প্রচ্ছদ / প্রশ্নোত্তর / অন্ধ ব্যক্তির উপর হজ্ব করা ফরজ নয়?

অন্ধ ব্যক্তির উপর হজ্ব করা ফরজ নয়?

প্রশ্ন

নাম ইখতিয়ার

মিরপুর – ০২, ঢাকা

আসসালামু আলাইকুম

অন্ধের ওপর হজ ফরজ নয় :যত ধনী থাকুক  না কেনI

ব্যাখাসহ বিস্তারিত জানালে উপকৃত হব ।

উত্তর

وعليكم السلام ورحمة الله وبركاته

بسم الله الرحمن الرحيم

কথাটির মানে হল, যদি কোন ব্যক্তি অন্ধ থাকা অবস্থায় হজ্ব করার মত অর্থ সম্পদের মালিক হয়, তাহলে তার উপর হজ্ব ফরজ নয়। কারণ হজ্ব করার জন্য পূর্ণ সুস্থ্যতা আবশ্যক। আর অন্ধত্ব সেই সুস্থতার পথে প্রতিবন্ধক। তাই তার উপর হজ্ব করা ফরজ নয়।

কিন্তু যদি চোখে দেখতে পাবার সময় হজ্ব ফরজ হয়, কিন্তু অলসতা করে হজ্ব করেনি। তারপর অন্ধ হয়ে গেছে। সেই সাথে সে হজ্ব করার সকল শর্ত রয়েছে। তাহলে উক্ত ব্যক্তি যদি নিজে না পারে, তাহলে অন্যকে দিয়ে বদলী হজ্ব করিয়ে নিবে।

وَلِلَّهِ عَلَى النَّاسِ حِجُّ الْبَيْتِ مَنِ اسْتَطَاعَ إِلَيْهِ سَبِيلًا  [٣:٩٧]

আর এ ঘরের হজ্ব করা হলো মানুষের উপর আল্লাহর প্রাপ্য;যে লোকের সামর্থ রয়েছে এ পর্যন্ত পৌছার। {সূরা আলে ইমরান-৯৭}

وَمُرَكَّبَةٌ مِنْهُمَا كَالْحَجِّ. وَالْإِنَابَةُ تَجْرِي فِي النَّوْعِ الْأَوَّلِ فِي حَالَتَيْ الِاخْتِيَارِ وَالِاضْطِرَارِ وَلَا تَجْرِي فِي النَّوْعِ الثَّانِي وَتَجْرِي فِي النَّوْعِ الثَّالِثِ عِنْدَ الْعَجْزِ، كَذَا فِي الْكَافِي وَلِجَوَازِ النِّيَابَةِ فِي الْحَجِّ شَرَائِطُ. (مِنْهَا) : أَنْ يَكُونَ الْمَحْجُوجُ عَنْهُ عَاجِزًا عَنْ الْأَدَاءِ بِنَفْسِهِ وَلَهُ مَالٌ، (الفتاوى الهندية-1/257)

وَالْمُرَكَّبَةُ مِنْهُمَا) كَحَجِّ الْفَرْضِ (تَقْبَلُ النِّيَابَةَ عِنْدَ الْعَجْزِ فَقَطْ) لَكِنْ (بِشَرْطِ دَوَامِ الْعَجْزِ إلَى الْمَوْتِ) لِأَنَّهُ فَرْضُ الْعُمْرِ حَتَّى تَلْزَمَ الْإِعَادَةُ بِزَوَالِ الْعُذْرِ (وَ) بِشَرْطِ (نِيَّةِ الْحَجِّ عَنْهُ) أَيْ عَنْ الْآمِرِ (الخ) وَالزَّمَانَةِ سَقَطَ الْفَرْضُ) بِحَجِّ الْغَيْرِ (عَنْهُ) فَلَا إعَادَةَ مُطْلَقًا سَوَاءٌ (اسْتَمَرَّ بِهِ ذَلِكَ الْعُذْرُ أَمْ لَا) (رد المحتار-2/598-599)

وَالْحَاصِلُ أَنَّ مَنْ قَدَرَ عَلَى الْحَجِّ وَهُوَ صَحِيحٌ ثُمَّ عَجَزَ لَزِمَهُ الْإِحْجَاجُ اتِّفَاقًا، أَمَّا مَنْ لَمْ يَمْلِكْ مَالًا حَتَّى عَجَزَ عَنْ الْأَدَاءِ بِنَفْسِهِ فَهُوَ عَلَى الْخِلَافِ، وَأَصْلُهُ أَنَّ صِحَّةَ الْبَدَنِ شَرْطٌ لِلْوُجُوبِ عِنْدَهُ، وَلِوُجُوبِ الْأَدَاءِ عِنْدَهُمَا وَقَدَّمْنَا أَوَّلَ الْحَجِّ اخْتِلَافَ التَّصْحِيحِ وَأَنَّ قَوْلَ الْإِمَامِ هُوَ الْمَذْهَبُ (قَوْلُهُ حَتَّى تَلْزَمَ الْإِعَادَةُ بِزَوَالِ الْعُذْرِ) أَيْ الْعُذْرِ الَّذِي يُرْجَى زَوَالُهُ كَالْحَبْسِ وَالْمَرَضِ، بِخِلَافِ نَحْوِ الْعَمَى فَلَا إعَادَةَ لَوْ زَالَ عَلَى مَا يَأْتِي (رد المحتار-2/598)

وفى الفقه الاسلامى: يجوز الحج عن الغير الذى مات ولم يحج عن المريض الحى الذى عجز عن الحج لعذر وله مال…… قال الحنفية من لم يجب عليه الحج بنفسه لعذر كالمريض ونحوه وله مال يلزمه ان يحج رجلا عنه ويجزئه عن حجة الاسلام اى انه تجوز النيابة فى الحج عند العجز فقط لا عند القدرة بشرط دوام العجز الى الموت، (الفقه الاسلام وادلته-3/2097)

والله اعلم بالصواب

উত্তর লিখনে

লুৎফুর রহমান ফরায়েজী

পরিচালক-তালীমুল ইসলাম ইনষ্টিটিউট এন্ড রিসার্চ সেন্টার ঢাকা।

ইমেইল- ahlehaqmedia2014@gmail.com

lutforfarazi@yahoo.com

আরও জানুন

মরণোত্তর চক্ষুদান করার হুকুম কী?

প্রশ্ন মুফতী সাহেবের কাছে আমার প্রশ্ন হল, মরণোত্তর চক্ষুদান করার হুকুম কী? দয়া করে জানালে …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *