হোম / ফযীলত ও মানাকেব

ফযীলত ও মানাকেব

শহীদের মর্যাদা ও ফযীলত

আল্লামা মনজূর নূমানী রহঃ যদি দ্বীনের উপর অবিচল থাকার কারণে আল্লাহ পাকের কোনো বান্দা-বান্দীকে হত্যা করা হয়, অথবা দ্বীনের পথে জিহাদ ও মেহনত করতে গিয়ে কারো মৃত্যু হয়, তবে শরীয়তের পরিভাষায় তাকে শহীদ বলে। আল্লাহ পাকের দরবারে শহীদের অনেক অনেক মর্যাদা। কোরআন শরীফে আল্লাহ পাক ইরশাদ করেন, وَلَا تَحْسَبَنَّ الَّذِينَ …

আরো পড়ুন

সন্তান জানাযা পড়ালে মৃত পিতার কোন ফায়দা হয়?

প্রশ্ন From: আব্দুল বাতেন বিষয়ঃ জানাজার নামাজ প্রশ্নঃ ছেলে যদি মৃত পিতার জানাজা নামাজের ইমামতি করে তাহলে কি মৃত পিতার কোন ফায়েদা বা লাভ হয়ে থাকে ? আমি বিষয় টা বিস্তারিত ভাবে জানতে চাই। উত্তর بسم الله الرحمن الرحيم সন্তান জানাযার নামায পড়ালে মৃত পিতার কোন ফায়দা হবে মর্মে কোন …

আরো পড়ুন

দ্বীনরক্ষা ও প্রতিষ্ঠার জন্য শক্তি ব্যয় করা

আল্লামা মনজূর নূমানী রহঃ আমরা যে সত্য ধর্ম গ্রহণ করেছি এবং যে পরকালমুখী সার্বজনীন জীবন ব্যবস্থা অনুসরণ করছি, তা যেন সর্বাস্থায় সুরক্ষিত থাকে এবং ক্রমেই যেন পৃথিবীময় বিস্তৃতি ও প্রতিষ্ঠা লাভ করে এজন্য সর্ব শক্তি নিয়োগ করা আমাদের একান্ত কর্তব্য । দ্বীনী পরিভাষায় একে ‘জিহাদ’ বলে। মুমিনদের প্রতি জিহাদ আল্লাহ …

আরো পড়ুন

ভূমিকম্পে মৃত ব্যক্তি কী শহীদ?

প্রশ্ন From: পাভেল বিষয়ঃ শহীদী মৃত্যৃ প্রশ্নঃ ভূমিকম্পে মারা যাওয়া ব্যক্তি কি শহীদ? উত্তর بسم الله الرحمن الرحيم হ্যাঁ, ভূমিকম্পে মারা যাওয়া ব্যক্তির শহীদের মর্যাদা পাবে। أن جابر بن عتيك أخبره :أن رسول الله صلى الله عليه و سلم قال الشهداء سبعة سوى القتل في سبيل الله المطعون شهيد والغرق شهيد وصاحب …

আরো পড়ুন

সন্তান গর্ভধারণের ফযীলত কী?

প্রশ্ন From: আলতাফ হোসাইন বিষয়ঃ সন্তান গর্ভেধারণের ফযীলত প্রশ্নঃ সন্তান ভুমিষ্ট হওয়ার সময় মায়েদের যে কষ্ট হয় তার ফজিলত কি? উত্তর بسم الله الرحمن الرحيم عَنْ أَنَسِ بْنِ مَالِكٍ، أَنَّ سَلَامَةَ حَاضِنَةَ إِبْرَاهِيمَ ابْنِ النَّبِيِّ صَلَّى اللهُ عَلَيْهِ وَسَلَّمَ قَالَتْ: يَا رَسُولَ اللَّهِ، تُبَشِّرُ الرِّجَالَ بِكُلِّ خَيْرٍ وَلَا تُبَشِّرُ النِّسَاءَ؟ …

আরো পড়ুন

মিসওয়াক করে নামায পড়লে সত্তর গুণ বেশি সওয়াব হয়?

প্রশ্ন From: মুহাম্মদ মিজানুর রহমান বিষয়ঃ মেসওয়াক এর ফযিলত প্রশ্নঃ আসসালামু আলাইকুম ওয়ারাহমাতুল্লাহ। মুহতারাম মুফতি সাহেব এর নিকট আমার প্রশ্ন হল, মেসওয়াক করে নামাজ পড়লে ৭০ গুন সোয়াব হয় এই কথার কোন সহি দলিল আছে কি জানতে চাই। উত্তর وعليكم السلام ورحمة الله وبركاته بسم الله الرحمن الرحيم হ্যাঁ, এটি সহীহ …

আরো পড়ুন

তাকওয়া ও খোদাভীতি

আল্লামা মনজূর নূমানী রহঃ তাকওয়া ও খোদাভীতি ইসলামের মৌলিক শিক্ষার মধ্যে গণ্য। এর দ্বারা উদ্দেশ্য হলো, আল্লাহ তাআলার আযাব ও আখেরাতের জবাবদিহিতাকে স্মরণ করে সকল প্রকার মন্দকর্ম থেকে বিরত থাকা এবং আল্লাহ পাকের সমস্ত বিধানাবলি মেনে চলা। অর্থাৎ যে বিষয়গুলি আল্লাহ পাক আমাদের উপর ফরজ করেছেন এবং আমাদের প্রত্যেকের জন্য …

আরো পড়ুন

কুরআনের হিফজ ভুলে গেলে গোনাহ হয়?

প্রশ্ন মুফতী সাহেবের কাছে আমার প্রশ্ন হল, হাদীসের মধ্যে এসেছে যে,যে ব্যক্তি কুরআন পড়ার পর ভুলে যায়, এর চেয়ে আর কোন বড় গোনাহ নেই। এখন আমার প্রশ্ন হল, আমরা ছোটকালে অনেক সূরা মুখস্ত করেছি। এখন ভুলে গেছি। কিন্তু কুরআন তিলাওয়াত করতে পারি। এবং করিও। এখন আমরাও হাদীসের ভাষায় উক্ত গোনাহের …

আরো পড়ুন

নামাযের গুরুত্ব ও প্রভাব

আল্লামা মনজূর নূমানী রহঃ আল্লাহ ও তাঁর রাসুলের উপর ঈমান আনা এবং তাওহীদ ও রেসালাতের সাক্ষ্য দান করার পর ইসলামে সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ বিষয় হলো নামায। এটা আল্লাহ পাকের জন্য খাস একটি ইবাদত। কোরআন শরীফের পঞ্চাশটিরও বেশি আয়াতে এবং নবীজীর শতাধিক হাদীসে দৈনিক পাঁচওয়াক্ত নামায যথাযথভাবে আদায়ের উপর জোর তাগিদ দেয়া …

আরো পড়ুন

দ্বীন শেখার গুরুত্ব ও ফজীলত

আল্লামা মনজূর নূমানী রহঃ হে আমার দ্বীনি ভাই! এটা ঠিক যে, সাইয়েদ হওয়ার জন্য সাইয়েদ বংশে জন্ম নেওয়া (এবং বাঙ্গালী হওয়ার জন্য বাংলা ভাষায় কথা বলাই) যথেষ্ট। কিন্তু কেউ যদি দাবী করে, আমি অমুক ভাষায় কথা বলি, অমুক বংশে জন্ম আমার, সুতরাং আমি মুসলমান, মুসলমান হওয়ার জন্য আমাকে এর বেশি …

আরো পড়ুন

যার উপর কুরবানী আবশ্যক নয় তিনি জিলহজ্জের প্রথম দশদিনের রোযা রাখতে পারবেন না?

প্রশ্ন আমার ওপর কোরবানি ফরজ না।।। আমি কি এই মাসে রোজা রাখতে পারব??? অতি দ্রুত জানালে ভালো হয়।।। যেহেতু আগামীকাল কাল থেকেই মাস শুরু।। উত্তর بسم الله الرحمن الرحيم হ্যাঁ, রোযা রাখতে পারবেন। এ দশদিন বেশি বেশি ইবাদত করা বছরের অন্যান্য সময়ের চেয়ে বেশি ফযীলতপূর্ণ। বেশি বেশি রোযা রাখা, রাতে …

আরো পড়ুন

কুরবানী ঈদের দিন রোযা রেখে কুরবানীর গোশত দিয়ে ইফতার করার হুকুম কী?

প্রশ্ন মুফতী সাহেবের কাছে প্রশ্ন হল,আমাদের এলাকায় প্রসিদ্ধ যে,কুরবানীর ঈদের দিন রোযা রাখা উত্তম। আর সময়সীমা হল,কুরবানী দিয়ে তার গোস্ত পাকানো পর্যন্ত। গোস্ত দিয়ে খানা খাওয়ার আগ পর্যন্ত উপোষ থাকার নাম কুরবানী ঈদের দিনের রোযা বলে প্রচলিত রয়েছে। এ বিষয়ে সঠিক কথা কী হবে? জানালে কৃতজ্ঞ হবো। উত্তর بسم الله …

আরো পড়ুন