প্রচ্ছদ / আহলে হাদীস / মুক্তাদীর জন্য কি ইমামের পিছনে সূরা ফাতিহা পড়তে হবে?

মুক্তাদীর জন্য কি ইমামের পিছনে সূরা ফাতিহা পড়তে হবে?

প্রশ্ন

From: তামিম
বিষয়ঃ জামাতে সুরা ফাতিহা পড়া

প্রশ্নঃ
ফরয নাময যখন জামাতে আদায় করি তখন কি ইমাম সাহেবের পিছনে আমাকে সুরা ফাতেহা পরতে হবে ?

উত্তর

بسم الله الرحمن الرحيم

ইমামের ইক্তিদা অবস্থায় পিছনে কুরআনের কোন অংশই পড়তে হয় না। ইমাম যা পড়েন, সেটাই ইমামের পড়া হিসেবে সাব্যস্ত হয়ে যায়।

ইমাম পুরো কুরআন পড়লে মুসল্লিগণেরও পুরো কুরআনের সওয়াবের অংশীদার করা হয়।

কারণ, ইমামের কিরাতই মুক্তাদীর কিরাত হিসেবে সাব্যস্ত হয়।

সেই হিসেবে ইমামের পিছনে সূরা ফাতিহা পড়তে হয় না। ইমাম পড়লেই মুক্তাদীর পড়া হয়ে যায়। ইমামের কুরআন পড়া অবস্থায় মুসল্লিগণ চুপ থাকবে, আর যদি ইমামের কিরাত শোনা না যায়, তাহলেও চুপ করে থাকবে।

وَإِذَا قُرِئَ الْقُرْآنُ فَاسْتَمِعُوا لَهُ وَأَنصِتُوا لَعَلَّكُمْ تُرْحَمُونَ [٧:٢٠٤]

আর যখন কোরআন পাঠ করা হয়, তখন তাতে কান লাগিয়ে রাখ এবং নিশ্চুপ থাক যাতে তোমাদের উপর রহমত হয়। [সূরা আরাফ-২০৪]

এ আয়াত সম্পর্কে হযরত ইবনে আব্বাস রা. এর বক্তব্য তাফসীরে তাবারী (৯খ. ১০৩পৃ.) ও তাফসীরে ইবনে কাসীরে (২খ. ২৮পৃ.) এভাবে উদ্ধৃত হয়েছে-

وإذا قرئ القرآن فاستمعوا له وأنصتوا لعلكم ترحمون ” يعني في الصلاة المفروضة

অর্থ : যখন কুরআন পড়া হয় তখন তা মনোযোগ দিয়ে শোন এবং চুপ থাক, যাতে তোমাদের প্রতি করুণা করা হয় অর্থাৎ ফরজ নামাযে।

হযরত ইবনে মাসঊদ রা. এর মতও তাই। তাফসীরে তাবারীতে বলা হয়েছে:

صلى ابن مسعود، فسمع أناسا يقرءون مع الامام، فلما انصرف، قال: أما آن لكم أن تفقهوا ؟ أما آن لكم أن تعقلوا ؟ وإذا قرئ القرآن فاستمعوا له وأنصتوا كما أمركم الله

অর্থাৎ হযরত ইবনে মাসঊদ রা. নামায পড়ছিলেন, তখন কতিপয় লোককে ইমামের সঙ্গে কেরাত পড়তে শুনলেন। নামায শেষে তিনি বললেন : তোমাদের কি অনুধাবন করার সময় আসেনি, তোমাদের কি বোঝার সময় হয় নি? যখন কুরআন পড়া হয় তখন তা মনোযোগ দিয়ে শুনবে এবং নীরব থাকবে, যেভাবে আল্লাহ তোমাদেরকে আদেশ করেছেন। (৯ খ. ১০৩ পৃ.)

عَنْ جَابِرٍ قَالَ: قَالَ رَسُولُ اللَّهِ صَلَّى اللهُ عَلَيْهِ وَسَلَّمَ: «مَنْ كَانَ لَهُ إِمَامٌ، فَقِرَاءَةُ الْإِمَامِ لَهُ قِرَاءَةٌ»

হযরত জাবের রাঃ থেকে বর্ণিত। রাসূল সাঃ ইরশাদ করেছেন, যার ইমাম রয়েছে, তার ইমামের কিরাত মানেই হল তার কিরাত। {মুয়াত্তা মালিক, হাদীস নং-১২৪, মুসনাদে আহমাদ, হাদীস নং-১৪৬৪৩, সুনানে ইবনে মাজাহ, হাদীস নং-৮৫০, তাহাবী শরীফ, হাদীস নং-১২৯৪,মুজামে ইবনুল আরাবী, হাদীস নং-১৭৫৫,সুনানে দারা কুতনী, হাদীস নং-১২৩৩,মুসন্নাফ আব্দুর রাজ্জাক, হাদীস নং-২৭৯৭,মারেফাতুস সুনান ওয়াল আসার, হাদীসনং-৩৭৬৪, সুনানে কুবরা লিলবায়হাকী,হাদীস নং-২৮৯৭, মুসন্নাফ ইবনে আবীশাইবা, হাদীস নং-৩৭৭৯, মুসনাদে আবীহানীফা, হাদীস নং-২৫}

তবেই ইমাম যদি সূরা ফাতিহা এবং এর সাথে সূরা না মিলায় তাহলে নামায অসম্পূর্ণ  থাকবে। তাই ইমামের  জন্য আবশ্যক হল, সূরা ফাতিহা এবং তার সাথে অতিরিক্ত সূরা মিলানো।

ঠিক একইভাবে ইকাকী নামায আদায় করলেও সূরা ফাতিহা এবং তার সাথে অতিরিক্ত সূরা মিলানো আবশ্যক।

عَنْ عُبَادَةَ بْنِ الصَّامِتِ: أَنَّ رَسُولَ اللَّهِ صَلَّى اللهُ عَلَيْهِ وَسَلَّمَ  قَالَ: «لاَ صَلاَةَ لِمَنْ لَمْ يَقْرَأْ بِفَاتِحَةِ الكِتَابِ»

উবাদা বিন সামেত রাঃ থেকে বর্ণিত। রাসূল সাঃ ইরশাদ করেছেন, সূরা ফাতিহা না পড়লে নামায হবে না। [বুখারী, হাদীস নং-৭৫৬]

أَنَّ عُبَادَةَ بْنَ الصَّامِتِ، أَخْبَرَهُ أَنَّ رَسُولَ اللهِ صَلَّى اللهُ عَلَيْهِ وَسَلَّمَ قَالَ: «لَا صَلَاةَ لِمَنْ لَمْ يَقْرَأْ بِأُمِّ الْقُرْآنِ» وَحَدَّثَنَاهُ إِسْحَاقُ بْنُ إِبْرَاهِيمَ، وَعَبْدُ بْنُ حُمَيْدٍ، قَالَا: أَخْبَرَنَا عَبْدُ الرَّزَّاقِ، أَخْبَرَنَا مَعْمَرٌ، عَنِ الزُّهْرِيِّ، بِهَذَا الْإِسْنَادِ مِثْلَهُ وَزَادَ فَصَاعِدًا

উবাদা বিন সামেত রাঃ থেকে বর্ণিত। রাসূল সাঃ ইরশাদ করেছেন, সূরা ফাতিহা না পড়লে নামায হবে না, [আরেক বর্ণনায় এসেছে] এবং অতিরিক্ত সূরা না পড়লেও নামায হবে না। [সহীহ মুসলিম, হাদীস নং-৩৯৪]

 

এ বিষয়ে বিস্তারিত জানতে হলে পড়ুন-

১- সহীহ হাদীসের আলোকে ইমামের পিছনে সূরা ফাতিহা পড়ার বিধান

২- ইমামের পিছনে সূরা ফাতিহা না পড়লে কি মুক্তাদীর নামায হবে না?

৩- ইমামের পিছনে সূরা ফাতিহা পড়া বিষয়ে লা মাযহাবীদের প্রতারণা

৪- রুকু পেলে কি রাকাত পাওয়া যায়?

৫- ইমামের পিছনে সূরা ফাতিহা পড়া বিষয়ে মুযাফফর বিন মুহসিনের জালিয়াতি

৬- সূরা ফাতিহা কি কিরাত নয়?

৭- সূরা ফাতিহা কি কুরআন নয়?

والله اعلم بالصواب
উত্তর লিখনে
লুৎফুর রহমান ফরায়েজী

পরিচালক ও প্রধান মুফতী-তা’লীমুল ইসলাম ইনস্টিটিউট এন্ড রিসার্চ সেন্টার ঢাকা।

ইমেইল– ahlehaqmedia2014@gmail.com

আরও জানুন

কবর না দিয়ে ফ্রিজিং করে রাখা লাশের সুওয়াল জওয়াব হবে কি?

প্রশ্ন মুহতারামের কাছে আমার প্রশ্ন হল, কোন ব্যক্তি মৃত্যুবরণ করার পর তাকে যদি ফ্রিজিং করে …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আহলে হক্ব বাংলা মিডিয়া সার্ভিস