হোম / প্রবন্ধ নিবন্ধ

প্রবন্ধ নিবন্ধ

সুবহে সাদিক ও ফজরের সময় কখন শুরু হয়? একটি তাহকীকী ফাতওয়া

ভূমিকা মাওলানা মুহাম্মাদ আবদুল মালেক الحمد لله وسلام على عباده الذين اصطفى، أما بعد! সময়মতো নামায আদায় করা প্রত্যেক মুকাল্লাফ ব্যক্তির উপর ফরয। এজন্য নামাযের সময়ের ব্যাপারে সাধারণ জ্ঞান রাখাও সকলের উপর ফরয। তবে প্রত্যেক নামাযের সময়সূচী বিস্তারিতভাবে জানা, এর শুরু-শেষ সম্পর্কে দালীলিকভাবে অবগত হওয়া এবং তার প্রচার-প্রসার করা যদিও …

আরো পড়ুন

‘হেযবুত তাওহীদ’ ইসলাম ও রাষ্ট্রের জননিরাপত্তার জন্য ক্ষতিকর একটি দল!

লুৎফুর রহমান ফরায়েজী হেযবুত তওহীদের সংক্ষিপ্ত পরিচয় টাঙ্গাইল জেলার করটিয়ার পন্নী পরিবারের সন্তান জনাব বায়জীদ খান পন্নী। জন্ম ১১ মার্চ ১৯২৫ ঈসাব্দ। একজন সাবেক সেক্যুলার রাজনীতির নেতা, একজন ঐতিহাসিক জমিদার পরিবারের লোক,  একজন বন্য পশু শিকারী, রায়ফেল হাতে দেশের বিভিন্ন বনাঞ্চলে শিকারের লোমহর্ষক অভিজ্ঞতা সম্পন্ন ব্যক্তি, ‘বাঘ-বন-বন্দুক’ নামক পুস্তক প্রণেতা, …

আরো পড়ুন

ইসলাম ও কাদিয়ানিয়্যাতঃ দু’টি সম্পূর্ণ ভিন্ন ধর্ম

হযরত মাওলানা মুহাম্মাদ ইদরীস কান্ধলবী রাহ. [বক্ষ্যমাণ প্রবন্ধটি মূলত দারুল উলূম দেওবন্দের প্রবীণ উস্তায ও মুহাক্কিক হযরত মাওলানা মুহাম্মাদ ইদরীস কান্ধলবী রাহ.-এর উর্দু রিসালা ‘ইসলাম আওর মিরযাঈয়্যত কা উসূলী ইখতেলাফ’-এর সাবলীল সংস্করণের বঙ্গানুবাদ। হযরত মাওলানা কান্ধলবী রাহ. বিগত শতকের (মৃত্যু : ১৩৯৪হি./১৯৭৪ঈ.) একজন বিখ্যাত আলেমে দ্বীন এবং উঁচু মাপের বুযুর্গ …

আরো পড়ুন

সবার জন্যই কুরআনের হেদায়াত

মাওলানা মুহাম্মাদ আব্দুল মালেক الحمد لله وسلام على عباده الذين اصطفى وأشهد أن لا إله إلا الله وأشهد أن محمدا عبده ورسوله، أما بعد সংক্ষেপে তিনটি কথা আরয করছি। প্রথম কথা, মসজিদের সাথে আমাদের সম্পর্ক কেবল রমযান কেন্দ্রিক হওয়া উচিত নয়। মসজিদের সাথে আমাদের সম্পর্ক হবে দায়েমী। দুনিয়াতে জান্নাতের নমুনা …

আরো পড়ুন

রোযা রাখার বিধান ও উপকারীতা

আল্লামা মনজূর নূমানী রহঃ ইসলামের বুনিয়াদি শিক্ষাগুলোর মাঝে কালিমা, নামায ও যাকাতের পর রোযার অবস্থান। আল্লাহ পাক বলেন, يَاأَيُّهَا الَّذِينَ آمَنُوا كُتِبَ عَلَيْكُمُ الصِّيَامُ كَمَا كُتِبَ عَلَى الَّذِينَ مِنْ قَبْلِكُمْ لَعَلَّكُمْ تَتَّقُونَ হে ঈমানদারগণ, তোমাদের উপর রোযা রাখা ফরজ যেমন ফরজ ছিলো তোমাদের পূর্ববর্তীদের উপর। সূরা বাকারা ২/১৮৩ পুরো রমজান …

আরো পড়ুন

তীব্র নিন্দা ও অপ্রীতিকর সমালোচনা যেভাবে নিবেন (লা-তাহযান বই থেকে)

ডঃ ওয়ায়েছ আলকরনী যারা অজ্ঞ ও মূর্খ তারা সকল সৃষ্টির স্রষ্টা মহান আল্লাহকেও গালি দিয়েছে, সুতরাং আমরা সাধারণ লোকজনের কাছ থেকে কী আশা করতে পারি? আমরাতো ভুল-ভ্রান্তিতে নিমজ্জিত। আপনাকে সর্বদাই এমন তীব্র সমালোচনা ও নিন্দার অসমাপনীয় ঝড়ের মুখে পড়তে হবে- যার তীব্র আক্রমণ অন্তহীন যুদ্ধের মতো। যখন আপনি উন্নতি করবেন, …

আরো পড়ুন

ভবিষ্যৎ নিয়ে দুশ্চিন্তা পরিহার করুন (লা-তাহযান বই থেকে)

ডঃ ওয়ায়েছ আলকরনী أَتَىٰ أَمْرُ اللَّهِ فَلَا تَسْتَعْجِلُوهُ “আল্লাহর আদেশ আসবেই, সুতরাং তোমরা এর জন্য ব্যস্ত হয়ে পড় না।” (সূরা-১৬ আন নাহল: আয়াত-১) (আল্লাহর আদেশ বলতে কিয়ামত অথবা কাফের ও মুশরিকদের শাস্তি অথবা ইসলামী আইন বুঝায়।) যা এখনো ঘটেনি তা নিয়ে ব্যতিব্যস্ত হবেন না, আপনি কি ফল পাকার আগেই তা …

আরো পড়ুন

মনে করুন আজই শেষ দিন (লা-তাহযান বই থেকে)

ডঃ ওয়ায়েছ আলকরনী আপনি যখন প্রত্যুষে জেগে উঠবেন তখন সন্ধ্যাকে প্রত্যক্ষ করার আশা করবেন না বরং এমনভাবে জীবনযাপন করুন যেন আজই আপনার শেষ সকাল। গতকাল ভালোয় আর মন্দে কেটে গেছে, আর আগামীকালতো এখনও আসেনি। আপনার জীবনকাল মাত্র একদিন, আপনি যেন আজই জন্মগ্রহন করেছেন আর দিনের শেষ মারা যাবেন। এ মনোভাব …

আরো পড়ুন

অতীত চিরদিনের মতো চলে গেছে (লা-তাহযান বই থেকে)

ডঃ ওয়ায়েছ আলকরনী কোনো ব্যক্তি অতীতের দুঃখজনক ঘটনাকে কেন্দ্র করে বসে বসে চিন্তা-ভাবনা করে শুধু এক ধরনের পাগলামিই দেখাতে পারে- যে পাগলামি বর্তমান জীবন-যাপন করার বা উপস্থিত মুহুর্তে বেঁচে থাকার দৃঢ় সংকল্পকে ধ্বংস করে দেয়ার মতো এক ধরনের রোগ। যাদের দৃঢ় সংকল্প আছে তারা অতীতের ঘটনাবলিকে ধুয়ে মুছে ফেলে দিয়ে …

আরো পড়ুন

একটু ভেবে দেখুন এবং কৃতজ্ঞ হোন (লা-তাহযান বই থেকে)

ডঃ ওয়ায়েছ আলকরনী আপনার প্রতি আল্লাহ্ তা’য়ালার অসংখ্য করুণার কথা স্মরণ করুন, কীভাবে সে করুণাসমূহ আপনাকে আপাদমস্তক বেষ্টন করে রেখেছে-আসলে সর্বদিক দিয়েই ঐ করুণাসমূহ আপনাকে ঘিরে রেখেছে। وَإِنْ تَعُدُّوا نِعْمَتَ اللَّهِ لَا تُحْصُوهَا “যদি তুমি আল্লাহর নিয়ামতরাজিকে গণনা করতে চাও তবে তা তুমি কখনও গণনা করে শেষ করতে পারবে না।” …

আরো পড়ুন

হে আল্লাহ! (“লা-তাহযান” বই থেকে)

ডঃ ওয়ায়েছ আলকরনী يَسْأَلُهُ مَنْ فِي السَّمَاوَاتِ وَالْأَرْضِ كُلَّ يَوْمٍ هُوَ فِي شَأْنٍ “আকাশসমূহ ও পৃথিবীতে যা কিছু আছে সবই তার কাছে সাহায্য প্রার্থনা করে। প্রতি মুহুর্তে তিনি কাজে রত।” (৫৫-সূরা আর রাহমান: আয়াত-২৯) (যেমন কাউকে সম্মান দান করা, কাউকে অপমানিত করা, নবসৃষ্টির মাধ্যমে কাউকে জীবন দান করা, কাউকেবা মৃত্যু …

আরো পড়ুন

ঈসালে সওয়াবের শরীয়তসিদ্ধ কতিপয় পদ্ধতি

মাওলানা মুহাম্মদ আব্দুর রহমান যে কোনো নেক কাজের ঈসালে সওয়াব করা জায়েয। তবে সকল পদ্ধতির গুরুত্ব ও মর্যাদা এক পর্যায়ের নয়। গত সংখ্যায় দুটি পদ্ধতি (দুআ ও সদকা) আলোচিত হয়েছে। এখানে অন্যান্য পদ্ধতি সম্পর্কে আলোচনা করা হল। এক. হজ্ব হজ্ব ইসলামের এক প্রোজ্জ্বল শিআর এবং অত্যন্ত গভীর ও হৃদয়গ্রাহী ইবাদত। …

আরো পড়ুন