প্রচ্ছদ / তালাক/ডিভোর্স/হুরমত / রাগে বা নিয়ত ছাড়া তালাক দিলে কি পতিত হয় না?

রাগে বা নিয়ত ছাড়া তালাক দিলে কি পতিত হয় না?

প্রশ্ন

হুজু্র, স্বামী কোন তালাকের নিয়াত ছাড়া ছেড়ে দিয়েছি বললে কি তালাক হবে বা রাগ করে দারাও ছেড়ে দিয়েছি বলার দ্বারা  কি তালাক হবে ?

প্রশ্নকর্তা-রাহী চৌধুরী।

উত্তর

بسم الله الرحمن الرحيم

এ প্রশ্নের জবাব দিতে গিয়ে আমি আপনাকে পাল্টা একটি প্রশ্ন করছি-

নিয়ত ছাড়া কিংবা রাগের বশে কারো গলা কেটে ফেললে লোকটি মারা যাবে কি না?

এ প্রশ্নের উত্তরটা কী হবে?

নিশ্চয় আপনি বলবেন, গলা যেভাবেই কাটা যাক, রাগ করে করুক বা নিয়ত ছাড়া করুক গলা কেটে খুন হয়েই যাবে। কারণ এটি খুবই সঙ্গীন কর্ম।

ঠিক তেমনি তালাক শব্দ। এটি খুবই জঘন্য একটি শব্দ। নিকৃষ্ট হালাল বলা হয়েছে হাদীসে। এ ভয়ানক শব্দটি নিয়ত থাকুক বা না থাকুক রাগে বলুক আর ভালবেসে বলুক স্ত্রীকে উদ্দেশ্য নিয়ে মুখ দিয়ে এ শব্দ বের হলেই তালাক পতিত হয়ে যায়। হাদীসে এসেছে-

عَنْ أَبِي هُرَيْرَةَ أَنَّ رَسُولَ اللَّهِ صَلَّى اللهُ عَلَيْهِ وَسَلَّمَ قَالَ: ” ثَلَاثٌ جِدُّهُنَّ جِدٌّ وَهَزْلُهُنَّ جِدٌّ: الطَّلَاقُ، وَالنِّكَاحُ، وَالرَّجْعَةُ “

হযরত আবূ হুরায়রা রাঃ থেকে বর্ণিত। রাসূল সাঃ ইরশাদ করেছেন, তিনি বিষয় এমন যে, ইচ্ছেকৃত করলে ইচ্ছেকৃত এবং ঠাট্টা করে করলেও ইচ্ছেকৃত বলে ধর্তব্য হয়। তা হল, তালাক, বিবাহ এবং তালাকে রেজয়ীপ্রাপ্তা স্ত্রীকে ফিরিয়ে নিয়ে আসা। {সুনানে ইবনে মাজাহ, হাদীস নং-২০৩৯, সুনানে আবু দাউদ, হাদীস নং-২১৯৪}

وفي رد المحتار- ويقع طلاق من غضب خلافا لابن القيم الخ وهذا الموافق عندنا لما مر فى المدهوش، ( رد المحتار، كتاب الطلاق، مطلب فى طلاق المدهوش-4/452)

যে এলাকায় স্ত্রীকে “ছেড়ে দেয়া” বলার দ্বারা “তালাক” দেয়া উদ্দেশ্য নেয়া হয়ে থাকে, সে এলাকায় “ছেড়ে দেয়া” শব্দ বলা আর “তালাক” শব্দ বলা একই হুকুমে ধরা হবে। তাই উক্ত শব্দের দ্বারা তালাক পতিত হয়েছে ধর্তব্য হবে।একবার বললে এক তালাকে রেজয়ী, দুইবার বললে দুই তালাকে রেজয়ী, আর তিনবার বললে তালাকে মুগাল্লাজা তথা একদম নিষিদ্ধ হয়ে যাবে স্ত্রী।

ثُمَّ فَرَّقَ بَيْنَهُ وَبَيْنَ سَرَّحْتُكِ فَإِنَّ سَرَّحْتُك كِنَايَةٌ لَكِنَّهُ فِي عُرْفِ الْفُرْسِ غَلَبَ اسْتِعْمَالُهُ فِي الصَّرِيحِ فَإِذَا قَالَ ” رهاكردم ” أَيْ سَرَّحْتُك يَقَعُ بِهِ الرَّجْعِيُّ مَعَ أَنَّ أَصْلَهُ كِنَايَةٌ أَيْضًا، (رد المحتار، كتاب الطلاق، باب الكنايات-3/299 سعيد، الفتاوى الهنيدية، كتاب الطلاق، الفصل فى الطلاق بالفاظ الفارسية-1/379 رشيدية)

وَلَوْ قَالَ فِي حَالِ مُذَاكَرَةِ الطَّلَاقِ بَايَنْتُك أَوْ أَبَنْتُك أَوْ أَبَنْت مِنْك أَوْ لَا سُلْطَانَ لِي عَلَيْك أَوْ سَرَّحْتُك أَوْ وَهَبْتُك لِنَفْسِك أَوْ خَلَّيْت سَبِيلَك أَوْ أَنْتِ سَائِبَةٌ أَوْ أَنْتِ حُرَّةٌ أَوْ أَنْتِ أَعْلَمُ بِشَأْنِك. فَقَالَتْ: اخْتَرْت نَفْسِي. يَقَعُ الطَّلَاقُ وَإِنْ قَالَ لَمْ أَنْوِ الطَّلَاقَ لَا يُصَدَّقُ قَضَاءً (الفتاوى الهنيدية، كتاب الطلاق، الفصل الخامس فى الكنايات-1/375، رشيدية، قاضخ خان، كتاب الطلاق، فصل فى الكنايات والمدلولات-1/468، رشيدية، الفتاوى التاتارخانية، كتاب الطلاق، باب الكنايات-3/314 إدارة القرآن كرتاشى

والله اعلم بالصواب

উত্তর লিখনে

লুৎফুর রহমান ফরায়েজী

পরিচালক-তালীমুল ইসলাম ইনষ্টিটিউট এন্ড রিসার্চ সেন্টার ঢাকা।

ইমেইল- ahlehaqmedia2014@gmail.com

lutforfarazi@yahoo.com

আরও জানুন

মরণোত্তর চক্ষুদান করার হুকুম কী?

প্রশ্ন মুফতী সাহেবের কাছে আমার প্রশ্ন হল, মরণোত্তর চক্ষুদান করার হুকুম কী? দয়া করে জানালে …

No comments

  1. হুজুর এখানে ‘ছেড়ে দিয়েছি’ এর জায়গায় ‘ছেড়ে দিবো’ বলে ফেললে সে অবস্থাতেও কি একই ফতোয়া হবে ? শুনেছিলাম ভবিষ্যৎ বাচক শব্দের উল্লেখ থাকলে তালাক পতিত হয় না এমনকি শর্তাধীন তালাকের ক্ষেত্রেও না।

  2. কেও রাগে বা দুস্টামি করে করে না সুধু স্ত্রীর হাত বা শরীরে হাত দিয়ে স্পর্শ করতেছে যেমন গোপন অংগ বা স্তন এমন সময় স্ত্রী বল্ল ছাড় ছাড় তখন সামী ছেড়ে দিয়ে বল্ল ছেড়ে দিছি এখানে তালাক বা বিবাহ বিচ্ছেদ এর কোন উদ্দেশ্য নাই মনে।উদ্দেশ্য ছিল স্ত্রী র শরীরের অংগ আপাতত ছাড়া। তবে কি স্ত্রী তালাক হয়ে যাবে?

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *