প্রচ্ছদ / ওয়াকফ/মসজিদ/ঈদগাহ / ওয়াকফকারী ব্যক্তি জুমআ আদায়ে বাঁধা দিলে জুমআ পড়ার জন্য আরেকটি মসজিদ করা যাবে কি?

ওয়াকফকারী ব্যক্তি জুমআ আদায়ে বাঁধা দিলে জুমআ পড়ার জন্য আরেকটি মসজিদ করা যাবে কি?

প্রশ্ন

আসসালামু আলাইকুমুস সালাম ওয়া রহমাতুল্লাহি ওয়া বারকাতুহু ।

সম্মানিত মুফতী সাহেব

আমি একটি জরুরী বিষয় জানতে চাই । নামঃ মোঃ শামীম রেজা, শাহজাদপুর, সিরাজগঞ্জ

প্রশ্নঃ

আমাদের এলাকায় এক ব্যক্তি ২শতাংশ জায়গা পাচ ওয়াক্ত মসজিদের জন্য দান করে পরবর্তী সময় ঐ মসজিদে জুমআর নামাজ চালু করা হয় এঅবস্থায় অনেক দিন চলে যায় পরবর্তীতে ঐ ব্যক্তি একথা বলে এ মসজিদে জুমআর নামায পড়া যাবে না। এলাকার মানুষ তাকে বুঝালে সে রাজি হয় না । এদিকে জুমআর দিন মসজিদে জায়গা সংকুলান হয় হচ্ছে না এমনকি মসজিদের নিদির্ষ্ট কোন রাস্তা নেই । এমতাবস্থায় ঐ মসজিদ থেকে ১৭০গজ দুরুত্বে এ মসজিদ স্থানান্তর করতে পারব কি না বা নতুন কোন মসজিদ স্থাপন করে চালু করতে পারবো কি না এবং ঐ মসজিদের আসবাব পত্র এ নতুন মসজিদে ব্যবহার করতে পারবো কি না এবং ঐ মসজিদের হুকুম কি হবে ? এবং মসজিদে কোন মক্তব চালু করতে পারবো কি না ? দলীলসহ বিস্তারিত জানতে চাই ।

নিবেদকঃ মোঃ শামীম রেজা থানাঃ শাহজাদপুর জেলাঃ সিরাজ গঞ্জ।

উত্তর

وعليكم السلام ورحمة الله وبركاته

بسم الله الرحمن الرحيم

আসলে মসজিদের জন্য কোন স্থান আলাদা করে দিয়ে তাতে নামাযের অনুমতি প্রদানের মাধ্যমেই স্থানটি মসজিদে শরয়ীতে পরিণত হয়ে যায়। সেই মসজিদটিকে নিজস্ব কোন কাজে আর ব্যবহার করার কোন অধিকার দানকারী ব্যক্তির থাকে না।

তবে যদি ওয়াকফকারী ব্যক্তি ওয়াকফ করার সময় এ মসজিদটি শুধু পাঞ্জেগানা নামাযের জন্য বলে শর্তারোপ করে থাকে। তাহলে তার অনুমতি ছাড়া এতে জুমআ পড়া যাবে না।

প্রথমে ওয়াকফকারী ব্যক্তিকে বিষয়টি বুঝাতে হবে যে, এতে জুমআ পড়ার যেন অনুমতি প্রদান করে।

যদি এতে সক্ষম না হোন। তাহলে এ মসজিদটিকে পাঞ্জেগানা সাব্যস্ত করে দূরে একটি জুমআর মসজিদ নির্মাণ করা জায়েজ হবে।

তবে প্রথম মসজিদটিকে বিরান করা যাবে না। সেটিতে পাঁচ ওয়াক্ত জামাত চালু রাখতে হবে। বাকি জুমআর নামায নতুন মসজিদে পড়া হবে।এবং তাতে পাচ ওয়াক্ত নামাযও জারি রাখবে।বাকি প্রথম মসজিদে পাঞ্জেগানা পড়া উত্তম হবে যদি তা নিকটবর্তী হয়।

এক মসজিদ বিরান হয়ে গেলেই কেবল সে মসজিদের জন্য ওয়াকফকৃত বস্তু অন্য মসজিদের জন্য নেয়া জায়েজ হয়ে থাকে। যেহেতু এ মসজিদকে বিরান করা যাবে না, তাই পুরান মসজিদের আসবাব নতুন মসজিদে নেয়া জায়েজ হবে না। বরং নতুন মসজিদের জন্য নতুন করে চাঁদা তুলে মসজিদ নির্মাণ করতে হবে।

আর মসজিদে মক্তব তৈরী না করে মসজিদের পাশে ঘর করে মক্তব নির্মাণ করাই উত্তম। তবে যদি মক্তবের জন্য আলাদা স্থান না পাওয়া যায়, তাহলে প্রয়োজনের খাতিরে মসজিদে কুরআন শিক্ষা করানো জায়েজ আছে। তবে মসজিদের পূর্ণ সম্মান ও এহতিরামের প্রতি খেয়াল রাখতে হবে।

وَمَنْ أَظْلَمُ مِمَّنْ مَنَعَ مَسَاجِدَ اللَّهِ أَنْ يُذْكَرَ فِيهَا اسْمُهُ وَسَعَى فِي خَرَابِهَا أُولَئِكَ مَا كَانَ لَهُمْ أَنْ يَدْخُلُوهَا إِلَّا خَائِفِينَ لَهُمْ فِي الدُّنْيَا خِزْيٌ وَلَهُمْ فِي الْآخِرَةِ عَذَابٌ عَظِيمٌ (سورة البقرة-114) 

شرط الواقف كنص الشارع أي في المفهوم والدلالة، ووجوب العمل به (رد المحتار، كتاب الوقف، مطلب فى قولهم شرط الواقف كنص الشارع-6/649، البحر الرائق، كتاب الوقف-5/245، النهر الفائق، كتاب الوقف-3/326) 

وَأَبُو يُوسُفَ – رَحِمَهُ اللَّهُ – مَرَّ عَلَى أَصْلِهِ مِنْ زَوَالِ الْمِلْكِ بِمُجَرَّدِ الْقَوْلِ أَذِنَ فِي الصَّلَاةِ أَوْ لَمْ يَأْذَنْ، وَيَصِيرُ مَسْجِدًا بِلَا حُكْمٍ؛ لِأَنَّهُ إسْقَاطٌ كَالْإِعْتَاقِ، وَبِهِ قَالَتْ الْأَئِمَّةُ الثَّلَاثَةُ. (فتح القدير، كتال الوقف، فصل فى احكام المسجد، إذَا بَنَى مَسْجِدًا لَمْ يَزُلْ مِلْكُهُ عَنْهُ-6/234)

وفى البحر الرائق- الخامس من شرائطه الملك وقت الوقف…………. اما لو وقف ضيعة غيره على جهات فبلغ الغيرفأجازه جاز بشرط الحكم والتسليم، ( البحر الرائق-5/188)

 

وعن عطاء: لما فتح الله تعالى الأمصار على يد عمر رضى الله عنه أمر المسلمين أن يبنوا المساجد وأن لا يتخذوا في مدينة مسجدين يضارّ أحدهما صاحبه. (الكشاف عن حقائق غوامض التنزيل، سورة توبة، الأية-107-2/214، تفسير روح المعانى-11/21، تفسير قرطبى-175/1)

وافاد ان المساجد تغلق يوم الجمعة إلا الجامع، (الدر المختار) (قوله تغلق) لئلا تجتمع فيها جماعة، (رد المحتار، باب الجمعة-2/157)

عن عائشة رضى الله عنه قالت: أمر رسول الله صلى الله عليه وسلم أن يتخذ المسجد فى الدور وان تطهر وتطيب، (سنن ابن ماجه، ابواب المساجد، باب تطهير المساجد وتطيبها-55)

لا يجوز نقض المسجد ولا بيعه ولا تعطيله وان خربت المحلة (تفسير قرطبى، سورة بقرة، الآية-114-1/7، تفسير المراغى-1/198، تفسير بيضاوى-1/386)

ثم الأقدام أفضل لسبقه حكما، إلا إذا كان الحادث أقرب إلى بيته، فإنه أفضل حينئذ، لسبقه حقيقة وحكما، وذكر قاضى خان وصاحب منية المفتى وغيرهما أن الأقدام افضل، (الحلبى الكبير، فصل أحكام المسجد-613

ونقل فى الذخيرة عن شمس الأئمة الحلوانى، أنه سئل عن مسجد أو حوض خرب، ولا يحتاج إليه لتفرق الناس عنه، هل للقاضى أن يصرف أوقافه إلى مسجد أو حوض آخر؟ فقال نعم، (رد المحتار، كتاب الوقف، مطلب فيما لو خرب المسجد او غيره-4/359، سعيد، فتح القدير، كتاب الوقف، احكام المسجد-6/237، فتاوى قاضى خان على همش الهندية، كتاب الوقف، فصل فى المقابر والرباطات-3/315)

فان وقفها عى مستحقى وقفه، لم يجز نقلها، (الدر المختار، كتاب الوقف-4/365، سعيد، وكذا فى النهر الفائق، كتاب الوقف-3/318، وكذا فى الجر المنتقى، كتاب الوقف-2/581)

اذا وقف كتبا وعين موضعها، فإن وقفها على أهل ذلك الموضع، لم يجز نقلها منه، لا لهم ولا لغيرهم، (رد المحتار، كتاب الوقف، مطلب فى نقل الوقف من محلها-4/366، سعيد

اما للتذكير او التدريس فلا، لإنه ما بنى له وإن جاز فيه……. ويجوز الدرس فى المسجد وإن كان فيه استعمال اللبواد والبوارى المسبلة لاجل المسجد، (البحر الرائق، كتاب الوقف، فصل فى احكام المساجد-5/419)

فلا يجوز لاحد مطلقا أن يمنع مؤمنا من عباده ياتى بها فى المسجد، لأن المسجد ما بنى إلا لها من صلاة واعتكاف وذكر شرعى وتلعليم علم وتعلمه وقرأة القرآن (البحر الرائق، كتاب الصلاة، باب ما يفسد الصلاة وما يكره فيها-2/60، شرح الأشباه والنظائر للحموى-4/63)

والله اعلم بالصواب

উত্তর লিখনে

লুৎফুর রহমান ফরায়েজী

পরিচালক-তালীমুল ইসলাম ইনষ্টিটিউট এন্ড রিসার্চ সেন্টার ঢাকা।

ইমেইল- ahlehaqmedia2014@gmail.com

lutforfarazi@yahoo.com

 

আরও জানুন

মরণোত্তর চক্ষুদান করার হুকুম কী?

প্রশ্ন মুফতী সাহেবের কাছে আমার প্রশ্ন হল, মরণোত্তর চক্ষুদান করার হুকুম কী? দয়া করে জানালে …

No comments

  1. আল্লাহ আপনাকে কবুল করুক