।

উস্তাজুল ইফতা– জামিয়া কাসিমুল উলুম আমীনবাজার ঢাকা।

উস্তাজুল ইফতা– জামিয়া ফারূকিয়া দক্ষিণ বনশ্রী ঢাকা।

আরও জানুন

মরণোত্তর চক্ষুদান করার হুকুম কী?

প্রশ্ন মুফতী সাহেবের কাছে আমার প্রশ্ন হল, মরণোত্তর চক্ষুদান করার হুকুম কী? দয়া করে জানালে …